০২ জুন ২০২০

কক্সবাজারে সতর্ক থাকার নির্দেশনা মানছে না অনেকে

মারাত্মক বিপর্যয়ের শঙ্কা
-

করোনাভাইরাস রোধে সারা দেশ এখন অনেকটা লকডাউন। সরকারের নির্দেশনা অনুযায়ী সেনা ও নৌবাহিনীসহ অন্যান্য আইনশৃঙ্খলা বাহিনী মাঠে রয়েছে লোকজনকে নিরাপদে ঘরে রাখতে। জোর দেয়া হচ্ছে খুব প্রয়োজন ছাড়া কেউ যেন ঘর থেকে বের না হয়। কিন্তু কক্সবাজার শহরের প্রধান সড়ক ছাড়া অলিগলি এবং উপজেলাপর্যায়ে হাটবাজারসহ গ্রাম-গঞ্জের বেশ কিছু এলাকায় জমায়েত অব্যাহত রয়েছে। মানুষের জমায়েত রোধ করা যাচ্ছে না। সতর্ক থাকার পরিবর্তে করোনাভাইরাসের ইসুটি তাদের কাছে কৌতূহলের বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে। তাদের বেশির ভাগই ঘরের ভেতর না থেকে বাইরে অবস্থান করছে মাক্স ছাড়া। মানুষের এই জমায়েত মারাত্মক বিপর্যয় ডেকে আনার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে।
অপর দিকে করোনাভাইরাসের বিস্তার রোধে সীমান্ত উপজেলা উখিয়া-টেকনাফের রোহিঙ্গা ক্যাম্পে তৎপরতা অব্যাহত রয়েছে। প্রতিদিন সকাল থেকে উখিয়া-টেকনাফের রোহিঙ্গা ক্যাম্প ও কক্সবাজার-টেকনাফের প্রধান সড়কের বাজারগুলোতে টহলসহ সচেতনতা কার্যক্রম বৃদ্ধি করা হয়েছে। বাড়িয়েছে বিশেষ বিশেষ স্থানে নজরদারি। করোনা প্রতিরোধ কার্যক্রমে নিয়োজিত নৌবাহিনীর লে. কমান্ডার ইমরান ও নয়াপাড়া আর্মি ক্যাম্প কমান্ডার ক্যাপ্টেন সাইফুদ্দিনের নেতৃত্বে দুইটি টিম এ তৎপরতা অব্যহত রেখেছে।
সংশ্লিষ্ট সূত্রে সরকার করোনা বিস্তার রোধে সব ধরনের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। এতে যান চলাচলাসহ বেশ কিছু নিষেধাজ্ঞার পাশাপাশি সবাইকে ঘরে থাকতে বলা হয়েছে। তবে টেকনাফে রোহিঙ্গা ক্যাম্পের চিত্র একটু ভিন্ন। সেখানে ঘনবসতি এবং সচেতনতার অভার রয়েছে বেশ। তাছাড়া ধর্মীয় কুসংস্কার বেশ বড় বাধা এখানে সামাজির দূরত্বসহ অনেক বিষয়ে। তাই ক্যাম্পে র্যাবের টহলের পাশাপাশি আর্মি ও নৌ টহলও বাড়ানো হয়েছে। সেখানে হোম কোয়ারেন্টিনসহ সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে কাজ চালিয়ে যাচ্ছে এসব বাহিনী।
এদিকে টেকনাফে আরো দুইজনের নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে করোনা পরীক্ষার জন্য। গত রোববার দুপুরে তাদের নমুনা কক্সবাজার মেডিক্যাল কলেজের করোনা টেস্ট ল্যাবে পাঠানো হয়েছে। এর আগে ছয়জন ব্যক্তির নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছিল। তবে সেগুলো এখনো রিপোর্ট প্রকাশ করেনি।
এই বিষয়টি নিশ্চিত করে টেকনাফ উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবারপরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা: টিটুচন্দ্র শীল বলেন, করোনা সন্দেহ দুইজনের কাছ থেকে নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষার জন্য কক্সবাজারে পাঠানো হয়েছে। আগের দিন শনিবার আরো ছয়জনের নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছিল। সেগুলো এখনো রিপোর্ট আসেনি। রিপোর্ট হাতে পেলে বিস্তারিত বলা যাবে। তবে করোনা বিস্তার রোধে স্বাস্থ্য বিভাগ ও উপজেলা প্রশাসন মিলে সীমান্তের প্রত্যাক প্রান্তে প্রচারণা চালানো হচ্ছে। এই সীমান্তে যেসব লোকজন হোম কোয়ারেন্টিনে রয়েছে তাদের সার্বক্ষণিক তদারকিও চলছে।
উখিয়ায় তাবলিগের ১১ জন কোয়ারেন্টিনে : কক্সবাজারের উখিয়ায় তাবলিগ ফেরত ১১ জনকে প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিনে পাঠানো হয়েছে। সোমবার রাতে তাবলিগের এই দলটিকে কোয়ারেন্টিনে পাঠানো হয়।
তাবলিগ সদস্যরা সকলেই কক্সবাজারের টেকনাফ উপজেলার বাসিন্দা। করোনাপ্রবণ জেলা নারায়ণগঞ্জের বিভিন্ন স্থানে তাবলিগি কাজ শেষ করে বাড়ি ফেরার পথে উখিয়া এলাকায় পৌঁছলে তারা প্রশাসনের নজরে আসে। এ সময় জিজ্ঞাসাবাদে জানায় তারা নারায়ণগঞ্জ এলাকা থেকে ফিরছিল। উখিয়ার ইনানী এলাকায় জেলা প্রশাসনের নির্ধারিত একটি কোয়ারেন্টিন সেন্টারে তাদেরকে রাখা হয়েছে।
উখিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নিকারুজ্জামান চৌধুরী জানান, যেহেতু নারায়ণগঞ্জ জেলা ইতোমধ্যে করোনা সংক্রমণ এলাকা হিসেবে চিহ্নিত হয়েছে তাই ঝুঁকির কথা বিবেচনা করে তাদেরকে বাধ্যতামূলক প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিনে পাঠানো হয়েছে। এ সময় তাদেরকে পর্যবেক্ষণে রাখা হবে। কারো শারীরিক সমস্যা দেখা দিলে সে অনুযায়ী চিকিৎসার ব্যবস্থা নেয়া হবে। আর সুস্থভাবে কোয়ারেন্টিন শেষ হলে তারা বাড়ি ফিরে যাবে।

 

 


আরো সংবাদ

একনেকে করোনাসহ ১০ প্রকল্প অনুমোদন আমফানে ক্ষতিগ্রস্থ ৫টি ঘর নির্মাণ করে দিলো সেনাবাহিনী ট্রাম্প সম্পর্কে নীরব জুকারবার্গ, প্রতিবাদে সরব ফেসবুকের কর্তাব্যক্তিরা পরকিয়ায় আসক্ত স্বামী, স্টাম্পে স্বাক্ষর রেখে স্ত্রীকে পাঠিয়েছে বাপের বাড়ি ঠাকুরগাঁওয়ে করোনায় আ’লীগ নেতার মৃত্যু করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেলেন দেশের প্রখ্যাত ইউরোলজিষ্ট মনজুর রশীদ চৌধুরী ফটিকছড়িতে সার্ভেয়ারের রহস্যজনক মৃত্যু চট্টগ্রামে পাহাড় কাটার দায়ে ৪ ব্যক্তিকে সাড়ে ১৪ লাখ টাকা জরিমানা আহলে সুন্নাতের চেয়ারম্যান আল্লামা নুরুল ইসলাম হাশেমীর ইন্তেকাল বিভিন্ন অভিযোগে আরো ১১ জনপ্রতিনিধি সাময়িকভাবে বরখাস্ত ভাঙ্গায় মাতুব্বরের বাড়ি থেকে উদ্ধার হলো ৬৫টি ঢাল সড়কি

সকল