০৫ মার্চ ২০২১
`

পঞ্চগড়ে বাড়ছে শীত বাড়ছে দুর্ভোগ

তেঁতুলিয়ায় সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ৯ ডিগ্রি সেলসিয়াস
-

পঞ্চগড়ে শীত জেঁকে বসতে শুরু করেছে। তাপমাত্রা কমে আসার কারণে দুর্ভোগ বাড়ছে। গতকাল শনিবার দেশের সর্বনি¤œ তাপমাত্রা ৯ ডিগ্রি সেলসিয়াস রেকর্ড করেছে তেঁতুলিয়া আবহাওয়া অফিস। যা এবারের শীতে দেশের সর্বনি¤œ তাপমাত্রা। আগামীকাল থেকে তাপমাত্রা আরো কমে যাওয়ার আভাস দিয়েছে আবহাওয়া অফিস। এদিকে শীতের তীব্রতা বৃদ্ধি পাওয়ায় চরম দুর্ভোগে পড়েছে ছিন্নমূল ও খেটে খাওয়া মানুষগুলো। সরকারিভাবে কিছু শীতবস্ত্র বরাদ্দ পাওয়া গেলেও এখন পর্যন্ত তা শীতার্তদের মধ্যে বিতরণ শুরু হয়নি।
হিমালয়ের সবচেয়ে কাছে অবস্থান হওয়ায় সারা দেশের মধ্যে পঞ্চগড়ে শীতের তীব্রতা প্রতি বছরই বেশি থাকে। এবারো মধ্য আশ্বিন থেকে শীতের আগমনী বার্তা লক্ষ্য করা গেলেও দিনে প্রচণ্ড রোদের কারণে শীতের তীব্রতা দেখা যায়নি। তবে অগ্রহায়ণের শেষ সপ্তাহে এসে বেড়েছে শীতের তীব্রতা। দিনের তাপমাত্রা খুব বেশি একটা না কমলেও দুপুরের পর থেকে হিমেল হাওয়ার কারণে রাতের তাপমাত্রা কমছে। পর পর দুই দিন তেঁতুলিয়ায় দেশের সর্বনি¤œ তাপমাত্রা ১০ ডিগ্রি সেলসিয়াসে নেমে এলেও গতকাল শনিবার তেঁতুলিয়ায় দেশের সর্বনি¤œ তাপমাত্রা ৯ ডিগ্রি সেলসিয়াস রেকর্ড করা হয়েছে।
গতকাল দুপুরের পর থেকে আকাশে মেঘের কারণে রোদ তেমন একটা গায়ে লাগেনি। সেই সাথে উত্তরের হিমেল হাওয়ার কারণে বিকেল থেকেই শীত অনুভূত হতে থাকে। সন্ধ্যা হওয়ার আগেই পুরো শীতের কাপড় গায়ে চড়িয়ে মানুষজনকে বাড়ি থেকে বের হতে দেখা গেছে। শীত বাড়ায় দুর্ভোগে পড়েছে ছিন্নমূল ও খেটে খাওয়া মানুষগুলো। শীতবস্ত্রের অভাবে অনেকে রাতের বেলা খড়কুটো জ্বেলে শীত নিবারণের চেষ্টা করছে। সরকারিভাবে প্রাপ্ত শীতবস্ত্র ইতোমধ্যে জেলা থেকে উপজেলা পর্যায়ে পাঠানো হয়েছে। উপজেলা থেকে এখনো বিতরণ শুরু হয়নি।
তেঁতুলিয়া আবহাওয়া পর্যবেক্ষণ কেন্দ্রের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা রহিদুল ইসলাম জানান, গত ২২ থেকে ৩০ নভেম্বর পর্যন্ত তেঁতুলিয়ায় সর্বনি¤œ গড় তাপমাত্রা ১৪.৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস হলেও ১ ডিসেম্বর থেকে এখানকার তাপমাত্রা কমতে শুরু করে। গত ৫ ও ৬ ডিসেম্বর তেঁতুলিয়ায় সর্বনি¤œ তাপমাত্রা ১০ ডিগ্রি সেলসিয়াস রেকর্ড করা হয়। শনিবার আরো ১ ডিগ্রি সেলসিয়াস কমে তেঁতুলিয়ায় দেশের সর্বনি¤œ তাপমাত্রা ৯ ডিগ্রি সেলসিয়াস রেকর্ড করা হয়েছে। ভারপ্রাপ্ত জেলা প্রশাসক রায়হানুল হক জানান, ইতোমধ্যে মন্ত্রণালয় থেকে ২১ হাজারের বেশি শীতবস্ত্র হিসেবে কম্বল পঞ্চগড়ে এসেছে। যা উপজেলা সদরে পাঠানো হয়েছে।



আরো সংবাদ