২১ অক্টোবর ২০২১, ৫ কার্তিক ১৪২৮, ১৩ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩ হিজরি
`

মুলা চাষে অতি লাভ, তৃপ্তির হাসি কৃষকের মুখে


যশোরের চৌগাছায় আধুনিক পদ্ধতিতে হাইব্রিড মুলা চাষে আগ্রহ বাড়ছে। মাত্র ৩৫ থেকে ৪০ দিনে বিঘাপ্রতি লাভ হচ্ছে ৪০ হাজার টাকা। তাই কৃষকদের মুখে ফুটে উঠেছে সুখের হাসি। উপজেলার পাতিবিলা, হাজরাখানা, নারায়নপুর, পেটভরা ও লস্কারপুর মাঠে গিয়ে দেখা যায়, দিগন্তজুড়ে শতশত বিঘা জমিতে শুধুই মুলার আবাদ।

কৃষি অফিস সূত্রে জানা যায়, এ বছর আধুনিক পদ্ধিতিতে উপজেলা ও পৌর এলাকায় ২৩২ হেক্টর জমিতে হাইব্রিড ৭ স্টার, হুয়াইট গোল্ড, পায়রা ৪০ ও আরলী ৩৫ সহ বিভিন্ন জাতের মুলা চাষ করেছেন কৃষকরা। তবে লস্কারপুর গ্রামের মাঠে সাধারণ মুলা চাষের চেয়ে মাঠটির ব্যতিক্রম হলো এ মাঠের সব কৃষকই বেড আকারে মুলা চাষ করেছেন। এতে বর্ষার পানি দুই বেডের মাঝখান দিয়ে রাখা ড্রেন দিয়ে নিস্কাশন হচ্ছে। এতে করে পানি না জমায় মুলার কোনো ক্ষতি হয় না।

জামালতা গ্রামের মুলা চাষী কৃষক হবিবর রহমান বলেন, এ বছর তিন বিঘা (৩৩ শতাংশে বিঘা) জমিতে ছয়টি খণ্ডে হাইব্রিড মুলা চাষ করেছি। এক বিঘা জমি থেকে ৩৫ মণ মুলা বিক্রি করেছি ৩৫ হাজার টাকায়। ক্ষেতে যে মুলা রয়েছে তাতে আরো ১০ মণের বেশি বিক্রি করা যাবে।

কথা হয় মুলা চাষি মতিয়ার রহমান, খেদের আলী, সুজা উদ্দিন ও রফি উদ্দীনের সাথে। তারা জানান, হাইব্রিড মুলা চাষে লাভ বেশি। এজন্য দেশি জাত ছেড়ে হাইব্রিড মুলা চাষ করেছি। মাত্র ৩৫ থেকে ৪০ দিনে এক বিঘা জমির মুলা বিক্রি করে লাভ হচ্ছে ৪০ হাজার টাকা। তাই কৃষকদের মুখে ফুটে উঠেছে সুখের হাসি।

পেটভরা গ্রামের মুলা চাষী আলা উদ্দীন, সামাউল ইসলাম বলেন, এ বছর বিঘাপ্রতি প্রায় পঞ্চাশ মণ করে মুলা হয়েছে। কিছু ক্ষেতে চেয়েও বেশি হয়েছে। জমি চাষ থেকে মুলা তুলে বিক্রি করা পর্যন্ত বিঘা প্রতি ৭/৮ হাজার টাকা খরচ হচ্ছে। বর্তমান বাজারে ৫০ মণ মুলার পাইকারি মূল্য ৫০ হাজার টাকা। ফলে এক বিঘা জমিতে মুলা চাষ করে ৩৫ থেকে ৪০ দিনে ৪০ হাজার টাকা লাভ হচ্ছে।

সোমবার চৌগাছায় মুলা কিনতে আসা পাইকারী ব্যাপারি খুলনার সিরাজুল ইসলাম, মিল্টন হোসেন ও আমির আলী বলেন, এ বছর আগাম হাইব্রিড জাতের মুলার ফলন অন্য বছরের চাইতে ভালো হয়েছে। মুকামে টান থাকায় দামও ভালো।

কথা বলতে বলতে তারা শ্রমিকদের সাথে নিজেরাই মুলা ট্রাকে উঠাচ্ছিলেন। বলতে থাকেন, আমরা এক হাজার টাকা মণ দরে কিনেছি, আমরা আড়তে বিক্রি করবো। সেখান থেকে খুচরা বিক্রেতারা কিনে বিক্রি করবেন। তিনি জানান, বাজারে খুচরা ৩৫/৪০ টাকা কেজি দরে মুলা বিক্রি হচ্ছে।

উপজেলা কৃষি অফিসার সমরেন বিশ্বাস বলেন, উপজেলায় হাইব্রিড চায়না, চাষা কৃষাণসহ বিভিন্ন জাতের মুলা চাষ করেছেন কৃষকরা। আবহাওয়া ভালো থাকায় মুলার ফলন ও ভালো দাম পেয়ে কৃষকরা বেজায় খুশি।



আরো সংবাদ


বদলে গেল নিয়ম, ভারত-পাকিস্তানের গ্রুপে অনিশ্চিত বাংলাদেশ (১৭১৬২)পাকিস্তানের ভারতীয় সাবমেরিন রুখে দেয়ার দাবি, যা বলল ভারত (১৪১৮৫)স্বস্তির জয়ে বিশ্বকাপে টিকে থাকল বাংলাদেশ (১২৮৯৫)সুপার টুয়েলভ নিশ্চিত করতে বাংলাদেশের সামনে যে সমীকরণ (১২৬৫৪)ভারতকে নাস্তানাবুদ করা পাকিস্তানি বোলার এখন ওমান দলে! (১২৫০৫)ক্লাস শুরুর পর উত্তাল ঢাবি ক্যাম্পাস (১২৪৬৯)স্কটল্যান্ডের বিরুদ্ধে হেরে আখেরে ‘লাভ’ হলো বাংলাদেশের? (১০২৮৯)অসম্মতিতে বিয়ে করায় দুই মেয়ে ও তাদের ৪ সন্তানকে পুড়িয়ে মারলেন বাবা! (৯৩৮৭)তুরস্ক-ইরান : শত্রু-মিত্র সম্পর্কের ঝুঁকি (৮৬২০)গুজব ছড়ানোর অভিযোগে বদরুন্নেসার শিক্ষিকা আটক (৭৭২৫)