২৩ এপ্রিল ২০২১
`

শৈলকুপায় আ.লীগের দুগ্রুপে সংঘর্ষ, বাড়ি-ঘর ভাংচুর

প্রতিপক্ষের হামলায় ক্ষতিগ্রস্ত একটি ঘর। - ছবি : নয়া দিগন্ত

ঝিনাইদহের শৈলকুপায় আওয়ামী লীগের দুগ্রুপে সংঘর্ষ হয়েছে। এতে চারজন আহত হয়েছেন। সংঘর্ষের সময় ২০টি বাড়ি ভাংচুর করা হয়েছে। এ সময় মালামাল লুট করা হয় বলে জানিয়েছেন ভুক্তভোগীরা। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে এলাকাটিতে পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

এলাকাবাসী জানান, ৬নং সারুটিয়া ইউনিয়নের বর্তমান চেয়ারম্যান মাহমুদুল হাসান মামুন ও গত নির্বাচনে পরাজিত প্রার্থী জুলফিকার কায়সার টিপুর মধ্যে বিরোধ চলে আসছিল। গতকাল বুধবার ব্রম্মপুর গ্রামে মামুন সমর্থক ও একই গ্রামের পেঁয়াজ মাঠে টিপু সমর্থকের ওপর হামলা চালায়। এর জেরে বৃহস্পতিবার সকালে একে অপরের বাড়িঘরে হামলা ও ভাংচুর চালায় দু’দল গ্রামবাসী।

হামলায় মিজানুর, গোলাম রসুল, বসির সর্দ্দার, মোফাজ্জেল সর্দ্দার, চুকা সর্দ্দার, সবেদ খাঁ, সালেম সর্দ্দার, মালেক সর্দ্দার, রফিকুল ইসলাম, মতিয়ার সর্দ্দার, রবিউল ইসলাম ও শামীম হোসেনের বাড়ি-ঘরসহ ২০টি বাড়ি-ঘর ভাংচুর করা হয়।

ক্ষতিগ্রস্ত গ্রামবাসীরা জানান, হামলার সময় ঘরের আসবাসপত্র ভাংচুর ও লুটপাট করা হয়েছে।

প্রতিবন্ধী মিজানুর রহমান বলেন, ‘তার দোকানের ফ্রিজসহ মালামাল ভাংচুর ও লুটপাট করেছে।’

শামীম হোসেন জানান, ‘একটি মোটরসাইকেল ভাংচুর ও স্বর্ণালংকার লুটপাট করেছে প্রতিপক্ষরা।’

লাবনী আক্তার জানান, ‘তার ১০ ভরি স্বর্ণালংকার আলমারি ভেঙ্গে নিয়ে গেছে হামলাকারীরা।’

শৈলকুপা থানার ওসি (তদন্ত) মহসিন হোসেন জানান, ‘আধিপত্য বিস্তার নিয়ে উপজেলার ব্রম্মপুর গ্রামে একে অপরের বাড়িঘরে হামলা চালায় দু’দল গ্রামবাসী।’

এ ঘটনায় বৃহস্পতিবার বিকেল পর্যন্ত লিখিত কোনো অভিযোগ পাননি বলে জানান তিনি।



আরো সংবাদ