১৬ অক্টোবর ২০২১
`

ফ্রিলান্সিংয়ে যেভাবে সফল সাগর বিন হাসেম

ফ্রিলান্সিংয়ে যেভাবে সফল সাগর বিন হাসেম - ছবি : সংগৃহীত

সাগর বিন হাসেম। স্বপ্নচারী এক তরুণ ফ্রিলান্সার। পড়েন চিটাগাং ইনস্টিটিউট অব ইঞ্জিনিয়ারিং টেকনোলজিতে। কম্পিউটার সায়েন্সের ছাত্র সাগর চাকরির পেছনে না দৌড়ে ক্যারিয়ার হিসেবে বেছে নিয়েছেন ফ্রিলান্সিংকে। ২০১৫ সাল থেকে ফ্রিলান্সিং শুরু করে এখন অনেকটাই সফল তিনি।

সম্প্রতি তরুণ এ ফ্রিলান্সার কথা বলেন নয়া দিগন্তের সাথে। জানান তার সফলতার গল্প। তিনি বলেন, ছোট বেলা থেকেই ইচ্ছা ছিল আইটি নিয়ে কাজ করার। কারো অধীনস্থ না করে নিজেকে নিজের বস হিসেবে গড়ে তোলার প্রক্রিয়া এটি। আর শান্তিপূর্ণ জীবন চলার জন্যই ফ্রিলান্সিং বেছে নেয়া!

এ সময় এক প্রশ্নের জবাবে তরুণ এই স্বপ্নচারী জানান, অসহায় মানুষের জন্য কাজ করতে ভালো লাগে তার। মানবিক সংগঠন ‘আলোকিত মানবিক অর্গানাইজেশন’-এর প্রধান আইসিটি বিষয়ক সম্পাদকও তিনি। সংগঠনটির মাধ্যমে প্রতিনিয়ত অসহায় মানুষের জন্য কাজ করে যাচ্ছে তিনি।

কেন চাকরি না করে ফ্রিলান্সিংকে ক্যারিয়ার হিসেবে বেছে নিয়েছেন এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘চাকরির পেছনে না ছুটে স্বকর্মসংস্থান সৃষ্টি ও উদ্যোক্তা হিসেবে অন্যদের জন্যও কর্মসংস্থান গড়ে তোলার ব্যাপারে তরুণদের প্রতি মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর আহ্বান থেকে অনেকটা অনুপ্রাণিত হয়েছি বলা যায়।’ এ সময় তিনি সরকারকে ফ্রিলান্সারদের আরো বেশি কাজের সুযোগ ও বিল পরিশোধের ব্যাপারে তাদের যেন কোনো সমস্যা না হয় সেদিকে লক্ষ্য রাখার আহ্বান জানান।

বেকার তরুণদের উদ্দেশ্যে স্বপ্নচারী সাগর জানান, চাকরি নামক সোনার হরিণের দিকে না দৌড়ে মুক্তপেশা ফ্রিলান্সিংয়ে ক্যারিয়ার গড়ার সুযোগ অবারিত। নিজেকে প্রমাণ করার জায়গা এটি। স্বপ্নচারী তরুণদের পদচারণায় মুখরিত এই পেশা। এ সময় বেকার তরুণদের ফ্রিলান্সিংয়ে আহ্বানও জানান তিনি।

১৯৯৮ সালের ২ ফেব্রুয়ারি ঢাকায় একটি মধ্যবিত্ত পরিবারে সফল এই তরুণের জন্ম হলেও থাকেন চট্টগ্রামে। পড়াশোনার পাশাপাশি ফ্রিলান্সিং করেন তিনি। দুই ভাই, এক বোনের মধ্যে তিনি মেঝো। চলতি বছরের ফেব্রুয়ারিতে হারিয়েছেন মাকে। মাত্র ছয় মাসের ব্যবধানে ইন্তেকাল করেছেন তার বাবাও।



আরো সংবাদ