২৮ জানুয়ারি ২০২৩, ১৪ মাঘ ১৪২৯, ৫ রজব ১৪৪৪
ads
`

মাথায় আঘাত

-

কোনো দিন নেই যেদিন সড়ক দুর্ঘটনায় কেউ মারা যান না। প্রাণহানি বা পঙ্গুত্বের একটি বিশেষ কারণ হলো মাথা বা মেরুদণ্ডের আঘাত। শুধু আমাদের দেশেই নয়, বিভিন্ন উন্নত দেশেও মাথায় আঘাতের কারণে প্রতি বছর লাখ লাখ লোক মারা যায়। সড়ক দুর্ঘটনায় যত লোক মারা যায় তার বেশির ভাগই মাথা ও স্পাইনে আঘাতের কারণে।

যেকোনো দুর্ঘটনা আক্রান্ত ব্যক্তির ক্ষেত্রে প্রথমেই লক্ষ্য রাখতে হবে আহত ব্যক্তির শ্বাসপ্রশ্বাস ঠিক আছে কি না। আহত ব্যক্তির শ্বাসপথ পরিষ্কার করার পরও যদি শ্বাস না নেয় তবে আহত ব্যক্তির মুখের সাথে মুখ লাগিয়ে শ্বাস-প্রশ্বাস চালু করতে হবে। অজ্ঞান ব্যক্তিকে পুরোপুরি চিৎ করে শুয়ে দেয়া বিপজ্জনক। এ কারণে জিহ্বা পেছনে উল্টে গিয়ে শ্বাসনালী বন্ধ হয়ে যেতে পারে। এ জন্য চামচ জাতীয় কিছু মুখে প্রবেশ করিয়ে রাখলে এ সম্ভাবনা কমে যায়। যদি আহত ব্যক্তি বমি করতে থাকেন তাহলে শুধু মাথা কাত না করে মাথা, ঘাড় ও দেহ কাত একসাথে কাত করতে হবে। এতে করে বমি ফুসফুসে প্রবেশ করবে না।

মাথায় আঘাতপ্রাপ্ত ব্যক্তিকে যত দ্রুত সম্ভব হাসপাতালে নিতে হবে।
মাথায় আঘাতের বিপদ কী কী
মাথায় আঘাত পেলে কয়েকটি সমস্যা হতে পারে। মাথার চামড়া কেটে যেতে পারে, মাথার খুলি ভেঙে যেতে পারে, মাথার মধ্যে রক্তক্ষরণ হতে পারে ও মস্তিষ্কের স্নায়ুতে ব্যাপক হারে ক্ষতি হতে পারে।

বিপদচিহ্নগুলো : মাথায় আঘাতপ্রাপ্ত হলে নিচের লক্ষণগুলো খেয়াল রাখতে হবে- তীব্র মাথাব্যথা, নাক, মুখ ও কান দিয়ে তরল পদার্থ বা রক্ত নির্গত হওয়া, চোখের চার পাশ কালচে হওয়া, বেশি ঘুম ঘুম ভাব, অজ্ঞান হওয়া, অস্থিরতা বা অস্বাভাবিক আচরণ, বারবার বমি করা, শ্বাস-প্রশ্বাস কমে যাওয়া, খিঁচুনি, কথা বলতে সমস্যা হওয়া, চোখে সমস্যা হওয়া।

পরীক্ষা-নিরীক্ষা
মাথায় আঘাত পেলে ব্রেনের সিটিস্ক্যান করার প্রয়োজন হতে পারে। খুব কম বয়সী ও বৃদ্ধদের মাথায় আঘাত পেলে কোনো বিপদচিহ্ন না পেলেও সিটিস্ক্যান করা জরুরি। অন্যদের ক্ষেত্রে যদি অজ্ঞান হয়ে ৩০ মিনিটের বেশি থাকেন বা একাধিকবার বমি করেন ও উপরের বিপদচিহ্নগুলো থাকে তাহলে অবশ্যই সিটিস্ক্যান করতে হবে।

করণীয়
মাথা চামড়া কেটে রক্তক্ষরণ হতে থাকলে পরিষ্কার কোনো কাপড় দিয়ে শক্ত করে চেপে ধরে রাখতে হবে। কোনো কাপড় ভিজে গেলে সে কাপড় না সরিয়ে অন্য একটি কাপড় দিয়ে চেপে ধরতে হবে। যদি খুলির কোনো হাড় ভেঙে যায় তাহলে বেশি চাপ দিয়ে ধরা যাবে না। এতে করে মস্তিষ্কে আঘাত লেগে আরো সমস্যা হবে। মাথা ফুলে গেলে বরফ কাপড়ে পেঁচিয়ে ঘণ্টায় ১৫-২০ মিনিট ধরে রাখতে হবে।

যদি আক্রান্ত ব্যক্তির বিপদচিহ্নগুলো থাকে ও সিটিস্ক্যানে মস্তিষ্কে রক্তক্ষরণ দেখা দেয় তাহলে হাসপাতালে ভর্তি করতে হবে। চিকিৎসক রোগীর সার্বিক অবস্থা বিবেচনা করে অপারেশনের সিদ্ধান্ত নিতে পারেন।

তাই মাথায় আঘাত পেলে দেরি না করে দ্রুত চিকিৎসকদের শরণাপন্ন হন।


আরো সংবাদ


premium cement