১৩ আগস্ট ২০২২
`

শিশুর ১ হাজার দিন ও সারাজীবনে এর প্রভাব

শিশুর ১ হাজার দিন ও সারাজীবনে এর প্রভাব -


শিশুর জন্য মূলত এক হাজার দিনটি কিভাবে হয় সেটি খুব সহজে ভেঙে বুঝিয়ে দিচ্ছি- মায়ের গর্ভে ৯ মাস ও জন্মের পরের দুই বছর অর্থাৎ-
৯ মাসই ৩০ দিন = ২৭০ দিন এবং
দুই বছরে (৩৬৫ঢ২) = ৭৩০ দিন
................................................
সর্বমোট = এক হাজার দিন

এই এক হাজার দিন শিশুর মস্তিষ্ক, শরীর, রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা ও বডি মেটাবলিজমের বিকাশের ক্ষেত্রে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে এই নবজাতক থেকে পাঁচ বছরের কম বয়সীদের মৃত্যু হারও একেবারে কম নয়। নিচে সে সম্পর্কে একটি ধারণা দেয়া হলো-

বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে শিশু (নবজাতক-পাঁচ বছরের কম বয়সীদের) মৃত্যুহার :
নির্দেশক                            -                      হার                -             সূত্র
নবজাতক মৃত্যুহার (২৮ দিনের মধ্যে) - ৩২/এক হাজার জীবিত শিশু - বিডিএইচএস ২০১১
শিশু মৃত্যুহার (এক বছরের মধ্যে) - ৪৩/এক হাজার জীবিত শিশু - বিডিএইচএস ২০১১
পাঁচ বছরের কম বয়সীদের মৃত্যুহার - ৫৩/এক হাজার জীবিত শিশু - বিডিএইচএস ২০১১ 

এই এক হাজার দিনের মধ্যে মা ও শিশুর জন্য গুরুত্বপূর্ণ কিছু পুষ্টি উপাদানের প্রয়োজন হয়। এসব পুষ্টি উপাদানের নাম ও উৎসগুলো হলো- 

পুষ্টি উপাদানের নাম     -      পুষ্টি উপাদানের উৎসসমূহ
শর্করা - চাল, গম, আলু, ভুট্টা, গুড় ও মিষ্টি জাতীয় খাবার
প্রোটিন - মাছ, গোশত, ডিম, দুধ, কলিজা, শুঁটকি মাছ, ডাল, শিমের বীচি, বাদাম, শুকনা মটর ইত্যাদি
ফলিক এসিড - সবুজ পাতাসমৃদ্ধ শাকসবজি ফলিক এসিডের বড় উৎস
জিংক - জিংকের অন্যতম উৎস হলো সামুদ্রিক মাছ, কাঁকড়া, ঝিনুক, চিংড়ি, গোশত, ডিম, দুধ, বাদাম, মাশরুম, দই ইত্যাদি
আয়রন - ডিম, সয়াবিন, শিমের বীচি, গুড়, পালংশাক, লালশাক, ব্রোকলি, কচু জাতীয় সব শাক ও সবজি
কপার - কাজু বাদাম, মিষ্টি কুমড়ার বীচি, সিদল শুঁটকি, দই, শুঁটকি মাছ, চিংড়ি মাছ, মাছের সস, পান্তা ভাত ইত্যাদি
কোলিন - ডিম, মুরগির গোশত, গোশত ও বিভিন্ন প্রেটিন এবং গাঁজানো জাতীয় খাবারে কোলিন পাওয়া যায়
ভিটামিন-ডি - তৈলাক্ত মাছ, কলিজা, ডিমের কুসুম, মাখন, উন্নত প্রজাতির মাশরুম, সূর্যের আলো ইত্যাদি
ভিটামিন-বি ১২ - জকৃত, হৃৎপিণ্ড, মাছ, গোশত, ডিম। এ ছাড়া চিড়াতেও ভিটামিন-বি ১২ পাওয়া যায়
পলিআনস্যাচুরেটেড ফ্যাটি এসিড- ভুট্টা, সয়াবিন, সূর্যমুখীর তেল, শষ্যজাতীয় খাদ্য ইত্যাদি
পানি ও পানিজাতীয় খাবার - বিশুদ্ধ পানি, ফলের রস, পানিজাতীয় খাবার ইত্যাদি

 

একজন অন্তঃসত্ত্বা মা সাধারণত কী ভাবেন বা চিন্তা করেন, কী খাবার খান, কী ত্বকে ব্যবহার করেন এবং কিভাবে বা কোন পরিবেশ থেকে শ্বাস নেন সবই গুরুত্বপূর্ণ।
আমি এই সবগুলো নিয়ে না বলে শুধু একজন অন্তঃসত্ত্বা মা কী ধরনের খাবার খাবেন তা নিয়ে আলোচনা করব। এটিই হলো সেই সময় যখন কোনো অন্তঃসত্ত্বা মায়ের পুষ্টিকর পথ্যের প্রয়োজন হয়। দেখা গেছে, একটি শিশুর মস্তিষ্কের ৯০ শতাংশেরও বেশি অংশ গঠিত হয় শিশুর ভূমিষ্ঠ হওয়ার এক হাজার দিনের মধ্যে।

গবেষণায় দেখা যায়, এই সময়কালের মধ্যেই বিভিন্ন নিউরোলজিক্যাল প্রক্রিয়া সিনাপ্স ফরমেশন ও মাইলেশন একে অপরের ওপর গড়ে ওঠে। সিনাপ্স ফরমেশন একটি মাল্টিকম্পোনেন্ট প্রক্রিয়া হিসেবে উপস্থাপিত হয় যার মাধ্যমে একটি প্রাথমিক সিনাপটিক যোগাযোগ নিউক্লিয়েটস সংগঠনের প্রাক- ও পোস্টসিন্যাপটিক বিশেষীকরণ যা পরবর্তীকালে নির্দিষ্ট করা হয়। অর্থাৎ- নির্দিষ্ট বৈশিষ্ট্যে সমৃদ্ধ হয়। আর মাইলিন হলো একটি অন্তরক স্তর বা আবরণ যা স্নায়ুর চারপাশে গঠন করে, মস্তিষ্ক ও মেরুদণ্ডের কর্ডসহ। এটি প্রোটিন ও চর্বিযুক্ত পদার্থ দিয়ে গঠিত। এই মাইলিন খাপটি স্নায়ুকোষ বরাবর আবেগ দ্রুত ও দক্ষতার সাথে পাঠাতে দেয়।
বিভিন্ন গবেষণায় দেখা যায়, একটি শিশুর মস্তিষ্কের বিকাশ সঠিক হওয়ার জন্য এই এক হাজার দিনের আহার সবচেয়ে বেশি গুরুত্বপূর্ণ। একজন গর্ভবতী মা শিশু গর্ভে থাকা অবস্থা থেকে শুরু করে শিশুর দুই বছর বয়স হওয়া পর্যন্ত নিয়ম মেনে চললে সঠিক জন্ম ওজনসম্পন্ন, সুস্থ, মেধাবী শিশু গড়ে তোলা সম্ভব। এ ছাড়া পাশাপাশি গর্ভবতী ও প্রসূতি মায়ের ব্যায়াম, সঠিক খাদ্যাভ্যাস, পূর্ণ ঘুম ও হাসিখুশি সন্তুষ্ট জীবন যাপন করাটাও একান্তভাবে জরুরি।
লেখিকা : স্বাস্থ্য ও পুষ্টি কর্মকর্তা-মানবিক সাহায্য সংস্থা এবং
সিনিয়র পুষ্টিবিদ (এক্স)-কিংসটন হাসপাতাল
E-mail : nazia.afrin1988@gmail.com

 

 


আরো সংবাদ


premium cement