০১ জুলাই ২০২২, ১৭ আষাঢ় ১৪২৯,
`

ফুঁ দিলেই বোঝা যাবে করোনা হয়েছে কি না!

সম্প্রতি আমেরিকার ফুড অ্যান্ড ড্রাগ এডমিনিস্ট্রেশন (এফডিএ) এই পরীক্ষাপদ্ধতিটিকে স্বীকৃতি দিয়েছে। - ছবি : সংগৃহীত

বিশ্বজুড়ে করোনা মহামারী মোকাবেলার হাতিয়ারগুলো ক্রমেই শক্তিশালী হয়ে উঠছে। ঠিক যেমন এবার বাজারে চলে এলো করোনা সংক্রমণ পরীক্ষার নতুন যন্ত্র। শ্বাসের নমুনা থেকেই বোঝা যাবে করোনা সংক্রমণ হয়েছে কি না।

কী এই যন্ত্র?
সম্প্রতি আমেরিকার ফুড অ্যান্ড ড্রাগ এডমিনিস্ট্রেশন (এফডিএ) এই পরীক্ষাপদ্ধতিটিকে স্বীকৃতি দিয়েছে। সংস্থার প্রধান জেফ শুরেন জানিয়েছেন, এই নতুন পরীক্ষাপদ্ধতি অত্যন্ত কার্যকর। এবং এটিতে করোনা সংক্রমণ টের পেতে খুব কম সময় লাগছে।

এই যন্ত্রটিকে কী বলা হয়?
এটিকে বলা হচ্ছে কোভিড-১৯ ব্রেথালাইজার। প্রাথমিকভাবে ইন্সপেক্ট আইআর নামের একটি সংস্থার তৈরি যন্ত্র এখন ব্যবহার হচ্ছে। আরও বেশ কয়েকটি কোম্পানি এই ধরনের যন্ত্র নিয়ে আসছে। ছোট্ট ব্যাগের মতো মাপের এই যন্ত্র। এটির ছিদ্রে ফুঁ দিলেই হলো। তাতেই বোঝা যাবে করোনা সংক্রমণ হয়েছে কি না।

কতক্ষণ লাগে সংক্রমণ ধরতে?
বিশেষজ্ঞরা জানিয়েছেন, এই কোভিড-১৯ ব্রেথালাইজার ব্যবহার করে সংক্রমণ টের পেতে সময় লাগে খুবই কম। মাত্র ৩ মিনিট। ফলে হাসপাতাল, বাড়ি, বিমানবন্দরে ব্যবহার করার জন্য এটি একেবারে আদর্শ যন্ত্র।

এই যন্ত্রে লাভ কী হয়?
বিজ্ঞানীরা জানিয়েছেন, আরটিপিসিআর বা র‌্যাপিড অ্যান্টিজেন পরীক্ষার ক্ষেত্রে সময়টা একটা বড় অন্তরায়। বিশেষ করে আরটিপিসিআর পরীক্ষায় অনেকটা সময় লেগে যায়। তাছাড়া নাক থেকে লালারস নেয়া নিয়েও অনেকের ভয় থাকে। তাই তারা পরীক্ষা করাতে চান না। সেই সব সমস্যার শেষ হবে এই নতুন পদ্ধতিতে। এখন আমেরিকায় শুরু হলেও অচিরেই অন্যান্য দেশেও এই যন্ত্র পাওয়া যাবে।

বিজ্ঞানীরা জানিয়েছেন, আরটিপিসিআর বা র‌্যাপিড অ্যান্টিজেন পরীক্ষার ক্ষেত্রে সময়টা একটা বড় অন্তরায়। বিশেষ করে আরটিপিসিআর পরীক্ষায় অনেকটা সময় লেগে যায়। তাছাড়া নাক থেকে লালারস নেয়া নিয়েও অনেকের ভয় থাকে। তাই তারা পরীক্ষা করাতে চান না। সেই সব সমস্যার শেষ হবে এই নতুন পদ্ধতিতে। এখন আমেরিকায় শুরু হলেও অচিরেই অন্যান্য দেশেও এই যন্ত্র পাওয়া যাবে।

সূত্র : হিন্দুস্থান টাইমস, এনবিসি নিউজ


আরো সংবাদ


premium cement