২০ এপ্রিল ২০২১
`

নিয়ন্ত্রণ করুন অতিরিক্ত ওজন

-


কবীরের স্বাভাবিকের চেয়ে ওজন কমে যাওয়া যেমনি একটি রোগ, তেমনি অতিরিক্ত ওজন বৃদ্ধি একজন স্বাভাবিক মানুষের অনেক রোগের কারণও হতে পারে। একজন লোকের কতটুকু ওজন হবে তা নির্ভর করে তার উচ্চতার উপর। উচ্চতা কমবেশি অনুপাতে ওজন কমবেশি হয়। আর এই ওজন চিকিৎসার ক্ষেত্রে বিএআই (বডি মাচ ইনডেক্স) হিসেবে মাপা হয়। একজন লোকের স্বাভাবিকের চেয়ে বিএমআই হলে তাকে আমরা অবেজ বা মোটা বলে থাকি। সারা পৃথিবীতে মোটার সংখ্যা
বেড়েই চলছে।
কারণ : অতিরিক্ত ওজন বৃদ্ধির অনেক জানা ও অজানা কারণ রয়েছে। জানা কারণের মধ্যে হলো হরমোনজনিত রোগের কারণ। কিছু ওষুধ সেবন, বংশগত বা জেনেটিক, অতিরিক্ত পানাহার অভ্যাস ইত্যাদি। বেশি ওজন হলে কী হয়? কী সমস্যা : ডায়াবেটিস, হাইপ্রেসার, স্ট্রোক, হার্টঅ্যাটাক, পিত্তথলিতে পাথর, মেয়েদের মাসিক সমস্যা, সন্তান প্রসবের সমস্যা, স্বাভাবিক নিঃশ্বাস নেয়া কষ্ট, হাড়ের সমস্যা ও জোড়ায় জোড়ায় ব্যথা, রক্তে বেশি চর্বি জমা হওয়া এবং ক্যান্সারের প্রবণতা বেশি হওয়া ইত্যাদি।
চিকিৎসা : চিকিৎসার আগে জেনে নিতে হবে অতিরিক্ত ওজনের কারণÑ অর্থাৎ অতিরিক্ত খাদ্যাভ্যাস, না বংশগত, না কোনো হরমোনের কারণ, না কোনো অসুস্থতার জন্য কারণÑ সে অনুযায়ী তার সঠিক চিকিৎসা প্রয়োজন। শুধু বেশি বেশি খাওয়ার জন্যও ওজন বেশি হতে পারে, এমন কি খাওয়া বেশি না খেয়েও ওজন বাড়তে পারে। কারণ কায়িক পরিশ্রম না করলে ওই খাওয়াটুকু তার শরীরে জমা হয়ে যায়। এ ক্ষেত্রে রোগীর ওজন ও উচ্চতা নিয়ে সঠিক বিএমআই বের করে খাদ্য তালিকাসহ খাওয়া নিয়ন্ত্রণ, সঠিক খাদ্যাভ্যাস অর্থাৎ জিহ্বা ও মনকে সামলে নিয়ে সঠিক পরিমাণ খাওয়া খেলে এবং নিয়মিত কিছু না কিছু হালকা ব্যায়াম করলে ওজন সঠিক অবস্থায় ফিরে আসে। ভাত কম খাওয়ার অভ্যাস ও শসা, ক্ষীরা, সালাদ ও শাকসবজি বেশি খাওয়ার অভ্যাস করতে হবে। আজকাল ফাস্টফুডের দোকান যেখানে সেখানে হওয়ায় ফাস্টফুড খাওয়ার প্রবণতা ছেলেমেয়েদের বেশি হচ্ছে। বেশি বেশি ফাস্টফুড খেয়ে ওজনও বেশি হচ্ছে সে দিকে বাবা-মার লক্ষ্য রাখা দরকার। তা ছাড়া কিছু কিছু ব্যাপারে সতর্ক অবলম্বন করা উচিত যেমন : মদ্যপান, চর্বি জাতীয় খাবার, ধূমপান ইত্যাদি পরিহার করা। যাদের উচ্চরক্তচাপ ও ডায়াবেটিস আছে তাদেরকে সঠিক চিকিৎসার মাধ্যমে নিয়ন্ত্রণ রাখা আর যাদের হরমোন বা অন্য কোনো রোগের কারণে ওজন বেশি হচ্ছে তাদের সেই কারণে চিকিৎসা করলে রোগীর ওজন সঠিক মাত্রায় চলে আসে। সময় থাকতে অতিরিক্ত ওজন কমিয়ে ফেলুন, কারণ বয়স বেশি হলে ওজন কমানো কষ্টকর হয়ে যায়। ওজন কমে গেলেও সতর্কের সাথে লক্ষ্য করবেন এবং কারণ জেনে সঠিক চিকিৎসা নিতে হবে।
বর্তমানে কিছু কিছু ওজন কমানোর ওষুধ বের হয়েছেÑ যা কিছু সময় ধরে ওজন কমাতে পারে।
আসুন আমরা সঠিক খাদ্যাভ্যাস গড়ে তুলি, প্রতিদিন কিছু না কিছু হালকা ব্যায়াম করি। রোগের বা হরমোনের জন্য হলে তার সঠিক চিকিৎসা নেই।
লেখক : অধ্যাপক , এন্ডোক্রাইনোলজি বিভাগ, আনোয়ার খান মডার্ন মেডিক্যাল কলেজ।



আরো সংবাদ