০৫ ডিসেম্বর ২০২০

ডিপ্রেশন রোধে খাবারগুলি রাখুন ডায়েট চার্টে

ডিপ্রেশন রোধে খাবারগুলি রাখুন ডায়েট চার্টে - সংগৃহীত

করোনা মহামারিতে এমনিতেই মন-মানসিকতায় পরিবর্তন এসেছে। সমীক্ষা বলছে, বিগত কয়েক মাসে গোটা বিশ্বে তুলনামূলক আরও বেশি সংখ্যক মানুষ ডিপ্রেশনের শিকার হয়েছে। জনজীবন আপাতত স্বাভাবিক ছন্দে ফিরলেও তার রেশ যেন কিছুতেই পিছু ছাড়তে চাইছে না। এমতাবস্থায় ডিপ্রেশন কিংবা মানসিক অবসাদই যেন মানুষের মূল শত্রু হয়ে দাঁড়িয়েছে। আর সেই ডিপ্রেশনকে কাবু করতেই রোজকার ডায়েটে যোগ করুন বেশ কিছু খাবার। অবাক হচ্ছেন তো, যে অবসাদের অস্ত্র কীভাবে খাবার হতে পারে? তাহলে জেনে নিন।

ডিপ্রেশনকে বাগে আনতে কী কী খাবার খাবেন? আমাদের হাতের কাছেই এমন কিছু খাদ্যবস্তু রয়েছে, যা রোজকার খাদ্যতালিকায় যোগ করলে এর মধ্যে থাকা খাদ্যগুণ মন ভাল রাখতে সাহায্য করে।

প্রথমেই বলব চকোলেটের কথা। টেনশন, মানসিক চাপ কমাতে এর জুড়ি মেলা ভার! বিশেষত, ডার্ক চকোলেট। এতে থাকা ফিনালেথাইলামাইন মস্তিষ্ক চাঙ্গা রাখে। উপরন্তু, ফল, শাক-সবজি তো রয়েছেই। ছোট থেকেই সবুজ শাক-সবজি খাবার নির্দেশ শুনে থাকি আমরা। কিন্তু অনেকেই মাছ, মাংস, ডিম ছাড়া পাতে আর কিছু নিতেই চান না! এতে কিন্তু আখেড়ে শরীরের ক্ষতি তো বটেই, আবার মনেরও ক্ষতি। ফলে থাকা ভিটামিন, খনিজ, অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট শরীর ও মন দুইয়ের পক্ষেই উপকারী।

আখরোট, এই ছোট্ট খাদ্যবস্তু যে কতটা উপকারী, তা বোধহয় অনেকেরই জানা নেই। রোজ সকালে ব্রেকফাস্টে আখরোট খান। এতে থাকা ওমেগা ৩ ফ্যাটি অ্যাসিড মস্তিষ্ক সতেজ রাখার পাশাপাশি মন ফুরফুরে রাখতেও সাহায্য করে।

মানসিক রোগ কিংবা ডিসঅর্ডারের মোক্ষম দাওয়াই কেশর। ডিপ্রেশনকে বাগে আনতে ডায়েটে কেশর রাখুন। এক কাপ উষ্ণ দুধে এক চিমটে কেশর ফেলে খান। সকালে খালি পেটে কাঁচা হলুদও খেতে পারেন। এতে থাকা অ্যান্টি ডিপ্রেসান্ট হতাশা, মানসিক অবসাদ কমাতে সাহায্য করে। এছাড়া প্রাতঃরাশে ওটমিল খেলেও ভাল ফল পাবেন। কারণ, এতে থাকা কার্বোহাইড্রেট শরীরে সেরোটিন তৈরি করে। যা মন ভাল রাখতে সাহায্য করে, মনে শান্তি এনে দেয়। সূত্র: ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস


আরো সংবাদ