২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০

রোগ প্রতিরোধে কাঁচামরিচ

-

মরিচ আমাদের দেশে অতি পরিচিত সবজি। আমাদের প্রতিদিনের নানা খাবার তৈরি করতে বিভিন্ন রকম মসলা ব্যবহার করা হয়। তার মধ্যে অতি গুরুত্বপূর্ণ মসলা হলো মরিচ। খাবার মুখরোচক, মজাদার ও ঝাল বাড়াতে মরিচ ব্যবহার করা হয়। মরিচ যখন কাঁচা অবস্থায় থাকে তখন তাকে কাঁচামরিচ বলা হয়। আবার গাছের পাকা মরিচ রোদে শুকিয়ে গুঁড়া করে রান্না কাজে ব্যবহার করা হয়। আবার প্রতি দিনের নানা খাবারের স্বাদ বাড়াতে কুচি কুচি করে কেটে খাবারে দিয়ে পরিবেশন করা হয়। ভাত খাওয়ার সময় চিবিয়ে খাওয়া যায়। এ অভ্যাসটি স্বাস্থ্যের জন্য খুব উপকারী। তবে প্রতিদিনের খাবারের সাথে অতিরিক্ত কাঁচামরিচ খাওয়া ভালো নয়। প্রতিদিন চার পাঁচটি কাঁচামরিচ খাওয়া ভালো। এতে প্রতিদিনের ভিটামিনের চাহিদা ও অন্যান্য খাদ্য উপাদান দেহে পূরণ হয়। এতে আছে ভিটামিন এ, বি, সি, ক্যালসিয়াম, পটাশিয়াম, আয়রন ও প্রোটিন। কাঁচামরিচে প্রচুর পরিমাণ ভিটামিন সি। তাই ভিটামিন সি অভাব পূরণে খুবই গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে। মনে রাখবেন ভিটামিন সি আমাদের শরীরে জমা থাকে না। তাই প্রতিদিন সি সমৃদ্ধ খাবার খাওয়া প্রয়োজন। কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ উপকারিতার তুলে ধরা হলো : * যাদের ঘন ঘন সর্দি কাশি হয় তারা যে কোনো খাবারের সাথে কাঁচামরিচ খান উপকার পাবেন। * যাদের হার্টের সমস্যা বা হৃদরোগ আছে তারা নিয়মিত্র কাঁচামরিচ খান উপকার পাবেন। * কাঁচামরিচের যে উপাদান থাকে তা ডায়াবেটিস রোগীদের রক্তের চিনি কমাতে সাহায্য করে। তাই ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য বেশ উপকারী। * যারা ঘন ঘন চামড়ার বা চর্মরোগে ভুগছেন তারা নিয়মিত পরিমাণে কাঁচামরিচ খান উপকার পাবেন। * যারা পিঠ ব্যথা বা বাত রোগে ভুগছেন তারা নিয়মিত কাঁচামরিচ খান উপকার পাবেন।
* কাঁচামরিচ পুরুষের প্রস্টেট ক্যান্সারের ঝুঁকি কমায়। কাঁচামরিচ রক্তের কোলেস্টেরল কমাতে সাহায্য করে। * প্রতিদিন দুই-তিনটি কাঁচামরিচ খেলে রক্ত সঞ্চালন ভালো থাকবে। রক্ত জমাট বাধার ঝুঁকি কমে। * এই পরিমাণ কাঁচামরিচ খেলে চেহারায় বার্ধ্যকের চাপ পড়ে না ও চামড়ায় বলি রেখা পড়ে না। * কাঁচামরিচের ভিটামিন সি চামড়া ও চুলের সৌন্দর্য বৃদ্ধি করে। * যে কোনো ধরনের কাটা, ছেঁড়া, ঘা শুকাতে খুবই উপকারি। * কাঁচামরিচ প্রচুর ভিটামিন এ পাওয়া যায় যা আমাদের চোখের ও চর্ম রোগের খুবই উপকারী। * কাঁচামরিচের ভিটামিন সি ও ক্যালসিয়াম মুখের ঘা, দাঁতের মাড়ি সমস্যা দূর করে এবং হাড়ের সমস্যা কমায়। * শ্বাস নালি ও ফুসফুসের কার্যক্ষমতা সঠিক রাখে। * আর্থ্রাইটিসের ব্যথা নিরাময়ে কাঁচামরিচের ক্যাপসাইসিন একটি কার্যকরী ওষুধ। * দেহের অতিরিক্ত ওজন কমাতে সাহায্য করে। * কাঁচামরিচের প্রচুর পরিমাণ ভিটামিন সি যা অ্যান্টি অক্সিডেন্ট শরীরের রক্ত নালি তরুণাস্থি ঘটনে সাহায্য করে। শরীরের জন্য এটিপি, ডোপামিন, পেপটাইড হরমোন তৈরিতে এ ভিটামিন বিশেষ অবদান রাখে। তা ছাড়া ক্যান্সার নিরাময় মানসিক অবসাদ কমাতে এ ভিটামিন বলিষ্ঠ ভূমিকা রাখে। * মরিচের ঝাল কার্ডিও ভাসকুলার রোগে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি কমায়। * মরিচের ক্যাপসাইসিন উপাদান রক্তের এলডিএল কোলেস্টরলের (লো ডেনসিটি লিপ্রো প্রোটিন কোলেস্টেরল) মাত্রা কমায়।
লেখক : শিক্ষক, গোলাপগঞ্জ, সিলেট


আরো সংবাদ