০৮ মে ২০২১
`

‘ফুটবলকে বাঁচাতেই সুপার লিগ’

‘ফুটবলকে বাঁচাতেই সুপার লিগ’ - ছবি : সংগৃহীত

বিদ্রোহী সুপার লিগ নিয়ে উত্তাল ইউরোপিয়ান ফুটবল। চলছে পাল্টাপাল্টি বিবৃতি। নিষেধাজ্ঞার হুমকিতে রয়েছে উয়েফা। তবে নিজেদের অবস্থানে অটল রয়েছে ১২টি ক্লাব। বিশেষ করে রিয়াল মাদ্রিদ ও ইউরোপিয়ান সুপার লিগের সভাপতি ফ্লোরেন্টিনা পেরেজ বলেছেন, এই সুপার লিগ ফুটবলকে বাঁচাতেই আয়োজন করা হচ্ছে। গুটিকয়েক ধনী ক্লাবের স্বার্থ হাসিলে নয়, বরং ফুটবলকে অদৃশ্য হওয়া থেকে রক্ষা করবে তাদের এই প্রতিযোগিতা।

‘বিদ্রোহী’ সুপার লিগ চালুর আনুষ্ঠানিক ঘোষণার পর সোমবার জরুরি বৈঠক করে উয়েফা। সভা শেষে উয়েফা সভাপতি সেফেরিন দেন ঝাঁঝালো মন্তব্য, ‘কয়েকটি ক্লাবের স্বার্থের জন্য করা এই প্রকল্পের বিরুদ্ধে ফুটবল বিশ্বকে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে। সুপার লিগ একটি অর্থহীন প্রকল্প বলে আমরা একমত হয়েছি।’

এই অভিযোগ অস্বীকার করে কড়া বক্তব্য দিয়েছেন রিয়াল সভাপতি। তিনি বলেছেন, ‘এই সুপার লিগ ধনীদের জন্য নয়, বরং ফুটবলকে বাঁচানোর জন্য। যদি এভাবে চলতে থাকে, ফুটবল অদৃশ্য হয়ে যাবে এবং ২০২৪ সালের মধ্যে আমরা মারা যাব। বড়, মাঝারি ও ছোট ক্লাব- সবাইকে বাঁচানোর এটাই একমাত্র উপায়। সুপার লিগের পক্ষে আগামী কয়েক দিনে আপনারা আরো অনেক কণ্ঠস্বর শুনতে পাবেন। ভক্তদের বলার অধিকার আছে এবং তারা আরো প্রতিদ্বন্দ্বিতামূলক লিগ চায়।’

বার্সা-রিয়ালসহ ইউরোপের শীর্ষ পর্যায়ের ১২টি দল সুপার লিগে নাম লিখিয়েছে। করোনাভাইরাসসহ বিভিন্ন কারণে এই ক্লাবগুলো ভীষণ আর্থিক ক্ষতির মুখে পড়েছে। নাজুক পরিস্থিতি থেকে ঘুরে দাঁড়াতে নতুন এই লিগের আয়োজন বল দাবি করেছেন পেরেজ, ‘আমরা সবাই মিলে ৫০০ কোটি ইউরো হারিয়েছি। গত দুই মৌসুমে মাদ্রিদের একারই ক্ষতি হয়েছে ৪০ কোটি ইউরো। দর্শক কমে যাচ্ছে এবং টেলিভিশন স্বত্ব হিসেবে পাওয়া অর্থের পরিমাণও কমছে। তাই কিছু একটা করতে হতো। আমরা সবাই ধ্বংস হয়ে যাচ্ছি। আমরা যাতে মানিয়ে নিতে পারি, সেজন্য টেলিভিশন সম্প্রচারেও পরিবর্তন দরকার।’



আরো সংবাদ