২৪ জানুয়ারি ২০২১
`

তবুও প্রশংসা গোলরক্ষক জিকোর

বাংলাদেশ-কাতার ম্যাচের একটি দৃশ্য - ছবি : নয়া দিগন্ত

ম্যাচ সেরার পুরস্কার গেছে কাতারের মিডফিল্ডার আকরাম হাসান আফিফের দখলে। তার জোড়া গোল। বাংলাদেশের ডিফেন্স লাইন তছনছ করে দিয়েছেন তিনি। তবে গতকাল কাতার বাংলাদেশ ম্যাচে সবার নজর কেড়েছেন বাংলাদেশের তরুণ গোলরক্ষক আনিসুর রহমান জিকো। যদিও তাকে পাঁচবার বল তুলতে হয়েছে জাল থেকে।

কাতারের স্প্যানিশ কোচ ফেলিক্স সানচেজ তো বলেই ফেললেন ‘দুর্দান্ত খেলেছে বাংলাদেশ গোলরক্ষক। তা না হলে স্কোর লাইন আরো বড় হতো। ৮ থেকে ১০ গোলে জিততে পারতো আমার দল।

বাংলাদেশ কোচ জেমি ডে’র মুখেও প্রশংসা জিকোর। ‘অসাধারণ খেলেছে জিকো। এটা দলের জন্য সুসংবাদ। তার মতো উঠতি গোলরক্ষককে পেয়েছে দল। দারুণ কিছু সেভ করেছেন তিনি।’ তবে এখন থেকে জিকোই থাকবেন পোস্টের নিচে- এমনটি বললেন না তিনি।

কাতারের কাছে ০-৫ গোলের হারকে মেনে নিতে পারছেন না অধিনায়ক জামাল ভূঁইয়া। তার মতে, ‘২-০ বা ৩-০ হলে ঠিক ছিল। ৫ গোল বেশি হয়ে গেছে।’ এরপর তিনি উল্লেখ করেন, কাতারের দুই উইংগার খুব ভয়ঙ্কর ছিল। তারা এদের দিয়েই আমাদের ওপর আক্রমণ শানিয়েছে। তাছাড়া আমাদের প্রতিপক্ষকে বেশি জায়গা দিয়ে ফেলেছি শট নেয়ার জন্য। এই জায়গা তারাই তৈরী করেছে। আমরা কখনো সফল হয়েছি, কখনো পারিনি।

জামাল যোগ করেন, ঢাকায় আমরা যে ম্যাচ খেলেছিলাম কাতারের দ্রুত গতির মাঠে তা সম্ভব হয়নি। এছাড়া মনে রাখতে হবে, কাতার আমাদের চেয়ে অনেক ভালো দল। তাদের ফুটবলারদের কোয়ালিটি আমাদের চেয়ে অনেক ভালো। এরপরও প্রথমার্ধে দুই গোল ঠিক ছিল। কিন্তু বিরতির পর তিন গোল একেবারেই বেশি হয়ে গেছে।

কোচ জেমি ডে অবশ্য স্বল্প প্রস্তুতির প্রসঙ্গ টেনে বলেন, আমাদের মাত্র পাঁচ সপ্তাহের প্রস্তুতি। সেখানে কাতারের পাঁচ মাসের। তারা অনুশীলন করছে জুন মাস থেকে। এশিয়ার সেরা দল তারা। এরপরও আমি আমার ফুটবলারদের পারফরম্যান্সে সন্তুষ্ট। তারা তাদের সাধ্যমতো চেষ্টা করেছে। এই পারফরম্যান্স আগামী বছর কাজে লাগবে।

তিনি আরো বলেন, কাতারের প্রথম গোল ডিফেন্ডারের পায়ে লেগে বলের দিক পরিবর্তন হয়ে যাওয়ার পর। দ্বিতীয় গোলটি অসাধারণ। তৃতীয়টি পেনাল্টি থেকে। এরপর বাকি দুই গোল। ইনজুরি টাইমে পঞ্চম গোল। হ্যাঁ, পাঁচ গোল বেশি হয়েছে। অল্প কয় দিনের প্রস্তুতিতে আর কতো!

এদিকে বাংলাদেশ দল পাঁচ গোলে হারায় কষ্ট পেয়েছেন প্রবাসীরা। গ্যালারিতে উপস্থিত দুই হাজার দর্শকের অধিকাংশের মতো যারা মাঠে আসতে পারেনি করোনা নিষেধাজ্ঞায়, সবাই ভালো ফল আশা করেছিল লাল-সবুজদের কাছে।

গত রাতেই দেশে ফিরেছে জেমি ডে বাহিনী।



আরো সংবাদ