০২ ডিসেম্বর ২০২০

ন্যু ক্যাম্পে ব্যর্থ বার্সা, এল ক্লাসিকো রিয়ালের

-

ঘরের মাঠ। সঙ্গে সাম্প্রতিক পারফরম্যান্স। সব মিলিয়ে এল ক্লাসিকোর আগে তুঙ্গে ছিল মেসিদের আত্মবিশ্বাস। তবে শুরুটা ভালো হলেও, শেষটা ব্যর্থতায় মলিন। শনিবার মওসুমের প্রথম এল ক্লাসিকো ম্যাচে হেরে গেছে বার্সেলোনা। রোমাাঞ্চকর ধ্রুপদি লড়াইয়ে রিয়াল মাদ্রিদ জিতেছে ৩-১ গোলে।
বল দখলে বার্সেলোনা কিছুটা এগিয়ে থাকলেও আক্রমণে আধিপত্য করেছে রিয়াল। গোলের উদ্দেশে তাদের ১৫ শটের ৯টি ছিল লক্ষ্যে, বিপরীতে স্বাগতিকদের ১০ শটের চারটি লক্ষ্যে। ২০০৭ সালের পর এই প্রথম চিরপ্রতিদ্বন্দ্বীদের বিপক্ষে টানা দুই ম্যাচ জিতল রিয়াল মাদ্রিদ।

ন্যু ক্যাম্পে শুরু থেকেই আক্রমণ পাল্টা আক্রমণে জমে উঠে এল ক্লাসিকো। লা লিগা ও চ্যাম্পিয়ন্স লিগের শেষ ম্যাচে হেরে যাওয়া বিবর্ণ রিয়াল মাদ্রিদ সবাইকে চমকে এগিয়ে যায় ম্যাচের পাঁচ মিনিটেই। বেনজেমার দুর্দান্ত পাস পেয়ে বার্সার একজনকে কাটিয়ে দুরুহ অ্যাঙ্গলে ভালভার্দের বুলেট গতির শট, বল বার্সার জালে। কিছুই করার ছিল না কাতালান গোলরক্ষক নেতোর।

শুরুতেই এগিয়ে যাওয়া রিয়াল মাদ্রিদ তখন বেশ উজ্জীবিত। তবে দ্রুতই ম্যাচে ফেরে স্বাগতিক বার্সা। আর সেটা ৮ মিনিটেই। বাঁ প্রান্ত দিয়ে ঢুকা জর্ডি অ্যালবা নিখুত পাসে আনসু ফাতির আলতো প্লেসিং। ঝাঁপিয়েও রক্ষা করতে পারেননি রিয়াল মাদ্রিদ গোলরক্ষক কর্তোয়া। স্কোর সমতা ১-১।

প্রথমার্ধে এর পর আর অবশ্য গোল হয়নি। তবে আক্রমণ পাল্টা আক্রমণ ছিল দেখার মতো। ১২ মিনিটে কুতিনহোর শট প্রতিহত করেন রিয়াল গোলরক্ষক। ২৩ মিনিটে ফাতির ক্রসে বক্সের মধ্যে দারুণ শট নিয়েছিলেন মেসি। গোলরক্ষক কর্তোয়া সরাসরি প্রতিহত করেন। এর এক মিনিট আগে সার্জিও রামোসের দুর্দান্ত হেড সেভ করেন বার্সা গোলরক্ষক।

দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতেও রামোসের দারুণ হেড সফল হয়নি। ৫০ মিনিটে টনি ক্রুসের পাসে ক্যাসিমিরোর শট লক্ষ্যে পৌছায়নি। এর মিনিট খানেক পর মেসির পাসে দারুণ শট নিয়েছিলেন ফাতি। কিন্তু বল চলে যায় পোস্টের বাইরে দিয়ে। এর কুতিনহোও গোলের সুযোগ তৈরি করেছিলেন। কিন্তু এত কিছুর পর ৬৩ মিনিটে উল্টো গোল খেয়ে বসে বার্সেলোনা।

আর সেটা পেনাল্টি থেকে। যদিও প্রথমে পেনাল্টির বাঁশি বাজায়নি রেফারি। কিন্তু ভিএআরে দেখা যায়, বক্সের মধ্যে রামোসকে জার্সি ধরে টেনে ফেলে দিয়েছেন অ্যালবা। রেফারি পরে সিদ্ধান্ত বদল করে বাজান পেনাল্টির বাঁশি। সফল স্পট কিক থেকে রিয়াল মাদ্রিদকে ২-১ এ লিড এনে দেন সার্জিও রামোস।
এরপর নির্ধারিত সময়ে আক্রমণ পাল্টা আক্রমণ হয়েছে। তবে গোলের দেখা মেলেনি। অতিরিক্ত সময়ে শেষ মুহুর্তে শেষ চমকটা দেখান বদলি হিসাবে নামা লুকা মডরিচ। ভিনিসিউস জুনিয়রের উদ্দেশে মডরিচের বাড়ানো বল ঠেকাতে এগিয়ে যান নেতো, কিন্তু বল হাতে জমাতে পারেননি তিনি। আলগা বল রদ্রিগো ধরে বাড়ান মডরিচকে। আর তা জালে জমান ক্রোয়াট মিডফিল্ডার। ৩-১ গোলের রোমাঞ্চের জয়ে নিয়ে মাঠ ছাড়ে জিদান বাহিনী।

ছয় ম্যাচে চার জয় ও এক ড্রয়ে ১৩ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে ফিরেছে রিয়াল। এক ম্যাচ কম খেলা বার্সেলোনা ৭ পয়েন্ট নিয়ে আছে পাঁচ নম্বরে।


আরো সংবাদ