১৪ জুলাই ২০২০

এক বছর পেছালো সাফ ফুটবল

এক বছর পেছালো সাফ ফুটবল - সংগৃহিত

করোনায় আগ থেকেই আশংকা ছিল সেপ্টেম্বরে বাংলাদেশে সাফ ফুটবল হবে কিনা। সোমবার সাফ কর্তৃপক্ষ জানিয়েও দিলো তাদের চ’ড়ান্ত সিদ্ধান্তের কথা। করোনার এই ভয়াবহতায় কোনো দেশই সেপ্টেম্বরে সাফ ফুটবল খেলতে রাজী নয়। তাই এ বছর বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে অনুষ্ঠিতব্য সাফ ফুটবল আর হচ্ছে না।

২০২১ সালে এই আসর আয়োজনের পরিকল্পনা সাউথ এশিয়ান ফুটবল ফেডারেশনের। ২০২১ সালে এই সাফ বাংলাদেশেই হবে। কাল সাফ অঞ্চলের সাত দেশের ফুটবল ফেডারেশনের সাধারন সম্পাদকদের সাথে অললাইন সভা শেষে এই তথ্য দেন সাফ সেক্রেটারী বাংলাদেশের আনোয়ারুল হক হেলাল।

আগামী বছর সিনিয়র পুরুষ সাফের এই টুর্নামন্টে কবে হবে তা এখনও ঠিক করা সম্ভব হয়নি। বঙ্গবন্ধুর জন্ম শতবার্ষিকীতেই যেন করা যায় এ জন্য আগামীবছরের মার্চের মধ্যে এটি করার পরিকল্পনা ছিল। কিন্তু ভারতের জন্য তা সম্ভব হচ্ছে না। ভারতের পরিকল্পনা নভেম্বরে ঘরোয়া লিগ শুরু করে মার্চে তা শেষ করা। আর ভারত ছাড়া সাফ ফুটবল আয়োজন অনর্থক। তাই মার্চের আগে ২০২১ সালের সাফ আয়োজন সম্ভব হচ্ছে না। জানান হেলাল।

এই বছর সাফের চারটি আসর ছিল। এখন করোনা সব কিছুই আটকে দিয়েছে। তবে সাফ কর্তৃপক্ষ কোনোভাবেই এই বছরকে টুর্নামেন্ট বিহীন রাখতে চায় না। তাদের ইচ্ছে তিনটি বয়স ভিত্তিক সাফের অন্তত: একটি এই বছর আয়োজনের। যে কারনে কালকের সভায় সিনিয়র সাফের মতো স্থগিত করা হয়নি বয়স ভিত্তিক সাফ। হেলাল জানান, আমরা সিদ্ধান্ত নিয়েছি সেপ্টেম্বরে আবার বসবো। ততোদিন পর্যন্ত অপেক্ষা করছি বয়সভিত্তিক সাফের বিষয়ে। সেপ্টেম্বর পর্যন্ত করোনা পরিস্থিতির উন্নতি হলে প্রয়োজনে একটি বয়সভিত্তিক সাফ করবো ডিসেম্বরের মধ্যে। অবশ্য ডিসেম্বরে করলেও তখন পাওয়া যাবে না ভুটানকে। হেলাল তথ্য দেন, ‘ভুটান সরকার করোনা রোধে ডিসেম্বর পর্যন্ত ভুটানে সবার আসা-যাওয়া নিষিদ্ধ করেছে। তাই আমরা যদি ডিসেম্বরে টুর্নামেন্ট করি তাহলে ভুটানকে ছাড়াই করবো।’

উল্লেখ্য, এ বছর আগষ্টে অনূর্ধ্ব-১৫ পুরুষ, সেপ্টেম্বরে অনূর্ধ্ব-১৫ মহিলা এবং অক্টোবরে অনূর্ধ্ব-১৮ মহিলা সাফ হওয়ার কথা ছিল। করোনায় সাফের কংগ্রেসও এখনও হতে পারেনি।


আরো সংবাদ