২২ মার্চ ২০২৩, ০৮ চৈত্র ১৪২৯, ২৯ শাবান ১৪৪৪
`

উচ্চ ভূমিকম্প ঝুঁকিতে দেশ

দুর্বল প্রস্তুতির কারণে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতির আশঙ্কা বিশেষজ্ঞদের
শক্তিশালী ভূমিকম্পে রাজধানীর ঘনবসতির পরিণতি কী হতে পারে তা নিয়ে শঙ্কিত নগরবাসী। ছবিটি গুলশান ২ নম্বর এলাকার : নাসিম সিকদার -

বাংলাদেশ মাঝারি থেকে শক্তিশালী ভূমিকম্পের উচ্চ ঝুঁকির মুখে রয়েছে। এই ধরনের ভূমিকম্পে সুনামির কারণে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি এবং হাজার হাজার মানুষের প্রাণহানি ঘটতে পারে। বঙ্গোপসাগরে ভূমিকম্পের চারটি সক্রিয় উৎস সমুদ্র এলাকায় রিখটার স্কেলে ৭ মাত্রার বেশি কম্পন সৃষ্টি করতে পারে, যা দেশকে মারাত্মকভাবে প্রভাবিত করবে। বিশেষজ্ঞদের মতে, পাঁচটি ভূতাত্ত্বিক ফল্ট লাইন দেশের মধ্যে রয়েছে, যা একটি বড় ভূমিকম্পের জন্য অত্যন্ত ঝুঁকিপূর্ণ হিসাবে চিহ্নিত করে। অনেক ভবনের ত্রুটিপূর্ণ কাঠামো এবং যথাযথ সচেতনতার অভাবে এ দেশে ৭ বা তার বেশি মাত্রার বড় ভূমিকম্প হলে তা দেশকে বড় মানবিক ট্র্যাজেডির দিকে নিয়ে যাবে।

তুরস্ক ও সিরিয়ার ভূমিকম্প সম্পর্কে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ভূতত্ত্ব বিভাগের অধ্যাপক ড. আনোয়ার হোসেন ভূঁইয়া নয়া দিগন্তকে বলেছেন, এই যে আনাতোলিয়া ফল্ট, সেখানে অনেকগুলো প্লেটের একটা জট তৈরি হয়েছে। আর ওখানকার যে ভূতাত্ত্বিক অবস্থা, ভূমির গঠন সেটি শক্ত একটা ভিতের ওপর তৈরি। সেখানকার মাটির নিচের স্ট্রাকচারগুলো অপজিশন প্লেটের চেয়ে বেশি দৃঢ় প্রকৃতির, যার ফলে সেখানে ভূমিকম্প দ্রুত ছড়িয়ে পড়ে। এটার মধ্যে ভূমিকম্পের কম্পন সাধারণত দুইভাবে হয়। একটি বডি ওয়েজ, আরেকটি শকড। এটার শব্দের সাথে কম্পনটা আরো দ্রুত ছড়িয়ে পড়ে।

বাংলাদেশের প্রেক্ষিতে ড. আনোয়ার হোসেন বলেন, দেশের ভূপ্রকৃতির যে গঠন তা হচ্ছে কয়েকটি প্লেটের সমন্বয়। যেমন ইন্ডিয়ান প্লেট, ইউরেশিয়ান প্লেট এবং পূর্বের দিকে আরেকটি। সেই দিক থেকে বিবেচনা করলে আমাদের ভূপ্রকৃতির গঠন অর্থাৎ এলিমেন্টারি র’ অতটা শক্ত নয়। যার ফলে আমাদের দেশে ভূমিকম্প হলে সেটি চতুর্দিকে ছড়িয়ে পড়তে কিছুটা সময় লাগবে। এইটা হচ্ছে আমাদের জন্যে একটা ভালো দিক। তবে উন্নত বিশ্বের যেমন যেকোনো দুর্যোগ মোকাবেলায় প্রস্তুতি থাকে তেমনি আমাদেরও এরকম দুর্যোগে পড়ার আগেই ব্যাপক প্রস্তুতি নিয়ে রাখতে হবে। প্রস্তুতির বিকল্প কিছুই নেই।

বাংলাদেশ ওমেন্স ইউনিভার্সিটির শিক্ষক রায়হানুল ইসলাম ও জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক মো: নজরুল ইসলাম বাংলাদেশে ভূমিকম্পের ঝুঁকি : কারণ, দুর্বলতা, প্রশমনের জন্য প্রস্তুতি এবং কৌশলের উপর বিস্তৃত এক গবেষণা করেছেন। এতে তারা জানিয়েছেন, বাংলাদেশ বেশ কয়েকটি সক্রিয় টেকটোনিক প্লেটের সীমানার সন্ধিক্ষণে অবস্থান করছে। তদুপরি, এটি সমুদ্রপৃষ্ঠের কাছাকাছি বিশ্বের বৃহত্তম নদী ব-দ্বীপের শীর্ষে অবস্থিত, ভূমিকম্পের ফলে সৃষ্ট ঝুঁকি এবং ভূমিকম্পের পরে সুনামি এবং বন্যার গৌণ ঝুঁকি উভয়ের মুখোমুখি হয়। বাংলাদেশ এবং পার্শ্ববর্তী অঞ্চলের টেকটোনিক কাঠামো নির্দেশ করে যে, বাংলাদেশ ভারত ও ইউরেশিয়ার প্লেট মার্জিনের সংলগ্ন, যেখানে অতীতে বিধ্বংসী ভূমিকম্প হয়েছে।

তারা উল্লেখ করেন, বাংলাদেশ সাম্প্রতিক সময়ে ভূমিকম্প সৃষ্টিকারী বেশ কয়েকটি টেকটোনিক ব্লক দ্বারা বেষ্টিত। বাংলাদেশের বর্তমান প্রজন্মের মানুষ বড় কোনো ভূমিকম্প দেখেনি বলে জনসংখ্যা ভূমিকম্পের ঝুঁকি সম্পর্কে সাধারণভাবে আত্মতুষ্ট। তবে গত সাত-আট বছরে দেশের অভ্যন্তরে বা দেশের সীমান্তের কাছাকাছি ৪ থেকে ৬ মাত্রার মধ্যে কিছু ভূমিকম্পের ঘটনা ও ক্ষয়ক্ষতি সাধারণ মানুষ ও সরকারের মধ্যেও সচেতনতা বৃদ্ধি করেছে।

বিশেষজ্ঞদের মতে, দেশের অভ্যন্তর এবং প্রধান শহরগুলোর আশপাশে ভূমিকম্পের ঘটনাগুলো নির্দেশ করে যে সাধারণভাবে দেশের জন্য এবং বিশেষ করে শহরগুলোর জন্য ভূমিকম্পের বিশেষ ঝুঁকি বিদ্যমান। কাঠামোগত নকশা, শহর পরিকল্পনা এবং অবকাঠামোগত উন্নয়নে ভূমিকম্প শক্তির বিবেচনা তাই ভবিষ্যতের দুর্যোগ প্রশমনের জন্য একটি পূর্বশর্ত। ভৌগোলিকভাবে বাংলাদেশ দু’টি সক্রিয় টেকটোনিক প্লেট দ্বারা তৈরি ভারতীয় প্লেট এবং ইউরেশিয়ান প্লেট। এই দু’টি সাবডাকশন জোনের কাছাকাছি অবস্থিত। অধিকন্তু, দেশটি উত্তরে হিমালয় আর্ক, শিলং মালভূমি এবং ডাউকি ফল্ট সিস্টেম, পূর্বে বার্মিজ আর্ক এবং আরাকান ইয়োমা অ্যান্টিক্লিনোরিয়াম এবং উত্তর-পূর্বে নাগা ডিসাং হাফলং থ্রাস্ট জোন দ্বারা বেষ্টিত।

বিশেষজ্ঞদের মতে, রাজধানী শহর ঢাকা ভূমিকম্পের জন্য ঝুঁকিপূর্ণ; কারণ দেশটি কম্পনের উল্লম্ব এবং আনুভূমিক চলাচলের ক্ষেত্রে একটি সক্রিয় অঞ্চলে রয়েছে। সম্প্রতি ময়মনসিংহের হালুয়াঘাটে একটি সক্রিয় ত্রুটির অস্তিত্ব প্রমাণিত হয়েছে, যা দুর্বলতার আরো ঝুঁকি যোগ করেছে। বাংলাদেশের ভূতাত্ত্বিক জরিপ রেকর্ডের উপর ভিত্তি করে জানা গেছে, দেশে ১৯৭১ থেকে ২০০৬ সালের মধ্যে কমপক্ষে ৪৬৫টি ক্ষুদ্র থেকে মাঝারি মাত্রার ভূমিকম্প হয়েছে। ভূমিকম্পের প্রকৃত সংখ্যা এর চেয়ে অনেক বেশি বলে মনে করা হয়, কারণ অনেক ক্ষেত্রে কম্পন অনুভূত হয় না। চট্টগ্রামের একমাত্র অপারেশনাল অবজারভেটরিতে সঠিক সিসমিক যন্ত্রপাতির অভাবের কারণে সব ভূকম্পন রেকর্ড করা যায় না।

ভূমিকম্প বিশেষজ্ঞরা সাম্প্রতিক পুনরাবৃত্ত নিম্ন থেকে মাঝারি মাত্রার ভূমিকম্পকে অদূর ভবিষ্যতে একটি বিশাল এবং সম্ভাব্য বিপর্যয়কর ভূমিকম্পের জন্য একটি আগাম সতর্কতা হিসেবে বিবেচনা করেন, কারণ এই কম্পনগুলো ফল্ট ফাটল জোনের মধ্যে জমা হওয়া বেশির ভাগ চাপকে মুক্তি দিতে ব্যর্থ হয়। ভূমিকম্প বিশেষজ্ঞরা সন্দেহ করছেন, বড় শহরে রিখটার স্কেলে ৭.০ মাত্রার ভূমিকম্প হলে বাংলাদেশে সঠিক নির্মাণসামগ্রী ব্যবহার না করে এবং বিল্ডিং কোড লঙ্ঘন করে নগর কেন্দ্রগুলোতে নির্মিত অনেক ভবনের কাঠামোগত ব্যর্থতার কারণে একটি বড় মানবিক ট্র্যাজেডি এবং অর্থনৈতিক বিপর্যয় ঘটবে।

যদিও সরকার বিল্ডিং কোড তৈরি করেছে, যার মধ্যে কংক্রিট এবং ইস্পাত কাঠামোর ভূমিকম্প প্রতিরোধী নকশার বিস্তারিত নির্দেশিকা রয়েছে, কিন্তু এই কোডগুলো আনুষ্ঠানিকভাবে প্রয়োগ করা হয় না। একটি কার্যকর প্রয়োগকারী ব্যবস্থার অনুপস্থিতিতে, এটি ব্যাপকভাবে বিশ্বাস করা হয় যে অনেক নতুন ভবনে ভূমিকম্প প্রতিরোধের জন্য পর্যাপ্ত ব্যবস্থা নেই। ফলস্বরূপ ঢাকার অনিরাপদ স্থাপনায় বসবাসকারী বা কর্মরত মানুষের সংখ্যা বাড়ছে। একটি বড় ভূমিকম্প যেকোনো শহরকে ধ্বংস করে দিতে পারে। এটি একটি বিশাল শহরে সবচেয়ে বড় ধ্বংস ডেকে আনতে পারে, যেখানে লাখ লাখ মানুষ খারাপভাবে তৈরি ভবনে বাস করে এবং বন্যা এবং সমুদ্রপৃষ্ঠের উচ্চতা বৃদ্ধির মতো প্রাকৃতিক বিপদের জন্যও হুমকির মুখে পড়ে। এসব বিপদ রাজধানী ঢাকার জন্যও প্রযোজ্য।

দেশে সম্পূর্ণ ভূমিকম্প পর্যবেক্ষণের সুবিধা নেই। আবহাওয়া অধিদফতর ১৯৫৪ সালে চট্টগ্রামে একটি সিসমিক অবজারভেটরি স্থাপন করে। এটিই দেশের একমাত্র মানমন্দির। বাংলাদেশে ভূমিকম্পের অবস্থা উচ্চ ভূমিকম্পের অঞ্চল দ্বারা বেষ্টিত যার মধ্যে রয়েছে উত্তরে হিমালয় আর্ক এবং শিলং মালভূমি, বার্মিজ আর্ক, পূর্বে আরাকান ইয়োমা অ্যান্টিক্লিনোরিয়াম এবং উত্তর-পূর্বে জটিল নাগা-ডিসাং-জাফলং থ্রাস্ট জোন। এটি ডাউকি ফল্ট সিস্টেমের সাইট এবং অসংখ্য সাবসারফেস অ্যাক্টিভ ফল্ট এবং হিঞ্জ জোন নামে একটি ফ্লেক্সার জোন। এই দুর্বল অঞ্চলগুলো অববাহিকা অঞ্চলের মধ্যে চলাচলের জন্য প্রয়োজনীয় অঞ্চল সরবরাহ করে বলে বিশ্বাস করা হয়। বাংলাদেশের সাধারণীকৃত টেকটোনিক মানচিত্রে উপকেন্দ্রের বণ্টন ডাউকি ফল্ট সিস্টেম বরাবর রৈখিক এবং দেশের অন্যান্য অঞ্চলে এলোমেলো বলে পাওয়া যায়। মানচিত্রের তদন্ত প্রমাণ করে, উপকেন্দ্রগুলো দুর্বল অঞ্চলে পড়ে রয়েছে যার মধ্যে পৃষ্ঠ বা উপতলের ত্রুটি রয়েছে। বেশির ভাগ ঘটনাই মাঝারি স্তরের এবং একটি অগভীর গভীরতায় অবস্থিত, যা ইঙ্গিত করে যে সাম্প্রতিক নড়াচড়াগুলো বেসমেন্টের শিলাগুলোর উপরে অবস্থিত পলিতে ঘটেছে। দেশের উত্তর-পূর্ব অঞ্চলে (সুরমা অববাহিকা) প্রধান ঘটনাগুলো ডাউকি ফল্ট সিস্টেম দ্বারা নিয়ন্ত্রিত হয়। মধুপুর ট্র্যাক এবং এর আশপাশে অবস্থিত গঠনগুলো পলল থেকে ব্লককে আলাদা করার ত্রুটিগুলোর অগভীর স্থানচ্যুতিকেও নির্দেশ করে।

জোনিং ম্যাপে, বাংলাদেশকে তিনটি সাধারণ সিসমিক জোনে ভাগ করা হয়েছে: জোন-১, জোন-২ এবং জোন-৩। পূর্ব সিলেটের ডাউকি ফল্ট প্রণালী এবং গভীর উপনীত সিলেট ফল্টের উপস্থিতি এবং জাফলং থ্রাস্ট, নাগা থ্রাস্ট এবং ডিসাং থ্রাস্ট সহ অত্যন্ত অশান্ত দক্ষিণ-পূর্ব আসাম অঞ্চলের নৈকট্যসহ বাংলাদেশের উত্তর ও পূর্বাঞ্চল নিয়ে গঠিত জোন-১। এটি উচ্চ ভূমিকম্পের ঝুঁকির একটি অঞ্চল। বৃহত্তর রংপুর ও দিনাজপুর জেলা নিয়ে গঠিত উত্তর বাংলাদেশের যমুনা ফল্টের উপস্থিতি এবং সক্রিয় পূর্ব-পশ্চিম চলমান চ্যুতি এবং ভারতের উত্তরে প্রধান সীমানা চ্যুতির নৈকট্যের কারণে উচ্চ ভূমিকম্পের একটি অঞ্চল। চট্টগ্রাম-ত্রিপুরা ফোল্ডেড বেল্ট ঘন ঘন ভূমিকম্প অনুভব করে, যেমন এর পূর্বে বার্মিজ আর্ক রয়েছে যেখানে প্রচুর পরিমাণে অগভীর গভীরতার ভূমিকম্পের উৎপত্তি হয়। বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় অংশ নিয়ে গঠিত অঞ্চল-২। বরেন্দ্র ও মধুপুর ট্র্যাকের সাম্প্রতিক উন্নীত প্লাইস্টোসিন ব্লকের অঞ্চল এবং ভাঁজ বেল্টের পশ্চিম সম্প্রসারণকে প্রতিনিধিত্ব করে। বাংলাদেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চল নিয়ে গঠিত জোন-৩। ভূকম্পনগতভাবে এটি শান্ত।

বিশেষজ্ঞরা মনে করেন, বাংলাদেশ ভূমিকম্পের উচ্চ ঝুঁকিপূর্ণ অঞ্চলে অবস্থিত এবং দেশে যেকোনো সময় মাঝারি থেকে ভারী কম্পনের জন্য একটি নজিরবিহীন মানবিক বিপর্যয় ঘটতে পারে। এটা স্পষ্ট যে বাংলাদেশে বড় ধরনের ভূমিকম্প মোকাবেলার প্রস্তুতি খুবই দুর্বল। অর্থ মন্ত্রণালয়, স্বাস্থ্য, খাদ্য ও দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা, আবাসন ও এনজিওর মতো বিভিন্ন সংস্থার মধ্যে সমন্বয়ের অভাবের কারণেই এমনটা হয়েছে। এ ধরনের বিপর্যয় কীভাবে মোকাবেলা করা যায় সে সম্পর্কে মানুষের মধ্যে সচেতনতা কম। উন্নত ফায়ার ব্রিগেড এবং সিভিল ডিফেন্স কার্যক্রমের মতো সহায়তা সুবিধার অভাব, বিপুলসংখ্যক ভূমিকম্পে ক্ষতিগ্রস্তদের থাকার জন্য মাল্টিডিসিপ্লিনারি হাসপাতাল, শারীরিক ও মানসিক সহায়তা, অ্যাম্বুলেন্সের মাধ্যমে যোগাযোগ, পরিবহন যান, পর্যাপ্ত সংখ্যক ড্রিলিং সরঞ্জাম, বুলডোজার ইত্যাদিরও রয়েছে অভাব। তাদের মতে, বাংলাদেশে একটি বড় ভূমিকম্প আঘাত হানলে তা জীবন, সম্পত্তির যে বিপর্যয় ও ক্ষতির সৃষ্টি করবে তা কল্পনাতীত। উপরোক্ত বিবরণ থেকে এটা প্রতীয়মান হয় যে বাংলাদেশে যেকোনো সময় ঘটতে পারে এমন একটি বড় ভূমিকম্পকে পর্যাপ্তভাবে সামাল দেয়ার ক্ষেত্রে আমরা একটি বড় চ্যালেঞ্জের সম্মুখীন হচ্ছি।

জনগণের দুর্ভোগ, জানমালের ক্ষয়ক্ষতি ও বড় ধরনের হতাহতের ঘটনা কমাতে সরকারি গণমাধ্যম, চিকিৎসক, প্রকৌশলী, আইনজীবী জনপ্রতিনিধি ও গণমাধ্যম এবং সর্বস্তরের জনগণকে একটি কেন্দ্রীয় সংস্থা গঠনে বলিষ্ঠভাবে এগিয়ে আসতে হবে, ক্রয় করতে হবে সামলানোর সরঞ্জাম, অবিলম্বে বিপদ অঞ্চলের বাইরে মাল্টিডিসিপ্লিনারি হাসপাতাল স্থাপনের ব্যবস্থা করতে হবে। এ ছাড়াও ভূমিকম্প সম্পর্কে সাধারণ মানুষের মধ্যে গণসচেতনতা, ভূমিকম্প হলে কী করতে হবে, কোথায় আশ্রয় নিতে হবে, কোথায় সাহায্যের জন্য ফোন করতে হবে ইত্যাদি বিভিন্ন টেলিভিশন, রেডিও, সংবাদপত্র, টকশোতে প্রতিদিন প্রচার করা উচিত। ভূমিকম্পের মতো দুর্যোগ সংক্রান্ত নীতিগত সমস্যাগুলো বেশির ভাগ জাতীয় স্তরে পরিচালনা করা যেতে পারে তবে পরিকল্পনা এবং বাস্তবায়নের সমস্যাগুলো স্থানীয় স্তরে পরিচালনা করতে হবে। সর্বোপরি জাতীয় বিল্ডিং কোড এবং সক্ষমতা বৃদ্ধির যথাযথ প্রয়োগ বাংলাদেশে ভূমিকম্পের ঝুঁকি হ্রাস করতে পারে।

 

 

 


আরো সংবাদ


premium cement