২৮ জানুয়ারি ২০২৩, ১৪ মাঘ ১৪২৯, ৫ রজব ১৪৪৪
ads
`

ইউক্রেনকে আরো অস্ত্র সহায়তার প্রতিশ্রুতি ন্যাটোর

-

রাশিয়ার ক্রমবর্ধমান হামলা মোকাবেলায় ইউক্রেনকে আরো অস্ত্র সহায়তার প্রতিশ্রুতি দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র নেতৃত্বাধীন পশ্চিমা সামরিক জোট ন্যাটো। রোমানিয়ার রাজধানী বুখারেস্টে ন্যাটোর সদস্য রাষ্ট্রগুলোর পররাষ্ট্রমন্ত্রীদের দুই দিনের শীর্ষ সম্মেলন থেকে রুশ হামলায় ক্ষতিগ্রস্ত জ্বালানি অবকাঠামো মেরামতের সহায়তারও আশ্বাস দিয়েছে জোট সদস্য রাষ্ট্রগুলো। এ খবর দিয়েছে ব্রিটিশ সংবাদ মাধ্যম বিবিসি।
রোমানিয়ার রাজধানী ন্যাটোর সদস্য রাষ্ট্রগুলোর পররাষ্ট্রমন্ত্রীদের নিয়ে দুই দিনের শীর্ষ সম্মেলন চলছে। সম্মেলনে ইউক্রেনে রাশিয়ার আগ্রাসন প্রসঙ্গে জোট মহাসচিব জেন্স স্টলটেনবার্গ অভিযোগ করেন, আসন্ন শীতকে অস্ত্র হিসেবে ব্যবহারের চেষ্টা করছে মস্কো।


উল্লেখ্য, গত মাস থেকেই ইউক্রেনের জ্বালানি অবকাঠামোতে লাগাতার ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালিয়ে আসছে রুশ বাহিনী। ফলে রাজধানী কিয়েভসহ ইউক্রেনের অনেক শহরে বিদ্যুৎ ও পানি নেই। প্রচণ্ড ঠাণ্ডায় লাখ লাখ মানুষ বিদ্যুৎহীন অবস্থায় রয়েছে। জেনেভা কনভেনশন অনুযায়ী যুদ্ধে বেসামরিক স্থাপনা এবং জ্বালানি কেন্দ্রে হামলা যুদ্ধাপরাধ। ইউক্রেনের জ্বালানি অপারেটর জানিয়েছে, ইউক্রেনে চাহিদার ৩০ শতাংশ বিদ্যুৎ সরবরাহ করা সম্ভব হচ্ছে না।


রুশ হামলা প্রতিহতে ন্যাটোর কাছে আরও উন্নত প্রযুক্তির আকাশ প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা চেয়ে আসছেন ইউক্রেনীয় প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কি। তারই পরিপ্রেক্ষিতে অস্ত্র সহায়তার প্রতিশ্রুতি এসেছে ন্যাটোর কাছ থেকে। রোমানিয়ার রাজধানীতে গত মঙ্গলবার জেন্স স্টলটেনবার্গ বলেন, রাশিয়া সত্যিকার অর্থে যুদ্ধের ময়দানে হেরে যাচ্ছে। এমন পরিস্থিতিতে তারা বেসামরিক স্থপনাকে লক্ষ্যবস্তু করছে, কারণ শহরগুলো দখল করতে পারবে না তারা। ইউক্রেনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী দিমিত্রি কুলেবার সাথে যৌথ সংবাদ সম্মেলনে যোগ দিয়ে ন্যাটো মহাসচিব আরো বলেন, যত দিন প্রয়োজন হয় আমরা ইউক্রেনের পাশে থাকব, পিছপা হবো না।


যুক্তরাষ্ট্র ও ন্যাটো ইউক্রেনকে ব্যর্থ করছে : যুক্তরাষ্ট্রের নেতৃত্বাধীন পশ্চিমা সামরিক জোট ন্যাটোর পক্ষ থেকে ইউক্রেনে যে পরিমাণ সামরিক সহায়তা আসছে তা নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন জোটটির সাবেক মার্কিন রাষ্ট্রদূত রবার্ট হান্টার। গত মঙ্গলবার ওয়াশিংটন ডিসিতে সংবাদমাধ্যম আলজাজিরার সাথে কথা বলার সময় তিনি বলেন, আশ্চর্যজনক বিষয় হলো মার্কিন নেতৃত্বাধীন জোট এখন পর্যন্ত অ্যান্টি ড্রোন এবং অ্যান্টি মিসাইল প্রতিরক্ষার ক্ষেত্রে খুব বেশি কিছু করেনি।


শরৎকালে স্পষ্ট ছিল যে শীতে রাশিয়া ইউক্রেনের জ্বালানি কেন্দ্রগুলোকে লক্ষ্য করে হামলা চালিয়ে সুবিধা আদায়ের চেষ্টা করবে। যদিও ইউক্রেনীয়রা বীরত্বপূর্ণ লড়াই চালিয়ে যাচ্ছে। সাবেক মার্কিন রাষ্ট্রদূত বলেন, শুধু ক্ষয়ক্ষতি মেরামত করার পরিবর্তে রাশিয়া ইউক্রেনে যে ধ্বংসযজ্ঞ চালাচ্ছে তা মোকাবেলায় পদক্ষেপ নেয়া যেতে পারে। যুক্তরাষ্ট্র ও ন্যাটো স্পষ্টভাবে, ইউক্রেনকে ব্যর্থ করছে।


এর মধ্যেই রাশিয়ার ক্রমবর্ধমান হামলা মোকাবেলায় ইউক্রেনকে আরো অস্ত্র সহায়তার প্রতিশ্রুতি দিয়েছে ন্যাটো। রোমানিয়ার রাজধানী বুখারেস্টে ন্যাটোর সদস্য রাষ্ট্রগুলোর পররাষ্ট্রমন্ত্রীদের দুই দিনের শীর্ষ সম্মেলন থেকে রুশ হামলায় ক্ষতিগ্রস্ত জ্বালানি অবকাঠামো মেরামতের সহায়তারও আশ্বাস দেয় জোট সদস্য রাষ্ট্রগুলো। মহাসচিব জেন্স স্টলটেনবার্গ অভিযোগ করেন, আসন্ন শীতকে অস্ত্র হিসেবে ব্যবহারের চেষ্টা করছে মস্কো।
ফ্রান্সের দূরপাল্লার রকেট সিস্টেম পেল ইউক্রেন : টানা ৯ মাসেরও বেশি সময় ধরে ইউক্রেনে সামরিক অভিযান চালাচ্ছে রাশিয়া। এই পরিস্থিতিতে ফ্রান্সের দূরপাল্লার রকেট সিস্টেম হাতে পেয়েছে ইউক্রেন। এরপরই ইউক্রেন উচ্ছ্বাস প্রকাশ করেছে এবং এই রকেট সিস্টেম রাশিয়ার বিরুদ্ধে যুদ্ধক্ষেত্রের গতিশীলতা পরিবর্তন করতে পারে বলে মনে করা হচ্ছে। গত মঙ্গলবার এক প্রতিবেদনে এই তথ্য জানিয়েছে বার্তাসংস্থা এএফপি। ফ্রান্স থেকে একাধিক রকেট লঞ্চার সিস্টেম হাতে এসেছে বলে মঙ্গলবার জানিয়েছে ইউক্রেন।


দূরপাল্লার ফরাসি এই আর্টিলারি ইউক্রেনের অস্ত্রাগারে যোগ হওয়ায় এখন তা রাশিয়ার বিরুদ্ধে যুদ্ধক্ষেত্রে গতিশীলতা পরিবর্তনের সহায়ক হবে বলেও জানিয়েছে দেশটি। মঙ্গলবার এক টুইট বার্তায় ইউক্রেনের প্রতিরক্ষামন্ত্রী ওলেক্সি রেজনিকভ বলেছেন, ‘ফ্রান্স থেকে এলআরইউ ইউক্রেনে এসেছে! ইউক্রেনের সেনাবাহিনী এখন আরো শক্তিশালী।’ ফ্রান্সের সরবরাহ করা এলআরইউ হলো হিমারস, এম২৭০, মারস ২-এর পর ইউক্রেনকে দেয়া চতুর্থ প্রকার অত্যাধুনিক রকেট-লঞ্চার সিস্টেম (এমএলআরএস)।


মূলত কিয়েভকে রাশিয়ার আক্রমণের বিরুদ্ধে যুদ্ধে সহায়তা করার জন্য ইউক্রেনে ফরাসি এই রকেট সরবরাহ করা হচ্ছে। ফ্রান্সের সরবরাহ করা রকেট লঞ্চার সিস্টেমের পরিসীমা প্রায় ৭০ কিলোমিটার (৪৩ মাইল)। এএফপি বলছে, সাম্প্রতিক মাসগুলোতে রাশিয়া নিয়ন্ত্রিত অঞ্চলের কমান্ড স্টেশন এবং গোলাবারুদ ডিপোতে নিজস্ব ক্ষেপণাস্ত্রের চেয়ে পশ্চিমা সরবরাহকৃত সিস্টেমগুলো ব্যবহার করে হামলা করছে ইউক্রেন।
আর তাই পশ্চিমা দেশগুলোর কাছে আরো দূরপাল্লার অস্ত্রের জোগান দেয়ার অনুরোধ করেছে কিয়েভ। বার্তা সংস্থাটি বলছে, দুই সপ্তাহ আগে ফরাসি সেনাবাহিনী বিষয়ক মন্ত্রী সেবাস্তিয়ান লেকর্নু দেশটির লে জার্নাল ডু দিমাঞ্চেকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে ইউক্রেনে দু’টি ফরাসি এলআরইউ সরবরাহের কথা ঘোষণা করেছিলেন।


সে সময় লেকর্নু বলেন, ফ্রান্স ক্রোটেল এয়ার ডিফেন্স সিস্টেমের দু’টি ব্যাটারিও পাঠাবে এবং আকাশপথে হামলা শনাক্ত করার জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ রাডারের জন্য ইউক্রেনের অনুরোধ বিবেচনা করছে। এ ছাড়া ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ) যে ১৫ হাজার সৈন্যকে প্রশিক্ষণ দেয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছে, তাদের মধ্যে ২ হাজার সৈন্যকে প্রশিক্ষণের পরিকল্পনাও করছে ফ্রান্স।


আরো সংবাদ


premium cement