০১ ডিসেম্বর ২০২২, ১৬ অগ্রহায়ন ১৪২৯, ৬ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪ হিজরি
`

ইউক্রেনের চার অঞ্চল রাশিয়ায় ঢুকছে ৪ অক্টোবর

জাতিসঙ্ঘে নিন্দা প্রস্তাব আনার পরিকল্পনা যুক্তরাষ্ট্রের; গণভোট আয়োজকদের নিষেধাজ্ঞা দেবে ইইউ
-

ইউক্রেনের যে চার অঞ্চল এখন রাশিয়া ও তার মিত্রদের দখলে আছে, সেখানে পাঁচ দিন ধরে চলা গণভোটে রাশিয়ার সাথে যুক্ত হওয়ার পক্ষে ‘বিপুল জনরায়’ এসেছে বলে জানিয়েছেন ওই এলাকাগুলোর মস্কোপন্থী প্রশাসনের কর্মকর্তারা। গণভোটের ফল পক্ষে আসায় রাশিয়া আগামী ৪ অক্টোবর ওই অঞ্চলগুলো নিজেদের ভূখণ্ডের সাথে যুক্ত করবে বলে ধারণা করা হচ্ছে। রয়টার্স/ সিএনএন/ আলজাজিরা।
লুহানস্ক, দনেস্ক, জাপোরিজ্জিয়া ও খেরসনকে ভূখণ্ডভুক্ত করতে রাশিয়ার এ বেপরোয়া মনোভাবের পাল্টায় যুক্তরাষ্ট্র সেখানে অনুষ্ঠিত গণভোটকে ‘কলঙ্কজনক’ অ্যাখ্যা দিয়ে জাতিসঙ্ঘে নিন্দাপ্রস্তাব আনার পরিকল্পনা করছে। মার্কিন কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, মস্কো ইউক্রেনের ওই চার অঞ্চলের আনুষ্ঠানিক নিয়ন্ত্রণ নেয়ার পরপর তাদের ওপর আরেক দফা নিষেধাজ্ঞা এবং ইউক্রেনকে ১১০ কোটি ডলারের অস্ত্র সহায়তা দিতেও ওয়াশিংটন প্রস্তুতি নিচ্ছে।
এ দিকে রাশিয়ার দু’টি জ্বালানি পাইপলাইনে বড় ধরনের লিকের পেছনে নাশকতা; জার্মানি, সুইডেন ও ডেনমার্ক এমনটা বলার পর মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান্টনি ব্লিনকেন বলেছেন, যুক্তরাষ্ট্র এবং এর মিত্ররা ইউরোপের জ্বালানি নিরাপত্তার ব্যাপারে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। গ্যাস পাইপলাইনে নাশকতায় কারা, তা এখনো অস্পষ্ট। প্রায় সাত মাস যুদ্ধের পর গত ২৩ সেপ্টেম্বর থেকে শিল্পসমৃদ্ধ দনবাস যে দু’টি প্রদেশ নিয়ে, সেই দনেস্ক ও লুহানস্ক এবং জাপোরিজ্জিয়া ও খেরসন রাশিয়ার সাথে যুক্ত হওয়ার প্রশ্নে গণভোট শুরু হয়েছিল। মঙ্গলবার সেটি শেষ হয়। এই চার অঞ্চল ইউক্রেনের মোট ভূখণ্ডের প্রায় ১৫ শতাংশ।
গণভোটের যে ফল প্রকাশিত হয়েছে, তাতে অঞ্চলভেদে ভোটের ৮৭ শতাংশ থেকে ৯৯ দশমিক ২ শতাংশই রাশিয়ার সাথে যুক্ত হওয়ার প্রশ্নে ‘হ্যাঁ’ বলেছে। গণভোটের এই ফল রাশিয়ার পার্লামেন্ট আগামী ৪ অক্টোবর বিবেচনা করে দেখতে পারে বলে জানিয়েছেন পার্লামেন্টের উচ্চকক্ষের প্রধান। ‘ফল সুস্পষ্ট। রাশিয়ায় স্বাগতম,’ টেলিগ্রামে নিজের উচ্ছ্বাস ব্যক্ত করে লিখেছেন রাশিয়ার সাবেক প্রেসিডেন্ট, বর্তমানে দেশটির নিরাপত্তা পরিষদের ডেপুটি চেয়ারম্যান, এখনকার প্রেসিডেন্ট ভøাদিমির পুতিনের ঘনিষ্ঠ মিত্র দিমিত্রি মেদভেদেভ। গণভোটের সময় দখলকৃত অঞ্চলগুলোর অনেক এলাকাতেই রুশপন্থী কর্মকর্তারা ব্যালটবাক্স নিয়ে বাড়ি বাড়ি গিয়ে রায় নিয়েছেন বলে জানা গেছে। যাকে ইউক্রেন ও পশ্চিমা দেশগুলো এই গণভোটকে অবৈধ ও জবরদস্তিমূলক আচরণ অ্যাখ্যা দিয়ে বলেছে, নিজেদের দখল হালাল করতে আইনি মোড়ক দিতেই এই ভোট করেছে রাশিয়া। রাশিয়ার দখলে থাকা অঞ্চলগুলোতে যে প্রহসন হয়েছে তাতে একে এমনকি নকল গণভোটও বলা যাবে না, মঙ্গলবার রাতে দেয়া ভিডিও ভাষণে এ কথা বলেছেন ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কি।
জাতিসঙ্ঘে যুক্তরাষ্ট্রের দূত লিন্ডা থমাস-গ্রিনফিল্ড জানিয়েছেন, ইউক্রেনের ভূখণ্ডের কোনো পরিবর্তনকে স্বীকৃতি না দিতে সদস্য রাষ্ট্রগুলোর প্রতি আহ্বান এবং রাশিয়াকে সৈন্য প্রত্যাহারে বাধ্য করতে যুক্তরাষ্ট্র শিগগিরই জাতিসঙ্ঘ নিরাপত্তা পরিষদে একটি প্রস্তাব আনতে যাচ্ছে। পরিষদের এক বৈঠকে তিনি বলেছেন, ‘রাশিয়ার কলঙ্কজনক গণভোট যদি মেনে নেয়া হয়, তাহলে তা প্যান্ডোরার বাক্স খুলে দেবে, যা আমরা আর বন্ধ করতে পারব না।’
যুক্তরাষ্ট্র এ ধরনের কোনো প্রস্তাব আনলে রাশিয়া চাইলে তার ভেটো ক্ষমতা প্রয়োগ করে ওই উদ্যোগ বানচাল করে দিতে পারে। কিন্তু সে ক্ষেত্রে যুক্তরাষ্ট্র তৎক্ষণাৎ তা সাধারণ পরিষদে নিয়ে যাবে বলে জানিয়েছেন থমাস-গ্রিনফিল্ড। জাতিসঙ্ঘে যুক্তরাজ্যের সহকারী রাষ্ট্রদূত জেমস কারিউকি বলেছেন, এই অবস্থায়, বন্দুকের মুখে হওয়া কোনো গণভোটই বিন্দুমাত্র অবাধ বা ন্যায্য হতে পারে না। বৈঠকে জাতিসঙ্ঘে রাশিয়ার রাষ্ট্রদূত ভেসিলি নেবেনজিয়া বলেন, স্বচ্ছতা এবং নির্বাচনী প্রক্রিয়া অনুসরণ করেই এই গণভোট অনুষ্ঠিত হয়েছে।
নতুন করে নিষেধাজ্ঞা : এ দিকে ইউক্রেনের চার অধিকৃত অঞ্চলে রাশিয়ার গণভোটকে ‘অবৈধ’ আখ্যা দিয়ে এর আয়োজকদের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হবে বলে জানিয়েছে ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ)। ব্রিটেন ও অন্যদের সাথে নিষেধাজ্ঞার পথে হাঁটার এ সিদ্ধান্ত মঙ্গলবার জানিয়েছে ইইউ। ইইউ বৈদেশিক নীতিবিষয়ক প্রধান জোসেফ বরেলের মুখপাত্র পিটার স্টানো সাংবাদিকদের বলেন, অবৈধ, বেআইনি গণভোটে যারাই শামিল হয়েছে তাদের সবাইকে এর পরিণতি ভোগ করতে হবে। ইইউ বৈদেশিক নীতিবিষয়ক প্রধান জোসেফ বরেলের এক উচ্চপদস্থ কর্মকর্তা লুক ডেভিগনে আলাদাভাবে ইইউ আইনপ্রণেতাদেরকে বলেছেন, এই গণভোটের সর্বসাম্প্রতিক পদক্ষেপের সাথে যারা স্পষ্টতই জড়িত তাদেরকে আমরা নিষেধাজ্ঞার আওতাভুক্ত করব।
নতুন নিষেধাজ্ঞায় কী ধরনের পদক্ষেপ নেয়া হবে সে ব্যাপারে বিস্তারিত কিছু ডেভিগনে জানাননি। তবে বলেছেন, এর আওতায় রাশিয়ার আমদানি ও রফতানিতে নতুন নিষেধাজ্ঞা বহাল হবে। রাশিয়ার কিছু ব্যবসায়িক কর্মকাণ্ডের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ হবে এবং বেশ কিছু কোম্পানি ও ব্যক্তিও নিষেধাজ্ঞার তালিকাভুক্ত হবে।
ইউক্রেনের কাছ থেকে দখলকৃত এলাকায় গণভোট আয়োজনের ঘটনায় রাশিয়ার ওপর নতুন নিষেধাজ্ঞা আরোপ করবে কানাডা। কানাডার প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডো এই ঘোষণা দিয়েছেন। জাস্টিন ট্রুডো বলেন, কানাডা কখনো এই গণভোটের ফল বা রাশিয়া কর্তৃক ইউক্রেনের ভূখণ্ড অবৈধ দখলের প্রচেষ্টাকে স্বীকৃতি দেবে না। তিনি বলেন, ইউক্রেনের সার্বভৌমত্ব ক্ষুণœ করার এই সর্বশেষ প্রচেষ্টায় জড়িত ব্যক্তি এবং সংস্থাগুলোর ওপর নতুন নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হবে।
ধরপাকড়ের ঘটনায় উদ্বেগ জাতিসঙ্ঘের : রুশ প্রেসিডেন্ট ভøাদিমির পুতিনের আংশিক সেনা সমাবেশের আদেশের বিরুদ্ধে প্রতিবাদকারী হাজার হাজার বিক্ষোভকারীকে আটকের ঘটনায় উদ্বেগ প্রকাশ করেছে জাতিসঙ্ঘ। মঙ্গলবার জাতিসঙ্ঘের মানবাধিকারবিষয়ক হাইকমিশনারের মুখপাত্র রাভিনা শামদাসানি সংস্থাটির এমন উদ্বেগের কথা জানিয়েছেন।
অবিলম্বে নির্বিচারে আটককৃত সবাইকে মুক্তি দিতে রুশ কর্তৃপক্ষের প্রতি আহ্বান জানান রাভিনা শামদাসানি। একই সাথে তাদের মতপ্রকাশের স্বাধীনতা এবং শান্তিপূর্ণ সমাবেশের অধিকার নিশ্চিতের আন্তর্জাতিক বাধ্যবাধকতা মেনে চলার আহ্বান জানান তিনি।
ইউরোপে হাজারো রুশ নাগরিক : ইউরোপে গত এক সপ্তাহে রুশ নাগরিকদের প্রবেশের হার প্রায় ৩০ শতাংশ বেড়েছে। এমন তথ্য দিয়ে ইউরোপীয় ইউনিয়নের সীমান্ত বিষয়ক সংস্থা বলছে, যারা আসছে, তাদের অধিকাংশের কাছেই বৈধ ভিসা রয়েছে। অনেকেই আবার দ্বৈত নাগরিক। ফলে তাদের ইউরোপে ঢুকতে সমস্যা হচ্ছে না।
ফিনল্যান্ড এবং এস্তোনিয়ার সীমান্ত দিয়ে সবচেয়ে বেশি মানুষ ঢুকছে বলে জানিয়েছে ইউরোপিয়ান বর্ডার অ্যান্ড কোস্টগার্ড এজেন্সি (ফ্রনটেক্স)। সংস্থাটির ধারণা আগামী কয়েক সপ্তাহে সীমান্তে আরো মানুষের ঢল দেখা যেতে পারে। অবৈধ পারাপারের ঘটনাও ঘটতে শুরু করতে পারে। ইউক্রেনে যুদ্ধের জন্য সম্প্রতি সেনা সমাবেশের ঘোষণা দেন রুশ প্রেসিডেন্ট ভøাদিমির পুতিন। তার ওই ঘোষণার পর যুদ্ধে অংশগ্রহণ এড়াতে দলে দলে মানুষ রাশিয়া ছাড়তে শুরু করে।


আরো সংবাদ


premium cement