০৮ ডিসেম্বর ২০২২, ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৯, ১৩ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪ হিজরি
`

নোয়াখালীতে স্কুল ছাত্রীকে ধর্ষণের পর হত্যা

-

নোয়াখালী পৌরসভার ৩ নম্বর ওয়ার্ড লক্ষ্মীনারায়ণপুর এলাকার স্কুলছাত্রী তাসনিয়া হোসেন অদিতা হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় আবদুর রহিম রনি নামে তার সাবেক কোচিং শিক্ষকসহ তিনজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। গতকাল শুক্রবার বেলা পৌনে ১টার দিকে নিজ কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন জেলা পুলিশ সুপার মো: শহীদুল ইসলাম।
পুলিশ সুপার জানান, নিহত শিক্ষার্থীর লাশ উদ্ধারের পরপর পুলিশের একাধিক দল পৃথক অভিযান চালিয়ে ইসরাফিল (১৪), তার ভাই সাঈদ (২০) ও আবদুর রহিম রনিকে (২০) গ্রেফতার করে। এ হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় সে প্রাথমিকভাবে জড়িত বলে ধারণা করা হচ্ছে। রনির মাথা, ঘাড়, গলাসহ শরীরের একাধিক স্থানে নখের আঁচড় রয়েছে। ঘটনাস্থল থেকে হত্যায় ব্যবহৃত একটি ছোরা উদ্ধার করা হয়েছে। ঘটনায় একটি হত্যা মামলার প্রস্তুতি চলছে।
তিনি আরো জানান, রনির কোচিং থেকে কিছুদিন আগে পড়া বন্ধ করে দিয়ে অন্য স্থানে প্রাইভেট শুরু করে অদিতা। এতে ক্ষিপ্ত হয় রনি। অদিতার মা ঘরে না থাকার সুযোগ গত বৃহস্পতিবার দুপুর ১২টা থেকে ২টার মধ্যে কোনো একসময় বাসায় গিয়ে সে অদিতাকে ধর্ষণ করে এবং পরে ঘটনা ধামাচাপা দেয়ার জন্য ঘরে থাকা ছোরা দিয়ে হাত ও গলা কেটে অদিতাকে হত্যা করে এবং ঘটনা ভিন্ন খাতে নেয়ার জন্য ঘরে আলমিরাতে থাকা মালামাল ছড়িয়ে ছিটিয়ে রাখে। তবে কোনো মূল্যবান জিনিস খোয়া যায়নি।
বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে জাহান মঞ্জিলের একটি কক্ষ থেকে অদিতার লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। লাশটি অর্ধনগ্ন, গলা ও দুই হাতের রগকাটা অবস্থায় বিছানায় পড়ে ছিল। নিহত অদিতা নোয়াখালী সরকারি বালিকা উচ্চবিদ্যালয়ের অষ্টম শ্রেণীর ছাত্রী ছিলেন এবং নোয়াখালী পৌরসভার ৩ নম্বর ওয়ার্ডের লক্ষ্মীনারায়ণপুর মহল্লার আবুল খায়ের পেশকার বাড়ির মৃত রিয়াজ হোসেনের মেয়ে। তার মা স্থানীয় একটি বেসরকারি বিদ্যালয়ের শিক্ষিকা।
তাসনিয়া হোসেন অদিতার (১৪) খুনিদের বিচারের দাবিতে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ করেছে শত শত তরুণ, বিভিন্ন নাগরিক সংগঠনের প্রতিনিধিরা। গতকাল সকাল ১০টা থেকে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সামনে মুজিব চত্বরে সচেতন নোয়াখালীবাসীর ব্যানারে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ অনুষ্ঠিত হয়। মানববন্ধন ও বিক্ষোভ সমাবেশে, তাসনিয়া হত্যাকাণ্ডের সঠিক তদন্ত ও দোষীদের গ্রেফতার করে দৃষ্টান্তমূলক বিচারের দাবি জানানো হয়। একই সাথে নোয়াখালীতে ক্রমাগত আইনশৃঙ্খলার অবনতিতে উদ্বেগ প্রকাশ করে মেয়েদের নিরাপত্তা, কিশোর গ্যাং বন্ধে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেয়ার দাবি জানানো হয়।
এ দিকে তাসমিয়া হোসেন অদিতা হত্যা মামলায় আসামিদের পক্ষে কোনো আইনজীবী দাঁড়াবেন না বলে জানিয়েছেন জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম আহবায়ক ও নোয়াখালী জেলা জজ আদালতের আইনজীবী শিহাব উদ্দিন শাহীন। গতকাল বিকেলে জেলা শহরের লক্ষ্মীনারায়ণপুর এলাকায় নিহত অদিতার বাসায় পরিবারের সদস্যদের সান্ত্বনা দিতে গিয়ে এ ঘোষণা দেন শাহীন। এ সময় শহরের বিভিন্ন এলাকায় গজিয়ে ওঠা কিশোর গ্যাং সদস্যদের আইনের আওতায় আনার জন্য প্রশাসনের প্রতি আহ্বান জানান শিহাব উদ্দিন শাহীন।


আরো সংবাদ


premium cement