১৬ মে ২০২২
`

এক দিনে করোনা শনাক্ত ৫ হাজার ছাড়াল, মৃত্যু ৮

-

গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে আরো আটজনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে মোট মৃত্যু হয়েছে ২৮ হাজার ১৪৪ জনের। নতুন করে শনাক্ত হয়েছেন পাঁচ হাজার ২২২ জন। সব মিলিয়ে আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১৬ লাখ ১৭ হাজার ৭১১ জন।
গতকাল রোববার বিকেলে স্বাস্থ্য অধিদফতর থেকে পাঠানো এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।
বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ঢাকা সিটিসহ দেশের বিভিন্ন হাসপাতালে ও বাড়িতে উপসর্গবিহীন রোগীসহ গত ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়েছেন ২৯৩ জন। এ পর্যন্ত মোট সুস্থ হয়েছেন ১৫ লাখ ৫২ হাজার ৮৯৩ জন।
সারা দেশে সরকারি ও বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় ৮৫৪টি ল্যাবে ২৪ ঘণ্টায় নমুনা সংগ্রহ হয়েছে ২৯ হাজার ৬৪২টি এবং নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে ২৯ হাজার ৩০৫টি। এ পর্যন্ত নমুনা পরীক্ষা হয়েছে এক কোটি ১৮ লাখ ৬১ হাজার ৪২৫টি।
এতে আরো জানানো হয়, গত ২৪ ঘণ্টায় নমুনা পরীক্ষায় শনাক্তের হার ১৭ দশমিক ৮২ শতাংশ। এ পর্যন্ত নমুনা পরীক্ষা বিবেচনায় শনাক্তের হার ১৩ দশমিক ৬৪ শতাংশ। শনাক্ত বিবেচনায় সুস্থতার হার ৯৫ দশমিক ৯৯ শতাংশ। শনাক্ত বিবেচনায় মৃত্যুর হার ১ দশমিক ৭৪ শতাংশ।
এতে জানানো হয়, ২৪ ঘণ্টায় মৃত আটজনের পাঁচজন পুরুষ এবং তিনজন নারী সদস্য রয়েছেন। মৃত আটজনের মধ্যে ৪১ থেকে ৫০ বছরের মধ্যে একজন, ৫১ থেকে ৬০ বছরের মধ্যে দু’জন, ৬১ থেকে ৭০ বছরের মধ্যে তিনজন, ৭১ থেকে ৮০ বছরের মধ্যে দু’জন রয়েছেন।
এতে আরো বলা হয়, মৃত আটজনের মধ্যে ঢাকা বিভাগের চারজন, চট্টগ্রাম বিভাগের তিনজন এবং সিলেট বিভাগের একজন রয়েছেন। মৃত আটজনের ছয়জন সরকারি হাসপাতালে এবং দু’জন বেসরকারি হাসপাতালে মারা যান।
গত ২৪ ঘণ্টায় আইসোলেশনে এসেছেন ২৯৪ জন ও আইসোলেশন থেকে ছাড়া পেয়েছেন ১২৬ জন। এ পর্যন্ত আইসোলেশনে এসেছেন তিন লাখ ৯১ হাজার ৩৯৩ জন। আইসোলেশন থেকে ছাড়পত্র পেয়েছেন তিন লাখ ৫৭ হাজার সাতজন। বর্তমানে আইসোলেশনে আছেন ৩৪ হাজার ৩৮৬ জন।
স্বাস্থ্য অধিদফতরের তথ্যমতে, ২০২০ সালের ৮ মার্চ দেশে করোনাভাইরাসের প্রথম রোগী শনাক্ত হয়। এর ১০ দিন পর ১৮ মার্চ করোনায় আক্রান্ত হয়ে প্রথম একজনের মৃত্যু হয়। এরপর ধীরে ধীরে আক্রান্তের হার বাড়তে থাকে।
চট্টগ্রামে এক দিনের ব্যবধানে দ্বিগুণ সংক্রমণ
চট্টগ্রাম ব্যুরো জানায়, চট্টগ্রামে মাত্র এক দিনের ব্যবধানেই দ্বিগুণ হয়ে গেছে করোনা সংক্রমণের সংখ্যা। আগের দিন যেটা ছিল ২৩৯, এক দিন পর এসে সেটা হলো ৫৫০। গত শুক্রবার নগরে আক্রান্ত ছিল ২১৮ জন, আর উপজেলায় ২১ জন। শনিবার সেটা হলো নগরে ৩৬২ জন, উপজেলায় ১৮৮ জন। এ নিয়ে চট্টগ্রামে এ পর্যন্ত শনাক্তের সংখ্যা দাঁড়াল এক লাখ চার হাজার ৯৭৭ জনে। গতকাল রোববার সকালে চট্টগ্রাম সিভিল সার্জন কার্যালয় থেকে প্রকাশিত প্রতিবেদনে এ সব তথ্য জানা গেছে।
প্রতিবেদনে বলা হয়, গত ২৪ ঘণ্টায় চট্টগ্রামের ১১ ল্যাবে এক হাজার ৯৮৩ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়। এর মধ্যে ৫৫০ জনের দেহে করোনার জীবাণু শনাক্ত হয়। নমুনা পরীক্ষার বিপরীতে সংক্রমণের হার ২৭ দশমিক ৭৩ শতাংশ। সংক্রমণের ভয়াবহ বিস্তারের মধ্যেও করোনায় কারো মৃত্যুর সংবাদ আসেনি। চট্টগ্রামে করোনায় এ পর্যন্ত মারা গেছেন এক হাজার ৩৩৫ জন।
খুলনা বিভাগেও দ্বিগুণের বেশি শনাক্ত
খুলনা ব্যুরো জানায়, খুলনা বিভাগে করোনা শনাক্তের সংখ্যা বেড়েছে। গত ২৪ ঘণ্টায় বিভাগের ১০ জেলায় ৮৯ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। এর আগের ২৪ ঘণ্টার চেয়ে গতকাল রোববার করোনা শনাক্ত হয়েছে দ্বিগুণের বেশি। গত শনিবার শনাক্তের সংখ্যা ছিল ৩২ জনের।
গতকাল দুপুরে খুলনা বিভাগীয় স্বাস্থ্য পরিচালক ডা: মো: মনজুরুল মুরশিদ স্বাক্ষরিত প্রতিবেদন থেকে জানা যায়, গত ২৪ ঘণ্টায় খুলনা বিভাগের সীমান্তবর্তী জেলা যশোরেই ৪০ জন শনাক্ত হয়। এ ছাড়া খুলনা জেলায় ২৫ জন, ঝিনাইদহে ১৩ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। অপর দিকে নড়াইল, চুয়াডাঙ্গা ও মেহেরপুর জেলায় তিনজন করে এবং সাতক্ষীরায় দু’জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। এ সময়ে কুষ্টিয়া, বাগেরহাট ও মাগুরা জেলায় কারো করোনা শনাক্ত হয়নি। ওই প্রতিবেদনে আরো জানা যায়, খুলনা বিভাগে করোনা সংক্রমণের শুরু থেকে গতকাল রোববার সকাল ১০টা পর্যন্ত বিভাগের ১০ জেলায় এক লাখ ১৪ হাজার ৮৩ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। এখন পর্যন্ত করোনা থেকে সুস্থ হয়েছেন এক লাখ ৯ হাজার ২৯৩ জন। এ ছাড়া মারা গেছেন তিন হাজার ১৯৫ জন।


আরো সংবাদ


premium cement