২৮ জানুয়ারি ২০২২, ১৪ মাঘ ১৪২৮, ২৪ জমাদিউস সানি ১৪৪৩
`

অধ্যাপক তাজমেরী ইসলাম গ্রেফতার

ভাঙচুরের মামলায় কারাগারে
-

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বিজ্ঞান অনুষদের সাবেক ডিন ও বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার উপদেষ্টা অধ্যাপক তাজমেরী এস এ ইসলামকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। গত বৃহস্পতিবার সকালে রাজধানীর উত্তরার ১৩ নম্বর সেক্টরের বাসা থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। পরে তাকে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।
জানা গেছে, ২০১৮ সালে ভাঙচুর ও মারধরসহ দণ্ডবিধির বিভিন্ন ধারায় দায়ের করা মামলায় তাজমেরী ইসলামের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা ছিল। সেই মামলায় বৃহস্পতিবার তাকে গ্রেফতার করা হয়। এরপর তাকে ঢাকার চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট (সিএমএম) আদালতে পাঠানো হয়। শুনানি শেষে আদালত অধ্যাপক তাজমেরীকে গাজীপুরের কাশিমপুর কারাগারে পাঠান।
তাজমেরী এস এ ইসলাম ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রসায়ন বিভাগের শিক্ষক এবং বিএনপিপন্থী শিক্ষক সংগঠন সাদা দলের আহ্বায়ক। তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বিজ্ঞান অনুষদের সাবেক ডিন ও রোকেয়া হলের প্রভোস্ট ছিলেন। রসায়ন বিভাগের চেয়ারম্যান হিসেবেও তিনি দায়িত্ব পালন করেছিলেন।
গ্রেফতার লজ্জাজনক : ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রসায়ন বিভাগের সাবেক অধ্যাপক এবং বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা কাউন্সিলের সদস্য অধ্যাপক ড. তাজমেরী এস এ ইসলামকে গ্রেফতারের ঘটনায় তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছে বিভিন্ন রাজনৈতিক ও পেশাজীবী সংগঠন। অধ্যাপক তাজমেরী এস এ ইসলামের মতো বরেণ্য অধ্যাপককে গ্রেফতার অত্যন্ত লজ্জাজনক মন্তব্য করে অবিলম্বে তার নিঃশর্ত মুক্তির দাবি জানানো হয়। অধ্যাপক তাজমেরীর মুক্তি চেয়ে বিবৃতি দিয়েছে বিএনপি, ইউনিভার্সিটি টিচার্স অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (ইউট্যাব) ও জিয়াউর রহমান ফাউন্ডেশন (জেডআরএফ)। বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান অবিলম্বে অধ্যাপক তাজমেরী ইসলামের নিঃশর্ত মুক্তি দাবি করেন।
ইউট্যাব : অধ্যাপক ড. তাজমেরী এস এ ইসলামকে গ্রেফতারের ঘটনায় তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ এবং উদ্বেগ জানিয়ে অবিলম্বে তার নিঃশর্ত মুক্তি দাবি করেছে পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকদের সংগঠন ইউনিভার্সিটি টিচার্স অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (ইউট্যাব)। গতকাল শুক্রবার সংগঠনের প্রেসিডেন্ট অধ্যাপক ড. এ বি এম ওবায়দুল ইসলাম ও মহাসচিব অধ্যাপক ড. মো: মোর্শেদ হাসান খান এক বিবৃতিতে বলেন, একটি রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত মামলায় অধ্যাপক তাজমেরী এস এ ইসলামকে গ্রেফতার ও কারাগারে প্রেরণের ঘটনা অত্যন্ত লজ্জাজনক ও উদ্বেজনক। আমরা শিক্ষকসমাজ এহেন কর্মকাণ্ডের তীব্র প্রতিবাদ জানাচ্ছি। আসলে এই ক্ষমতালোভী সরকার তাদের লক্ষ্য পূরণে বিএনপিসহ বিরোধীদলীয় নেতাকর্মীদেরকে গ্রেফতারের ধারাবাহিকতায় বিশ^বিদ্যালয়ের খ্যাতিমান শিক্ষক অধ্যাপক ড. তাজমেরী এস এ ইসলামকে বানোয়াট মামলায় গ্রেফতার এবং জামিন বাতিল করে কারান্তরীণ করেছে। অবিলম্বে অধ্যাপক তাজমেরী এস এ ইসলামের নিঃশর্ত মুক্তি দাবি জানান ইউট্যাবের নেতৃদ্বয়।
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সাদা দল : অধ্যাপক ড. তাজমেরী এস এ ইসলামকে গ্রেফতার ও কারাগারে প্রেরণের ঘটনায় গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করে এ ধরনের ন্যক্কারজনক ঘটনার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বিএনপিপন্থী শিক্ষকদের সংগঠন সাদা দল। সংগঠনের আহ্বায়ক অধ্যাপক লুৎফর রহমান স্বাক্ষরিত এক বিবৃতিতে বলা হয়, অধ্যাপক ড. তাজমেরী ইসলাম ঢাকা বিশ^বিদ্যালয়ের খ্যাতিমান, সফল ও অত্যন্ত জনপ্রিয় শিক্ষক নেতা। তিনি রসায়নবিদ হিসেবে দেশে-বিদেশে সমানভাবে সুপরিচিত। তিনি একাধারে ঢাকা বিশ^বিদ্যালয়ের রসায়ন বিভাগের চেয়ারম্যান, বিজ্ঞান অনুষদের একাধিক মেয়াদে নির্বাচিত ডিন, রোকেয়া হলের প্রভোস্ট, শিক্ষক সমিতির সভাপতি এবং সিনেট ও সিন্ডিকেট সদস্য হিসেবেও সাফল্যের সাথে দায়িত্ব পালন করেছেন। এমন একজন কৃতী শিক্ষাবিদকে মিথ্যা, বানোয়াট ও হয়রানিমূলক মামলায় গ্রেফতার এবং কারান্তরীণ করা সরকারের রাজনৈতিক প্রতিহিংসার বহিঃপ্রকাশ বলে মনে করি। অধ্যাপক তাজমেরী এস এ ইসলাম একজন নারী ও জ্যেষ্ঠ নাগরিক। তাকে কারান্তরীণ করা মানবাধিকারের পরিপন্থী বলেও মনে করি। বিবৃতিতে বলা হয়, ড. তাজমেরী এস এ ইসলামের প্রতি সরকারের এ নির্মম আচরণে আমরা শিক্ষকসমাজ ক্ষুব্ধ ও মর্মাহত। অবিলম্বে এই মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার করে তাকে নিঃশর্ত মুক্তি দিতে হবে। অন্যথায় তাকে মুক্তকরণে শিক্ষক ও পেশাজীবী সমাজ জোর আন্দোলনে বাধ্য হবে।
ড্যাব : এ দিকে অধ্যাপক তাজমেরী এস এ ইসলামকে গায়েবি মামলায় গ্রেফতারের তীব্র নিন্দা জানিয়ে ডক্টরস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (ড্যাব) সভাপতি অধ্যাপক ডা: হারুন আল রশীদ এবং সম্মানিত মহাসচিব ডা: মো: আব্দুস সালাম। তারা এক যৌথ বিবৃতিতে বলেন, দেশের সর্বোচ্চ বিদ্যাপীঠের একজন সম্মানিত বয়োজ্যেষ্ঠ শিক্ষিকাকে ভুয়া মামলায় গ্রেফতার করে কারাগারে প্রেরণ সরকারের স্বৈরাচারী আচরণের বহিঃপ্রকাশ এবং এহেন অসহিষ্ণু আচরণ শিক্ষার পরিবেশ, সামাজিক ভারসাম্য এবং আইনের শাসনের পরিপন্থী। ড্যাবের নেতৃবৃন্দ অবিলম্বে সম্মানিত নারী শিক্ষকের শর্তহীন মুক্তি ও তার বিরুদ্ধে ভুয়া মামলা প্রত্যাহারের জোর দাবি জানান।
জেডআরএফ : এ দিকে বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা অধ্যাপক ড. তাজমেরী এস এ ইসলামকে গ্রেফতার ও কারাগারে প্রেরণের ঘটনায় গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করে তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছে জিয়াউর রহমান ফাউন্ডেশন (জেডআরএফ)। গতকাল শুক্রবার ফাউন্ডেশনের নির্বাহী পরিচালক অধ্যাপক ডা: ফরহাদ হালিম ডোনার এক বিবৃতিতে বলেন, যতই দিন অতিবাহিত হচ্ছে ভোটারবিহীন সরকারের জিঘাংসার মাত্রা ততই ভয়াবহ রূপ ধারণ করছে। এই সরকার বিএনপিসহ বিরোধীদলীয় নেতাকর্মীদেরকে গ্রেফতারের ধারাবাহিকতায় বিশ^বিদ্যালয়ের খ্যাতিমান শিক্ষক অধ্যাপক তাজমেরী এস এ ইসলামকে বানোয়াট মামলায় গ্রেফতার ও কারান্তরীণ করেছে। অথচ তিনি নির্দোষ এবং রাজনৈতিক প্রতিহিংসার শিকার। তাজমেরী ইসলামের বিরুদ্ধে দায়ের করা মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার এবং তার দ্রুত নিঃশর্ত মুক্তির দাবি জানান ডা: ফরহাদ হালিম ডোনার।
প্রসঙ্গত অধ্যাপক তাজমেরী এস এ ইসলামকে নাশকতার একটি মামলায় গ্রেফতার করেছে পুলিশ। ২০১৮ সালের ২৩ সেপ্টেম্বর মারধরসহ দণ্ডবিধির বিভিন্ন ধারায় করা মামলায় তার বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা ছিল।
জাবির জাতীয়তাবাদী শিক্ষক ফোরাম : অধ্যাপক ড. তাজমেরী এস এ ইসলামকে গ্রেফতারের ঘটনায় তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় জাতীয়তাবাদী শিক্ষক ফোরাম-এনটিএফ। গতকাল এক বিবৃতিতে বিশ্ববিদ্যালয়ের জাতীয়তাবাদী শিক্ষকরা অধ্যাপক ড. তাজমেরী এস এ ইসলামকে অবিলম্বে নিঃশর্ত মুক্তি দেয়ার আহ্বান জানান।
বিবৃতিদাতা শিক্ষকদের মধ্যে রয়েছেন জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় জাতীয়তাবাদী শিক্ষক ফোরাম-এনটিএফর-এর সভাপতি অধ্যাপক ড. শামছুল আলম সেলিম, সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক মোস্তফা নাজমুল তমাল, অধ্যাপক ড. নজরুল ইসলাম, অধ্যাপক ড. এনাম উল্লাহ, অধ্যাপক নাজমুল আলম, অধ্যাপক নাসরিন সুলতানা, ড. সোমা মুমতাজ প্রমুখ।
বিএফইউজে-ডিইউজের নিন্দা : অধ্যাপক এবং বাংলাদেশ সম্মিলিত পেশাজীবী পরিষদের শীর্ষ নেতা ড. তাজমেরী এস ইসলামকে গ্রেফতারের ঘটনায় নিন্দা ও গভীর উদ্বেগ জানিয়েছে বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়ন (বিএফইউজে) ও ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়ন (ডিইউজে)।
বিএফইউজের সভাপতি এম আবদুল্লাহ ও মহাসচিব নুরুল আমিন রোকন এবং ডিইউজের সভাপতি কাদের গনি চৌধুরী ও সাধারণ সম্পাদক মো: শহিদুল ইসলাম গতকাল এক যুক্ত বিবৃতিতে বলেন, তাজমেরী ইসলাম একজন বয়োবৃদ্ধ ও নন্দিত শিক্ষাবিদ। অথচ একটি পুরনো মামলায় তাকে গ্রেফতারের পর কারাগারে পাঠানোর ঘটনা অত্যন্ত অমানবিক এবং মানবাধিকার লঙ্ঘনের শামিল। বিবৃতিতে অনতিবিলম্বে ড. তাজমেরী এস ইসলামকে নিঃশর্ত মুক্তির দাবি জানান সাংবাদিক নেতারা।


আরো সংবাদ


premium cement
আইসিবি এএমসিএল পেনশন হোল্ডারসথ ইউনিট ফান্ডের ১০ টাকা লভ্যাংশ ঘোষণা জুমার নামাজ শেষে মসজিদে দোয়ার আহ্বান হেফাজতের সাংবাদিক এমদাদুল হক খানের ওপর সন্ত্রাসী হামলা ইউক্রেন নিয়ে অবস্থান ব্যাখ্যা করল রাশিয়া ও যুক্তরাষ্ট্র দুবাইয়ে খেলবেন জোকোভিচ জাতীয় উশুতে এসএ গেমস স্কোয়াড বাছাই ইরাককে হারিয়ে বিশ্বকাপের চূড়ান্ত পর্বে খেলার সুযোগ পেল ইরান পোশাক শিল্পে নারী শ্রমিকদের হার কমে যাওয়ার কারণ কী? কোটি ডলার ব্যয়ের উৎস বিএনপিকে ব্যাখ্যা করতে হবে : প্রধানমন্ত্রী বিটকয়েন : ক্রিপ্টোকারেন্সি তৈরিতে যেভাবে খনি হয়ে উঠেছে কাজাখস্তান দেশের অধস্তন আদালত তদারকিতে ৮ বিচারপতির মনিটরিং কমিটি

সকল