১৯ জানুয়ারি ২০২২
`

মিরপুরে বাংলাদেশের প্রথম দিনের প্রাপ্তি ২ উইকেট

-

বৃষ্টি আর আলো স্বল্পতার কারণে ৩৩ ওভার বাকি থাকতেই শেষ করতে হয়েছে ঢাকা টেস্টের প্রথম দিনের খেলা। দিনশেষে অনেকটাই এগিয়ে পাকিস্তান। বাবর আজম ও আজহার আলির ব্যাটে প্রথম দিন শেষে সফরকারী দলের সংগ্রহ ৫৭ ওভারে দুই উইকেটে ১৬১ রান। ৯৯ বলে ৬০ রানে অপরাজিত রয়েছেন বাবর আজম। ১১২ বল খেলে ৩২ রান করে তাকে সঙ্গ দিচ্ছেন আজহার আলি। বাংলাদেশের প্রাপ্তি শুধু প্রথম সেশনের দুই উইকেট। দ্বিতীয় সেশনে কোনো উইকেট নিতে পারেনি বাংলাদেশ। আর চা বিরতির পর আলোর স্বল্পতায় একটি বলও মাঠে গড়ায়নি। আজ দ্বিতীয় দিনের খেলা শুরু হবে আধ ঘণ্টা আগে অর্থাৎ সকাল ১০টা পরিবর্তে সাড়ে ৯টায়।
টস জিতে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেন পাক অধিনায়ক বাবর আজম। মুমিনুল জানালেন, টস জিতলে তিনিও আগে ব্যাটিং নিতেন। প্রথমে ব্যাট করার সুযোগে সাবধানী শুরু পাকিস্তানের দুই ওপেনার আবিদ আলি ও আবদুল্লাহ শফিকের। চট্টগ্রামে প্রথম টেস্টের দুই ইনিংসেই শতরানের জুটি গড়েছিল আবিদ ও শফিক। সঙ্গতকারণেই এই দুই ওপেনারকে নিয়ে সতর্ক ছিল বাংলাদেশ।
বোলিংয়ে এসে শুরু থেকেই সুইংয়ের দেখা পান টাইগার পেসাররা। নতুন বল হাতে ভালোই শুরু করেন এবাদত-খালেদ। আউটের সুযোগও তৈরি করেছিলেন এবাদত। ম্যাচের দশম ওভারে সাকিবকে আক্রমণে আনেন বাংলাদেশ অধিনায়ক। এরপর দুই প্রান্ত থেকেই স্পিনারদের আক্রমণে আনেন মুমিনুল। অবশেষে ১৯তম ওভারে তাইজুলের হাত ধরেই প্রথম উইকেটের দেখা পায় বাংলাদেশ। ব্যক্তিগত ২৫ রানে তাইজুলের ঘূর্ণিতে বোল্ড হন শফিক। তার বিদায়ে ভাঙে ৫৯ রানের জুটি। সিরিজের প্রথম টেস্টের দুই ইনিংসে উদ্বোধনী জুটিতে ১৪৬ ও ১৫১ রান করেছিলেন আবিদ ও শফিক। চট্টগ্রাম টেস্টে ব্যাট হাতে একাই বাংলাদেশকে হারিয়েছিলেন পাকিস্তানি ওপেনার আবিদ আলি। দুই ইনিংসে একটি সেঞ্চুরি এবং একটি হাফ সেঞ্চুরিতে একাই ২২৪ রান করেছিলেন তিনি। এবার আবিদের ব্যাট ভয়ঙ্কর হয়ে ওঠার আগেই তাকে সাজঘওে ফেরালেন স্পিনার তাইজুল ইসলাম। রান নিতে মরিয়া হয়ে তাইজুলকে কাট করতে চেয়েছিলেন আবিদ। তেমন টার্ন না থাকায় বল সরাসরি স্ট্যাম্পে আঘাত হানে। চট্টগ্রামে দুই ইনিংসে ১৩৩ ও ৯১ রান করা আবিদ ৬টি চারে ৮১ বলে ৩৯ রান করে ফিরেন। ক্রিজে দুই নতুন ব্যাটসম্যান বাবর আজম ও আজহার আলি। মধ্যাহ্ন বিরতির পর প্রথম ওভারেই পেসার এবাদতকে আনেন মুমিনুল। পরের ওভার তাইজুল ও তার পরের ওভারটি করেছেন মেহেদী হাসান। টানা তিন ওভারে পেসার, বাঁ হাতি স্পিনার ও ডান হাতি স্পিনার ব্যবহার করলেন মুমিনুল। মধ্যাহ্ন বিরতির পর ৫০ মিনিট খেলা না হতেই শীত মৌসুমে শুরু হয় অসময়ের বৃষ্টি। ২৫ মিনিট বন্ধ থাকার পর আবার খেলা শুরু হয়। দুই উইকেট তুলে নিয়ে পাকিস্তানকে কিছুটা চেপেই ধরেছিল বাংলাদেশ। কিন্তু তৃতীয় উইকেটে অপ্রতিরোধ্য ৯১ রানের জুটি গড়ে দলকে টানছেন বাবর ও আজহার। এরই মধ্যে ব্যক্তিগত ফিফটি পূর্ণ করেন বাবর। ৪৯তম ওভারে ৩৭ ম্যাচের টেস্ট ক্যারিয়ারে ১৯তম হাফ সেঞ্চুরি তুলে নেন। চলতি বাংলাদেশ সফরে টি-২০ সিরিজ ও প্রথম টেস্টে ব্যাট হাতে ব্যর্থই ছিলেন বাবর।
দ্বিতীয় সেশনে বাবর আজম ও আজহার আলি পাত্তা দেননি বাংলাদেশী কোনো বোলারকে। এ সেশনে কোনো উইকেট নিতে পারেনি বাংলাদেশ। দিনের শেষ সেশনে মেঘাচ্ছন্ন আকাশ থাকায় মাঠে আলোর স্বল্পতা সৃষ্টি হয়; যে কারণে ৩৩ ওভার বাকি থাকতেই শেষ করতে হয় ঢাকা টেস্টের প্রথম দিনের খেলা।
প্রথম টেস্টে জয় তুলে নিয়ে ১-০-তে এগিয়ে আছে পাকিস্তান। চট্টগ্রাম টেস্টে টপ অর্ডার ভালো করতে পারেনি। এ সুযোগে কপাল খুলল ১৯ দল থেকে উঠে আসা ব্যাটসম্যান মাহমুদুল হাসান জয়ের। টেস্ট ম্যাচ দিয়ে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অভিষেক হয়েছে ২১ বছর বয়সী এ ব্যাটসম্যানের। আটটি প্রথম শ্রেণীর ম্যাচে ৪১ গড়ে ৫৭৪ রান করেছেন মাহমুদুল। ২টি শতকও আছে। অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপ জিতিয়েছেন বাংলাদেশকে। বাংলাদেশের ৯৯তম টেস্ট ক্রিকেটার হিসেবে অভিষিক্ত হলেন জয়। সবশেষ টেস্টে অভিষেক হয়েছিল ইয়াসির আলী রাব্বীর। সাকিব আল হাসান দলে ফেরায় সুযোগ হয়নি ইয়াসিরের। ব্যাকআপ ওপেনার হিসেবে জয়কে চট্টগ্রাম টেস্টে নেয়া হয়েছিল। যুব বিশ্বকাপজয়ী এই ক্রিকেটারের জাতীয় ক্রিকেট লিগে ২ সেঞ্চুরি ও ১ হাফ সেঞ্চুরিতে ৩৪৫ রান করেছেন।
তিন পরিবর্তন নিয়ে মাঠে নামে বাংলাদেশ। আবু জায়েদের জায়গায় সুযোগ পান খালেদ হোসেন। ইয়াসির আলীর জায়গায় ফিরেন সাকিব ও সাইফ হাসানের জায়গায় আন্তর্জাতিক অভিষেক হয় মাহমুদুলের। আড়াই বছর পর একাদশে ফিরেন খালেদ। সবশেষ তিনি খেলেছেন হ্যামিল্টনে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে, ২০১৯ সালের মার্চে। প্রথম দিন বাংলাদেশের সফল বোলার ছিলেন তাইজুল। ১৭ ওভারে ৪৯ রানে ২ উইকেট নেন। ১৫ ওভার বল করে ৩৩ রান দিয়ে উইকেটশূন্য ছিলেন টি-২০ বিশ্বকাপের পর জাতীয় দলের হয়ে খেলতে নামা সাকিব।
সংক্ষিপ্ত স্কোর :
টস : পাকিস্তান
পাকিস্তান প্রথম ইনিংস : ৫৭ ওভারে ১৬১/২ (আবিদ ৩৯, শফিক ২৫, আজহার ৩৬*, বাবর ৬০*, এবাদত ০/২৮, খালেদ ০/১৯, সাকিব ০/৩৩, তাইজুল ২/৮৯, মিরাজ ০/৩১)।


আরো সংবাদ


premium cement