০৫ ডিসেম্বর ২০২১, ২০ অগ্রহায়ন ১৪২৮, ২৯ রবিউস সানি ১৪৪৩ হিজরি
`
নয়া দিগন্তের ১৮ বছরে পদার্পণ

সত্যের প্রতি অটুট অঙ্গীকার

-

নয়া দিগন্ত আঠারো বছরে পদার্পণ করল। ২০০৪ সালে ‘সত্যের সঙ্গে প্রতিদিন’ এই সেøøাগান ধারণ করে সম্পূর্ণ নতুন আঙ্গিক ও কলেবর নিয়ে আত্মপ্রকাশ করেছিল নয়া দিগন্ত। দেড় যুগ পাড়ি দেয়ার এই শুভক্ষণে আমরা মহান আল্লাহর শোকরগোজার করছি। ধন্যবাদ জ্ঞাপন করছি পত্রিকার অগণিত পাঠক, শুভানুধ্যায়ী, বিজ্ঞাপনদাতা, এজেন্টসহ সবাইকে। যারা আমাদের পাশে থেকে সব সময় উৎসাহ ও সাহস জুগিয়েছেন।
একটি পত্রিকার জন্য ১৮ বছর কম নয়। দেড় যুগ টগবগে তারুণ্যের সময়কাল। কঠিন ও বৈরিতাপূর্ণ পরিস্থিতির মধ্যেই আমরা এর অধিকাংশ সময় পেরিয়ে এসেছি। ২০১৯ সাল থেকে বিশ্ব এক বিপন্ন অবস্থার মধ্যে পতিত। করোনা মহামারীর প্রাদুর্ভাবের কারণে বহুবিধ যে সঙ্কট সমাজকে হতাশাচ্ছন্ন করেছে সংবাদপত্র এর বাইরে নয়। আধুনিক সভ্যতার উন্মেষের সময়ই সংবাদপত্রের সূচনা হয়েছে। যুগে যুগে জনগোষ্ঠীকে শিক্ষিত ও সভ্য করে গড়ে তুলেছে সংবাদপত্র। সময়ের বিবর্তনে গণমাধ্যম এখন বহু ধারায় বিভক্ত হলেও এর গুরুত্ব তাই কমে যায়নি। একটি গ্রহণযোগ্য সংবাদপত্রের প্রভাব জনমানসে ব্যাপক। নয়া দিগন্ত পাঠকের আস্থা অর্জনে এ দিকের প্রতি লক্ষ রেখেই এগিয়ে যাচ্ছে।
বিশ্ব এখন একটি ‘গ্লোবাল ভিলেজ।’ বৈদ্যুতিক তরঙ্গ প্রবাহ বিশ্বের এক প্রান্তের খবর অন্য প্রান্তে মুহূর্তে পৌঁছে দিচ্ছে। এর মধ্যে সোস্যাল মিডিয়া এমন এক উন্মুক্ত প্রতিযোগিতার মুখে গণমাধ্যমকে এনে দাঁড় করিয়েছে যে ট্র্যাডিশনাল সংবাদপত্রগুলোর অস্তিত্ব এখন হুমকির মুখে। নব্বই দশকে গড়ে ওঠা ইলেকট্রনিক মিডিয়ার প্রভাবও এখন পড়তির দিকে। চার দিকে সোস্যাল মিডিয়ার এই দাপটের মুখে নতুন করে প্রশ্ন উঠেছে এর মন্দ প্রভাব ও গ্রহণযোগ্যতা নিয়ে। সংবাদপত্র একটি পরিশীলিত শিল্প। এর দায়বদ্ধতা সর্বজনবিদিত। একজন সংবাদকর্মী যে দায়বদ্ধতা, দায়িত্বশীলতা নিয়ে কাজ করেন উন্মুক্ত মাধ্যমে তা হয় না। পেশাদার সংবাদকর্মীকে কাজ করতে হয় সুনির্দিষ্ট পদ্ধতি অনুসরণ করে। একটি খবর কয়েক ধাপে ফিল্টারিংয়ের মাধ্যমেই পরিবেশিত হয়। সোস্যাল মিডিয়ায় তা হয় না। এ কারণেই নতুন করে প্রশ্ন উঠছে সোস্যাল মিডিয়া সংবাদপত্রের বিকল্প হতে পারে কি? পাঠককে তাই সঠিক খবরের জন্য আজো সংবাদপত্রের ওপরেই আস্থা রাখতে হয়। সতর্ক দৃষ্টি রাখতে হয় সংবাদপত্রের পাতায়।
এক অসম প্রতিযোগিতার মধ্যে পড়ে সংবাদপত্রগুলোও এখন আস্তে আস্তে প্রযুক্তি সমৃদ্ধ হচ্ছে। এখন প্রতিটি সংবাদপত্রই মুদ্রিত সংখ্যার পাশাপাশি অনলাইন সংস্করণ ও ভিডিও কনটেন্ট নিয়ে পৃথক অবয়বে প্রকাশিত হচ্ছে। এতে সংবাদপত্রের ব্যয় বাড়ছে। কিন্তু পাঠক চাহিদা পূরণে এর কোনো বিকল্পও দেখা যাচ্ছে না। নয়া দিগন্ত এ তিন সংস্করণেই সীমিত সামর্থ্য নিয়ে এগিয়ে চলেছে।
সংবাদপত্রের জন্য মুক্ত গণতান্ত্রিক পরিবেশ অপরিহার্য। মত প্রকাশের বাধাহীন পরিবেশ না হলে সমালোচনার পরিবেশ না থাকলে সংবাদপত্র বিকশিত হতে পারে না। একটি গণতান্ত্রিক সমাজের বৈশিষ্ট্যই হচ্ছে বহু মত ও পথের বৈচিত্র্যপূর্ণ অবস্থান। সবকালে সব যুগেই সংবাদপত্রের বস্তুনিষ্ঠ সমালোচনা সরকারের হাতকেই প্রকারান্তরে শক্তিশালী করেছে। কিন্তু পরিহাস হচ্ছে সংবাদপত্র কখনোই শাসকগোষ্ঠীর কাছে সমীহ পায়নি। বরং নিন্দা ও গ্লানির পীড়নে পিষ্ট হয়েছে। আধুনিক সমাজও এর ব্যতিক্রম নয়। তবুও সংবাদপত্র এগিয়ে গেছে। এ যাত্রা আজো অব্যাহত আছে। বাংলাদেশের মতো তীব্র বিভাজিত সমাজে নয়া দিগন্ত পাঠকপ্রিয়তা নিয়ে এগিয়ে যাচ্ছে- পাঠক পত্রিকাটির ওপর আস্থা রাখেন এ অর্জন কম কিসের?
এক সময় পত্রিকা প্রকাশ হতো রাজনৈতিক কারণে। রাজনৈতিক দলের মুখপাত্র হিসেবে নয়তো পৃষ্ঠপোষকতায়। অধুনা সে ধারা পাল্টে গেছে। এখন করপোরেট বাণিজ্যের প্রসারে সংবাদপত্রগুলো বিপুল পরিমাণ লগ্নি নিয়ে আত্মপ্রকাশ করছে। স্বাধীন ও অনুসন্ধানী সাংবাদিকতা এখন করপোরেট কালচারের কাছে জিম্মি হয়ে পড়েছে। এই বিপরীতমুখী স্রোতের মধ্যে দাঁড়িয়েও দেশপ্রেমবোধে উজ্জীবিত হয়ে নয়া দিগন্ত এগিয়ে যাচ্ছে। পাঠকরাই আমাদের প্রেরণা। পাঠকই আমাদের আস্থা বিশ্বাস ও শক্তির জায়গা। শুরু থেকেই নয়া দিগন্ত বাংলাদেশকে তার স্বপ্নের একমাত্র ঠিকানা বানিয়ে এগিয়ে চলেছে। স্বাধীনতা সার্বভৌমত্ব, দেশপ্রেম, ধর্মীয় মূল্যবোধ ও সম্প্রীতি এবং জাতীয় স্বার্থ নয়া দিগন্তের কাছে সব সময়ই অগ্রগণ্য। এই বিঘোষিত নীতি থেকে নয়া দিগন্ত কোনো দিন বিচ্যুত হবে না। পাঠকের কাছে এ আমাদের অঙ্গীকার। আজকের এই শুভক্ষণে আমরা আবারো আমাদের পাঠকল্পাঠিকা শুভানুধ্যায়ীসহ সর্বমহলের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি।

 



আরো সংবাদ


ইসরাইলকে ইরানে গোয়েন্দা অভিযান চালাতে নিষেধ করল যুক্তরাষ্ট্র (১৪২৯২)‘ওমিক্রন’ থেকে বাঁচাতে স্ত্রী ও দুই সন্তানকে হত্যা করলেন চিকিৎসক (১১০২৯)ইরান ইস্যুতে আমেরিকা একঘরে হয়ে পড়েছে : ব্লিঙ্কেনের স্বীকারোক্তি (১০২১৩)এরদোগানকে হত্যার চেষ্টা! (৮০৯০)রুশ অস্ত্র কিনলে নিষেধাজ্ঞা, ভারতকে বার্তা যুক্তরাষ্ট্রের (৭৯১৫)বাংলাদেশ ভারতের পক্ষে যাবে না (৭৮৩৪)পাকিস্তানের বিরুদ্ধে হেরেও খুশি পাপন (৭২৬৯)যুক্তরাষ্ট্রকে রাশিয়ার হুঁশিয়ারি : প্রতিবেশীর ঘরে অস্ত্র ঢোকালে যুদ্ধ বাধবে (৬৫০৭)‘বুথে নয়, নৌকার ভোট হবে টেবিলের উপরে, পুলিশ প্রশাসনকে সেভাবেই দেখবো’ (৬০০১)জ্বর নেই, স্বাদ-গন্ধও ঠিক আছে! ওমিক্রন চেনার সহজ উপায় (৫৮২৬)