০৪ ডিসেম্বর ২০২১, ১৯ অগ্রহায়ন ১৪২৮, ২৮ রবিউস সানি ১৪৪৩ হিজরি
`
মুখোমুখি বাংলাদেশ-শ্রীলঙ্কা

ব্যাট-বলে মুগ্ধতা ছড়াতে প্রস্তুত টাইগাররা

-

উত্তপ্ত মরুর বুকে সুপার টুয়েলভে বল-ব্যাটে মুগ্ধতা ছড়ানোর অপেক্ষায় টাইগাররা। টি-২০ বিশ্বকাপে সুপার টুয়েলভ পর্বে নিজেদের প্রথম ম্যাচে আজ সাকিব-মাহমুদুল্লাহদের সামনে শ্রীলঙ্কা। সংযুক্ত আরব আমিরাতে শারজাহ ক্রিকেট স্টেডিয়ামে বাংলাদেশ সময় বিকেল ৪টায় দ্বিতীয় পর্বের প্রথম ম্যাচটি শুরু হবে। টি- স্পোর্টস, গাজী টিভি ও বিটিভি খেলাটি সম্প্রচার করবে।
প্রথম রাউন্ডের চেয়ে সুপার টুয়েলভের প্রত্যেকটি ম্যাচ হবে আরো চ্যালেঞ্জিং। ক্রিকেটের সংক্ষিপ্ত ফরম্যাটে যেখানে সহযোগী দেশগুলোকেও ছোট করে দেখার সুযোগ নেই। চূড়ান্ত পর্বে তো তা ভাবাই যাবে না। এ সংস্করণে যেকোনো দলই জয়ের সম্ভাবনা রাখে। পতন ও উত্থান দিয়ে ওমান পর্ব শেষ করেছে বাংলাদেশ। প্রথম রাউন্ডের তিনটি ম্যাচের সব ক’টিতে জিতে সুপার টুয়েলভ নিশ্চিত করেছে শ্রীলঙ্কা। তারা হারিয়েছে আয়ারল্যান্ড, নামিবিয়া ও নেদারল্যান্ডসকে। অন্য দিকে স্কটল্যান্ডের কাছে হার, ওমান ও পাপুয়া নিউ গিনির বিপক্ষে জিতে সুপার টুয়েলভে গেছে বাংলাদেশ।
টি-২০ সংস্করণে এখন পর্যন্ত দু’টি দল মুখোমুখি হয়েছে ১১ ম্যাচে। যেখানে বাংলাদেশ জিতেছে চারটিতে, হেরেছে সাতটিতে। সর্বশেষ দুই ম্যাচে অবশ্য জয়ের সুখস্মৃতি আছে টাইগারদের। সেটি হতে পারে বাড়তি প্রেরণা। ২০১৮ সালে কলম্বোয় নিদহাস ট্রফিতে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে এ দুই জয় পায় বাংলাদেশ।
এর আগে টি-২০ বিশ্বকাপের আসরে একবারই মুখোমুখি হয়েছিল বাংলাদেশ ও শ্রীলঙ্কা। ২০০৭ বিশ্বকাপে জোহানেসবার্গে অনুষ্ঠিত ম্যাচটিতে বাংলাদেশ হেরেছিল ৬৪ রানে। ১৪ বছর আগের সেই ম্যাচের একাদশ থেকে এবারের আসরে খেলছেন কেবল সাকিব, মাহমুদুল্লাহ এবং মুশফিক।
শ্রীলঙ্কা একঝাঁক তরুণ ক্রিকেটার নিয়ে বিশ্বকাপ শুরু করেছে। বাংলাদেশের বিপক্ষে নামার আগে লঙ্কান শিবিরে আসে দুঃসংবাদও। চোটের কারণে শ্রীলঙ্কা দলে থাকছেন না দলের অন্যতম রহস্য স্পিনার মাহীশ থিকশানা।
বিশ্বকাপে বাংলাদেশের ব্যাটিংও আশানুরূপ নয়। ছোট দলগুলোর বিপক্ষে ব্যাটিংয়ে ভুগতে দেখা গেছে বাংলাদেশকে। পাপুয়া নিউ গিনির বিপক্ষে ১৮১ রান তুললেও অলআউট হয়েছে বাংলাদেশ। মূল সারির ব্যাটারদের মধ্যে সাকিব আল হাসান ও মাহমুদুল্লাহ রিয়াদই সফল ছিলেন। ধারাবাহিক জ্বলে উঠতে পারছেন না কেউই। বাংলাদেশের মূল শক্তি হচ্ছে বোলিং। দুপুরে (দুবাইয়ের সময় বেলা ২টা) ম্যাচ হওয়ায় এখান থেকে সুবিধা আদায় করতে পারবে সাকিব- মোস্তাফিজরা। রাতে উইকেট শিশিরে ভেজা থাকার কারণে স্পিনাররা বল করতে অসুবিধায় পড়ে। বল সুইং করানো অনেক কঠিন হয়। লঙ্কান বোলাররাও এখান থেকে একই সুবিধা পাবেন; কিন্তু বাংলাদেশের অভিজ্ঞ বোলিং বিভাগের কাছে তুলনামূলক পিছিয়ে তারা।
এ ফরম্যাটে ব্যাটিংয়ে কোনো দলকে এগিয়া রাখাও সহজ নয়। যে কেউ এসে মারদাঙ্গা ব্যাট করে দলকে বড় স্কোর গড়তে সাহায্য করতে পারেন। বাংলাদেশের ব্যাটিং অর্ডারে সাকিব, মুশফিক ও মাহমুদুল্লাহ খেলা খুব ভালো করে বোঝেন। তারা জানেন কখন কী করতে হবে। ব্যাট হাতে দুই ম্যাচে রান পেয়েছেন সাকিব-মাহমুদুল্লাহ। নঈম শেখও পেয়েছেন একটি অর্ধশতক। লিটন দাস ও মুশফিকুর রহীমকে ফিরতে হবে রানে। নুরুল হাসান সোহানকে জ্বলে উঠতে হবে শেষ দিকে। আজ ম্যাচের আগে বাংলাদেশের দুশ্চিন্তা থাকবে ওপেনিং জুটি নিয়ে। লিটন দাসকে অবশ্যই ধারাবাহিক হতে হবে। আর নাঈমকে খেলতে হবে টি-২০-এর স্ট্রাইক রেট ধরে রেখে।
বাংলাদেশের অভিজ্ঞতার পাল্লা ভারী হলেও প্রথম রাউন্ডের ম্যাচগুলোতে শ্রীলঙ্কা দেখিয়েছে ভিন্ন কিছু। অনভিজ্ঞ দলটি প্রতিজ্ঞবদ্ধ। যেকোনো দলকে তারা হারানোর সামর্থ্য রাখে। তিন ম্যাচেই সেটি দেখা গেছে তা। নামিবিয়ার বিপক্ষে প্রথম ম্যাচে ১৩.৩ ওভারে ৯৬ রান চেজ, আইরিশদের বিপক্ষে ১৭১ আর নেদারল্যান্ডসের বিপক্ষে ৭.১ ওভারে ৪৪ রান চেজ করাই তার প্রমাণ।
অন্য দিকে স্কটল্যান্ডের বিপক্ষে ব্যাটিং নিয়ে খুব ভুগেছে বাংলাদেশ। ১৪০ রানের জবাবে ১৩৪ এর বেশি করতে পারেনি। পরের ম্যাচে ওমানের বিপক্ষে ধীরগতির ব্যাটিংয়ে এসেছে ১৫৩ রান। তবে শেষ ম্যাচে পাপুয়া নিউ গিনির সামনে টাইগাররা টার্গেট দেয় ১৮২ রানের। এই ধারা বজায় রাখতে পারলে আজ শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ভালো কিছু সম্ভব।
স্পিনার থিকশানা না থাকায় শ্রীলঙ্কার কপালে চিন্তার ভাঁজ। প্রথম রাউন্ডে ৮ উইকেট শিকারি এই বোলারকে বাংলাদেশের বিপক্ষে পাচ্ছে না দলটি। তাতে বাংলাদেশেরও চাপ কমলো। তবে পেসার লাহিরু কুমারা আছেন দারুণ ফর্মে। আগের রউন্ডে সাড়ে ৫ ইকোনোমিতে নিয়েছেন ৭ উইকেট। এ ম্যাচে হাসারাঙ্গা ডি সিলভা হতে পারেন বাংলাদেশের ব্যাটারদের জন্য হুমকি। এই লেগ স্পিনার প্রথম রাউন্ডে নিয়েছেন ৬ উইকেট। থিকশানার দায়িত্ব নিতে হবে তাকে।
ব্যাট হাতেও দলকে নেতৃত্ব দিচ্ছেন হাসারাঙ্গা। ঝড়ো ইনংস খেলতে তার কোরো জুড়ি নেই। ব্যাট করতে নেমেছেন এক ম্যাচেই। আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে সে ম্যাচে ৪৭ বলে করেছেন ৭১ রান। এ জন্য তাকে ক্রিজ থেকে দ্রুত সাজঘর দেখাতে হবে সাইফউদ্দিন-মাহেদিদের। অভিক্ষা ফার্নান্দো, ভানুকা রাজাপাকসে ও অধিনায়ক দাসুন শানাকাও ঝড় তুলতে পারেন ব্যাট হাতে।
তাদের মোকাবেলায় সাকিব হতে পারেন মাহমুদুল্লাহর অন্যতম অস্ত্র। এই অফ স্পিনার ইতোমধ্যে বিশ্বকাপে নিয়েছেন ৯ উইকেট। উইকেট গড়ও বেশ ভালো সাকিবের। ৬ ইকোনোমিতে উইকেটগুলো নেন মি. অলরাউন্ডার। দুই ম্যাচেই বাংলাদেশের জয়ের নায়ক সাকিব। আজ উইকেট পেলেই টি-২০ বিশ্বকাপে শাহীদ আফ্রিদির ৩৯ উইকেটকে পেছনে ফেলবেন তিনি। পেসার মোস্তাফিজুর রহমানকে উইকেটের পাশাপাশি রান চেকের দিকেও নজর দিতে হবে। তবে মাঠের খেলা ও স্নায়ুযুদ্ধে শেষ পর্যন্ত যারা ভালো করবে তারাই ম্যাচ জিতবে।
ইংল্যান্ড জয়ী : মাত্র ৫৫ রানের পুঁজি। এরপরও এই রান নিয়ে চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দেয়া। তবে সংগ্রহ খুবই কম হওয়ায় রক্ষা হয়নি ওয়েস্ট ইন্ডিজের। গতকাল সংযুক্ত আরব আমিরাতের দুবাইতে অনুষ্ঠিত টি-২০ বিশ্বকাপের সুপার টুয়েলভের গ্রুপ ওয়ানের ম্যাচে ক্যারিবিয়ানদের এই রানকে তাড়া করতে গিয়ে ৪ উইকেট হারায় ইংল্যান্ড। ৮.২ ওভার ব্যয় করেই ৬ উইকেটে ইংলিশরা জিতে যায় ম্যাচ। জোস বাটলার সর্বোচ্চ ২৪ রানে অপরাজিত থাকেন। ওয়েস্ট ইন্ডিজ বোলারদের মধ্যে আকিল হোসেন ২৪ রানে নেন ২ উইকেট। এর আগে ওয়েস্ট ইন্ডিজের ইংনিস গুঁড়িয়ে দেন ইংলিশ বোলার আদিল রশিদ। ২.২ ওভারে ২ রানে ৪ উইকেট নেন তিনি। দু’টি করে উইকেট নেন মঈন আলী ও টাইমাল মিলস।



আরো সংবাদ


নীলফামারীত‌ে উগ্রবাদী সন্দেহে সাতজন আটক ‘প্রয়োজনে বিদেশ থেকে চিকিৎসক এনে খালেদা জিয়াকে চিকিৎসা দেয়া হবে’ আরব আমিরাতকে ৮০টি রাফাল দিচ্ছে ফ্রান্স ‘লাল কার্ড’ হাতে রাস্তায় শিক্ষার্থীরা ইরান ইস্যুতে আমেরিকা একঘরে হয়ে পড়েছে : ব্লিঙ্কেনের স্বীকারোক্তি রাজধানীতে সড়ক দুর্ঘটনায় বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থী নিহত কম্ব্যাট এলার্ট মিসাইল সিস্টেম মোতায়েন করল রাশিয়া প্রথম সেশনে তাইজুলের জোড়া আঘাতে স্বস্তিতে বাংলাদেশ চট্টগ্রামে বাস-ট্রেন-অটোরিকশার ত্রিমুখী সংঘর্ষ, নিহত ২ টিকতে পারলেন না লেবাননের তথ্যমন্ত্রী রুশ অস্ত্র কিনলে নিষেধাজ্ঞা, ভারতকে বার্তা যুক্তরাষ্ট্রের

সকল