০২ ডিসেম্বর ২০২১, ১৭ অগ্রহায়ন ১৪২৮, ২৬ রবিউস সানি ১৪৪৩ হিজরি
`

আফগানিস্তানে আন্তর্জাতিক ফ্লাইট ফের শুরুর অনুরোধ

পাসপোর্ট, এনআইডি বদলানোর ঘোষণা ; তালেবানকে জানিয়ে বিমান হামলা নয় : পেন্টাগন
-

আফগানিস্তানে আন্তর্জাতিক ফ্লাইট আবার শুরু করতে পশ্চিমা দেশগুলোর প্রতি অনুরোধ জানিয়েছে ক্ষমতাসীন তালেবান সরকার। রোববার দেশটির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে দেয়া বিবৃতির বরাত দিয়ে করা এ তথ্য জানিয়েছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স। এ দিকে তোলো নিউজ জানায়, তালেবানকে না জানিয়ে কথিত সন্ত্রাসবাদীদের ওপর বিমান হামলা চালানো হবে বলে জানিয়েছে পেন্টাগন।
আন্তর্জাতিক বিমান পরিবহন সংস্থাগুলোকে আফগানিস্তানে পূর্ণ নিরাপত্তা দেয়া হবে বলে নিশ্চয়তা দিয়ে আফগান পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র আবদুল কাহার বালখি রয়টার্সকে এ সম্পর্কে বলেন, ‘কাবুল বিমানবন্দরের বিভিন্ন অংশের মেরামতের কাজ শেষ হয়েছে। এটি এখন সব ধরনের অভ্যন্তরীণ ও আন্তর্জাতিক ফ্লাইটের জন্য সম্পূর্ণ প্রস্তুত। আমরা চাই বিমাবন্দরটি আবার আগের মতো সচল হোক। এ ব্যাপারে দেশী-বিদেশী সব বিমান পরিবহন সংস্থাকে পূর্ণ নিরাপত্তা ও সহযোগিতা করতে প্রস্তুত আইইএ (ইসলামিক আমিরাত অব আফগানিস্তান)।’
গত ১৫ আগস্ট তালেবান বাহিনী কাবুল দখলের পর থেকে আফগানিস্তান ত্যাগ করার জন্য হুড়োহুড়ি শুরু হয়েছিল দেশটিতে বসবাসরত বিভিন্ন পাশ্চাত্য দেশের নাগরিক ও তাদের সহযোগী আফগানদের মধ্যে। প্রতিদিন হাজার হাজার মানুষ জড়ো হচ্ছিলেন বিমানবন্দরের ফ্লাইট ধরার জন্য।
আফগানিস্তান থেকে নিজ নাগরিক ও সহযোগী আফগানদের সরিয়ে নেয়া বা প্রত্যাহার কার্যক্রম যখন তুঙ্গে সেই সময়, ২৬ আগস্ট ভয়াবহ দু’টি বিস্ফোরণ হয়েছিল কাবুলের আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর এলাকায়। আইএসের খোরাসান শাখা আইএসকে পরিচালিত সেই বিস্ফোরণে নিহত হয়েছিলেন মার্কিন সেনা সদস্যসহ অন্তত ১৭০ জন। প্রায় ১৫ দিনের ব্যাপক হুড়োহুড়ি এবং বিস্ফোরণে ক্ষতিগ্রস্ত হয় বিমানবন্দরের বিভিন্ন এলাকা ও অংশ। পরে কাতার ও তুরস্কের তত্ত্বাবধানে সেগুলো মেরামত করা হয়। সর্বশেষ পশ্চিমা রাষ্ট্র হিসেবে গত ৩১ আগস্ট আফগানিস্তান থেকে মানুষ প্রত্যাহার কার্যক্রমের সমাপ্তি ঘোষণা করে যুক্তরাষ্ট্র। তার পর থেকে এখন পর্যন্ত পাকিস্তানের সরকারি বিমান পরিবহন সংস্থা পিআইএ ছাড়া অন্য কোনো আন্তর্জাতিক বিমান পরিবহন সংস্থার উড়োজাহাজ কাবুলের আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে উড্ডয়ন বা অবতরণ করেনি। একমাত্র বিদেশী পরিবহন সংস্থা হিসেবে পিআইএ যদিও আফগানিস্তানে সেবা দিচ্ছে, তবে তা খুব সীমিত আকারে এবং সেই সেবার জন্য সাধারণ সময়ের চেয়ে অনেক বেশি অর্থ গুনতে হচ্ছে যাত্রীদের।
পাসপোর্ট, এনআইডি কার্ড পরিবর্তনের ঘোষণা : আফগানিস্তানের আগের সরকারগুলোর ইস্যু করা পাসপোর্ট ও জাতীয় পরিচয়পত্র (এনআইডি কার্ড) পরিবর্তনের ঘোষণা দিয়েছে তালেবান। স্থানীয় সংবাদমাধ্যমের খবরে বলা হয়েছে, একটি নির্দিষ্ট সময় পর্যন্ত আগের এসব নথি বৈধ থাকবে। তালেবানের তথ্য ও সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী জাবিউল্লাহ মুজাহিদ জানিয়েছেন, নতুন জারি করা পাসপোর্ট ও এনআইডিতে আফগানিস্তানের নতুন নাম হবে ইসলামী আমিরাত আফগানিস্তান। তিনি আরো জানান, এখন পর্যন্ত আগের সরকারগুলোর জারি করা পাসপোর্ট ও এনআইডি বৈধ বলে বিবেচিত হবে। স্থানীয় সংবাদমাধ্যমটির খবরে আরো বলা হয়েছে, আফগানিস্তানের পাসপোর্ট ও এনআইডি বিভাগ এখনো বন্ধ রয়েছে। শুধু যাদের বায়োমেট্রিক্স দেয়া আছে তারা এসব নথি সংগ্রহ করতে পারবেন।
তালেবানকে জানিয়ে বিমান হামলা নয় : পেন্টাগন
এ দিকে আফগানিস্তানে সন্ত্রাসবিরোধী অভিযানে বিমান হামলা চালানোর আগে তালেবানের সাথে কোনো সমন্বয়ের প্রয়োজন নেই বলে ঘোষণা করেছে যুক্তরাষ্ট্র। শনিবার যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিরক্ষা দফতর পেন্টাগনের প্রেস সেক্রেটারি জন কিরবি এক সংবাদ সম্মেলনে এ কথা বলেন। আফগানিস্তানে যুদ্ধে জড়িত দেশগুলোর কাছ থেকে ক্ষতিপূরণ দাবি করে তালেবানের দেয়া বক্তব্যের এক দিন পর মার্কিন প্রতিরক্ষা বিভাগের পক্ষ থেকে এ ঘোষণা এলো। সংবাদ সম্মেলনে কিরবি বলেন, আফগানিস্তানে উগ্রবাদী তৎপরতার ওপর বিমান হামলার প্রয়োজন রয়েছে বলে মনে করে যুক্তরাষ্ট্র। আর এ ক্ষেত্রে তালেবানের সাথে কোনো আলোচনার প্রয়োজন নেই। জন কিরবি বলেন, ‘সন্ত্রাস দমন অভিযান পরিচালনার জন্য আমরা প্রয়োজনীয় সব কর্তৃপক্ষকে যুক্ত রেখেছি এবং বিমান হামলার বিষয়ে নির্দিষ্ট কোনো নীতি সম্পর্কে কথা বলা ছাড়াই আমরা সামনে এগিয়ে যাওয়ার সক্ষমতায় আত্মবিশ্বাসী। বর্তমানে তালেবানের সাথে আকাশসীমা নিয়ে স্পষ্ট করার কিছু নেই এবং আমরা আশা করি না যে, সন্ত্রাসবাদ দমনের কাজে ভবিষ্যতে এ ধরনের অনুমতির ওপর নির্ভর করতে হবে।’ তালেবান কর্তৃপক্ষের সাংস্কৃতিক কমিশন এবং তথ্য ও সংস্কৃতিবিষয়ক মন্ত্রণালয় এরই মধ্যে বলেছে যে, আফগানিস্তানে যুক্তরাষ্ট্রের আর কোনো হস্তক্ষেপ কাম্য নয়। কমিশনের সদস্য জাভেদ সার বলেন, ‘আমরা আশা করি, যুক্তরাষ্ট্র দায়িত্বজ্ঞানহীন মন্তব্য করা থেকে বিরত থাকবে। তারা কাবুলে বিমান হামলা করে শিশুসহ সাধারণ নাগরিকদের হত্যা করেছে।’ গত ২৯ আগস্ট কাবুলে উগ্রবাদী আইএসকে লক্ষ্য করে এক বিমান হামলা চালায় যুক্তরাষ্ট্র। কিন্তু পরে বিমান হামলায় নিহতরা সাধারণ আফগান নাগরিক হিসেবে পরিচয় প্রকাশের পর পেন্টাগন হামলার জন্য ক্ষমা প্রার্থনা করে।



আরো সংবাদ


রিসোর্টে নিয়ে তরুণীকে ধর্ষণ করলেন টিকটকার (১০৫৯৯)ভয়াবহ বিস্ফোরণে কাঁপল বাড়ি, ছিন্নভিন্ন ৩ জনের দেহ (৭৫৯০)তুরস্কের অর্থনৈতিক সঙ্কট, বাংলাদেশে শঙ্কা (৭৫৫৯)'কোনো রকমের পূর্বশর্ত ছাড়াই এনপিটিতে যুক্ত হতে হবে ইসরাইলকে' (৭৫১৭)ধেয়ে আসছে ঘূর্ণিঝড় ‘জাওয়াদ’, চলতি সপ্তাহেই ঝড়-বৃষ্টির পূর্বাভাস (৬৪৪৪)সামরিক হামলার ভীতিই ইরানকে পারমাণবিক কার্যক্রম থেকে বিরত রাখবে : ইসরাইল (৫৮৮৩)দেশ ছেড়ে পালাতে চেয়েছিলেন কাটাখালীর মেয়র আব্বাস (৫৩৮২)টানা ৬ষ্ঠবারের মতো নির্বাচিত চেয়ারম্যান ফজু (৫০৩৭)হাইকোর্টের দ্বারস্থ সেই তুহিনারা, হিজাব পরায় বসতে পারবে না এসআই পরীক্ষায়ও! (৪৫৪০)করোনা শেষ ওমিক্রনেই ! (৩৬০৯)