৩০ জুলাই ২০২১
`

ভারতে অক্টোবরে আসতে পারে করোনার তৃতীয় ঢেউ

-

ভারতে আগামী অক্টোবর নাগাদ করোনাভাইরাস সংক্রমণের তৃতীয় ঢেউ আঘাত হানতে পারে এবং দেশটিতে আরো অন্তত এক বছর এ মহামারী জনস্বাস্থ্যের জন্য হুমকি হয়ে থাকতে পারে বলে পূর্বাভাস স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞদের। তবে চলমান দ্বিতীয় ঢেউয়ে ভারতে যতটা বিপর্যয়কর পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে তৃতীয় ঢেউয়ের বেলা তেমনটা হবে না। বরং তখন পরিস্থিতি বেশ খানিকটা নিয়ন্ত্রণে থাকবে বলেও মত তাদের। বিশ্বজুড়ে স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞদের এক মতামত জরিপে এ তথ্য উঠে এসেছে বলে জানায় বার্তা সংস্থা রয়টার্স।
গত ৩ থেকে ১৭ জুন রয়টার্স বিশ্বের ৪০ জন স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ, চিকিৎসক, বিজ্ঞানী, ভাইরাসবিদ, মহামারী বিশেষজ্ঞ এবং অধ্যাপকের সাথে এ বিষয়ে কথা বলে তাদের মতামত জানতে চায়। তারা বলেন, সুনির্দিষ্ট মাত্রায় টিকাদান কার্যক্রমের গতি বাড়ানো হলে ভবিষ্যৎ ওই প্রাদুর্ভাব থেকে কিছুটা রক্ষা পাওয়া যাবে। এ বিষয়ে অল ইন্ডিয়া ইনস্টিটিউট অব মেডিক্যাল সায়েন্সেসের (এআইআইএমএস) চিকিৎসক ডা: রণদীপ গুলেরিয়া বলেন, ‘ওটা অনেক বেশি নিয়ন্ত্রিত হবে। কারণ তখন আরো বেশি লোকজন টিকা গ্রহণ করবেন। এছাড়া, দ্বিতীয় ঢেউয়ের সময় প্রাকৃতিকভাবে মানুষের দেহে যে অ্যান্টিবডি তৈরি হয়েছে সেটাও কাজ করবে।’
ভারত এখন পর্যন্ত তাদের মোট জনসংখ্যার মাত্র ৫ শতাংশকে টিকা দিতে পেরেছে। ফলে মোট জনগোষ্ঠীর একটি বিশাল অংশ এখনো সংক্রমিত হওয়া এবং মৃত্যুর ঝুঁকিতে রয়ে গেছে। তবে বেশির ভাগ স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ আশা প্রকাশ করে বলেছেন, এ বছর ভারতে টিকাদান কার্যক্রমের গতি উল্লেখযোগ্য হারে বাড়বে। তবে তারা আগে ভাগে কোভিড বিধিনিষেধ তুলে নেয়ার বিষয়ে সতর্ক করেছেন। দ্বিতীয় ঢেউয়ে চরম বিপর্যস্ত ভারতে গত কয়েক দিনে সংক্রমণ কিছুটা কমতে শুরু করেছে। ফলে কয়েকটি রাজ্য এরই মধ্যে বিধিনিষেধ শিথিল করেছে।
ট্যাবলেট আবিষ্কারে যুক্তরাষ্ট্রের বড় বিনিয়োগ : করোনাভাইরাসের চিকিৎসায় ‘মুখে সেবনযোগ্য’ ওষুধ আবিষ্কারের জন্য ৩০০ কোটি ডলারেরও বেশি বিনিয়োগ করার ঘোষণা দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের প্রশাসন। গত বৃহস্পতিবার দেশটির স্বাস্থ্যসেবা বিভাগ ‘হেলথ অ্যান্ড হিউম্যান সার্ভিসেস ডিপার্টমেন্ট’ ওষুধ আবিষ্কারে গবেষণা ও উন্নয়নের গতি বাড়ানোর লক্ষ্যে এই ঘোষণা দেয়। বাইডেনের প্রধান চিকিৎসা উপদেষ্টা ড. অ্যান্থনি ফাউচি জানান, মুখে সেবন করা যায় এমন ওষুধের গবেষণা ও পরীক্ষায় ‘ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল’ এর জন্য এই অর্থ ব্যয় হবে। ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব অ্যালার্জি অ্যান্ড ইনফেকশাস ডিজিজেসের (এনআইএআইডি) পরিচালক ফাউচি বলেন, ‘কোভিড- ১৯ এর গুরুতর অসুস্থতা এবং মৃত্যু ঠেকাতে সক্ষম হবে ভাইরাস প্রতিরোধী নতুন ওষুধ। বিশেষ করে মুখে খাওয়ার ওষুধ, যা রোগের প্রাথমিক পর্যায়ে ঘরেই নেয়া যাবে। মহামারীর বিরুদ্ধে লড়াইয়ে যা জীবন বাঁচানোর শক্তিশালী এক অস্ত্র হয়ে উঠবে।’
ভারতে শনাক্ত ৬২ হাজার, মৃত্যু ১৫৮৭ : ভারতে গত ২৪ ঘণ্টায় ৬২ হাজার ৪৮০ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। একই সময়ে করোনায় মারা গেছেন এক হাজার ৫৮৭ জন। গতকাল শুক্রবার এনডিটিভি অনলাইনের প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়। সবশেষ এ তথ্য নিয়ে ভারতে করোনায় সংক্রমিত মোট শনাক্ত রোগীর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে দুই কোটি ৯৭ লাখ ৬২ হাজার ৭৯৩। মারা যাওয়া মানুষের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৩ লাখ ৮৩ হাজার ৪৯০। ভারতে টানা ১১ দিন ধরে ৫ শতাংশের নিচে করোনা রোগী শনাক্ত হচ্ছে। গত ২৪ ঘণ্টায় শনাক্তের হার ৩ দশমিক ২৪ শতাংশ। আগের ২৪ ঘণ্টায় (বুধবার) এই হার ছিল ৩ দশমিক ৪৮ শতাংশ। মঙ্গলবার ৩ দশমিক ২২ শতাংশ। সোমবার ছিল ৩ দশমিক ৪৫ শতাংশ। রোববার ৪ দশমিক ৭১ শতাংশ।
যুক্তরাষ্ট্রে করোনার উৎস অনুসন্ধানের আহ্বান চীনের : চীনের এক সিনিয়র এপিডেমিওলজিস্ট বলেছেন, করোনাভাইরাসের উৎস অনুসন্ধানের পরের ধাপে যুক্তরাষ্ট্রকে অগ্রাধিকার দেয়া উচিত। গত বৃহস্পতিবার চীনের রাষ্ট্রীয় সংবাদমাধ্যমের এক প্রতিবেদনে তিনি এ কথা বলেছেন। ২০১৯ সালে ডিসেম্বরেই যুক্তরাষ্ট্রে করোনা রোগ ছড়িয়েছিল এমন গবেষণা প্রতিবেদন প্রকাশের পর চীনা বিজ্ঞানী এই আহ্বান জানিয়েছেন। ব্রিটিশ বার্তা সংস্থা রয়টার্স এ খবর জানিয়েছে। যুক্তরাষ্ট্রের ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট ফর হেলথ সম্প্রতি একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। এতে উল্লেখ করা হয়েছে, সরকারিভাবে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগী শনাক্ত ঘোষণা দেয়ার কয়েক সপ্তাহ আগেই পাঁচটি অঙ্গরাজ্যে অন্তত সাতজন কোভিড-১৯ আক্রান্ত ছিলেন।
মার্চে প্রকাশিত চীন-বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার এক যৌথ গবেষণা প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, করোনাভাইরাসের উৎস সম্ভবত চীনা একটি বন্য পশুর বাজার থেকে, যা বাদুড় থেকে মানবদেহে সংক্রমিত হয়েছে। কিন্তু বেইজিংয়ের দাবি, চীনে করোনাভাইরাস প্রবেশ করেছে বিদেশী হিমায়িত খাবারের মাধ্যমে। পশ্চিমা রাজনীতিকদের অনেকেই আহ্বান জানিয়েছেন, চীনের গবেষণাগার থেকে ভাইরাসের ছড়িয়ে পড়ার সম্ভাব্যতা যাচাইয়ের জন্য আরো তদন্তের।
জরুরি অবস্থা তুলে নেয়ার ঘোষণা জাপানের : জাপানের প্রধানমন্ত্রী ইয়োশিহিদে সুগা টোকিও, ওসাকা, কিওতোসহ আরো ছয়টি জেলায় করোনাভাইরাসের কারণে দেয়া জরুরি অবস্থা তুলে নেয়ার ঘোষণা দিয়েছেন। স্থানীয় সময় গত বৃহস্পতিবার টোকিওতে এক সংবাদ সম্মেলনে এই ঘোষণা দেন তিনি। সংবাদ সম্মেলনে সুগা বলেন, ২০ জুন থেকে এসব অঞ্চলে জরুরি অবস্থা তুলে নেয়া হবে। জরুরি অবস্থা তুলে নেয়া হলেও বেশ কিছু বিধিনিষেধ আগামী ১১ জুলাই পর্যন্ত কার্যকর থাকবে বলে জানান তিনি।
ইন্দোনেশিয়ায় টিকা নিলেই মুরগি উপহার : টিকা নিলেই পাবেন মুরগি। ইন্দোনেশিয়ার বাসিন্দাদের জন্য এমনই উদ্যোগ নিয়েছে দেশটির সরকার। ওয়েস্ট জাভা প্রদেশে করোনা প্রতিরোধে টিকা নিতে আগ্রাহী না হওয়ায় ব্যতিক্রমী পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে। উৎসাহ নিয়ে ইতোমধ্যেই টিকা গ্রহণের জন্য নাম নিবন্ধনও করতে শুরু করেছেন বাসিন্দারা। দেশটির ওয়েস্ট জাভা প্রদেশে টিকা গ্রহণের হার কম থাকায় স্থানীয় কর্তৃপক্ষ এ উদ্যোগ নিয়েছে।



আরো সংবাদ