১৮ এপ্রিল ২০২১
`

৭ মার্চের ভাষণেই সব নির্দেশনা ছিল : প্রধানমন্ত্রী

-

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান তার ৭ মার্চের ভাষণের মধ্য দিয়েই স্বাধীনতার ঘোষণা দিয়ে যান। ঐতিহাসিক ৭ মার্চ উদযাপন উপলক্ষে গতকাল রোববার সংস্কৃতি মন্ত্রণালয় আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে এ কথা বলেন তিনি। জনগণের ভোটে নির্বাচিত বঙ্গবন্ধুকে ক্ষমতা দিতে পশ্চিম পাকিস্তানিরা যখন ষড়যন্ত্র শুরু করেছিল, তখন ১৯৭১ সালের ৭ মার্চ আসে বঙ্গবন্ধুর বজ্রঘোষণা। রেসকোর্স ময়দানে লাখো জনতার সমাবেশে সেই ভাষণের পর থেকে তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তান কার্যত বঙ্গবন্ধুর নির্দেশেই পরিচালিত হতে থাকে। বাসস, বিডিনিউজ।
শেখ হাসিনা বলেন, ‘এই ভাষণের ভেতরে আপনি তিনটা স্তর পাবেন। একটা ঐতিহাসিক পটভূমি আছে যে বাঙালির বঞ্চনার ইতিহাস, অত্যাচার-নির্যাতনের ইতিহাস। কিভাবে সেই পাকিস্তানি সামরিক জান্তারা গুলি করে মানুষকে হত্যা করেছে, কিভাবে মানুষ ভোট দিয়েছে। তাদের সেই অধিকার থেকে তাদের বঞ্চিত করছে সেই বঞ্চনার ইতিহাস। ‘আর সব থেকে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হলো, এই ভাষণের মধ্য দিয়ে তিনি (বঙ্গবন্ধু) একটা যুদ্ধের প্রস্তুতি নেয়ার সব নির্দেশনা দিয়ে গেছেন। কারণ একটা গেরিলা যুদ্ধ হবে, সেই গেরিলা যুদ্ধ হতে হলে কী কী করতে হবে, সংগ্রাম পরিষদ গড়ে তোলা থেকে শুরু করে যার যা কিছু আছে তাই নিয়ে শত্রুর মোকাবেলা করতে বলেছেন।’
শেখ হাসিনা বলেন, ‘বঙ্গবন্ধু এটাও জানতেন যে, মুহূর্তে তিনি স্বাধীনতার ঘোষণাটা বাস্তবে অফিসিয়ালভাবে দেবেন, সেই মুহূর্তে হয়তো তিনি বেঁচে নাও থাকতে পারেন। সেই জন্য তার এই ঐতিহাসিক ভাষণের ভেতরেই কিন্তু তিনি স্বাধীনতার ঘোষণাটা দিয়ে গেলেন।’ ‘এবারের সংগ্রাম আমাদের মুক্তির সংগ্রাম, এবারের সংগ্রাম স্বাধীনতার সংগ্রাম’Ñ ভাষণে বঙ্গবন্ধু এই কথাটি দু’বার উচ্চারণের কথা মনে করিয়ে দিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, ‘অর্থাৎ এটা যে স্বাধীনতার সংগ্রাম আর এই যুদ্ধটা যে স্বাধীনতা যুদ্ধ হবে, সেই কথাটাই কিন্তু তিনি স্পষ্ট বলে গেছেন। কাজেই এটা একদিক দিয়ে বলতে গেলে ৭ মার্চই তো প্রকৃত স্বাধীনতার ঘোষণা।’
ঐতিহাসিক সেই ভাষণ দেয়ার আগে অনেকের অনেক ধরনের পরামর্শ ছিল, যা তুলে ধরেন শেখ হাসিনা। ‘তখন আমাদের ছাত্রনেতাদের অনেকে... নাম বলতে আপত্তি নেই। যেমন সিরাজুল আলম খান, আব্দুর রাজ্জাক, তোফায়েল আহমেদসহ অনেক ছাত্রনেতা ৩২ নম্বরে এসেছেন। সিরাজুল আলম খান বারবার জানাতে চাইছিল যে আজকেই স্বাধীনতার ঘোষণাটা দিতেই হবে। সেই সময় অনেক বুদ্ধিজীবী লিখতেন, পয়েন্ট দিয়ে যেতেন আবার কেউ পরামর্শ দিয়ে যেতেন যে কী করে বলতে হবে, কী বলতে হবে। ‘সিরাজুল আলম খানকে বঙ্গবন্ধু বলেছিলেন, একটা কথা বারবার আমার কানে এখনো বাজে। বলেছিলেন, ‘সিরাজ, লিডার শুড লিড দ্য ল্যাড। ল্যাড শুড নট লিড দ্য লিডার। কী করতে হবে আমি জানি। তোমরা তোমাদের কাজ কর। যাও।’
শেখ হাসিনা বলেন, ‘প্রতিটি ক্ষেত্রে সংগ্রামের ক্ষেত্রে আন্দোলনের ক্ষেত্রে একটা পরিমিতিবোধ কিন্তু থাকতে হয়। ৭ মার্চের ভাষণ যখন দিতে যাবেন, তখন আমার মায়ের একটাই পরামর্শ ছিলÑ সারাটা জীবন সংগ্রাম করেছ তুমি। তোমার মনে যেই কথা আছে, তুমি ঠিক সেই কথাটাই বলবে। কারো কথা শোনার তোমার প্রয়োজন নাই।’ আজকে এই ভাষণ বিশ্বস্বীকৃতি যেমন পেয়েছে, তেমনি জাতিসঙ্ঘের প্রতিটি ভাষায় এই ভাষণটি অনুবাদ করা হয়েছে। প্রতিটি ভাষায় এটা অনুবাদ করে প্রচার করা হচ্ছে।’
গণভবন থেকে ভার্চুয়ালি যুক্ত হয়ে অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন শেখ হাসিনা। বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্র প্রান্তে অনুষ্ঠানে ছিলেন মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক, শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি, সংস্কৃতিবিষয়ক প্রতিমন্ত্রী কে এম খালিদ, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উদযাপন জাতীয় বাস্তবায়ন কমিটির প্রধান সমন্বয়ক কামাল আবদুল নাসের চৌধুরী, সংস্কৃতি সচিব বদরুল আরেফীনসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা। প্রধানমন্ত্রী পরে মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান উপভোগ করেন।



আরো সংবাদ