১৮ এপ্রিল ২০২১
`

নানা আয়োজনে ঐতিহাসিক ৭ মার্চ উদযাপিত

-

নানা আয়োজনের মধ্য দিয়ে গতকাল ঢাকাসহ সারা দেশে ঐতিহাসিক ৭ মার্চ উদযাপিত হয়েছে। দিবসটি উপলক্ষে আওয়ামী লীগ এবং সহযোগী-ভ্রাতৃপ্রতিম সংগঠনগুলো দলীয় কার্যালয়ে জাতীয় ও দলীয় পতাকা উত্তোলন, বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা নিবেদন, মিলাদ ও দোয়া মাহফিল, আলোচনা সভাসহ বিভিন্ন কর্মসূচির আয়োজন করে। এ ছাড়া দেশের বিভিন্ন স্থানে সরকারি ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের উদ্যোগে নানা কর্মসূচি পালিত হয়।
সকালে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিসহ সারা দেশের দলীয় কার্যালয়ে জাতীয় পতাকা ও দলীয় পতাকা উত্তোলনের মধ্য দিয়ে দিনের কর্মসূচি শুরু করে আওয়ামী লীগ। সকাল থেকেই বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণ দলীয় কার্যালয়গুলোতে মাইকে বাজতে থাকে। সকালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ধানমন্ডির ৩২ নম্বরে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ করে গভীর শ্রদ্ধা জানান। এরপর তিনি সেখানে কিছুক্ষণ নীরবে দাঁড়িয়ে থাকেন। এ সময় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ছোট কন্যা এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ছোট বোন শেখ রেহানা উপস্থিত ছিলেন। শ্রদ্ধা নিবেদনের পর ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্টের নির্মম ঘটনায় নিহতদের রূহের মাগফিরাত কামনা করে বিশেষ মুনাজাত অনুষ্ঠিত হয়।
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে বঙ্গবন্ধু ভবন ত্যাগ করার পর ঐতিহাসিক ৭ মার্চ উপলক্ষে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করার জন্য উন্মুক্ত করে দেয়া হয়। এ সময় আওয়ামী লীগসহ বিভিন্ন সামাজিক, রাজনৈতিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠন, বিভিন্ন মন্ত্রণালয়, সরকারি অফিস ও দফতর এবং বেসরকারি প্রতিষ্ঠান বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা নিবেদন করে। বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা জানাতে তারা সকাল থেকেই ধানমন্ডির ৩২ নম্বর ও আশপাশের এলাকায় জড়ো হন।
পরে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের দলীয় নেতৃবৃন্দকে সাথে নিয়ে দলের পক্ষে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন। এ সময় আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ড. আব্দুর রাজ্জাক, জাহাঙ্গীর কবির নানক, আব্দুল মতিন খসরু ও আব্দুর রহমান, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবউল আলম হানিফ, ডা: দীপু মনি, ড. হাছান মাহমুদ ও আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম, সাংগঠনিক সম্পাদক আহমদ হোসেন, বি এম মোজাম্মেল হক ও এস এম কামাল হোসেন, তথ্য প্রতিমন্ত্রী ডা: মুরাদ হাসান, আওয়ামী লীগের সাংস্কৃতি বিষয়ক সম্পাদক অসীম কুমার উকিল, মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক সম্পাদক মৃণাল কান্তি দাস প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।
এরপর কেন্দ্রীয় ১৪ দল, ঢাকা মহানগর উত্তর ও দক্ষিণ আওয়ামী লীগ, আওয়ামী যুবলীগ, বাংলাদেশ কৃষক লীগ, আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগ, মহিলা আওয়ামী লীগ, যুব মহিলা লীগ, জাতীয় শ্রমিক লীগ, বাংলাদেশ ছাত্রলীগ, বঙ্গবন্ধু পরিষদ, বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোট, মুক্তিযোদ্ধা কেন্দ্রীয় কমান্ড কাউন্সিল, সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোট, বাংলাদেশ তাঁতীলীগ, বঙ্গবন্ধু সৈনিক লীগ, শেখ রাসেল শিশু সংঘ, আওয়ামী সাংস্কৃৃতিক ফোরাম, বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন শ্রমিক কর্মচারী লীগ, মুক্তিযোদ্ধা সংহতি পরিষদ, আওয়ামী শিল্পী গোষ্ঠী, ঢাকা আইনজীবী সমিতি, বাংলাদেশ আওয়ামী যুব আইনজীবী পরিষদসহ সরকার সমর্থক বিভিন্ন সংগঠন বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন।
স্পিকারের শ্রদ্ধা নিবেদন : ধানমন্ডির ৩২ নম্বরে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে গতকাল জাতীয় সংসদের স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ করে বঙ্গবন্ধুর স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা জানান। শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে তিনি কিছুক্ষণ সেখানে দাঁড়িয়ে নীরবতা পালন করেন। এ সময় স্পিকারের সাথে সংসদ সচিবালয়ের কর্মকর্তাবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।
প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ে ৭ মার্চ উদযাপন : ঐতিহাসিক ৭ মার্চ উদযাপনের লক্ষ্যে প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় গতকাল শেরেবাংলানগরে প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ে দিনব্যাপী কর্মসূচির আয়োজন করে। সূর্যোদয়ের সাথে সাথে জাতীয় পতাকা উত্তোলন ও জাতীয় সঙ্গীত পরিবেশনের মাধ্যমে দিনের কর্মসূচি শুরু হয়। পরে মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে অতিরিক্ত সচিব মো: আবু বকর ছিদ্দিকের সভাপতিত্বে এক আলোচনা সভা অনুুষ্ঠিত হয়। সভায় বক্তারা বলেন, ১৯৭১ সালের ৭ মার্চ তৎকালীন রেসকোর্স ময়দানে প্রদত্ত বক্তব্য ছিল বঙ্গবন্ধুর হৃদয় থেকে উৎসারিত কথামালা, যা স্বাধীনতার জন্য উন্মুখ জনতার সামনে সুস্পষ্ট মাইলফলক হিসেবে প্রতীয়মান হয়।
প্রধান অতিথির বক্তব্যে প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব ড. মো: আবু হেনা মোস্তফা কামাল এনডিসি বলেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ভাষণটি ছিল শোষিত, বঞ্চিত সাত কোটি মুক্তিকামী মানুষের জন্য সুস্পষ্ট স্বাধীনতার ঘোষণা। তিনি আরো বলেন, সাহসী এবং সার্বজনীন এমন ভাষণ পৃথিবীর ইতিহাসে বিরল বিধায় ইউনেস্কো ভাষণটিকে প্রামাণ্য দলিল হিসেবে স্বীকৃতি দিয়েছে। ড. মো: আবু হেনা মোস্তফা কামাল বলেন, দীর্ঘ দিন এ ভাষণটি অন্তরালে রয়ে গেলেও আজ তা বিশ্ববাসীর কাছে উন্মুক্ত। আলোচনা সভা শেষে বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে সংস্কৃতিবিষয়ক মন্ত্রণালয় আয়োজিত অনুষ্ঠানে তারা অংশ নেন। সূত্র : আইএসপিআর।
মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয় : বাংলাদেশ শিশু একাডেমির উদ্যোগে একাডেমির মিলনায়তনে ঐতিহাসিক ৭ মার্চ দিবসের আলোচনা অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানে মহিলা ও শিশু বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী ফজিলাতুন নেসা ইন্দিরা প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন। একাডেমির চেয়ারম্যান লাকী ইনামের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব মো: সায়েদুল ইসলাম, জাতীয় মহিলা সংস্থার চেয়ারম্যান চেমন আরা তৈয়ব ও মহিলাবিষয়ক অধিদফতরের মহাপরিচালক রাম চন্দ্র দাস। স্বাগত বক্তব্য দেন বাংলাদেশ শিশু একাডেমির মহাপরিচালক জ্যোতি লাল কুরী।
বিশ^বিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন : বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানিয়েছে বাংলাদেশ বিশ^বিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন (ইউজিসি)। গতকাল সকালে কমিশনের সদস্য, কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা ধানমন্ডির ৩২ নম্বরে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতি ও ইউজিসি ভবনে বঙ্গবন্ধুর ম্যুরালে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ করেন। এ সময় ইউজিসি সদস্য প্রফেসর ড. দিল আফেরোজা বেগম, প্রফেসর ড. মো: সাজ্জাদ হোসেন, প্রফেসর ড. মুহাম্মদ আলমগীর, প্রফেসর ড. বিশ্বজিৎ চন্দ, প্রফেসর ড. মো: আবু তাহের, সচিব (অতিরিক্ত দায়িত্ব) ড. ফেরদৌস জামান, জেনারেল সার্ভিসেস, এস্টেট অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের পরিচালক ড. মো: সুলতান মাহমুদ ভূইয়া উপস্থিত ছিলেন।
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় : ঢাকা বিশ^বিদ্যালয়ের ভিসি অধ্যাপক ড. মো: আখতারুজ্জামান ঐতিহাসিক ৭ মার্চের ভাষণের গুরুত্ব ও তাৎপর্য অনুধাবন করার জন্য যুবসমাজের প্রতি আহ্বান জানিয়ে বলেছেন, ২০৪১ সালের মধ্যে বাংলাদেশকে একটি উন্নত রাষ্ট্রে পরিণত করার ক্ষেত্রে যুবসমাজকেই নেতৃত্ব দিতে হবে। গতকাল অধ্যাপক আব্দুল মতিন চৌধুরী ভার্চুয়াল ক্লাসরুমে এক ভার্চুয়াল আলোচনা সভায় সভাপতির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন। সভায় ঢাকা বিশ^বিদ্যালয়ের প্রোভিসি (প্রশাসন) অধ্যাপক ড. মুহাম্মদ সামাদ, প্রোভিসি (শিক্ষা) অধ্যাপক ড. এ এস এম মাকসুদ কামাল, কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক মমতাজ উদ্দিন আহমেদ, শিক্ষক সমিতির সভাপতি অধ্যাপক ড. মো: রহমত উল্লাহ, সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক ড. মো: নিজামুল হক ভূইয়াসহ অফিসার্স অ্যাসোসিয়েশন, তৃতীয় শ্রেণী কর্মচারী সমিতি, কারিগরি কর্মচারী সমিতি ও চতুর্থ শ্রেণী কর্মচারী ইউনিয়নের নেতৃবৃন্দ বক্তব্য দেন।
রাজশাহী কৃষি উন্নয়ন ব্যাংক : ৭ মার্চ উপলক্ষে বনলতা বাণিজ্যিক এলাকায় রাজশাহী কৃষি উন্নয়ন ব্যাংকের প্রধান কার্যালয় চত্ব¡রে অবস্থিত বঙ্গবন্ধুর ম্যুরালে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ এবং পরে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পমাল্য অর্পণ করেন ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো: ইসমাইল হোসেন। এ সময় উপস্থিত ছিলেন মহাব্যবস্থাপক (নিরীক্ষা, হিসাব ও আদায়) মো: কামিল বুরহান ফিরদৌস, রাকাব কর্মচারী সংসদ সিবিএ সভাপতি এস এম আব্দুল হান্নান এবং সাধারণ সম্পাদক আবু নাঈম ফজলে রাব্বী, সহসাধারণ সম্পাদক মো: আশরাফুল হক নিজামী প্রমুখ।
মওলানা ভাসানী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় : মওলানা ভাসানী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করা হয়। সকাল ৯টায় বিশ^বিদ্যালয়ের ভাইস চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. মো: আলাউদ্দিনের নেতৃত্বে বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে বঙ্গবন্ধুর ম্যুরালে পুষ্পস্তবক অর্পণ করে বঙ্গবন্ধুর স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা জানানো হয়।
বঙ্গবন্ধু ও জাতীয় চার নেতা স্মৃতি পরিষদ : বঙ্গবন্ধু ও জাতীয় চার নেতা স্মৃতি পরিষদের আয়োজনে সকালে নগরীর একটি কমিউনিটি সেন্টারে বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণ দিবস উপলক্ষে এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে ‘একটি ভাষণ একটি দেশ’ শীর্ষক প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক মো: আবদুর রহিম।
বাউয়েটে উদযাপন : বাংলাদেশ আর্মি ইউনিভার্সিটি অব ইঞ্জিনিয়ারিং অ্যান্ড টেকনোলজি (বাউয়েট) ক্যাম্পাসের স্কাইলাইট হলে সকাল ১১টায় ঐতিহাসিক ৭ মার্চ দিবস উদযাপন উপলক্ষে প্রামাণ্যচিত্র প্রদর্শনী করা হয়। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মো: মোস্তফা কামাল।
অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের কোষাধ্যক্ষ কর্নেল (অব:) মোহাম্মাদ হামিদুল হক, পিএসসি, বিভাগীয় প্রধানরা, প্রক্টর, কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা। অনুষ্ঠান উপস্থাপনা করেন সমাজবিজ্ঞান বিভাগের সিনিয়র প্রভাষক ও ছাত্র কল্যাণ উপদেষ্টা মো: আল আমিন।
এ ছাড়া জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল-জাসদের উদ্যোগেও বিভিন্ন কর্মসূচি পালিত হয়।
চসিকের আলোচনা সভা
চট্টগ্রাম ব্যুরো জানায়, চট্টগ্রাম সিটি মেয়র রেজাউল করিম চৌধুরী বলেছেন, বঙ্গবন্ধুর আঠারো মিনিটের ভাষণে প্রতিটি শব্দ ও বাক্য একটি পরিকল্পিত জনযুদ্ধের নির্দেশনা। তিনি গতকাল সকালে থিয়েটার ইনস্টিটিউট চট্টগ্রাম মিলনায়তনে চসিক আয়োজিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা বলেন। সভাপতির বক্তব্যে চসিক প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা কাজী মুহাম্মদ মোজাম্মেল হক বলেন, বঙ্গবন্ধুর ঐতিহাসিক ৭ মার্চের ভাষণ ১২টি বিদেশী ভাষায় অনূদিত হয়েছে। আরো বক্তব্য রাখেনÑ কাউন্সিলর জহর লাল হাজারী, হাসান মুরাদ বিপ্লব, পুলক খাস্তগীর, চসিক ভারপ্রাপ্ত সচিব ও প্রধান রাজস্ব কর্মকর্তা মোহাম্মদ নজরুল ইসলাম, প্রধান শিক্ষা কর্মকর্তা সুমন বড়–য়া, অতি: প্রধান প্রকৌশলী রফিকুল ইসলাম মানিক প্রমুখ।
রাজশাহী ব্যুরো জানায়, রাজশাহী জেলা প্রশাসন নানা কর্মসূচি পালন করে। সকাল ৯টায় জেলা শিল্পকলা একাডেমি চত্বরে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করা হয়। এরপর শিল্পকলা একাডেমি অডিটোরিয়ামে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। জেলা প্রশাসক আব্দুল জলিলের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন বিভাগীয় কমিশনার ড. হুমায়ুন কবীর। বিশেষ অতিথির বক্তব্য দেনÑ রাজশাহী মহানগর পুলিশ (আরএমপি) কমিশনার আবু কালাম সিদ্দিক, পুলিশের রাজশাহী রেঞ্জের অতিরিক্ত ডিআইজি জয়দেব কুমার ভদ্র, পুলিশ সুপার এ বি এম মাসুদ হোসেন ও মুক্তিযোদ্ধা শফিকুর রহমান রাজা। এ দিকে আওয়ামী লীগ এবং এর অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনগুলোর উদ্যোগে নানা আয়োজনে দিবসটি উদযাপন করা হয়।
বগুড়া অফিস জানায়, সকালে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা নিবেদন করে জেলা প্রশাসক মো: জিয়াউল হকের নেতৃত্বে জেলা প্রশাসন, পুলিশ সুপার আলী আশরাফ ভূঞার নেতৃত্বে পুলিশ বিভাগ, এলজিইডি, উপজেলা পরিষদ, ফায়ার সার্ভিস-সহ বিভিন্ন সরকারি প্রতিষ্ঠান। জেলা পরিষদ চত্বরে বঙ্গবন্ধুর ম্যুরালে জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ডা: মকবুল হোসেনসহ প্যানেল চেয়ারম্যান ও সদস্যবৃন্দ শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদন করেন। এ সময় বঙ্গবন্ধু পরিষদ, বগুড়া হোমিওপ্যাথিক মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতাল শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদন করে। জেলা আওয়ামী লীগ দলীয় কার্যালয়ের সামনে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে আলোচনা সভা করেছে।
গাজীপুর মহানগর সংবাদদাতা জানান, সকালে মহানগর আওয়ামী লীগ কার্যালয় প্রাঙ্গণে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে মহানগর আওয়ামী লীগ সভাপতি অ্যাডভোকেট আজমত উল্লাহ খান, সাধারণ সম্পাদক সিটি মেয়র অ্যাডভোকেট জাহাঙ্গীর আলমের নেতৃত্বে মহানগর আওয়ামী লীগ, মহানগর যুবলীগের আহ্বায়ক কামরুল আহসান সরকার রাসেলের নেতৃত্বে যুবলীগ, জেলা আইনজীবী সমিতি সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট জাকির উদ্দিন আহম্মেদের নেতৃত্বে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করা হয়। বাংলাদেশ উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ে (বাউবি) সকাল সোয়া ৮টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের মূল ক্যাম্পাসে জাতীয় পতাকা ও বিশ্ববিদ্যালয়ের পতাকা উত্তোলণের মাধ্যমে কর্মসূচি শুরু হয়।



আরো সংবাদ