০৪ মার্চ ২০২১
`

কেনাকাটায় কাগুজে মুদ্রার নির্ভরশীলতা কমছে

বাড়ছে কার্ডের মাধ্যমে লেনদেন ; এক মাসে লেনদেন ১৯ হাজার কোটি টাকা ; নিয়ন্ত্রণহীন ব্যয়ে ঋণগ্রস্ত হয়ে পড়ছেন চাকরিজীবীরা
-

করোনাভাইরাসের সংক্রমণের ঝুঁকি এড়াতে কেনাকাটার ধরন বদলে গেছে। সশরীরে বাজারে, দোকানে গিয়ে কেনাকাটার পরিবর্তে ই-কমার্সের মাধ্যমে লেনদেন হচ্ছে। এতে ব্যাংকে লাইনে দাঁড়িয়েও টাকা উত্তোলন করতে হচ্ছে না। ঘরে বসেই বাহারি ধরনের কার্ড থেকে মোবাইলে অর্থ স্থানান্তর করে তা গ্রাহকের দায় পরিশোধ করছেন অনেকেই। এভাবে লেনদেনে কাগুজে মুদ্রার ওপর নির্ভরশীলতা কমে যাচ্ছে।
বাংলাদেশ ব্যাংকের সর্বশেষ পরিসংখ্যান মতে, এক মাসেই লেনদেন হয়েছে ১৯ হাজার ৫১ কোটি টাকা। এ অর্থ গত বছরের নভেম্বরের চেয়ে ২৫ শতাংশ বেশি। কার্ডের মাধ্যমে লেনদেনে সুবিধা যেমন আছে তেমনি অসুবিধাও রয়েছে। এর মধ্যে অন্যতম হলো অনেকেই নিয়ন্ত্রণহীন ব্যয় করেন। এতে নতুন চাকরিজীবীরা ঋণগ্রস্ত হয়ে পড়ছেন।
ডাচ-বাংলা ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা আবুল কাশেম মো: শিরিন গতকাল নয়া দিগন্তকে জানান, মূলত বিশ্বব্যাপী করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের পর থেকেই কার্ডের মাধ্যমে লেনদেন বেড়েছে। তিনি জানান, এ ছাড়া মানুষের আয় বাড়ছে, পরিবর্তন হচ্ছে লেনদেনের ধরনও। দিন যত যাবে লেনদেনের ধরনও পরিবর্তন হবে। আসবে নতুন নতুন প্রযুক্তি। পশ্চিমা সমাজে এক ডলারের লেনদেনও এখন কাগুজে মুদ্রায় হয় না। কার্ডের মাধ্যমেই হয়। তথ্যপ্রযুক্তির যুগে পশ্চিমা সংস্কৃতিও আমাদের নতুন প্রজন্মের ওপর পড়ছে।
তিনি বলেন, এ কার্ডের মাধ্যমে লেনদেনে সুবিধা যেমন আছে, তেমনি অসুবিধাও আছে। সুবিধার মধ্যে গ্রাহককে আর নগদ টাকা বহন করতে হয় না। কার্ডের মাধ্যমেই লেনদেন সম্পন্ন হয়। আর অসুবিধার দিকটি হলো, বেশির ভাগ কার্ডধারীর ব্যয়ের নিয়ন্ত্রণ থাকে না। বিশেষ করে নতুন প্রজন্মের চাকরিজীবীদের ক্ষেত্রে এ অসুবিধা বেশি হয়। একজন কর্মকর্তা মাসিক যে বেতন পান তার তিন গুণ পর্যন্ত কার্ডের মাধ্যমে ব্যয়ের সীমা দেয়া থাকে। নগদ টাকায় কেনাটাকায় যেমন হিসাব থাকে, কিন্তু কার্ডের মাধ্যমে কেনাকাটায় বেশির ভাগ মানুষই হিসাব থাকে না। অনেক সময়ই আয়ের চেয়ে বেশি ব্যয় করে ফেলেন। আবার অনেকেই একাধিক ব্যাংকের ক্রেডিট কার্ড ব্যবহার করতে দেখা যায়। এভাবেই নিয়ন্ত্রণহীন ব্যয়ে অনেকেই ঋণগ্রস্ত হয়ে পড়ছেন। তাই কার্ডের মাধ্যমে কেনাকাটায় গ্রাহককে আয়ের সাথে সামঞ্জস্য রেখে ব্যয় করার পরামর্শ দেন তিনি।
জানা গেছে, বাজারে বিভিন্ন ধরনের কার্ড রয়েছে। বিভিন্ন বাহারি নামের কার্ড থাকলেও মূলত দুই ধরনের কার্ডের মাধ্যমে এসব কার্ড ব্যবহার হয়। প্রথমত, ডেভিড কার্ড, যেটা গ্রাহকের অ্যাকাউন্টে যতক্ষণ টাকা থাকবে ততক্ষণ গ্রাহক ডেভিড কার্ডের মাধ্যমে কেনাকাটা করতে পারবেন। অপরটি হলো ক্রেডিট কার্ড। ক্রেডিট কার্ডে ব্যাংক থেকে গ্রাহকের এক মাসে কেনাকাটার একটি সীমা দেয়া থাকে। গ্রাহকের মাসিক আয়ের ওপর এ সীমা নির্ধারণ করা হয়। যেমনÑ কারো মাসিক আয় ৫০ হাজার টাকা থাকলে সংশ্লিষ্ট গ্রাহককে তিন গুণ পর্যন্ত অর্থাৎ দেড় লাখ টাকা ব্যয় করার সুযোগ দেয়া হয়। ব্যাংকের শর্তানুযায়ী নির্ধারিত সীমার মধ্যে ব্যাংকের অর্থ পরিশোধ করলে সংশ্লিষ্ট গ্রাহককে বাড়তি অর্থ পরিশোধ করতে হয় না। কিন্তু নির্ধারিত সময়ের পরে গ্রাহক টাকা পরিশোধ করলে বাড়তি মুনাফা পরিশোধ করতে হয়। অনেক সময় চক্রবৃদ্ধি হারে সুদ গুনতে হয় গ্রাহককের। এভাবে একই ব্যক্তি একাধিক ব্যাংক থেকে ক্রেডিট কার্ড নিয়ে কেনাকাটা করায় একসময় ঋণের জালে আটকে যায়।
ব্যাংকাররা জানিয়েছেন, করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের পর থেকে বেশির ভাগ মানুষ ঘরে বসেই কেনাকাটা করতে বেশি স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করছেন। এতে ব্যাংকে গিয়ে লাইনে দাঁড়িয়ে থেকে টাকা উত্তোলনের চেয়ে ডেভিট কার্ডের মাধ্যমে কেনাকাটা করেন। অনেকেই কার্ডে থাকা অর্থ মোবাইল ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে স্থানান্তর করে ঘরে বসেই দোকানদার বা পাওনাদারের অর্থ পরিশোধ করছেন। এভাবেই কেনাকাটায় কার্ডের ওপর নির্ভরশীলতা বেড়ে গেছে। এতে কমে গেছে কাগুজে মুদ্রার মাধ্যমে লেনদেন।
বাংলাদেশ ব্যাংকের পরিসংখ্যান থেকে দেখা যায়, ফি মাসেই কার্ডের মাধ্যমে লেনদেন বেড়ে যাচ্ছে। গত বছরের নভেম্বরে কার্ডের মাধ্যমে যেখানে লেনদেন হয়েছিল ১৫ হাজার ২২১ কোটি টাকা, গত নভেম্বর শেষে তা বেড়ে হয়েছে ১৯ হাজার ৫১ কোটি টাকা। সে হিসাবে লেনদেন বেড়েছে ২৫ শতাংশের ওপরে। এসব লেনদেন বেড়েই চলছে। এর মধ্যে দেশীয় মুদ্রায় লেনদেন হয়েছে ১৮ হাজার ৯৩০ কোটি টাকা আর বৈদেশিক মুদ্রায় লেনদেন হয়েছে ১২০ কোটি টাকা।

 



আরো সংবাদ


করোনার টিকা নিলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিয়ে নিবন্ধন ডিজিটাল করতে রাকিবের রিট গোয়েন্দা নজরদারিতে জার্মান উগ্রপন্থী এএফডি পার্টি রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসিকে ক্যাম্পাসে অবাঞ্ছিত ঘোষণা বর্তমান সরকারের মুক্তিযুদ্ধের সংজ্ঞা আংশিকভাবে বিতর্কিত ও অগ্রহণযোগ্য : ইব্রাহিম জিডিপি বাড়লেও নির্বাচন নিয়ে বিতর্ক আছে : তাজুল ইসলাম আওয়ামী লীগের কর্মসূচিতে বাধা, দুই এসআই প্রত্যাহার প্রথম দিন চলল স্পিনারদের দাপট ‘এইচ টি ইমামের মতো কর্মনিষ্ঠ মানুষ সমাজে বিরল’ বাংলা একাডেমিতে বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণ নিয়ে একক বক্তৃতানুষ্ঠান জমি নিয়ে বিরোধের জেরে হত্যা : ৮ জনের যাবজ্জীবন

সকল