০৮ মার্চ ২০২১
`

বিশ্বে সংক্রমণ ও মৃত্যু কমছে না

করোনা ভাইরাস
-

আক্রান্ত : ৯,৩৬,৮৮,০৬৬ মৃত্যু : ২০,০৫,৭৭৩
দেশ আক্রান্ত মৃত্যু
যুক্তরাষ্ট্র ২,৩৮,৬২,১৩৮ ৩,৯৮,১৮৫
ভারত ১,০৫,৩৪,৫৪৮ ১,৫১,৯৮১
ব্রাজিল ৮৩,২৬,১১৫ ২,০৭,১৬০
রাশিয়া ৩৫,২০,৫৩১ ৬৪,৪৯৫
ইংল্যান্ড ৩২,৬০,২৫৮ ৮৬,০১৫
ফ্রান্স ২৮,৫১,৬৭০ ৬৯,৩১৩
তুর্কি ২৩,৬৪,৮০১ ২৩,৪৯৫
ইতালি ২৩,৩৬,২৭৯ ৮০,৮৪৮
স্পেন ২২,১১,৯৬৭ ৫৩,০৭৯
জার্মানি ২০,০৭,০৩৮ ৪৫,৬৮৯
এক বছরের বেশি সময় পেরিয়ে গেলেও বিশ্বে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ও মৃত্যু কমছে না। এরই মধ্যে বিশ্বে করোনায় সংক্রমিত শনাক্ত রোগীর সংখ্যা ৯ কোটি ৩৬ লাখ ছাড়িয়েছে। আর এই ভাইরাসে সংক্রমিত হয়ে ২০ লাখের বেশি মানুষ মারা গেছেন। মহামারীর শুরু থেকে বিশ্বের সব দেশ ও অঞ্চলের করোনা সংক্রমণের হালনাগাদ তথ্য সংরক্ষণ করছে ওয়ার্ল্ডোমিটারস নামের একটি ওয়েবসাইট। তার সর্বশেষ তথ্য বলছে, গতকাল সন্ধ্যা পর্যন্ত বিশ্বে করোনায় সংক্রমিত শনাক্ত রোগীর সংখ্যা ৯ কোটি ৩৬ লাখ ৩৭ হাজার ৬৪৮। একই সময়ে বিশ্বে করোনায় মোট মারা গেছে ২০ লাখ চার হাজার ৮১৫ জন। ওয়ার্ল্ডোমিটারসের সর্বশেষ তথ্য বলছে, এখন পর্যন্ত বিশ্বে করোনা থেকে সেরে ওঠা মানুষের সংখ্যা ছয় কোটি ৬৯ লাখ ৪২ হাজার ৪৩৬।
বিশ্বে করোনায় সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত দেশ যুক্তরাষ্ট্র। যুক্তরাষ্ট্রে করোনায় সংক্রমিত শনাক্ত রোগীর সংখ্যা দুই কোটি ৩৮ লাখ ৪৮ হাজার ৪১০। দেশটিতে করোনায় মারা গেছেন তিন লাখ ৯৭ হাজার ৯৯৪ জন। ক্ষতিগ্রস্ত দেশের তালিকায় ভারতের অবস্থান দ্বিতীয়। ভারতে করোনায় সংক্রমিত শনাক্ত রোগীর সংখ্যা এক কোটি পাঁচ লাখ ২৮ হাজার ৫০৮। দেশটিতে করোনায় মারা গেছেন এক লাখ ৫১ হাজার ৯৫৪ জন।
২০১৯ সালের ডিসেম্বরে চীনের উহানে প্রথম করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়। চীনে করোনায় প্রথম কোনো রোগীর মৃত্যু হয় ২০২০ সালের ৯ জানুয়ারি। তবে তার ঘোষণা আসে ১১ জানুয়ারি। গত বছরের ১৩ জানুয়ারি চীনের বাইরে প্রথম করোনা রোগী শনাক্ত হয় থাইল্যান্ডে। পরে বিভিন্ন দেশে করোনা ছড়িয়ে পড়ে।
করোনার প্রাদুর্ভাবের পরিপ্রেক্ষিতে গত বছরের ৩০ জানুয়ারি বৈশ্বিক স্বাস্থ্য জরুরি অবস্থা ঘোষণা করে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। গত বছরের ২ ফেব্রুয়ারি চীনের বাইরে করোনায় প্রথম কোনো রোগীর মৃত্যুর ঘটনা ঘটে ফিলিপাইনে। গত বছরের ১১ ফেব্রুয়ারি বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা করোনাভাইরাস থেকে সৃষ্ট রোগের নামকরণ করে ‘কোভিড-১৯’। গত বছরের ১১ মার্চ করোনাকে বৈশ্বিক মহামারী ঘোষণা করে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা।
ভারতজুড়ে ৩০০৬ কেন্দ্রে আজ থেকে টিকাদান শুরু : ভারতে করোনার টিকা নিয়ে সব প্রতীক্ষার অবসান হচ্ছে আজ শনিবার। আজ সকাল ১০টায় আনুষ্ঠানিকভাবে ভারতজুড়ে শুরু হবে করোনা টিকাদান কর্মসূচি। এতে শরিক হচ্ছে ভারতের তিন হাজার ছয়টি টিকা কেন্দ্র। আর পশ্চিমবঙ্গে এই সংখ্যা ২০৪টি। সকাল ১০টায় ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে কর্মসূচির আনুষ্ঠানিক সূচনা করবেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। দেশের সব টিকাদান কেন্দ্রই যুক্ত থাকবে ইন্টারনেটের মাধ্যমে। প্রথম দিন প্রতিটি কেন্দ্রে ১০০ জনকে দেয়া হবে টিকা।
ভারত সরকার সে দেশের মানুষের জন্য দু’টি টিকাকে অনুমোদন দিয়েছে। একটি অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয় ও অ্যাস্ট্রাজেনেকার সাথে ভারতের সেরাম ইনস্টিটিউটের তৈরি কোভিশিল্ড এবং অন্যটি ভারতের হায়দরাবাদের ভারত বায়োটেকের তৈরি কো-ভ্যাকসিন। তবে পশ্চিমবঙ্গে দেয়া হচ্ছে কোভিশিল্ড। এরই মধ্যে দেশের সব টিকাদান কেন্দ্রে পৌঁছে গেছে এই দু’টি টিকা।
চীনের করোনার টিকা নিলেন এরদোগান : চীনের তৈরি করোনা টিকার প্রথম ডোজ নিয়েছেন তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রজব তাইয়েব এরদোগান। গত বৃহস্পতিবার আঙ্কারা শহরের একটি হাসপাতালে তিনি এ টিকা গ্রহণ করেন। এ সময় তিনি বলেন, আমি টিকা নেয়ার পর ভালো অনুভব করছি। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম টেলিগ্রামে তিনি এ কথা বলেন। সাংবাদিকদের এরদোগান বলেন, আমি বিশ্বাস করি সব রাজনৈতিক নেতা, সংসদ সদস্যদের উৎসাহ দেয়ার জন্য করোনা টিকার আবেদন করা উচিত। এটাই হবে সঠিক সিদ্ধান্ত। এ সময় তিনি দেশজুড়ে দুই লাখ ৫০ হাজার স্বাস্থ্যকর্মীকে টিকাকরণের আওতায় আনার কথা বলেন। তাদেরকে সম্মুখযোদ্ধা বলেও সম্বোধন করেন। প্রথম পর্যায়ে চীনা সিনোভ্যাক বায়োটেকের ৩০ লাখ ডোজ করোনা টিকার চালান ৩০ ডিসেম্বর তুরস্কে পৌঁছায়।
করোনা নিয়ন্ত্রণে ফ্রান্সে কারফিউ : প্রাণঘাতী করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ রোধে দেশজুড়ে কারফিউ জারি করেছে ফরাসি সরকার। গত বৃহস্পতিবার এই ঘোষণা দেন প্রধানমন্ত্রী জিন ক্যাসটেক্স। ঘোষণায় তিনি বলেন, সংক্রমণ বাড়তে বাড়তে যে অবস্থায় গিয়ে পৌঁছেছে সেটা ভীষণ উদ্বেগজনক। কারফিউ জারি করা ছাড়া আমাদের হাতে অন্য কোনো পথ খোলা ছিল না। অবশ্য গত ডিসেম্বরের শুরু থেকেই ফ্রান্সের সংক্রমণপ্রবণ কয়েকটি এলাকায় কিছুটা শিথিল কারফিউ জারি করা ছিল। এবার নতুন ঘোষণায় পুরো দেশে এই বিধিনিষেধ আরোপ দেয়া হলো। সেই সাথে পূর্বে কারফিউ জারি করা এলাকাগুলোতে যে শিথিলতা ছিল তাও তুলে দেয়া হয়েছে। মোটকথা, একযোগে সারা দেশে এখন কঠোর কারফিউ জারি থাকবে। এই কারফিউর মেয়াদ আপাতত ১৫ দিন। সংক্রমণ পরিস্থিতির ওপর নির্ভর করে পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেয়া হবে বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী জিন ক্যাসটেক্স। ফ্রান্সে এখন পর্যন্ত ২৮ লাখ ৫১ হাজার ৬৭০ জনের দেহে ভাইরাসটির উপস্থিতি পাওয়া গেছে। মৃত্যু হয়েছে ৬৯ হাজার ৩১৩ জনের।
ব্রাজিলের উত্তরাঞ্চলীয় রাজ্যে কারফিউ ঘোষণা : করোনাভাইরাসের সংক্রমণ এড়াতে ব্রাজিলের উত্তরাঞ্চলীয় অ্যামোজোনাস রাজ্যে কারফিউ ঘোষণা করা হয়েছে। গত বৃহস্পতিবার থেকে ১০ দিনের এ কারফিউ ঘোষণা করা হয়। অ্যামাজোনাসের গভর্নর উইলসন লিমা জানান, রাজ্যটিতে বর্তমানে মহামারী করোনাভাইরাসের একেবারে নাজুক পরিস্থিতি বিরাজ করছে। কারফিউ জারির সিদ্ধান্ত অনেক কঠিন হলেও এখনকার জন্য প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ। আমরা করোনার বিরুদ্ধে লড়াই চালিয়ে যাচ্ছি। দেশটির বড় এ রাজ্যে করোনা পরিস্থিতির ব্যাপক অবনতি ঘটায় কর্তৃপক্ষ উদ্বিগ্ন হয়ে পড়েছে। রাজ্যটির রাজধানী মানাউসে স্বাস্থ্য সেবা ব্যবস্থা ভেঙে পড়েছে। ইতোমধ্যে বিভিন্ন হাসপাতালে বেড ও অক্সিজেন সঙ্কট দেখা দিয়েছে। ফিওক্রুজ-অ্যামাজোনিয়া সায়েনটিফিক ইনভেস্টিগেশন ইনস্টিটিউটের জেসাম ওরিলানা বলেন, নগরীতে অক্সিজেনের সঙ্কট দেখা দিয়েছে এবং সেখানের কিছু স্বাস্থ্য সেবা কেন্দ্র সাফোকেশন চেম্বারে পরিণত হয়েছে।



আরো সংবাদ


সৌদির তেল বন্দরে ক্ষেপণাস্ত্র হামলা : জ্বালানি মন্ত্রণালয় সাতক্ষীরায় ২ মোটরসাইকেলের মুখোমুখি সংঘর্ষে নিহত ১, আহত ৩ হেলিকপ্টার দুর্ঘটনায় নিহত ফরাসি বিলিয়নিয়ার এমপি পরমাণু সমঝোতা পুনর্বহাল করতে যুক্তরাষ্ট্রের সাথে আলোচনায় প্রস্তুত রাশিয়া তেজস্বিনী কাদম্বিনী রুহিয়ায় বাঁশঝাড় থেকে লাশ উদ্ধার তুরস্কে তৈরি সৌদি গোয়েন্দা ড্রোন ভূপাতিত করল হাউছি বিদ্রোহীরা ইকুয়াটোরিয়াল গিনিতে বিস্ফোরণে নিহত ২০, আহত ৬ শতাধিক ১৫০ রোহিঙ্গা মুসলমানকে আটক করেছে ভারত, ফেরত পাঠানোর আশঙ্কা সাতক্ষীরায় জমিজমা বিরোধে ভাইয়ের হাতে ভাই খুন করোনাভাইরাস : প্রথম রোগী শনাক্তের ১ বছর পর পরিস্থিতি এখন কেমন?

সকল