৩০ অক্টোবর ২০২০

প্রকল্প বাস্তবায়নে শৃঙ্খলা ভেঙে পড়ছে

কারিগরি কমিটিতেই ৮৭ সদস্য : ২০৯ কোটি টাকার প্রকল্পে পরামর্শকেই যাবে ১৭৪ কোটি
-

প্রকল্প বাস্তবায়ন খরচে দিন দিন শৃঙ্খলা নষ্ট হচ্ছে। নানাভাবে খরচের খাত দেখিয়ে ব্যয় বাড়ানো হচ্ছে। প্রকল্পে যানবাহনের প্রয়োজন না থাকলেও কেনা হচ্ছে। পৃথিবীর দীর্ঘতম সমুদ্র সৈকতের জেলা কক্সবাজারের জন্য মহাপরিকল্পনা করতেই প্রায় ৫ কোটি টাকা খরচে ১১টি বিভিন্ন ধরনের যানবাহন কেনার প্রস্তাব করা হয়েছে। পাশাপাশি কারিগরি কমিটির সদস্য করা হচ্ছে ৮৭ জনেরও বেশি ব্যক্তিকে। আর মহাপরিকল্পনা তৈরিতে দুটি খাতে পরামর্শক ব্যয় ১৭৪ কোটি টাকার প্রস্তাব গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ের। প্রকল্পটি অনুমোদনের জন্য পরিকল্পনা কমিশনে পাঠানো হয়েছে।
গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ের প্রস্তাবনার তথ্য থেকে জানা গেছে, কক্সবাজারে পরিকল্পিত উন্নয়নের জন্য ভূমি ব্যবহার নিয়ন্ত্রণ ও পর্যটন শিল্পের বিকাশের লক্ষ্যে প্রয়োজনীয় নীতিমালা প্রণয়ন এবং ডিটেইল্ড এরিয়া প্ল্যান প্রণয়ন করা হচ্ছে। পর্যটন খাতের উন্নয়ন, ব্যবস্থাপনা, পরীবিক্ষণ এবং এর দীর্ঘ স্থায়িত্বের জন্য এই নীতিমালা প্রণয়নের উদ্যোগ। গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয় হতে কক্সবাজারের একটি মাস্টার প্ল্যান প্রণয়নের জন্য ২০১৭ সালের ১৮ জুলাই একটি পত্র জারি করা হয়। পরবর্তীতে একনেক সভা এবং প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকেও কক্সবাজারের মাস্টার প্ল্যান প্রণয়নের জন্য গুরুত্ব দেয়া হয়। তিন বছরে এই মহাপরিকল্পনা প্রণয়নের জন্য ২০৯ কোটি ৯৫ লাখ ৮৮ হাজার টাকা ব্যয় প্রাক্কলন করা হয়।
পটভূমিতে বলা হয়েছে, কক্সবাজার বাংলাদেশের প্রধান পর্যটন স্থান। বিশ্বের দীর্ঘতম সমুদ্র সৈকতটি কক্সবাজার শহর থেকে টেকনাফ এবং দেশের সর্বদক্ষিণের শেষ বিন্দু পর্যন্ত বিস্তৃত। মনোমুগ্ধকর ল্যান্ডস্কেপিং, পাহাড়, নদী, বন, সব মিলিয়ে এটি দেশী ও বিদেশী পর্যটকদের জন্য একটি অন্যতম পর্যটন স্থান। কৌশলগত ভৌগোলিক অবস্থানের কারণে আন্তর্জাতিক ও দেশীয় পরিমণ্ডলে কক্সবাজার গুরুত্বপূর্ণ। বাংলাদেশ সরকার ভিশন ২০২১ এবং ভিশন ২০৪১ অর্জনের লক্ষ্যে ম্যারিনড্রাইভ, চট্টগ্রাম থেকে কক্সবাজার রেল সংযোগ, মহেশখালী এলএনজি টার্মিনাল, বিদ্যুৎ কেন্দ্র ইত্যাদি বৃহৎ প্রকল্প গ্রহণ ও বাস্তবায়ন করছে। এই সব প্রকল্প বাস্তবায়ন হলে অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ড দ্রুত বিকশিত হবে।
প্রকল্পের আওতায় কার্যক্রমগুলো হলোÑ সার্ভে ও ডাটা কালেকশন, কনসালটেশন, সেমিনার ও কনফারেন্স, দেশীয় ও বৈদেশিক প্রশিক্ষণ, মৌজার সিট ও স্যাটেলাইট ইমেজ ক্রয়, জিআইএস ও প্ল্যানিং ল্যাব স্থাপন, সার্ভে ইক্যুইপমেন্ট ক্রয়, কম্পিউটার ক্যামেরা ও এক্সেসরিজ ক্রয়, মেশিনারিজ, অফিস ইক্যুইপমেন্ট ও আসবাবপত্র ক্রয়, ১টি জিপ, ২টি ডাবল কেবিন পিকআপ, একটি মাইক্রোবাস, ৫টি মোটরসাইকেল ও ২টি স্পিডবোট ক্রয়সহ আনুষঙ্গিক কাজ।
প্রকল্পের ব্যয় বিভাজন থেকে দেখা যায়, সমীক্ষা প্রকল্পে ৪ কোটি ৯৫ লাখ টাকা ব্যয়ে একটি জিপ, ২টি ডাবল কেবিন পিকআপ, ১টি মাইক্রোবাস, ২টি স্পিডবোট, ৫টি মোটরসাইকেল ক্রয়ের প্রস্তাব করা হয়েছে। এখানে মোট ১১টি যানবাহন কেনার প্রস্তাব। আর মোটর ভেহিক্যাল মেরামত খাতে ১ কোটি ৯৮ লাখ টাকা ব্যয়ের প্রস্তাব করা হয়েছে। ৩ কোটি ৫৪ লাখ টাকা ধরা হয়েছে কনসালটেশন, সেমিনার ও কনফারেন্স খাতে। আবার সার্ভে ও ডাটা কালেকশনের কনসালটেন্ট খাতে ব্যয় ১৭০ কোটি ২০ লাখ ৭ হাজার টাকা। প্রিন্টিং ও বাইন্ডিং খাতে ৮৮ লাখ টাকা বরাদ্দের প্রস্তাবের পর আবার পাবলিকেশন খাতে ১ কোটি ৬৯ লাখ ২০ হাজার টাকা প্রস্তাব করা হয়েছে। সার্ভে ও ডাটা কালেকশনের আওতায় মৌজা ম্যাপ সংগ্রহ এবং প্রসেসিং বাবদ ২ কোটি ৫৫ লাখ ৭৯ হাজার টাকার সংস্থাপন থাকলেও আবার মৌজার সিট কেনার জন্য আলাদাভাবে ৫ লাখ ৪০ হাজার টাকা রাখা হয়েছে।
প্রকল্প দলিলে ৮৭ জনের বেশি সংখ্যক সদস্য নিয়ে টেকনিক্যাল বা কারিগরি ব্যবস্থাপনা কমিটি গঠন উল্লেখ করা হয়েছে। এ ক্ষেত্রে ফলপ্রসূ আলোচনার জন্য অনধিক ১০ সদস্য বিশিষ্ট টেকনিক্যাল ম্যানেজমেন্ট কমিটি গঠন করার জন্য পরামর্শ দিয়েছে পরিকল্পনা কমিশনের ভৌত অবকাঠামো বিভাগ। কমিশনের এই বিভাগটি বলছে, কোভিড-১৯ পরিস্থিতিতে প্রকল্পের কর্মকর্তাদের বৈদেশিক প্রশিক্ষণ বাবদ ১ কোটি ৯৮ লাখ টাকা এবং বৈদেশিক ট্রাভেল ও ট্রান্সফার বাবদ ৫৮ লাখ টাকা প্রকল্প দলিল থেকে বাদ দেয়া আবশ্যক। তিন বছর মেয়াদি প্রকল্পে মেরামত ও রক্ষণাবেক্ষণ খাতে ৩ কোটি ৩৯ লাখ ৮৮ হাজার টাকা অত্যধিক। বিভিন্ন কমিটির সম্মানী বাবদ ব্যয় ৯২ লাখ ৬৪ হাজার টাকা অধিক। এই সব খাতের ব্যয় যৌক্তিক পর্যায়ে কমিয়ে আনা আবশ্যক। কক্সবাজার উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের নিজস্ব অফিস থাকা সত্ত্বেও কক্সবাজারে প্রকল্প বাস্তবায়ন ইউনিট অফিস ভাড়া বাবদ ৯৯ লাখ টাকা বরাদ্দ প্রস্তাব করা হয়েছে, যা যৌক্তিকভাবে বাদ দেয়া বাঞ্ছনীয়।
এ ব্যাপারে কক্সবাজার উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের সংশ্লিষ্টদের সাথে কথা হলে তারা জানান, ৮৭ জনের যে কারিগরি ব্যবস্থাপনা কমিটি করা হয়েছে এখানে সব স্টেকহোল্ডারদের রাখা হয়েছে। এখানে ইউনিয়ন চেয়ারম্যান থেকে শুরু করে বিভিন্ন জনপ্রতিনিধি, চলমান বিভিন্ন প্রকল্পের পরিচালক, বিভিন্ন সংস্থার প্রতিনিধিরা এই কমিটিতে আছেন। যাতে করে মহাপরিকল্পনাটি অনেক বেশি বাস্তবসম্মত হয়। এই পর্যটন এলাকাটিকে আমরা আরো দৃষ্টিনন্দন ও বিশ্বকে আকর্ষিত করতে পারি। যানবাহনের ব্যাপারে তাদের মন্তব্য হলোÑ সমুদ্রবেষ্টিত এই এলাকায় যোগাযোগটা বন্ধুর। তাই প্রকল্প বাস্তবায়নে যানবাহনের প্রয়োজন কিছুটা বেশি। তবে পিইসিতে আমাদের প্রস্তাবনা কমে যাওয়ারও সম্ভাবনা রয়েছে।

 


আরো সংবাদ

ঘরে ফিরল ক্রিকেট, জিম্বাবুয়েকে ২৬ রানে হারালো পাকিস্তান ‘ফ্রান্সকে বয়কট করা ঈমানি দায়িত্ব’ মহানবী (সা:)-কে অবমাননার প্রতিবাদে বগুড়ায় তৌহিদি জনতার ঢল ফ্রান্স-ভারতসহ ইসলামের দুশমনদের পণ্য বর্জন করুন : মাওলানা আতাউল্লাহ হাফেজ্জী ঘরের মাঠে প্রথম ম্যাচেই জয় পেল পাকিস্তান আবদুল জলিলের ইন্তেকালে জামায়াতের শোক ফ্রান্সে ইসলামের অবমাননার প্রতিবাদে ঢাকায় ব্যাপক বিক্ষোভ ৫০ ফুট লম্বা অজগর নিয়ে তোলপাড়, জানুন আসল রহস্য(ভিডিও) বঙ্গোপসাগরে ভারতের মিসাইলের আঘাতে মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত জাহাজ তুরস্কে শক্তিশালী ভূমিকম্পে নিহত ৪ চট্টগ্রামে ১৯,৭০০ ইয়াবাসহ মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার

সকল

নারীদের হিজাব, পুরুষের টাকনুর ওপর পোশাক পরে অফিসে আসার নির্দেশ (৪০৩৯৪)অফিসে ধর্মীয় পোশাক, নোটিশ প্রত্যাহার করে দুঃখ প্রকাশ (১৮১৬০)ফরাসিদের শাস্তি দেয়ার অধিকার মুসলমানদের রয়েছে : মাহাথির (১১০৪১)সরব হচ্ছেন হাজী সেলিমের ভিকটিমরা (৯৯১১)আর্মেনিয়ার দুটি যুদ্ধবিমান ধ্বংস করলো আজারবাইজান (৯২২৮)র‌্যাবের শীর্ষ কমান্ডারদের উপর নিষেধাজ্ঞা জারির জন্য যুক্তরাষ্ট্রের সিনেটরদের আহ্বান (৭৮৩০)ঢাকায় আসছেন এরদোয়ান (৭৭৫৯)রংপুরের জুয়েলকে যে অভিযোগে হত্যা করা হয়েছে তা মানতে রাজি নয় স্বজনরা (৭৬৬৮)জি কে শামীমকে জামিনে সহায়তার অভিযোগে ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেলকে দুদকে তলব (৬৭৫৫)অফিসে ধর্মীয় পোশাক, যে যুক্তি দিলেন জনস্বাস্থ্যের পরিচালক (৫৪৫৯)