২১ অক্টোবর ২০২০

ওমান সরকার এখনই নতুন ভিসা ইস্যু করবে না

-

করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের কারণে বাংলাদেশসহ বিভিন্ন দেশে আটকে পড়া প্রবাসীদের আগে তার দেশে ফেরা নিশ্চিত করতে চাচ্ছে ওমান সরকার। তার আগে পর্যটন ও কাজের ভিসা দেয়ার পরিকল্পনা করছে না দেশটি। গতকাল ওমানের পরিবহন, যোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তিমন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার সাইদ বিন হামদু আল মাওয়ালি এমন মন্তব্য করে বলেন, ‘আমরা এখন পর্যন্ত কোনো নতুন পর্যটক বা কাজের ভিসা জারি করিনি’।
তিনি বলেন, ‘সুপ্রিম কমিটির বৈঠকে ভিসার ইস্যু নিয়ে আলোচনা হয়েছিল। বৈধ আবাসিক ভিসা পাওয়া নাগিরক এবং বৈধ আকামাধারী প্রবাসীদের জন্য প্রাথমিকভাবে ওমান প্রবেশের দরজা উন্মুক্ত করা হয়েছে। তার পর এই অভিজ্ঞতা মূল্যায়ন করা যেতে পারে যে, সবার জন্য পথ খোলা সম্ভব কি না? অন্যান্য ভিসায় ওমানে আসবে কি না।’
ঢাকার একটি অনলাইন পোর্টালে প্রকাশিত প্রতিবেদনে ওমানের মন্ত্রীর উদ্ধৃতি দিয়ে আরো বলা হয়েছে, ‘১ অক্টোবর থেকে ওমানে আগত ওই সব প্রবাসীকে অবশ্যই কমপক্ষে ৩০ দিনের জন্য একটি বৈধ আন্তর্জাতিক স্বাস্থ্যবীমা কভারেজ গ্রহণ করতে হবে। যদি কোনো লক্ষণ দেখা দেয় তবে এই বীমা ওমানে তাদের কোভিড-১৯ চিকিৎসার ব্যয়ভার বহন করবে।’ পরীক্ষা করা বাধ্যতামূলক এবং এ জন্য বিমানবন্দরে ২৫ ওমানি রিয়াল চার্জ দিতে হবে। বিমানবন্দরে পৌঁছানোর সাথে সাথে এই পরীক্ষা করা হবে। শুধু বিমানের ক্রু এবং ১৫ বছর বা তার কম বয়সের শিশুদের জন্য পিসিআর পরীক্ষা থেকে ছাড় দেয়া হয়েছে।
প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ওমানে আসা সবাইকে এক থেকে সাত দিনের মধ্যে তারাসুদপ্লাস অ্যাপ্লিকেশনটি ডাউনলোড করে নিবন্ধন করতে হবে. যারা আট দিন বা তার বেশি দিনের জন্য ওমানে অবস্থান করবেন তাদের ‘তারাসুদপ্লাস ব্রেসলেট’ অবশ্যই পরতে হবে এবং ১৪ দিনের জন্য কোয়ারেন্টিনে থাকতে হবে’। এর আগে ঘোষণা দেয়া হয়, কেবল ওমানি নাগরিক এবং বৈধ আকামাধারী প্রবাসীরা পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের পূর্ব অনুমোদন ছাড়াই ওমানে প্রবেশ করতে পারবেন।


আরো সংবাদ