২৭ সেপ্টেম্বর ২০২০
করোনা পরিস্থিতি মোকাবেলায় বাধা ভ্যাকসিন জাতীয়তাবাদ

করোনা নির্মূল করতে পারবে না বিশ্ব

-

আক্রান্ত : ১,৯৩,৩৪,৩৮৬ মৃত্যু : ৭,১৮,৯৪৭
দেশ আক্রান্ত মৃত্যু
যুক্তরাষ্ট্র ৫০,৩৮,২৬৯ ১,৬২,৮৭৫
ব্রাজিল ২৯,১৭,৫৬২ ৯৮,৬৪৪
ভারত ২০,৫৭,৮১৬ ৪২,০২৬
রাশিয়া ৮,৭৭,১৩৫ ১৪,৭২৫
দ. আফ্রিকা ৫,৩৮,১৮৪ ৯,৬০৪
মেক্সিকো ৪,৬২,৬৯০ ৫০,৫১৭
পেরু ৪,৫৫,৪০৯ ২০,৪২৪
চিলি ৩,৬৬,৬৭১ ৯,৮৮৯
কলম্বিয়া ৩,৫৭,৭১০ ১১,৯৩৯
স্পেন ৩,৫৪,৫৩০ ২৮,৫০০
বিশ্ব হয়তো কখনোই করোনাভাইরাসকে নির্মূল করতে পারবে না বলে জানিয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের ন্যাশনাল ইনিস্টিটিউট অব অ্যালার্জি অ্যান্ড ইনফেকশাস ডিজিজের পরিচালক ড. অ্যান্থনি ফাউসি। তবে জনস্বাস্থ্যবিধি ও কার্যকর টিকা হয়তো সংক্রমণ পরিস্থিতিকে নিয়ন্ত্রণে আনতে পারে বলে মনে করেন যুক্তরাষ্ট্রের এই শীর্ষ সংক্রামক ব্যাধি বিশেষজ্ঞ।
মহামারী করোনাভাইরাস পরিস্থিতি বিভিন্ন দেশে ভয়ঙ্কর রূপ নিয়েছে। করোনা সংক্রমণ থেকে বাঁচতে লকডাউন দীর্ঘমেয়াদি হলেও পরিস্থিতি এখনো নিয়ন্ত্রণে আসেনি। ফাউসি বলেছেন, আমি মনে করি না বিশ্ব থেকে একে (করোনাভাইরাস) নির্মূল করতে পারব। কারণ এটি উচ্চমাত্রার সংক্রামক, যা আগে দেখা যায়নি। আমাদের হয়তো আরো একটি মৌসুম একে সঙ্গে নিয়ে যেতে হবে এবং আগামী মৌসুমের মধ্যে আমরা টিকা পেলে মহামারী হয়তো থাকবে না। এটি বিশ্বকে নিশ্চল করবে না, এটি অর্থনীতিকে ধ্বংস করবে না। জনস্বাস্থ্যবিধি ও কার্যকর টিকা হয়তো সংক্রমণ পরিস্থিতিকে নিয়ন্ত্রণে আনতে পারে বলে মন্তব্য করেছেন ফাউসি। তিনি বলেন, ভালো টিকা ও মাস্ক, হাত ধোয়া ও সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার মাধ্যমে যুক্তরাষ্ট্র ভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে শীর্ষে থাকতে পারবে। খবর বাসস, গ্যাভি ওয়েবসাইট, ইকোনমিক টাইমস, ইউএন নিউজ, রয়টার্স, আলজাজিরা, সিবিএস নিউজ, ওয়ার্ল্ডোমিটারস, এনডিটিভি, আরটি রাশিয়া, বিবিসি ও এএফপির।
ভারতে ২১ দিনে শনাক্ত ১০ লাখ : ভারতে গত ২৪ ঘণ্টায় সর্বোচ্চ ৬২ হাজার ৫৩৮ জন কোভিড-১৯ রোগী শনাক্ত হয়েছে। এর মধ্য দিয়ে এক দিনে আক্রান্ত বৃদ্ধিতে ফের এক নম্বরে চলে গেল দেশটি। মোট করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ২০ লাখ ২৭ হাজার ৭৪ জন। কয়েক দিন কম থাকার পর আজ ফের সংক্রমণ হার ১০ শতাংশ পার করেছে। জুলাইয়ের মাঝামাঝি থেকে গত ২১ দিনে দেশটিতে ১০ লাখের বেশি করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছে। প্রাদুর্ভাব শুরুর পর পাঁচ মাস ১৮ দিনের মাথায় মোট করোনা সংক্রমিত মানুষের সংখ্যা ১০ লাখ ছাড়িয়েছিল। ১০ থেকে ১৫ লাখে পৌঁছাতে সময় লাগে ১২ দিন। এরপর ১৫ লাখ থেকে ২০ লাখ ছাড়াল মাত্র ৯ দিনে। আক্রান্ত ২০ লাখ ২৭ হাজার ৭৪ জনের মধ্যে ৪১ হাজার ৫৮৫ জন ইতোমধ্যে মারা গেছেন। এ ছাড়া ভাইরাসটিতে সংক্রমিত হওয়ার পর সুস্থ হয়েছেন ১৩ লাখ ৭৮ হাজার ১০৫ জন। অর্থাৎ দেশে মোট আক্রান্তের প্রায় ৬৮ শতাংশই সুস্থ। গত ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়েছেন ৪৯ হাজার ৭৬৯ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় ভারতে ৮৮৬ জনের মৃত্যু হয়েছে। ভারতে দৈনিক গড় আক্রান্তের সংখ্যা ৫০ হাজার।
ভ্যাকসিন নিয়ে জাতীয়তাবাদী আচরণ বাধা : ভ্যাকসিন নিয়ে জাতীয়তাবাদী আচরণ করা হলে তা করোনা মহামারী মোকাবেলার পথে বাধা তৈরি করবে বলে সতর্ক করেছেন বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রধান টেড্রোস আডানোম গেব্রিয়াসিস। কোনো ভ্যাকসিন আবিষ্কার হলে তা নিজেদের মধ্যে কুক্ষিগত করে না রেখে গোটা বিশ্বে ছড়িয়ে দেয়ার জন্য ধনী দেশগুলোর প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন তিনি। জেনেভায় ডব্লিউএইচও সদর দফতর থেকে ভিডিও লিংকের মাধ্যমে যুক্তরাষ্ট্রে অনুষ্ঠিত আসপেন সিকিউরিটি ফোরামে যোগ দিয়ে গেব্রিয়াসিস বলেন, ‘ভ্যাকসিন জাতীয়করণ ভালো নয়, এর ফল ভালো হয় না। এটি আমাদের কোনো উপকারে আসবে না। বিশ্ব যদি দ্রুত এ ভাইরাস থেকে মুক্ত হতে চায়, তবে একত্রিতভাবে কাজ করতে হবে। সবার জন্য টিকা নিশ্চিত করতে হবে। কারণ এটি বিশ্বায়নের দুনিয়া। এখানকার অর্থনীতি একে অপরের ওপর নির্ভরশীল। বিশ্বের একাংশ কিংবা গুটিকয়েক দেশ একা একা নিজেদেরকে ভাইরাস থেকে মুক্ত কিংবা সুরক্ষার স্বর্গ করে রাখতে পারবে না। কয়েকটি দেশ নিরপাদ হলে সেটি সম্ভব নয়। মারাত্মক এ রোগটির অস্তিত্ব যদি কোথাও থেকে যায়, তবে সব জায়গার মানুষের জীবনযাপনই ঝুঁকিতে পড়বে।’
তাড়াহুড়োর টিকা পড়ছে আস্থার সঙ্কটে : কোভিড-১৯ রোগ ঠেকাতে যখন টিকা তৈরির দৌড়ে মরিয়া হয়ে ছুটছে বিভিন্ন দেশ, তখন এই তাড়াহুড়োর প্রতিষেধক নিয়ে আস্থার সঙ্কটও দেখা দিচ্ছে। তড়িঘড়ি করে তৈরি করা এই টিকা আসলে স্বাস্থ্যের জন্য নিরাপদ হবে কি না, তা নিয়ে ভাবিত উন্নত দেশগুলোর মানুষ। বিশ্বজুড়ে এখন অন্তত ২০০টি করোনাভাইরাসের টিকা তৈরির পর্যায়ে রয়েছে। ২০টির বেশি টিকার মানব দেহে পরীক্ষামূলক প্রয়োগও শুরু হয়েছে। যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প এই বছরের মধ্যেই কোভিড-১৯ টিকা হাতে পেতে চাইছেন। টিকার জন্য এমন তড়িঘড়ি করা ‘রাজনীতিকদের জন্য ভালো’ এমন তির্যক মন্তব্য করেছেন ভ্যাকসিন কনফিডেন্স প্রজেক্টের শীর্ষ কর্মকর্তা হাইডি লারসন। ‘সাধারণ মানুষের কথা যদি বলেন, তারা মনে করেন, এত তাড়াহুড়ো ভালো না,’ বলেন তিনি।
নভেম্বরের মধ্যে করোনায় ৩ লাখ মৃত্যু যুক্তরাষ্ট্রে : করোনায় বিপর্যস্ত যুক্তরাষ্ট্রের ইউনিভার্সিটি অব ওয়াশিংটনের স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা বলছেন, নভেম্বর শেষ হওয়ার পর অর্থাৎ ১ ডিসেম্বর পর্যন্ত যুক্তরাষ্ট্রে করোনায় মৃতের সংখ্যা তিন লাখে গিয়ে ঠেকবে। তবে মানুষ মাস্কের ব্যাপারে খুঁতখুঁতে হলে এই সময়ে ৭০ হাজার জীবন বাঁচানো সম্ভব। ওয়াশিংটন বিশ্ববিদ্যালয়ের ইনস্টিটিউট অবন হেলথ ম্যাট্রিক্স অ্যান্ড ইভালুয়েশনের পরিচালক ডা: ক্রিস্টোফার মুরে বলেন, ‘আমরা যুক্তরাষ্ট্রে একটা নাটকীয় পরিবর্তন লক্ষ করছি। দেখা যাচ্ছে সংক্রমণ বাড়লে মানুষ মাস্ক পরে আর সামাজিক দূরত্ব মানে; কিন্তু সংক্রমণ কমলে আবার এসব করতে দেখা যাচ্ছে না তাদের। সংক্রমণ কমলেও মানুষ যদি এসব সুরক্ষা সংক্রান্ত বিধি মেনে না চলে তাহলে তাহলে পরিস্থিতি আরো খারাপ হতে পারে। আর যদি মানুষ মাস্ক পরাসহ সামাজিক দূরত্ব রক্ষার মতো স্বাস্থ্যবিধিগুলো মেনে চলে তাহলে অনেক প্রাণ বাঁচানো সম্ভব।’
করোনায় অতীতের সব রেকর্ড ভাঙল যুক্তরাষ্ট্র : যুক্তরাষ্ট্রে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ৫০ লাখ ৩২ হাজার ১৭৯ জন। আজ পর্যন্ত পৃথিবীতে কোনো মহামারীতে একক দেশ হিসেবে এতসংখ্যক মানুষের আক্রান্তের ঘটনা এটিই প্রথম। মৃত্যু হয়েছে এক লাখ ৬২ হাজার ৮০৪ জনের। সুস্থ হয়েছেন ২৫ লাখ ৭৭ হাজার ৩৪৯৮ জন। এখন পর্যন্ত চিকিৎসাধীন আছেন ২২ লাখ ৯২ হাজার ৩৯৩ জন। গুরুতর অসুস্থ ১৮ হাজার ২৯৬ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে দুই হাজার ৬০ জনের মৃত্যু হয়েছে এবং নতুন করে ৫৮ হাজারের বেশি মানুষ আক্রান্ত হয়েছে। গত ২৪ ঘণ্টার হিসাবে দৈনিক মৃত্যুর হারের এই সংখ্যাটি তিন মাসের মধ্যে সব থেকে বেশি। এ দিকে দ্য অ্যারিজোনা ডিপার্টমেন্ট অব কারেকশানস এক বিবৃতিতে বলেছে, এএসপিসি-টাকসন হোয়েটসন কারাগারে ৫১৭ জন বন্দী করোনায় আক্রান্ত হয়েছে।
করোনা নিয়ন্ত্রণে চীনের কৌশল : চীনে কোভিড-১৯ ভাইরাসের মহামারী নিয়ন্ত্রণে রাখা সম্ভব হয়েছে ঠিক সময়ে ঠিক কাজটি করার কারণে। প্রথম ঠিক কাজটি যেটি করা হয়েছে ও হচ্ছে, সেটি হচ্ছে : চীন সরকার সংশ্লিষ্ট চিকিৎসক ও বিশেষজ্ঞদের পরামর্শ শুনেছে ও এখনো শুনছে। চীনের সরকারের কাছে শুরু থেকেই সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব পাচ্ছিল মানুষের জীবন। চীনের জনগণ আইন মেনে চলে। সরকার বলেছে মাস্ক পরতে হবে, তারা পরেছেন; সরকার বলেছে, কমিউনিটিতে কেউ অন্যের ঘরে যাবে না, তারা যাননি; সরকার বলেছে, প্রতিনিয়ত শরীরের তাপমাত্রা গ্রহণ করতে হবে ও তামপাত্রা বেশি হলে কর্তৃপক্ষের কাছে রিপোর্ট করতে হবে, তারা করেছেন। চীনের মহামারী নিয়ন্ত্রণে বিগ ডেটা ও কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তাও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছে। বিভিন্ন মাত্রার রোগীদের ভিন্ন ভিন্ন স্থানে রাখা ও ভিন্ন ভিন্নভাবে চিকিৎসা করাও ফল দিয়েছে। চীনে মহামারী মোকাবেলায় সম্মিলিত ও সমন্বিত পদক্ষেপ গ্রহণ করেছিল সরকার। অক্সফোর্ড ইউনিভার্সিটির বিজ্ঞানীদের তৈরি করোনাভাইরাসের সম্ভাব্য টিকা উৎপাদন করবে চীন।
৯২ দেশ পাবে গ্যাভির করোনা ভ্যাকসিন : করোনাভাইরাস প্রতিরোধে বিশ্বের নিম্ন ও মধ্য আয়ের ৯২টি দেশে করোনা ভ্যাকসিন পাঠানো হবে বলে জানিয়েছে আন্তর্জাতিক ভ্যাকসিন জোট দ্য গ্লোবাল অ্যালায়েন্স ফর ভ্যাকসিনস অ্যান্ড ইমিউনাইজেশনস (গ্যাভি)। কোভ্যাক্স অ্যাডভান্স মার্কেট কমিটমেন্ট (এএমসি) প্রকল্পের আওতায় এই ভ্যাকসিন পাঠানো হবে বলে জানিয়েছে গ্যাভি। গ্যাভি বোর্ডের চেয়ারম্যান ড. নগোজি ওকোঞ্জো-আইওয়েলা বলেন, ‘দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর আমরা সবচেয়ে মারাত্মক অর্থনৈতিক পরিস্থিতির মধ্য দিয়ে যাচ্ছি। দরিদ্র ও উন্নয়নশীল অর্থনীতির দেশগুলোর ওপর এই সঙ্কটের একটা ভয়ঙ্কর প্রভাব পড়বে। সীমিত পুঁজির কারণে ভবিষ্যৎ কোভিড-১৯ ভ্যাকসিন পেতে এই দেশগুলোকে ভুগতে হতে পারে। তাই তাদের পাশে দাঁড়ানো আমাদের দায়িত্ব।’
এক দিনে শনাক্ত দুই লাখ ৮০ হাজার : গত ২৪ ঘণ্টায় দুই লাখ ৮০ হাজার মানুষের দেহে করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। এ ছাড়া মারা গেছেন ছয় হাজার ৪৫৭ জন। বিশ্বজুড়ে করোনায় এ পর্যন্ত মোট মৃতের সংখ্যা সাত লাখ ১৭ হাজার ৬৫৭ জন। আক্রান্ত হয়েছেন এক কোটি ৯২ লাখ ৫৫ হাজার ৯৯৫ জন। এরই মধ্যে সুস্থ হয়ে উঠেছেন এক কোটি ২৩ লাখ ৫৭ হাজার মানুষ। গত ২৪ ঘণ্টায় সবচেয়ে বেশি অর্থাৎ এক হাজার ২২৬ জনের মৃত্যু দেখেছে ব্রাজিল। দেশটিতে মোট প্রাণহানি ৯৮ হাজার ছাড়িয়েছে। নতুন ৫৪ হাজার সংক্রমণে মোট আক্রান্ত সাড়ে ২৯ লাখ ১৭ হাজার ছাড়িয়েছে।
আফ্রিকায় শনাক্তের সংখ্যা ১০ লাখ ছাড়াল : আফ্রিকা মহাদেশে করোনাভাইরাস শনাক্ত রোগীর সংখ্যা ১০ লাখ ছাড়িয়ে গেছে। পুরো আফ্রিকা মহাদেশের অধিকাংশ আক্রান্ত মানুষই সাউথ আফ্রিকা ও মিসরের। দক্ষিণ আফ্রিকায় মোট করোনা শনাক্ত হয়েছে পাঁচ লাখ ৩৮ হাজার ১৮৪ জনের এবং মোট মারা গেছেন ৯ হাজার ৬০৫ জন। মিসরে মোট করোনা আক্রান্ত হয়েছে ৯৫ হাজার এবং মারা গেছে চার হাজার ৯৫১ জন। করোনা আক্রান্ত দেশ হিসেবে দক্ষিণ আফ্রিকার অবস্থান এখন পঞ্চম স্থানে ও মিসর রয়েছে ২৭ নাম্বারে। পুরো আফ্রিকা মহাদেশে করোনায় মোট মৃত্যু হয়েছে ২১ হাজার।
৩ থেকে ৭ দিনের মধ্যেই রাশিয়ার ভ্যাকসিন : চীন-আমেরিকাকে পেছনে ফেলে সবার আগে করোনা ভ্যাকসিন আবিষ্কারের ঘোষণা আগেই দিয়েছিল রাশিয়া। তবে তাদের সেই দাবির সত্যতা নিয়ে অনেকেই সন্দেহ পোষণ করেছিলেন। তবে এবার ভ্যাকসিন চূড়ান্তভাবে বাজারে আনতে চলেছে ভøাদিমির পুতিনের দেশ। চলতি মাস থেকেই উৎপাদন শুরু হয়ে যাবে বলে দাবি। রাশিয়ার উপস্বাস্থ্যমন্ত্রী ওলেগ গ্রিডনেভ জানিয়েছেন, ‘মস্কোর গ্যামেলিয়া সেন্টার ১২ আগস্ট বিশ্বের প্রথম করোনাভাইরাস ভ্যাকসিন নিবন্ধন করবে। তিনি আরো বলেছেন, টিকা দেয়ার ক্ষেত্রে চিকিৎসাকর্মী ও প্রবীণদের অগ্রাধিকার দেয়া হবে।’


আরো সংবাদ

নতুন বিধ্বংসী ক্ষেপণাস্ত্র সামনে আনলো ইরান (১৬৩৪৯)ক্রিকেট ছেড়ে সাকিব এখন পাইকারি আড়তদার! (১৫২৩৯)নর্দমা পরিষ্কার করতে গিয়ে ধরা পড়ল দৈত্যাকার ইঁদুর! (ভিডিও) (১৩০৫৫)যে কারণে এই মুহূর্তেই এ সরকারের পতন চান না নুর (১২৫৪১)এমসি কলেজে গণধর্ষণ : আ’লীগ নেতারা ধামাচাপা দেয়ার চেষ্টা করেছিলেন! (১০৩৮৩)ছাত্রাবাসে গণধর্ষণ : সেই রাতের ঘটনা আদালতকে জানালেন ভুক্তভোগী গৃহবধূ (৯৭২৬)সিলেটের এমসি কলেজ ছাত্রাবাসে স্বামীকে বেঁধে স্ত্রীকে গণধর্ষণ ছাত্রলীগ কর্মীদের (৭৯০২)করোনার দ্বিতীয় ঢেউ : বাড়বে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ছুটি (৭৭৩৭)এমসি কলেজে ‘গণধর্ষণ’ : ছাত্রদের ছাত্রাবাস ছাড়ার নির্দেশ (৭১৭১)সিলেটের এমসি কলেজ ছাত্রাবাসে স্বামীকে বেঁধে স্ত্রীকে গণধর্ষণ ছাত্রলীগ কর্মীদের (৬৬৪১)