১৪ আগস্ট ২০২০

কয়েক দশক পেছাবে বিশ^

ভারতে এক দিনে শনাক্ত ২৯৪২৮ জন; যুক্তরাষ্ট্রে আক্রান্ত ৩৫ লাখ ছাড়াল; ব্রিটেনে ধূমপান ছেড়েছেন ১০ লাখ মানুষ; হজে নিষেধাজ্ঞা না মানলেই জরিমানা
-
24tkt

মানুষের অতীত-বর্তমান ব্যর্থতার কারণেই করোনাভাইরাস ধ্বংসযজ্ঞ চালিয়ে যেতে সক্ষম হচ্ছে। মহামারীটি টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্য (এসডিজি) থেকে বিশ্বকে অনেক দূরে সরিয়ে নিচ্ছে। যখন আমাদের মরিয়াভাবে এগিয়ে যাওয়া দরকার, কোভিড-১৯ তখন বৈশ্বিক উন্নয়নকে কয়েক বছর, এমনকি কয়েক দশক পিছিয়ে নিতে পারে। দেশগুলোকে ব্যাপক আর্থিক ও প্রবৃদ্ধি চ্যালেঞ্জের মধ্যে ফেলছে এটি।
টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা অর্জনের অগ্রগতি শীর্ষক এক উচ্চপর্যায়ের রাজনৈতিক ফোরামের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে মঙ্গলবার এই আশঙ্কার কথা জানান জাতিসঙ্ঘ মহাসচিব অ্যান্তোনিও গুতেরেস। এসডিজি হচ্ছে ২০৩০ সালের মধ্যে ক্ষুধা নিরসন, লিঙ্গসমতা, শিক্ষায় সমতা, চাকরির নিশ্চয়তা, অর্থনৈতিক উন্নয়নহসহ মোট ১৭টি লক্ষ্য অর্জনের বৈশ্বিক পরিকল্পনা।
গুতেরেস বলেন, আমি আজ এখানে বলতে আসিনি যে সবকিছু ঠিক হয়ে যাবে। কোভিড সঙ্কটের ধ্বংসাত্মক প্রভাব কাটাতে আমাদের নিজেদের সাথে সৎ থাকতে হবে। করোনা সঙ্কট আঘাত হানার আগে থেকেই বিশ্ব ২০৩০ সালের মধ্যে এসডিজি অর্জনে সঠিক পথে ছিল না। করোনাভাইরাস এমন সময়ে আঘাত হেনেছে যখন বিশ্ব এরই মধ্যে অগ্রহণযোগ্যভাবে দারিদ্র্য বৃদ্ধি, দ্রুত জলবায়ু পরিবর্তন ও অর্থায়নে বিশাল ব্যবধানের মতো চ্যালেঞ্জের মুখে।
করোনাভাইরাসের তাণ্ডবে লণ্ডভণ্ড পুরো বিশ্ব। প্রতিদিনই বাড়ছে আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা। করোনায় ১ কোটি ৩০ লাখ মানুষ আক্রান্ত হয়েছেন, যার মধ্যে সাড়ে পাঁচ লাখের বেশি মারা গেছেন। বছরের মাঝামাঝি এসে ৪০ কোটি মানুষ চাকরি হারিয়েছেন, ১০ কোটি মানুষ চরম দরিদ্রতার মুখে। এই সঙ্কট কাটিয়ে ওঠা চ্যালেঞ্জের। পৃথিবী আর কখনও আগের সেই কথিত স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরবে না। এসডিজি অর্জনে বিশ্বনেতাদের কঠোর ও প্রয়োগযোগ্য সমাধান খোঁজার আহ্বান জানান গুতেরেস।
খবর সিটিভি নিউজ, ব্লুমবার্গ, সিএনএন, রয়টার্স, আরব নিউজ, তাস, আল জাজিরা, সিনহুয়া, দ্য গার্ডিয়ান, ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস, বিবিসি, ওয়ার্ল্ডোমিটারস, বিজনেস স্ট্যান্ডার্ড, ডয়েচে ভেলে ও এএফপির।
ভারতে এক দিনে শনাক্ত ২৯,৪২৮ জন : ভারতে গত ২৪ ঘণ্টায় রেকর্ডসংখ্যক করোনা সংক্রমণের ঘটনা ঘটেছে। সর্বোচ্চ ২৯ হাজার ৪২৮ জন করোনায় আক্রান্ত নিয়ে দেশটিতে এই যাবৎকাল পর্যন্ত মোট আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৯ লাখ ৩৭ হাজার ৮৪৪ জনে। মঙ্গলবার ৫৫০ জন নিয়ে মোট মৃতের সংখ্যা ২৪ হাজার ৩২৭। সংক্রমণ বৃদ্ধির ভয়াবহ হারে নতুন করে লকডাউন শুরু হচ্ছে বেশ কয়েকটি জায়গায়। পশ্চিমবঙ্গে লকডাউনের মেয়াদ বেড়েছে। নতুন করে লকডাউন শুরু হয়েছে বিহারে। বেঙ্গালুরুও হাঁটছে লকডাউনের পথে। আক্রান্তের সংখ্যা ২৫ হাজার ছাড়ানোয় চাপ বাড়ছে রাজস্থানে। গত চব্বিশ ঘণ্টায় শুধু মহারাষ্ট্রেই সংক্রমিত হয়েছেন ৬,৭৪১ জন। ত্রিপুরা রাজ্যের এলাকাগুলোতে করোনাভাইরাসের প্রকোপ বেড়ে যাওয়ায় ওই সব এলাকায় সাত দিনের সম্পূর্ণ লকডাউন ঘোষণা করেছে রাজ্যটির সরকার।
যুক্তরাষ্ট্রে আক্রান্ত ৩৫ লাখ ছাড়াল : মহামারী করোনাভাইরাস কিছুতেই নিয়ন্ত্রণে আসছে না যুক্তরাষ্ট্রে। গত এক সপ্তাহ ধরে প্রতিদিন ৬০ হাজারেরও বেশি মানুষ আক্রান্ত হচ্ছেন। আর মৃত্যুর মিছিলও দীর্ঘ হচ্ছে। এরই মধ্যে মারা গেছেন ১ লাখ ৪০ হাজারের কাছাকাছি মানুষ।— শনাক্ত হয়েছেন ৩৫ লাখ ৪৫ হাজার ২৫৪ জন। আর মারা গেছেন ১ লাখ ৩৯ হাজার ১৪৫ জন। সুস্থ হয়ে উঠেছেন ১৬ লাখ ৩২১ জন।
দেশটির ৫০টি অঙ্গরাজ্যেই করোনার প্রকোপ ছড়িয়ে পড়েছে। তবে করোনায় এখন পর্যন্ত আক্রান্ত ও মৃত্যু সবচেয়ে বেশি নিউ ইয়র্ক অঙ্গরাজ্যে। এরপরেই রয়েছে ক্যালিফোর্নিয়া, ফ্লোরিডা, টেক্সাস এবং নিউ জার্সি।
ব্রিটেনে ধূমপান ছেড়েছেন ১০ লাখ মানুষ : মহামারী করোনাভাইরাসের বর্তমান পরিস্থিতিতে যুক্তরাজ্যের ১০ লাখ মানুষ ধূমপান ছেড়েছেন। ইউনিভার্সিটি কলেজ লন্ডন ও অ্যাকশন অন স্মোকিং অ্যান্ড হেলথ নামের একটি দাতব্য সংস্থার গবেষণায় এ তথ্য উঠে এসেছে। ধূমপান ফুসফুসের মারাত্মক ক্ষতি করে বলে করোনাকালে ধূমপান এড়িয়ে চলার পরামর্শ দিচ্ছেন বিশেষজ্ঞরা। কোভিড-১৯ মানব শরীরের অঙ্গ-প্রত্যঙ্গগুলার মধ্যে সবচেয়ে বেশি ক্ষতি করে ফুসফুসের। একইভাবে ধূমপানও ফুসফুসের মারাত্মক ক্ষতি করে। ২০০৭ থেকে ২০২০ সালের জুন মাস পর্যন্ত এক হিসাবে দেখা যায়, এ বছরই সবচেয়ে বেশি মানুষ ধূমপান ছেড়েছেন। জরিপে অংশগ্রহণকারীদের মধ্যে বিগত চার মাসে যারা ধূমপান ছেড়েছেন তাদের মধ্যে ৪১ শতাংশই করোনাভাইরাসের কারণে এটি ছাড়ার কথা জানিয়েছেন।
মাতৃগর্ভে করোনা সংক্রমণের ধারণাটি প্রমাণিত : প্রথমবারের মতো মায়ের গর্ভ থেকে সন্তানের সংক্রমিত হওয়ার একটি প্রমাণিত ঘটনা খুঁজে পাওয়ার দাবি করেছেন ফ্রান্সের চিকিৎসকরা। তাদের দাবি, সম্প্রতি করোনা আক্রান্ত মায়ের গর্ভ থেকে সংক্রমিত হয়েছে এক নবজাতক। মাতৃগর্ভে যে এ ধরনের সংক্রমণ ঘটতে পারার ব্যাপারটি সন্দেহাতীত। এ ধরনের সংক্রমণ সচরাচর ঘটে না। প্যারিসের এন্টোইন বাক্লিয়ার হাসপাতালের শিশু বিশেষজ্ঞ ড্যানিয়েল দে লুকা বলেন, ‘দুর্ভাগ্যজনক হলেও সত্যি যে এ ধরনের সংক্রমণের ব্যাপারে কোনো সন্দেহ নেই। যুক্তরাষ্ট্রে ‘ফাস্ট ট্র্যাক’ মর্যাদায় দুই ভ্যাকসিন : মার্কিন ফাইজার এবং জার্মান কোম্পানি বায়োএনটেকের তৈরি করোনার সম্ভাব্য দুই ভ্যাকসিনকে ‘ফাস্ট ট্র্যাক স্ট্যাটাস’ দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের খাদ্য ও ওষুধ প্রশাসন। এর মধ্য দিয়ে ওই ভ্যাকসিন দুটির রেগুলেটরি পর্যালোচনা প্রক্রিয়া ত্বরান্বিত হবে। যুক্তরাষ্ট্রের মডার্না ছাড়াও অন্যদের সাথে প্রতিযোগিতার শীর্ষে রয়েছে ফাইজার-বায়োএনটেকের যৌথ উদ্যোগে তৈরি ভ্যাকসিন দুটি। ফাস্ট ট্র্যাক স্ট্যাটাস পাওয়ায় এখন থেকে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে বিএনটি১৬২বি১ ও বিএনটি১৬২বি২ নামে ফাইজার এবং বায়ো এনটেকের ভ্যাকসিন দুটির উন্নতি পর্যালোচনা করবে যুক্তরাষ্ট্রের খাদ্য ও ওষুধ প্রশাসন এফডিএ। এর আওতায় সংস্থাটি ছয় মাসের মধ্যে ভ্যাকসিনটি বাজারে আনার অনুমোদনের লক্ষ্যে কাজ করবে।
ফের বিধিনিষেধে বন্দী বিশ্বের লাখো মানুষ : দেশে দেশে করোনাভাইরাস সংক্রমণ আবার বাড়তে থাকায় নতুন করে বিধিনিষেধের বেড়াজালে বন্দিজীবনে ফিরছে মানুষ। ভাইরাসটিতে বিপর্যস্ত হওয়া দেশগুলোকেও আবার ফিরে যেতে হচ্ছে লকডাউনে। করোনাভাইরাসে নাকাল হওয়া স্পেনের পাশাপাশি ভারত, যুক্তরাষ্ট্র, ইরান, অস্ট্রেলিয়া, কলম্বিয়া, মরক্কোসহ আরও অনেক দেশের বহু অঞ্চলে, শহরে নগরে বিধিনিষেধ ফিরে আসছে। হংকংয়ে সামাজিক দূরত্ব বিধি পালনে ফের কড়াকড়ি আরওপ করা হয়েছে, বন্ধ করা হয়েছে সব স্কুল। স্পেনের উত্তর-পূর্ব কাতালুনিয়ার একটি নগরীর প্রায় ১৬০,০০০ অধিবাসীকে কর্তৃপক্ষের নির্দেশে ১৪ দিনের কোয়ারেন্টিনে রাখা হচ্ছে। যুক্তরাষ্ট্রের ক্যালিফোর্নিয়া, ফ্লোরিডা, অ্যারিজোনা এবং টেক্সাসে আবার বিধিনিষেধ আরওপ হচ্ছে। অস্ট্রেলিয়ায় ভিক্টোরিয়া রাজ্যের রাজধানী মেলবোর্নে আবার কঠোর লকডাউন জারি করতে হয়; ভিক্টোরিয়া এবং নিউ সাউথ ওয়েলসের মধ্যবর্তী সীমান্ত অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ করে।
হজে নিষেধাজ্ঞা না মানলেই জরিমানা : এ বছর কারা পবিত্র হজ করার সুযোগ পাবেন; তা নির্ধারণ করতে সৌদিতে বসবাসকারী ১৬০ দেশের নাগরিকদের আবেদন বৈদ্যুতিক উপায়ে যাচাই-বাছাই শেষে তালিকা তৈরি করা হয়েছে। হজের আবেদনের শেষ সময় ১০ জুলাই পর্যন্ত বেঁধে দেয়া হয়েছিল। চলতি বছর হজে অংশগ্রহণকারীদের বাছাইয়ের অন্যতম শর্ত ছিল সুস্থতা। করোনাভাইরাস মহামারীর কারণে এবারের হজে সীমিত পরিসরে অংশ নিতে পারবেন ১৬০টি দেশের মানুষ; যাদের সবাইকে বর্তমানে সৌদি আরবে বসবাস করতে হবে বলে জানানো হয়েছে। এবার অসৌদি ৭০ শতাংশ এবং ৩০ শতাংশ সৌদি নাগরিক হজে অংশ নিতে পারবেন। ২৮ জিলকদ থেকে ১২ জিলহজ পর্যন্ত অনুমতি ছাড়া কেউ মিনা, মুজদালিফা ও আরাফাতে প্রবেশ করলে ১০ হাজার সৌদি রিয়াল জরিমানা গুনতে হবে। এ অপরাধের পুনরাবৃত্তি ঘটলে জরিমানা দ্বিগুণ করা হবে।
করোনার প্রভাবে এইচআইভি-যক্ষ্মা-ম্যালেরিয়ায় মৃত্যু : করোনাভাইরাস মহামারীতে ধুঁকতে থাকা দরিদ্র এবং মধ্যম-আয়ের দুর্বল স্বাস্থ্যব্যবস্থার দেশগুলোতে এইচআইভি, যক্ষ্মা এবং ম্যালেরিয়াজনিত মৃত্যু বাড়তে পারে। করোনাভাইরাস মহামারীর কারণে এসব রোগের চিকিৎসা মারাত্মকভাবে বিঘিœত হওয়ায় মৃত্যু বৃদ্ধির এই আশঙ্কা করোনাভাইরাস মহামারীর সম্ভাব্য প্রভাব ও পরিস্থিতি নিয়ে ল্যান্সেট গ্লোবাল হেলথ সাময়িকীতে প্রকাশিত এক গবেষণায় উঠে এসেছে। ইমপেরিয়াল কলেজ লন্ডনের গবেষকদের এই গবেষণা মডেলে বলা হয়েছে, আগামী পাঁচ বছরে এই তিনটি রোগে মানুষের প্রাণহানি বাড়তে পারে যথাক্রমে ১০, ২০ এবং ৩৬ শতাংশ হারে। করোনাভাইরাস মহামারী এই মৃত্যুর ওপর সরাসরি প্রভাব ফেলতে পারে। ইমপেরিয়াল কলেজ লন্ডনের অধ্যাপক টিমেথি হ্যালেট বলেন, ম্যালেরিয়ার অত্যধিক প্রকোপ বৃদ্ধি ও যক্ষ্মা এবং এইচআইভির চিকিৎসায় স্বল্প মেয়াদে বাধাগ্রস্ত হলেও লাখ লাখ মানুষের জন্য বিপর্যয়ের পরিস্থিতি তৈরি হতে পারে।
কর্মীদের বাড়িতে কিট পাঠাবে অ্যাপল : বাসা থেকে কর্মরত টেক জায়ান্ট অ্যাপলের কর্মীদের কোভিড-১৯ পরীক্ষার কিট পাঠানোর সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। বাইরে বের না হয়ে ঘরে বসেই তারা করোনা পরীক্ষার কিট পেয়ে যাবেন। যুক্তরাষ্ট্রের বেশির ভাগ রাজ্যে করোনা প্রাদুর্ভাবের কারণে অফিস ও খুচরা দোকানগুলো খোলার ব্যাপারে অ্যাপল কর্তৃপক্ষ সতর্ক রয়েছে। মার্চের প্রথম দিকে প্রায় একশটির বেশি দোকান খোলে অ্যাপল কর্তৃপক্ষ। কিন্তু করোনার প্রকোপ বেড়ে যাওয়ায় গত মাসে অধিকাংশ দোকান আবার বন্ধ করে দেয়া হয়। তবে যে দোকানগুলো চালু আছে, সেগুলোতে শরীরের তাপমাত্রা মেপে কর্মী ও গ্রাহকদের প্রবেশ করানো হচ্ছে।
মাদাগাস্কারে আক্রান্ত ২৫ এমপি, দু’জনের মৃত্যু : মহামারী করোনাভাইরাসের তাণ্ডবে বিপর্যস্ত আফ্রিকা মহাদেশ অন্তর্ভুক্ত দ্বীপরাষ্ট্র মাদাস্কার। এ ভাইরাসে দেশটির অন্তত ২৫ সংসদ সদস্য আক্রান্ত হয়েছেন এবং এদের মধ্যে ২ জন মারা গেছেন। দেশটির রাষ্ট্রায়ত্ত টেলিভিশনে এক টক শোতে দেশটির প্রেসিডেন্ট আন্দ্রে রাজোয়েলিনা বলেন, ‘করোনায় আমাদের একজন এমপি ও একজন সিনেটরের প্রাণহানি ঘটেছে। এ ঘটনায় সংসদের সব এমপির করোনা টেস্ট করা হলে দেখা গেছে ১১ জন সদস্য এবং ১৪ জন সিনেটর করোনাভাইরাস পজিটিভ শনাক্ত হয়েছেন।
১৪ জুলাই থেকে হঠাৎ বেড়েছে করোনায় মৃত্যু : গত সাত দিন ধরে করোনার মৃত্যু হার কমে এলেও ১৪ জুলাই থেকে হঠাৎ বাড়তে শুরু করেছে। করোনাভাইরাসে এক দিনে সারা বিশ্বে নতুন আক্রান্ত হিসেবে শনাক্ত হয়েছেন ২ লাখ ১৭ হাজার ৯১৭ জন মানুষ এবং মৃত্যু হয়েছে ৫ হাজার ৪১৩ জন। করোনার হটস্পটগুলোতে মৃতের প্রকোপ আবারো বাড়তে শুরু করেছে। যুক্তরাষ্ট্রকে পেছনে ফেলে এগিয়ে আসা ল্যাটিন আমেরিকার দেশ ব্রাজিলে ২৪ ঘণ্টায় মারা গেছে ১ হাজার ৩৪১ জন, শনাক্ত হয়েছেন ৪৩ হাজার ২৪৫ জন। অন্য দিকে গত দুই মাস যাবৎ দ্বিতীয় অবস্থানে থাকা যুক্তরাষ্ট্রে এক দিনে মৃত্যু ৮৩৫, শনাক্ত ৬৫ হাজার ৫৯৪। যা এক দিনের করোনা শনাক্ত রোগীর সর্বোচ্চ রেকর্ড। রাশিয়া, ইরান, ইতালিকে অনেক আগেই পেছনে ফেলে করোনার ভয়াবহতা বেড়ে যাচ্ছে দক্ষিণ এশিয়ার দেশ ভারতে। করোনা আক্রান্তে তৃতীয় অবস্থানে থাকা দেশটিতে এক দিনে মারা গেছেন ৫৮৮ জন, আক্রান্ত হয়েছেন প্রায় ৩০ হাজার মানুষ। পরিসংখ্যান হিসাবে সাত নম্বর অবস্থানে থাকা মেক্সিকোতে প্রতিনিয়ত বাড়ছে মৃত্যু এবং আক্রান্তের সংখ্যা। ২৪ ঘণ্টায় মারা গেছেন ৪৮৫ জন এবং আক্রান্ত ৪ হাজার ৬৮৫ জন।
এক মাসের মধ্যে টিকা আনার চেষ্টায় রাশিয়া : এক মাসের মধ্যে করোনার টিকা আনার ব্যাপারে আশাবাদী রাশিয়ার বিজ্ঞানীরা। রাশিয়ার বিজ্ঞানীরা জানান, বিশ্বের প্রথম করোনাভাইরাসের টিকা আগামী মাসেই রোগীদের শরীরে প্রয়োগ করা হবে। এর আগে মস্কোর এক মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয় জানায়, তারা স্বেচ্ছাসেবীদের ওপর সম্ভাব্য ওই টিকার সফল প্রয়োগ করেছে। রাশিয়ার সম্ভাব্য টিকাটি উদ্ভাবন করেছে রাষ্ট্র পরিচালিত গামালি ন্যাশনাল রিসার্চ সেন্টার ফর এপিডেমিওলজি অ্যান্ড মাইক্রোবায়োলজি। গামালি সেন্টারের প্রধান আলেক্সান্ডার গিন্টসবার্গ বলেন, আগামী ১২-১৪ আগস্টের মধ্যে সম্ভাব্য টিকাটি জনসাধারণের প্রয়োগের জন্য বাজারে আনা যাবে। তবে বেসরকারি প্রতিষ্ঠানগুলো সেপ্টেম্বর নাগাদ ব্যাপক হারে উৎপাদন শুরু করতে পারবে।
যুক্তরাষ্ট্রের করোনা টিকার চূড়ান্ত ট্রায়াল ২৭ জুলাই : যুক্তরাষ্ট্রের মডার্না কোম্পানি দেশটির সরকারের সহায়তায় সম্ভাব্য করোনা প্রতিরোধী ভ্যাকসিন (সজঘঅ-১২৩৭) জুলাইয়ের ২৭ তারিখ থেকে শুরু হবে চূড়ান্ত ট্রায়াল। ইতোমধ্যে ভ্যাকসিনটির প্রথম ধাপের ট্রায়ালে অংশগ্রহণকারী সবার শরীরে নিরাপদ ও কার্যকর অ্যান্টিবডি তৈরি করেছে বলে নিউ ইংল্যান্ড জার্নাল অব মেডিসিনে দাবি করা হয়েছে। যেসব স্বেচ্ছাসেবীকে এই ভ্যাকসিনের দুটি ডোজ দেয়া হয়েছিল, তাদের মধ্যে দেখা গিয়েছে ভাইরাস-কিলিং অ্যান্টিবডির মাত্রা অনেক বেশি। করোনা থেকে সেরে ওঠা মানুষের গড় অ্যান্টিবডির মাত্রার থেকেও বেশি। এই টিকাটির ড্যাটা যুক্তরাষ্ট্রের প্রথম করোনো প্রতিরোধী টিকা হিসেবে কোনো পিয়ার-রিভিউড জার্নালে প্রকাশিত হতে যাচ্ছে। মডার্না জানিয়েছে, যদি সব এভাবে চলতে থাকে তাহলে তারা প্রতি বছর ৫০০ মিলিয়ন ডোজ ভ্যাকসিন তৈরি করতে সক্ষম হবে। ২০২১ সালের জানুয়ারি থেকে এটি শুরু হতে পারে। প্রথম ধাপের ফলাফল বিশ্লেষণ করে দ্বিতীয় এবং তৃতীয় ধাপের ডোজ নির্ধারণ করা হচ্ছে।
আরও এক মাস বন্ধ কানাডা-যুক্তরাষ্ট্র সীমান্ত : কানাডা ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সীমান্ত আরও এক মাস বন্ধ থাকছে। কানাডিয়ান এবং মার্কিন কর্মকর্তারা ২১ আগস্ট পর্যন্ত দুই দেশের সীমান্ত বন্ধ রাখার বিষয়ে একমত হয়েছেন। করোনা প্রাদুর্ভাবের কারণে গত মার্চ মাসে কানাডা-মার্কিন সীমান্ত বন্ধ করা হয়। এরপর থেকে প্রতি মাসে বন্ধের মেয়াদ বাড়ানো হয়েছে। ২১ জুলাই সর্বশেষ মেয়াদ বাড়ানো হয়েছিল। এ নিয়ে চতুর্থবারের মতো মেয়াদ বাড়ানো হলো। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে প্রতিদিনই প্রায় ৬০ হাজারেরও বেশি মানুষ করোনায় আক্রান্ত হচ্ছেন। কানাডায় সে তুলনায় অনেক অনেক কম। যে কারণে কানাডিয়ানরা বর্ডার খুলে দেয়ার ব্যাপারে একমত নন।
স্কুলে ফিরেছে মালয়েশিয়ার শিশুরা : প্রায় চার মাস পর আংশিকভাবে স্কুল খুলেছে মালয়েশিয়ায়। প্রাথমিক এবং মাধ্যমিক স্তরের কিছু শিক্ষার্থী স্কুলে ফিরেছে। দেশজুড়ে করোনার প্রকোপ কমতে থাকায় শিক্ষার্থীদের পড়াশুনায় উৎসাহিত করতে স্কুলগুলো খুলে দেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে মালয়েশিয়া সরকার। এর আগে করোনার সংক্রমণ বাড়তে থাকায় গত মার্চের মাঝামাঝি থেকেই দেশজুড়ে লকডাউন জারি করা হয়। গত কয়েক মাস ধরে বাধ্য হয়েই স্কুলে যেতে পারছিল না শিক্ষার্থীরা। ফলে বাড়িতে বসেই পড়াশুনা করছিল এসব শিশু। মালয়েশিয়ায় এখন পর্যন্ত করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা ৮ হাজার ৭২৯। এর মধ্যে মারা গেছেন ১২২ জন। দেশটিতে ইতোমধ্যেই সুস্থ হয়ে উঠেছেন ৮ হাজার ৫২৪ জন। অর্থাৎ আক্রান্তদের মধ্যে বেশির ভাগই সুস্থ হয়ে গেছেন।
অদূর ভবিষ্যতেও করোনা থেকে মুক্তি নেই : এখনই করোনা থেকে মুক্তির আশা দেখতে পাচ্ছে না ডব্লিউএইচও। পরিস্থিতি আরও খারাপ হতে পারে বলেও সতর্ক করেছে তারা। ঠিক মতো ব্যবস্থা না নিলে করোনাভাইরাস আরও ভয়াবহ চেহারা নিতে পারে। ক্ষতি হতে পারে আরও বেশি। যে দেশগুলো করোনা পরিস্থিতি মোকাবেলায় ঠিক মতো নিয়ম মানছে না, তাদের প্রতি ফের সতর্কবার্তা জারি করল বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। সংস্থাটির বক্তব্য, লকডাউন ছাড়া কোনো উপায় নেই। আমেরিকায় যেখানে যেখানে লকডাউন খোলা হয়েছে, সেখানে সেখানেই ভাইরাস দ্রুত সংক্রমিত হতে শুরু করেছে।

 


আরো সংবাদ

করোনায় বড়াইগ্রাম থানার ওসির মৃত্যু পাকিস্তান নিয়ে মোসাদের ভয়ঙ্কর খেলা ফাঁস হাতুড়ি দিয়ে পিটিয়ে ছেলেকে খুন করলেন বাবা আরো বহু মুসলিম দেশ এগিয়ে আসবে : নেতানিয়াহুর আকুতি বিষখালী নদীর ভাঙনে পাল্টে যাচ্ছে বেতাগীর মানচিত্র ভারতীয়দের নেপাল ভ্রমণে কড়াকড়ি ব্যবস্থা, মানতে হবে সেসব নতুন শর্ত বাংলাদেশে ভারতের পরবর্তী হাইকমিশনার বিক্রম দোরাইস্বামী আড়াইহাজারে পানিতে ডুবে স্কুলছাত্রের মৃত্যু সব নাগরিকের জন্য বিনামূল্যে ভ্যাকসিন সরবরাহ করবে যুক্তরাষ্ট্র ঘিওরে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন, ভাঙনের আশঙ্কায় বসতবাড়ি-ফসলি জমি মিরসরাইয়ে অস্ত্র বিক্রি করতে গিয়ে র‌্যাবের ফাঁদে গ্রেফতার যুবক

সকল