১০ আগস্ট ২০২০

নিয়ন্ত্রণের বাইরে করোনা

আক্রান্ত বিশ্ব : ১৫ লাখ কবর খুঁড়ে রাখছে দক্ষিণ আফ্রিকা; এক দিনে ২৬ হাজার আক্রান্ত ভারতে; ব্রাজিলে এক দিনে আক্রান্ত ৪৩ হাজার
-
24tkt

আক্রান্ত : ১,২৪,৪২,০৩৭ মৃত্যু : ৫,৫৮,৫৪৪
দেশ আক্রান্ত মৃত্যু
যুক্তরাষ্ট্র ৩২,২৪,৪৯৩ ১,৩৫,৮৮৫
ব্রাজিল ১৭,৬২,২৬৩ ৬৯,৩১৬
ভারত ৮,০৪,৮৬১ ২১,৭৭৬
রাশিয়া ৭,১৩,৯৩৬ ১১,০১৭
পেরু ৩,১৬,৪৪৮ ১১,৩১৪
চিলি ৩,০৬,২১৬ ৬,৬৮২
স্পেন ৩,০০,১৩৬ ২৮,৪০১
ব্রিটেন ২,৮৮,১৩৩ ৪৪,৬৫০
মেক্সিকো ২,৮২,২৮৩ ৩৩,৫২৬
ইরান ২,৫২,৭২০ ১২,৪৪৭
করোনাভাইরাস মহামারীর বিস্তার ‘এখনো ত্বরান্বিত’ এবং বেশির ভাগ দেশ এখনো এটিকে নিয়ন্ত্রণে আনতে সক্ষম হয়নি। বিশ্বে করোনাভাইরাসে ১১.৮ মিলিয়নেরও বেশি মানুষ আক্রান্ত। আক্রান্ত অর্ধেক মানুষ গত ছয় সপ্তাহে শনাক্ত হয়েছেন। সুইজারল্যান্ডের জেনেভায় ১৯৪টি সদস্য রাষ্ট্রের প্রতিনিধিদের ভার্চুয়াল বৈঠকে এসব কথা বলেন বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রধান তেদরোস আধানম গেব্রেয়েসাস।
তিনি বলেন, করোনাভাইরাস আমাদের স্বাস্থ্যব্যবস্থায় অসমতা, ঘাটতি এবং আমাদের সমাজে বিভ্রান্তিকে কাজে লাগিয়েছে। এই প্রাদুর্ভাব বৃহত্তর সমাজে বিদ্যমান বিশ্বব্যাপী এবং জাতীয় বৈষম্যগুলো উন্মোচিত করেছে। এ মহামারী আমাদের মধ্যে ফাটলকে আরো প্রশস্ত ও গভীর করবে। প্রায়শই বলা হয় যে রোগ কোনো সীমানা জানে না। এটি আমাদের রাজনৈতিক পার্থক্যের বিষয়ে চিন্তা করে না এবং এটি স্বাস্থ্য এবং অর্থনীতি, জীবন ও জীবিকার মধ্যে আমরা যে পার্থক্যগুলো দেখি তা উপেক্ষা করে। কোভিড-১৯ মহামারীটি সব কিছুকেই ব্যাহত করেছে। আরো দ্রুতগতিতে পরিস্থিতির অবনতি ঘটছে দিন দিন।
করোনাভাইরাস মহামারী মোকাবেলায় সংস্থাটির নিজেদের ও বিভিন্ন দেশের সরকারের গৃহীত পদক্ষেপ পর্যালোচনার জন্য একটি স্বাধীন প্যানেল গঠন করা হয়েছে বলে জানান ডব্লিউএইচও প্রধান। তিনি জানান, নিউজিল্যান্ডের সাবেক প্রধানমন্ত্রী হেলন ক্লার্ক ও লাইবেরিয়ার সাবেক প্রেসিডেন্ট এলেন জনসন সারলিফ প্যানেলের প্রধান ও সদস্য নির্বাচনের জন্য সম্মতি দিয়েছেন। নভেম্বরে অনুষ্ঠিতব্য স্বাস্থ্যমন্ত্রীদের বার্ষিক সম্মেলনে প্যানেল অন্তর্বর্তী প্রতিবেদন হাজির করবে। খবর টাইমস অব ইন্ডিয়া, ডেইলি মেইল, সিটিভি নিউজ, দ্য ওয়াল, ফোর্বস, বিবিসি বাংল, এনডিটিভি, সিএনএন, আরব নিউজ, দুনিয়া নিউজ, বিবিসি, ক্যালগেরি হেরাল্ড, সিটিভি, আল জাজিরা, ওয়ার্ল্ডোমিটারস, রয়টার্স, ডিডব্লিউ ও ওয়াশিংটন পোস্টের।
১৫ লাখ কবর খুঁড়ে রাখছে দক্ষিণ আফ্রিকা : করোনা পরিস্থিতি খারাপ হওয়ায় ১৫ লাখ কবর খুঁড়ে রাখছে দক্ষিণ আফ্রিকা। ভয়ঙ্কর দিনের আশঙ্কায় প্রস্তুতি নিয়ে রাখছে দক্ষিণ আফ্রিকা। দক্ষিণ আফ্রিকার গাওতেং প্রদেশে ১৫ লাখ কবর খোঁড়া হচ্ছে। সেখানকার প্রশাসনের এমন উদ্যোগে ইতোমধ্যেই সমালোচনা শুরু হয়েছে। দক্ষিণ আফ্রিকায় করোনার হটস্পট গাওতেং প্রদেশ। প্রেটোরিয়া এবং জোহানেসবার্গ গাওতেং প্রদেশের অন্তর্ভুক্ত। জোহানেসবার্গ ওই অঞ্চলের রাজধানী। গাওতেং প্রদেশে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ৭১ হাজার ছাড়িয়েছে। দেশের মোট আক্রান্তের ৩৩ শতাংশ ওই প্রদেশের। দক্ষিণ আফ্রিকায় এখন পর্যন্ত ২ লাখ ১৫ হাজারের বেশি মানুষ করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। এর মধ্যে তিন হাজার ৬০২ জন মারা গেছেন।
যুক্তরাষ্ট্রে এক দিনে আক্রান্ত ৬৫ হাজার : কোভিড-১৯ মহামারীতে সংক্রমণের অনাকাক্সিক্ষত রেকর্ড গড়েই চলেছে যুক্তরাষ্ট্র। জনস হপকিন্স ইউনিভার্সিটির তথ্য মতে, শুক্রবার বাংলাদেশ সময় দুপুর ১২টা পর্যন্ত যুক্তরাষ্ট্রে ৩১ লাখেরও বেশি মানুষ আক্রান্ত শনাক্ত হয়েছেন, মৃত্যুবরণ করেছেন ১ লাখ ৩৩ হাজার। বৃহস্পতিবার আবারো সংক্রমণের নতুন রেকর্ড গড়েছে দেশটি, এ দিন ৬৫ হাজার আক্রান্ত শনাক্ত হয়েছেন। আগের দিন যা ছিল প্রায় ৬১ হাজার। আক্রান্ত ও মৃত্যু দুটিতেই বিশ্বে শীর্ষে যুক্তরাষ্ট্র। গত কয়েক দিনে সংক্রমণ খুব বেশি মাত্রায় বেড়েছে। এখন প্রতিদিন ৫০-৬০ হাজার পজিটিভ শনাক্ত হচ্ছেন। মৃত্যুও বেড়ে গেছে। গত তিন দিনে গড়ে ৯০০ মানুষের প্রাণহানি ঘটেছে।
ব্রাজিলে এক দিনে আক্রান্ত ৪৩ হাজার : করোনাভাইরাসের সংক্রমণে যুক্তরাষ্ট্রের পর সবচেয়ে বেশি বিপর্যস্ত ব্রাজিল। দেশটিতে গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে প্রায় ১২ শ’ মানুষের মৃত্যু হয়েছে। দেশটিতে গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে প্রাণ গেছে ১ হাজার ১৯৯ জনের। এতে মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৬৯ হাজার ২৫৪ জন। এক দিনেই নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন ৪১ হাজার ৫৪১ জন। এ নিয়ে দেশটিতে আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১৭ লাখ ৫৯ হাজার ১০৩ জন। লাতিন আমেরিকার দেশগুলোর মধ্যে ব্রাজিলেই আক্রান্ত ও মৃত্যু এখন পর্যন্ত সবচেয়ে বেশি।
করোনা পজিটিভ বলিভিয়ার প্রেসিডেন্টের : বলিভিয়ার প্রেসিডেন্ট জেনাইন আনেজ করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। এক টুইটবার্তায় তিনি বলেন, ভালো আছি এবং আইসোলেশনে থেকে কাজ চালিয়ে যাচ্ছি। সবাই মিলে আমরা মহামারী থেকে উত্তরণ করব। বলিভিয়ার সরকার নিশ্চিত করেছে, দেশটির অন্তত সাতজন মন্ত্রী করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। এদের মধ্যে রয়েছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রীও। আনেজ জানান, সহকর্মীদের অনেকেই অসুস্থ হওয়ায় তিনি করোনা পরীক্ষা করান। তিনি বলেন, নিজেকে শক্তিশালী মনে হচ্ছে। এই স্বাস্থ্যসঙ্কট মোকাবেলায় যেসব বলিভিয়ান কাজ করছেন তাদের সবাইকে আমি ধন্যবাদ জানাই।
বিশ্বে প্রতিদিন শনাক্ত ২ লাখ করে : চলতি মাসের শুরু থেকে বিশ্বজুড়ে করোনাভাইরাসের সংক্রমণে হঠাৎ করে দ্রুত ঊর্ধ্বগতি শুরু হয়েছে। মাসের প্রথম আট দিনের মধ্যে চার দিনই দৈনিক নতুন রোগী শনাক্তের হার ২ লাখ ছাড়িয়েছে। বাকি চার দিন ছিল ২ লাখের নিচে। আট দিনের গড় প্রায় ২ লাখ। অথচ গত মাসেও গড় ছিল দেড় লাখের নিচে। জুলাইয়ের এ বাড়তি সংখ্যায় সবচেয়ে বড় অংশ থাকছে যুক্তরাষ্ট্র থেকে। বিশ্বজুড়ে সংক্রমণের সাথে তুলনায় মৃত্যু এতটা বাড়েনি। ১ থেকে ৮ জুলাই পর্যন্ত সময়ে বিশ্বজুড়ে শনাক্ত হয়েছেন প্রায় ১৬ লাখ রোগী। মারা গেছেন প্রায় ৩৮ হাজার। অর্থাৎ গড়ে দিনে প্রায় ২ লাখ রোগী শনাক্ত হয়েছেন, মৃত্যু হয়েছে ৪ হাজার ৭০০ জনের বেশি মানুষের। অথচ গত জুনেও দৈনিক গড়ে দেড় লাখের কম রোগী শনাক্ত হয়েছেন, মারা গেছেন সাড়ে ৪ হাজারের কিছু বেশি। ওই মাসে বিশ্বজুড়ে মোট শনাক্ত হয়েছেন ৪৩ লাখ ২৬ হাজারের বেশি রোগী, মৃত্যু হয়েছে ১ লাখ ৩৫ হাজারের বেশি মানুষের।
আফ্রিকায় মাস্কের ব্যবহার বাড়ানোর তাগিদ : আফ্রিকায় কোভিড-১৯ এ শনাক্ত রোগী ৫ লাখ ছাড়িয়ে যাওয়ার পর আঞ্চলিক একটি রোগ নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষ মহাদেশভুক্ত দেশগুলোতে জরুরি ভিত্তিতে ভাইরাস শনাক্তকরণ পরীক্ষা ও মাস্কের ব্যবহার বাড়ানোর তাগিদ দিয়েছে। আদ্দিস আবাবা থেকে ভার্চুয়াল এক সংবাদ সম্মেলনে আফ্রিকা সেন্টারস ফর ডিজিজ কন্ট্রোল অ্যান্ড প্রিভেনশনের (সিডিসি) প্রধান জন এনকেংগাসন বলেছেন, ‘গত সপ্তাহে আফ্রিকায় শনাক্ত রোগীর সংখ্যা আগের তুলনায় ২৪ শতাংশ বেড়ে গেছে। মহামারী এখন গতিপ্রাপ্ত হচ্ছে।’ তিনি টুইটারে বলেন, ‘আমাদের অবশ্যই আগ্রাসী ও শক্ত পদক্ষেপ নিতে হবে। সবার মুখে মাস্ক, শনাক্তকরণ পরীক্ষা বৃদ্ধি, রোগী ও তার সংস্পর্শে আসা ব্যক্তিদের চিহ্নিত, চিকিৎসা ও এলাকাভিত্তিক প্রতিক্রিয়া শক্তিশালী করতে হবে। এটাই জীবন ও অর্থনীতি বাঁচাবে।’
যুক্তরাষ্ট্রে প্রায় ৫ কোটি মানুষ বেকার : করোনা মহামারীতে যুক্তরাষ্ট্রে বেকারসংখ্যা ৫ কোটির কাছাকাছি পৌঁছেছে। দেশটির শ্রম অধিদফতর বলছে, জুলাই মাসের প্রথম সপ্তাহেও নতুন করে বেকারভাতার জন্য আবেদন করেছেন ১৩ লাখ মার্কিনি। তবে কর্মহীন মানুষের বেকারভাতার আবেদনের সংখ্যা বাড়লেও লকডাউন শিথিল করায় উল্লেøখযোগ্য হারে সৃষ্টি হচ্ছে কর্মসংস্থান। মহামারীর সাথে বেকারত্বের হার পাল্লøা দিয়ে বাড়তে থাকায় যুক্তরাষ্ট্রের ৬টি অঙ্গরাজ্য একরকম লকডাউন শিথিলের সিদ্ধান্ত থেকে সরে এসেছে। এ অঙ্গরাজ্যগুলো হলোÑ আরিজোনা, ক্যালিফোর্নিয়া, কলোরাডো, ফ্লোরিডা মিশিগান ও টেক্সাস। এ ছয় অঙ্গরাজ্য থেকে যুক্তরাষ্ট্রের মোট অর্থনীতির এক- তৃতীয়াংশ আসে। অন্যান্য অন্তত ১৫টি রাজ্য লকডাউন তুলে নিচ্ছে না আতঙ্কে। মহামারীর আগে সপ্তাহে সর্বোচ্চ ৭ লাখ মানুষ বেকার হতো দেশটিতে। আর এখন হচ্ছে সর্বনিম্ন ১০ লাখ করে। লকডাউন শিথিল করায় বর্তমানে দেশটিতে বেকারত্ব হার সাড়ে ১২ শতাংশ। বছরের শেষ তিন মাসে এটি ১০ শতাংশে নামবে বলে পূর্বাভাস দিয়েছে অর্থনৈতিক উন্নয়ন সংস্থা।
ভ্যাকসিন প্রয়োগে করোনাপ্রতিরোধী হয়ে ওঠার দাবি : করোনাভাইরাসের সম্ভাব্য একটি ভ্যাকসিন ট্রায়ালে প্রথমবারের মতো শরীরে অ্যান্টিবডি উৎপাদনের মাধ্যমে ভাইরাসপ্রতিরোধী হয়ে ওঠার দাবি করেছেন এক মার্কিন যুবক। ডেভিড র্যাচ নামে ওই যুবকের দাবি, মার্কিন ওষুধ প্রস্তুতকারক ফাইজার ও জার্মান প্রতিষ্ঠান বায়োএনটেকের তৈরি ভ্যাকসিন প্রয়োগে করোনায় আক্রান্ত থেকে সুস্থ হয়ে ওঠা ব্যক্তিদের চেয়ে বেশি অ্যান্টিবডি তৈরি হয়েছে তার শরীরে। সম্প্রতি করোনাপ্রতিরোধী ভ্যাকসিনের ট্রায়ালে অংশ নিয়েছেন ইউনিভার্সিটি অব মেরিল্যান্ডের ইমিউনোলজির শিক্ষার্থী ডেভিড র্যাচ। তার শরীরে ভ্যাকসিনের দু’টি ডোজ প্রয়োগ করা হয়। র্যাচ বলেন, ভ্যাকসিন প্রয়োগের প্রাথমিক ফলাফল ইতিবাচক এসেছে। তবে এখনো এ গবেষণায় আরো অনেক দূর যেতে হবে।
ভারতে এক দিনে আক্রান্ত ২৬ হাজার : ভারতে এক দিনেই ২৬ হাজারের বেশি মানুষ প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। এখন পর্যন্ত এটাই সর্বোচ্চ আক্রান্তের সংখ্যা। দেশটির কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, নতুন করে আক্রান্ত হয়েছে আরো ২৬ হাজার ৫০৬ জন। ভারতে এখন পর্যন্ত মোট আক্রান্তের সংখ্যা ৭ লাখ ৯৩ হাজার ৮০২। এ দিকে গত ২৩ ঘণ্টায় নতুন করে মৃত্যু হয়েছে ৪৭৫ জনের। ফলে এখন পর্যন্ত দেশটিতে মোট ২১ হাজার ৬০৪ জন করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন। ভারতে এখন পর্যন্ত চিকিৎসা নিয়ে সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ৪ লাখ ৯৫ হাজার ৫১৩ জন। অর্থাৎ আক্রান্তদের মধ্যে ইতোমধ্যেই ৬২ দশমিক ৪২ জন সুস্থ হয়ে উঠেছেন। দেশটিতে এখন পর্যন্ত সংক্রমণ সবচেয়ে বেশি মহারাষ্ট্র, তামিলনাড়ু, দিল্লি, গুজরাট, উত্তরপ্রদেশ, কর্নাটক এবং তেলেঙ্গায়।
অক্সফোর্ডের ভ্যাকসিন আসতে আরো ৬ মাস : যুক্তরাজ্যের অক্সফোর্ড ইউনিভার্সিটি ও ফার্মাসিউটিক্যাল জায়ান্ট অ্যাস্ট্রাজেনেকার তৈরি করোনাভাইরাসের সম্ভাব্য ভ্যাকসিনের তৃতীয় ধাপের ট্রায়াল চলছে। এরই মধ্যে বাণিজ্যিকভাবে উৎপাদনের জন্য একাধিক সংস্থার সাথে চুক্তিও হয়ে গেছে। সব পরীক্ষায় সফলভাবে উত্তীর্ণ হওয়ার পর বাজারে আসতে কত দেরি এই ভ্যাকসিনের তা জানতে মানুষের আগ্রহের শেষ নেই। তবে যতই জরুরি হোক, ছয় মাসের আগে অক্সফোর্ডের ভ্যাকসিন বাজারে আসার সম্ভাবনা নেই বলে পরিষ্কার জানিয়ে দিয়েছেন গবেষকরা। ভ্যাকসিন উৎপাদক সংস্থাটির পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, এখনো বিশ্বের ‘সবচেয়ে নিরাপদ’ করোনা ভ্যাকসিন হাতে পেতে আরো অন্তত ছয় মাস অপেক্ষা করতে হবে। বিশ্বজুড়ে চলা ট্রায়ালের ফলাফল না পাওয়া পর্যন্ত এটি বাজারে ছাড়া সম্ভব নয়। সে ক্ষেত্রে আশা করা হচ্ছে, ২০২০ সালের শেষের দিকে এই ভ্যাকসিন সবার জন্য উন্মুক্ত হতে পারে।
পশ্চিমবঙ্গে ফের লকডাউন : ভারতের পশ্চিমবঙ্গে করোনা পরিস্থিতি ক্রমশই খারাপ হচ্ছে। প্রায় প্রতিদিন করোনা সংক্রমণের সংখ্যা বাড়ছে। বৃহস্পতিবার ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে ১০৮৮ জন আক্রান্ত হয়েছেন। এ ছাড়া ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু হয়েছে ২৭ জনের। এই নিয়ে রাজ্যে মোট সংক্রমণের সংখ্যা দাঁড়াল ২৫ হাজার ৯১১। মৃতের সংখ্যা ৮৫৪। গত ২৪ ঘণ্টায় ৫৩৫ জন সুস্থ হয়ে ওঠার পর এ পর্যন্ত রাজ্যে মোট সুস্থ রোগীর সংখ্যা দাঁড়াল ১৬ হাজার ৮২৬। এই এখন পর্যন্ত করোনা পজিটিভ আছে ৮২৩১ জনের শরীরে। করোনা সংক্রমণের হঠাৎ বৃদ্ধির কারণে শুক্রবার কলকাতাসহ রাজ্যের বিভিন্ন কন্টেনমেন্ট জোনে বিকেল ৫টার পর থেকে নতুন করে শুরু হলো লকডাউন।
করোনার মধ্যেই সিঙ্গাপুরে ভোটগ্রহণ : করোনার সঙ্কটজনক পরিস্থিতিতেও সিঙ্গাপুরের চলছে সাধারণ নির্বাচনের ভোটগ্রহণ। এখন পর্যন্ত মহামারী চলাকালীন হাতেগোনা কয়েকটি দেশের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে। শুক্রবার সকাল থেকে ভোটাররা গ্লাভস এবং মাস্ক পরে কেন্দ্রে এসে ভোট দিচ্ছেন। সেই সাথে রয়েছে অধিক সুরক্ষার ব্যবস্থাও। এবারো বরাবরের মতো সিঙ্গাপুরের ক্ষমতাসীন দলই ক্ষমতায় আসবে বলে ধারণা করা হচ্ছে। দেশটির স্বাধীনতার পর থেকে পিপলস অ্যাকশন পার্টি শাসন করে আসছে। বর্তমানেও এর ক্ষমতা বহাল থাকবে বলে বহুল প্রত্যাশা।
যেসব কাজে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি বেশি : করোনাভাইরাস সংক্রমণের ঝুঁকিতে ফেলতে পারে, প্রতিদিনের এমন কার্যক্রমের একটি তালিকা প্রকাশ করেছে টেক্সাস মেডিক্যাল অ্যাসোসিয়েশন (টিএমএ)। টিএমএ কোভিড-১৯ টাস্কফোর্স এবং টিএমএ ইনফেকটিয়াস ডিজিস কমিটির সদস্যদের তৈরি করা তালিকায় বলা হয়েছে, অনেক দেশেই লকডাউন তুলে দেয়া হয়েছে। এতে রেস্টুরেন্ট, থিয়েটার, বার, স্যালুনের মতো প্রতিষ্ঠানগুলো আবার চালু করার অনুমতি দেয়া হচ্ছে। এসব জায়গায় যাওয়া উচ্চ ঝুঁকিপূর্ণ। মুদিদোকানে যাওয়া, হোটেলে থাকা, খেলার মাঠে যাওয়া, অন্যের সাথে হাঁটতে বের হওয়া বা দৌড়ানো কিংবা বাইক রাইডের মতো কাজগুলো কম থেকে মাঝারি ঝুঁকিপূর্ণ। এ ছাড়া টেনিস খেলা, ক্যাম্পিংয়ে যাওয়া, রেস্টুরেন্ট থেকে প্যাকেটজাত খাবার কেনা, পেট্রলপাম্পে যাওয়ার মতো কাজগুলো কম ঝুঁকিপূর্ণ।
বলসোনারোর বিরুদ্ধে সাংবাদিকদের মামলা : ব্রাজিলের প্রেসিডেন্ট জায়ের বলসোনারোর বিরুদ্ধে সুপ্রিম কোর্টে মামলা করেছেন সে দেশের সাংবাদিকরা। তার বিরুদ্ধে দুটি অভিযোগ তুলেছে ব্রাজিলের প্রেস অ্যাসোসিয়েশন। একটি হলো, করোনাভাইরাসের ভয়াবহতা জানা সত্ত্বেও অন্যের জীবনকে তিনি জেনে বুঝে ঝুঁকির মধ্যে ফেলেছেন। অন্যটি হলো, সংক্রামক রোগের বিস্তার রোধে তিনি ব্যর্থ হয়েছেন। মাস্ক পরায় অনীহা ব্রাজিলের প্রেসিডেন্ট জায়ের বলসোনারোর। এমনকি করোনা পজিটিভ রিপোর্ট জানার পরেও টেলিভিশন সাক্ষাৎকারে মাস্ক পরেননি। তাই তার বিরুদ্ধে ব্রাজিলের প্রেস অ্যাসোসিয়েশনের এই মামলা। মঙ্গলবার টেলিভিশনে এক লাইভ সাক্ষাৎকারে বলসোনারো ঘোষণা করেন, তিনি কোভিড আক্রান্ত। তিনি যে আক্রান্ত, তা জানা সত্ত্বেও মুখের মাস্কটি সে সময় খুলে রেখেছিলেন। ঘোষণার আগে পর্যন্ত উলটো দিকে বসে থাকা সাংবাদিকরা এর বিন্দুবিসর্গ জানতেন না। বলসোনারোর আচমকা এই ঘোষণায় ওই সাংবাদিকেরা চাপে পড়ে যান। চ্যানেল কর্তৃপক্ষ তাদের কোয়ারেন্টিনে পাঠায়।
মাস্ক পরা বাধ্যতামূলক হচ্ছে কানাডায় : করোনা যেমনি ক্ষতিগ্রস্ত করেছে কানাডার অর্থনীতিকে তেমনি স্বাস্থ্য নিয়েও শঙ্কিত কানাডার জনসাধারণ। আক্রান্তের সংখ্যা বেড়েই চলেছে। এক দিকে স্বাস্থ্যবিধি আর অন্য দিকে অর্থনীতির চাকা সচল রাখা নিয়ে উভয় সঙ্কটে রয়েছে সরকারপ্রধান ও নীতিনির্ধারকরা। কানাডার আলবার্টার ক্যালগেরির মেয়র নাহিদ নেনশি ক্যালগেরিবাসীদের উদ্দেশে হুঁশিয়ারি দিয়ে বলেছেন, ক্যালগারিয়ানরা যদি মাস্ক পরিধান করার জন্য নিজেরা সতর্ক না হয় তবে দুই সপ্তাহের মধ্যে শহরে সব জনসাধারণের অভ্যন্তরীণ জায়গাগুলোতে মাস্ক বাধ্যতামূলক করা হতে পারে। ইতোমধ্যে টরন্টোয় বাধ্যতামূলক বাই ল মাস্ক পরা কার্যকর হয়েছে। টরন্টোর পাবলিক ট্রানজিট সিস্টেমে মাস্কগুলোও বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। ২৭ জুলাইয়ের মধ্যে মন্ট্রিয়ালের অভ্যন্তরীণ পাবলিক স্পেসগুলোতে মাস্ক বাধ্যতামূলক করা হবে। অটোয়া সিটিতে মাস্কপরা বাধ্যতামূলক করা হয়েছে।
করোনায় নতুন বিপর্যয়ে টোকিও : জাপানে করোনাভাইরাসের ফিরে আসা নিয়ে শঙ্কা দেখা দিয়েছে। টানা ছয় দিন ধরে নতুন শনাক্ত হওয়া দৈনিক সংক্রমণের সংখ্যা ১০০-এর ওপরে থাকার পর গতকাল তা ৭৫-এ নেমে যায়। অনেকে তখন কিছুটা হলেও আশ্বস্ত বোধ করতে শুরু করেছিল। কিন্তু বৃহস্পতিবার ৯ জুলাই রেকর্ড সর্বোচ্চ ২২৪টি নতুন সংক্রমণ টোকিওতে শনাক্ত করা হয়। এই হিসাব এর আগে এপ্রিল মাসের ১৭ তারিখে গণনা করা ২০৬টির চেয়ে বেশি। টোকিওর গভর্নর ইয়ুরিকো কোইকে সকালে রাখা এক বক্তব্যে বলেছেন, তার বিশ্বাস, নতুন সংক্রমণ শনাক্ত হওয়ার সংখ্যা বৃদ্ধি হচ্ছে পরীক্ষায় বিপুলসংখ্যক মানুষের অংশ নেয়ার ফলাফল এবং এ কারণেই নিয়ন্ত্রণমূলক পদক্ষেপের দিকে এগিয়ে গিয়ে অর্থনীতির ক্ষতি তিনি আর করতে চাইছেন না।
ইরানে আক্রান্ত আড়াই লাখ ছাড়াল : ইরানে বেড়েই চলছে মহামারী করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা। দেশটিতে গত ২৪ ঘণ্টায় আরো ২ হাজার ৭৯ জন করোনা রোগী শনাক্ত করা হয়েছে। এ নিয়ে দেশটিতে মোট আক্রান্তের সংখ্যা আড়াই লাখ ছাড়াল। দেশটিতে বৃহস্পতিবার ২৪ ঘণ্টায় আরো ২২১ জনের মৃত্যু হয়েছে। যা এখন পর্যন্ত এক দিনে সর্বোচ্চ মৃত্যুর রেকর্ড। দেশটিতে এখন পর্যন্ত মোট আক্রান্তের সংখ্যা ২ লাখ ৫০ হাজার ৪৫৮ জন। মৃত্যু হয়েছে ১২ হাজার ৩০৫ জনের। এ ছাড়া সুস্থ হয়ে উঠেছেন ২ লাখ ১২ হাজার ১৭৬ জন।
মুসলিমদের জন্য ডিজিটাল ধর্মীয় সেবা : করোনাভাইরাসকেন্দ্রিক এই দুর্যোগের সময়ে ইসলাম ধর্মাবলম্বীদের মধ্যে ডিজিটাল যোগাযোগ বেড়েছে, বিশেষ করে মসজিদে যারা নিয়মিত আসতেন তাদের মধ্যে। ‘আমরা ডিজিটাল সেবা দিতে গিয়ে খুব ভালো সাড়া পাচ্ছি,’ বার্তা সংস্থা ইপিডিকে জানান জার্মানির মুসলিমদের কেন্দ্রীয় কাউন্সিলের প্রধান নির্বাহী আয়মান মাজিয়েক। কাউন্সিল যেই ডিজিটাল সেবাটি দিচ্ছে তাতে ইমামদের বক্তব্য ও ধর্মোপদেশ ছাড়াও রয়েছে প্রশ্ন ও উত্তরের অংশ। এই সেবা তরুণদের সাহায্য নিয়ে বয়স্করা একসাথে বসে ইন্টারনেট ব্যবহার করে ধর্মীয় তথ্যসেবা গ্রহণ করছেন। মাজিয়েক মনে করেন, করোনাভাইরাস সৃষ্টিকর্তার কোনো সাজা নয়, তবে একটা পরীক্ষা। ‘সাজা নয়, এটি সৃষ্টিকর্তার একটি পরীক্ষা যে, এত বিধিনিষেধ সত্ত্বেও কেমন করে সহানুভূতি, দানশীলতা, ধৈর্য ও ক্ষমার মানসিকতা ধরে রাখতে হয়।’
ইতালিতে ঢুকতে পারবে না ১৩ দেশের নাগরিক : করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব বেড়ে যাওয়া বাংলাদেশসহ ১৩টি দেশের নাগরিকদের প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে ইতালি। যে দেশগুলোর নাগরিকরা প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা দেয়া হয়েছে সেগুলো হলোÑ বাংলাদেশ, আরমেনিয়া, বাহরাইন, ব্রাজিল, বসনিয়া অ্যান্ড হার্জেগোভিনা, চিলি, কুয়েত, উত্তর মেসিডোনিয়া, মলডোভা, ওমান, পানামা, পেরু এবং ডোমিনিকান রিপাবলিক। শুধু এই দেশুগুলোর নাগরিকরাই নন, গত ১৪ দিনের মধ্যে যারা এসব দেশে অবস্থান করেছেন কিংবা দেশগুলো হয়ে ভ্রমণ করেছেন তারও এই নিষেধাজ্ঞার আওয়াতা পড়বেন।
হংকংয়ে সোমবার থেকে সব স্কুল বন্ধ : করোনাভাইরাসের স্থানীয় সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ায় সোমবার থেকে শহরের সব স্কুল বন্ধ ঘোষণা করেছে হংকংয়ের শিক্ষা ব্যুরো। হংকংয়ের বেশির ভাগ স্কুল ফেব্রুয়ারি থেকে বন্ধ। কেউ কেউ অনলাইন ও কনফারেন্স কলে পাঠদান কার্যক্রম চালাচ্ছে। অনেক আন্তর্জাতিক স্কুল এরই মধ্যে গ্রীষ্মের ছুটি দিয়ে দিয়েছে। সম্প্রতি শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের মধ্যে করোনার উপস্থিতি মেলায় এবার সব স্কুল বন্ধ করা হচ্ছে জানালেন শিক্ষাসচিব কেভিন ইউং। বৃহস্পতিবার হংকংয়ে আরো ৪২ জন করোনারোগী শনাক্ত হয়েছেন, যার মধ্যে ৩৪ জন স্থানীয়ভাবে সংক্রমিত।


আরো সংবাদ