০৪ আগস্ট ২০২০

আদালত বন্ধ থাকায় ন্যায়বিচার থেকে বঞ্চিত মানুষ

-
24tkt

করোনাভাইরাসের কারণে গত ১২ মার্চ থেকে সুপ্রিম কোর্টসহ দেশের অধস্তন আদালতগুলোতে নিয়মিত বিচার কার্যক্রম বন্ধ রয়েছে। এ দীর্ঘ সময় নিয়মিত আদালতের কার্যক্রম বন্ধ থাকায় একদিকে বিচারপ্রার্থী সাধারণ মানুষ ন্যায়বিচার থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন। অন্য দিকে আইনজীবীরা যথাযথভাবে তাদের পেশা পরিচালনা করতে পারছেন না ও আর্থিক সঙ্কটে পতিত হচ্ছেন। গত ৮ জুলাই সুপ্রিম কোর্টে সর্বশেষ ফুলকোর্ট সভায় করোনা সংক্রমণের কারণে ভার্চুয়াল পদ্ধতিতেই সুপ্রিম কোর্টের বিচার কার্যক্রম পরিচালনা অব্যাহত রাখার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। একইসাথে আগামী সপ্তাহ থেকে সব বিচারপতিকে পর্যায়ক্রমে কোর্ট পরিচালনার দায়িত্ব দেয়া হবে বলেও সভায় সিদ্ধান্ত হয়।
তবে সুপ্রিম কোর্ট বার থেকে একই দিন প্রধান বিচারপতিকে দেয়া এক চিঠিতে বলা হয়, বেশির ভাগ আইনজীবী নানা সীমাবদ্ধতার কারণে ভার্চুয়াল আদালতে মামলা করার সুযোগ পাচ্ছেন না। আর সিনিয়র আইনজীবী জয়নুল আবেদীন বলেছেন, ভার্চুয়াল কোর্ট পদ্ধতিতে দেশের তিন শতাংশ আইনজীবীও এর সাথে সম্পৃক্ত হতে পারেননি এবং পাঁচ শতাংশ বিচারপ্রার্থীও এর সুফল ভোগ করতে পারেননি। যে কারণে সাধারণ আইনজীবীদের মধ্যে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। এ জন্য স্বাস্থ্যবিধি মেনে আদালত খুলে দেয়ার দাবি জানিয়েছেন আইনজীবীরা।
নিয়মিত আদালত খুলে দেয়ার বিষয়ে গত ৮ জুলাই সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির কার্যকরী কমিটির এক সভা শেষে এ বিষয়ে নেয়া সিদ্ধান্তগুলো প্রধান বিচারপতির কাছে পাঠানো হয়। এতে বলা হয়, গত ১২ মার্চ, থেকে অদ্যাবধি সুপ্রিম কোর্টের নিয়মিত ছুটি এবং ভয়াবহ করোনা পরিস্থিতিতে দেশব্যাপী সরকার ঘোষিত সাধারণ ছুটির কারণে দেশের সর্বোচ্চ আদালতসহ সারা দেশের আদালতগুলোতে নিয়মিত বিচার কার্যক্রম বন্ধ রয়েছে। এমন পরিস্থিতিতেও ইতোমধ্যে সরকার সাধারণ ছুটি বাতিল করেছে। সরকারি বেসরকারি অফিস, ব্যাংক, কলকারখানা, মার্কেট ও গণপরিবহন চালু হয়েছে। কিন্তু স্বাস্থ্যগত ঝুঁকি বিবেচনায় নিয়মিত আদালতের মাধ্যমে বিচার কার্যক্রম শুরু হয়নি। ফলে, একদিকে যেমন আইনজীবীরা যথাযথভাবে তাদের পেশা পরিচালনা করতে পারছেন না ও আর্থিক সঙ্কটে পতিত হচ্ছেন, অন্য দিকে বিচারপ্রার্থী সাধারণ মানুষও ন্যায়বিচার থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন।
সুপ্রিম কোর্ট বারের চিঠিতে আরো বলা হয়, একথা অনস্বীকার্য যে, অনিবার্য পরিস্থিতির কারণেই ভার্চুয়াল আদালতের সৃষ্টি। তবে আমাদের তথ্যানুযায়ী, বেশির ভাগ আইনজীবী নানা সীমাবদ্ধতার কারণে ভার্চুয়াল আদালতে মামলা করার সুযোগ পাচ্ছেন না। এ ছাড়া ভার্চুয়াল আদালতে আগাম জামিনের মতো অতীব গুরুত্বপুর্ণ আইনি ব্যবস্থাপনা না থাকায় বিচারপ্রার্থী জনগণ ব্যাপক পুলিশি হয়রানির শিকার হচ্ছেন। চিঠিতে স্বাস্থ্য সুরক্ষা নিশ্চিত করে অবিলম্বে সুপ্রিম কোর্টসহ দেশের সব আদালত নিয়মিতভাবে চালু করার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে প্রধান বিচারপতির কাছে অনুরোধ জানানো হয়।
এ বিষয়ে সুপ্রিম কোর্ট বারের সাবেক সভাপতি প্রবীণ আইনজীবী খন্দকার মাহবুব হোসেন বলেন, সরকারি ও আধা-সরকারিসহ সব প্রতিষ্ঠানে সীমিত আকারে কার্যক্রম চলছে। সে ক্ষেত্রে দেশের বিচার ব্যবস্থাকে স্বাভাবিক গতিতে চলতে না দিয়ে একদিকে যেমন বিচার প্রার্থী ও অন্য দিকে আইনজীবীরা সঙ্কটে পড়েছেন। তাই, অবিলম্বে সুরক্ষা নীতিমালা অনুযায়ী প্রধান বিচারপতিকে, আইনজীবী ও বিচারপ্রার্থীদের দুর্ভোগের কথা বিবেচনা করে আদালতের স্বাভাবিক কার্যক্রম শুরু করার অনুরোধ জানাচ্ছি। কেননা, ভার্চুয়াল আদালত একটি অতি জরুরি বিধান, এটা দীর্ঘ সময় ধরে চলতে পারে না।
তিনি বলেন, ভার্চুয়াল কোর্টের আগাম জামিনের কোনো সুযোগ না থাকায় দেশের সর্বত্র প্রতিদিন যে, শত শত মামলা দায়ের হয়, যার বেশির ভাগই আক্রোশমূলক সেসব মামলার আসামিরা গ্রেফতারের হাত থেকে রক্ষা পাওয়ার জন্য ঘর ছাড়া হয়, নতুবা অনৈতিক পদ্ধতিতে গ্রেফতার না হওয়ার ব্যবস্থা করতে চরম হয়রানির সম্মুখীন হয়।
এ বিষয়ে সুপ্রিম কোর্ট বারের সাবেক সভািপতি জয়নুল আবেদীন বলেন, ভার্চুয়াল কোর্ট পদ্ধতিতে দেশের তিন শতাংশ আইনজীবীও এর সাথে সম্পৃক্ত হতে পারেননি এবং পাঁচ শতাংশ বিচারপ্রার্থীও এর সুফল ভোগ করতে পারেননি। যে কারণে সাধারণ আইনজীবীদের মধ্যে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। তিনি বলেন, লকডাউন পরবর্তী সময়ে জীবন-জীবিকার কথা চিন্তা করে সরকারের পক্ষ থেকে অফিস, দোকানপাট, মিল, কলকারখানা, বাস, লঞ্চ খুলে দেয়া হয় এবং মহামারী প্রকট আকার ধারণ করে। এই অবস্থায় সাময়িক ব্যবস্থা হিসেবে প্রধান বিচারপতি অল্প কয়েকজন বিচারপতিকে নিয়ে ভার্চুয়াল আদালত চালু করেন। নিঃসন্দেহে এটি একটি ভালো কাজ হয়েছে এবং এ জন্য প্রধান বিচারপতি প্রশংসা পাওয়ার যোগ্য। কিন্তু অত্যন্ত ক্ষোভের সাথে পরিলক্ষিত হচ্ছে যে, ভার্চুয়াল পদ্ধতিকে একটা স্থায়ী পদ্ধতির দিকে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে। সাধারণ আইনজীবী ও বার (আইনজীবী সমিতি) সংশ্লিষ্ট সব আইনজীবীরা এই ব্যবস্থার বিরুদ্ধে।


আরো সংবাদ

হিজবুল্লাহর জালে আটকা পড়েছে ইসরাইল! (২২৭১২)হামলায় মার্কিন রণতরীর ডামি ধ্বংস না হওয়ার কারণ জানালো ইরান (১৪৭৬৭)ভারতের যেকোনো অপকর্মের কঠিন জবাব দেয়ার হুমকি দিলো পাকিস্তান (৮৩২০)মরুভূমির ‘এয়ারলাইনের গোরস্তানে’ ফেলা হচ্ছে বহু বিমান (৮২৯৮)সাবেক সেনা কর্মকর্তাকে গুলি করে হত্যা : পুলিশের ২১ সদস্য প্রত্যাহার (৬৬৬৯)নেপালের সমর্থনে এবার লিপুলেখ পাসে সৈন্য বৃদ্ধি চীনের (৬৩০৬)তল্লাশি চৌকিতে সেনা কর্মকর্তার মৃত্যু দেশবাসীকে ক্ষুব্ধ করেছে: মির্জা ফখরুল (৫৮৯৯)আমিরাতের পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র নিয়ে কেন সন্দিহান ইরান-কাতার? (৫৬৯৭)আবারো তাইওয়ান দখলের ঘোষণা দিল চীন (৫৬২০)করোনায় আক্রান্ত এমপিকে হেলিকপ্টারে ঢাকায় আনা হয়েছে (৪৯৯৯)