০৮ জুলাই ২০২০

বিপর্যয় কাটাতে প্রয়োজন বিশ্ব সংহতি

ভ্যাকসিনে ৮৮০ কোটি ডলারের প্রতিশ্রুতি
-

আক্রান্ত : ৬৭,৪২,৩৮০ মৃত্যু : ৩,৯৪,২০৯
দেশ আক্রান্ত মৃত্যু
যুক্তরাষ্ট্র ১৯,২৬,৩৪১ ১,১০,২৫৬
ব্রাজিল ৬,১৮,৫৫৪ ৩৪,০৭২
রাশিয়া ৪,৪৯,৮৩৪ ৫,৫২৮
স্পেন ২,৮৭,৭৪০ ২৭,১৩৩
ব্রিটেন ২,৮৩,৩১১ ৪০,২৬১
ইতালি ২,৩৪,০১৩ ৩৩,৬৮৯
ভারত ২,৩০,১১৩ ৬,৩৯৩
জার্মানি ১,৮৪,৯২৩ ৮,৭৩৬
পেরু ১,৮৩,১৯৮ ৫,০৩১
তুরস্ক ১,৬৭,৪১০ ৪,৬৩০
করোনাভাইরাস মহামারী প্রতিরোধে একটি কার্যকর ওষুধের খোঁজে মরিয়া গোটা বিশ্ব। জাতিসঙ্ঘের মহাসচিব গুতেরেস মনে করেন, এই প্রাণঘাতী ভাইরাসের কারণে তৈরি হওয়া বিপর্যয় কাটাতে কেবল একটি টিকাই যথেষ্ট নয়, প্রয়োজন বিশ্বব্যাপী সংহতি। টিকা তৈরি করার পর বিশ্বব্যাপী সবার কাছে তা সহজলভ্য হতে হবে, এমনটাই মনে করেন গুতেরেস। নয়তো করোনা মোকাবলার প্রচেষ্টা ব্যর্থ হবে। জাতিসঙ্ঘ প্রধান টুইটারে লিখেছেন, ‘ঠিক এখন বিশ্বে কোভিড-১৯ টিকা নেই। আমরা যদি একসাথে হয়ে এটা উদ্ভাবন করি, তখন একটা গুরুত্বপূর্ণ শিক্ষা আমাদের মনে আনতে হবে। একটি টিকাই যথেষ্ট নয়। বিশ্বের সব স্থানে, প্রত্যেক ব্যক্তির কাছে তা যেন সহজলভ্য হয় তা নিশ্চিত করতে আমাদের বিশ্ব সংহতি প্রয়োজন।’ এ দিকে বিশ্বজুড়ে গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে এক লাখ ২৯ হাজার মানুষ। প্রাণ হারিয়েছেন পাঁচ হাজারের বেশি। আক্রান্তদের মধ্যে সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ৩২ লাখ ৪৪ হাজার ৫৭৪ জন। শীর্ষ আক্রান্ত দেশ যুক্তরাষ্ট্রে বুধবারও ১ হাজারের বেশি মানুষের প্রাণহানি হয়েছে। খবর, এএফপি, ভয়েস অব আমেরিকা, সিএনএন, বিবিসি, রয়টার্স, টেলিগ্রাফ, দ্য নিউ ইয়র্ক টাইমস, আল জাজিরা, আনন্দবাজার পত্রিকা, গার্ডিয়ান, আল আরাবিয়া দৈনিক আল-ওকাজ, গালফ নিউজ, জিও টিভি, ইন্ডিয়া টাইমস ও ওয়ার্ল্ডোমিটারসের।
ভ্যাকসিন সম্মেলনে ৮৮০ কোটি ডলারের তহবিলের প্রতিশ্রুতি : যুক্তরাজ্যের উদ্যোগে আয়োজিত বিশ্ব ভ্যাকসিন সম্মেলনে বিশ্বের ৩০ কোটি শিশুর রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে ও কোভিড-১৯ মোকাবেলায় সহায়তার জন্য ৮৮০ কোটি ডলারের তহবিলের প্রতিশ্রুতি এসেছে। ২০২৫ সাল নাগাদ হাম, পোলিও ও ডিপথেরিয়ার মতো রোগের বিরুদ্ধে বিশ্বের দরিদ্রতম দেশগুলোর শিশুদের রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে ও বিশ্বজুড়ে করোনাভাইরাস প্রতিরোধে অবকাঠামো নির্মাণসহ স্বাস্থ্যসেবার সহায়তায় এই তহবিল ব্যয় হবে। বৃহস্পতিবার গ্লোবাল অ্যালায়ান্স ফর ভ্যাকসিন অ্যান্ড ইমিউনাইজেশন (গ্যাভি) আয়োজিত ভার্চুয়াল এ সম্মেলনে এই তহবিলের প্রতিশ্রুতি আসে বলে এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে। ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসনের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত সম্মেলনে ৩৫ রাষ্ট্রপ্রধানসহ ৫২টি দেশের সাথে বৈশ্বিক স্বাস্থ্য সংস্থা, বেসরকারি খাত, ভ্যাকসিন প্রস্তুতকারক ও সুশীলসমাজের প্রতিনিধিরা যোগ দেন।
লকডাউনে সৌদিতে বেড়েছে বিবাহ বিচ্ছেদ : মধ্যপ্রাচ্যের অতি-রক্ষণশীল দেশ সৌদি আরবে করোনাভাইরাস সঙ্কটে লকডাউনের কারণে নাগরিকদের ঘরে বন্দিদশায় বিবাহ বিচ্ছেদের পরিমাণ অন্তত ৩০ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছে। লকডাউনের কারণে অনেক পুরুষের একাধিক স্ত্রী থাকার খবর প্রকাশ হওয়ার পর দেশটিতে বিবাহ বিচ্ছেদ বেড়েছে এক-তৃতীয়াংশ। তারা বিয়ের পর একজনের খবর অন্যজনের কাছে গোপন রেখেছিলেন। লকডাউনের কারণে তা ফাঁস হয়ে যাওয়ায় বিচ্ছেদ বেড়েছে। করোনাভাইরাসের বিস্তার ঠেকাতে প্রথম দফায় কারফিউ এবং ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা জারির পর গত ফেব্রুয়ারিতেই দেশটিতে ৭ হাজার ৮৪২ জনের বিবাহ বিচ্ছেদ ঘটে। করোনাভাইরাস মহামারীর কারণে আদালতের কার্যক্রম স্থগিত হয়ে যাওয়ায় পরবর্তী মাসগুলোতে কতসংখ্যক বিচ্ছেদ ঘটেছে তা জানা যায়নি।
নতুন মৃত্যুপুরী পেরুতে ৫ হাজারের বেশি মৃত্যু : প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসে বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে লাতিন আমেরিকা। ব্রাজিল, পেরু, চিলি, মেক্সিকোর মতো দেশগুলোতে আক্রান্ত ও মৃত্যু হু হু করে বাড়ছেই। এখন পর্যন্ত করোনায় লাতিন আমেরিকার দেশগুলোর মধ্যে সবচেয়ে বেশি আক্রান্ত ও মৃত্যু দেখেছে ব্রাজিল। এরপরেই রয়েছে পেরু। দেশটিতে ইতোমধ্যেই করোনায় মৃত্যু ৫ হাজার ছাড়িয়ে গেছে। পেরুর স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের হিসাব অনুযায়ী, দেশটিতে এখন পর্যন্ত মারা গেছে ৫ হাজার ৩১ জন। পেরুতে এখন পর্যন্ত করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ১ লাখ ৮৩ হাজার ১৯৮ জন। এর মধ্যে সুস্থ হয়ে উঠেছেন ৭৬ হাজার ২২৮ জন।
অক্সফোর্ডের ভ্যাকসিনের ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল ব্রাজিলে : করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা রাশিয়াকে পেছনে ফেলে দ্বিতীয় স্থানে ব্রাজিলে প্রথমবারের মতো কোভিড ভ্যাকসিনের ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল শুরু হতে যাচ্ছে। যুক্তরাজ্যের অক্সফোর্ড ইউনিভার্সিটি ও অ্যাস্ট্রোজেনেকা ফার্মাসিউটিক্যালস কোম্পানির ভ্যাকসিন ক্যানডিডেট দিয়ে এই পরীক্ষা হবে। ব্রাজিলের হেলথ সার্ভিলেন্স এজেন্সি অ্যানভিসা ও সাও পাওলোর ফেডারেল ইউনিভার্সিটির যৌথ উদ্যোগে অক্সফোর্ডের ডিএনএ ভ্যাকসিনের ট্রায়াল শুরু হবে জুন মাসে। অ্যানভিসা জানিয়েছে, ভ্যাকসিনের ট্রায়ালের জন্য দুই হাজার মানুষকে বেছে নেয়া হয়েছে।
আক্রান্তের সংখ্যায় চীনকে ছাড়িয়ে গেল পাকিস্তান : দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোতে ভয়ঙ্কর রূপ নিয়েছে করোনাভাইরাস। বেশ কিছুদিন আগেই সংক্রমণ ও মৃত্যুর সংখ্যায় করোনার উৎসস্থল চীনকে ছাড়িয়ে যায় ভারত। এবার পাকিস্তানও আক্রান্তের সংখ্যায় চীনকে ছাড়িয়ে গেছে। শীর্ষ আক্রান্ত দেশের তালিকায় পাকিস্তানের অবস্থান এখন ১৭তম। বর্তমানে চীনের অবস্থান তালিকার ১৮ নম্বরে এসে দাঁড়িয়েছে। বৃহস্পতিবার আক্রান্তের সংখ্যায় চীনকে পেছনে ফেলেছে পাকিস্তান। পূর্ববর্তী ২৪ ঘণ্টায় দেশটিতে ৪ হাজার ৬৮৮ জনের করোনা শনাক্ত হয়। তাতে মোট আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়ায় ৮৫ হাজার ২৪৬ জনে। এদিকে চীনে আক্রান্তের সংখ্যা ৮৪ হাজার ১৭১ জন।
কিছু মানুষ আক্রান্ত হবে না করোনায়: পৃথিবীর সমস্ত মানুষের শরীরে সংক্রমণ ঘটানোর সক্ষমতা নেই করোনাভাইরাসের। সম্প্রতি এক নতুন গবেষণা বলছে, কিছু মানুষের শরীরে এমন ধরনের ‘টি সেল’ রয়েছে যার কারণে তারা কখনো আক্রান্ত হবে না। বিভিন্ন ধারার ভাইরাস দ্বারা সংক্রমিত হওয়ার কারণে অনেক মানুষের শরীরে ভাইরাসবিরোধী টি সেল তৈরি হয়। এই সেল করোনা রুখে দিতে সক্ষম। বিজ্ঞানভিত্তিক ওয়েবসাইট সায়েন্স অ্যালার্ট বলছে, চিকিৎসাবিজ্ঞানে এই সক্ষমতাকে বলা হয় ‘ক্রস-রিয়েক্টিভিটি’। গবেষণার সহকারী আলেসান্দ্রো সেটে বলেছেন, ‘টি সেল’ খুব দ্রুত শক্তিশালী রোগ প্রতিরোধ প্রতিক্রিয়া দেখাতে পারে। ভাইরাস শরীরে ছড়িয়ে পড়ার চেষ্টা করলেও টি সিলের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা এটিকে প্রতিহত করতে সক্ষম হয়।
অফিসে করোনা সংক্রমণ প্রতিরোধে নতুন নির্দেশনা : ভারতে কর্মক্ষেত্রকে করোনাভাইরাসমুক্ত রাখতে নতুন নির্দেশনা জারি করেছে দেশটির কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়। নির্দেশনায় বলা হয়েছে, শুধু উপসর্গহীন কর্মীরাই অফিস করার অনুমতি পাবেন। জ্বর, সর্দি-কাশি নিয়ে অফিসে যাওয়া যাবে না। অফিসে কোনও অতিথি বা ভিজিটর এলে তার ক্ষেত্রেও একই নিয়ম। যেসব কর্মী কোয়ারেন্টিন জোনে থাকেন তারাও অফিসে যেতে পারবেন না। ওই এলাকা কোয়ারেন্টিনমুক্ত না হওয়া পর্যন্ত তাদের বাসায় থেকেই কাজ করতে হবে। অফিসে সবাইকেই ফেস কভার বা মাস্ক পরতে হবে। এগুলো না পরলে কাউকে অফিসে প্রবেশ করতে দেয়া হবে না। অফিস কর্তৃপক্ষকে পুরো অফিস জীবাণুমুক্ত করতে হবে। কর্মীদের সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করতে হবে। বারবার হাত ধুতে বা স্যানিটাইজার ব্যবহার করতে হবে। সব কর্মীর ফোনে আরোগ্য সেতু অ্যাপ থাকা বাধ্যতামূলক। সবার থার্মাল স্ক্রিনিং করতে হবে। অন্তত এক মিটার দূরত্ব বজায় রেখে কর্মীদের বসাতে হবে।
করোনায় আক্রান্ত ভারতের প্রতিরক্ষা সচিব : ভারতের প্রতিরক্ষা সচিব অজয় কুমার নতুন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন বলে দেশটির কর্মকর্তারা নিশ্চিত করেছেন। আক্রান্ত এ কর্মকর্তা এখন কোয়ারেন্টিনে আছেন; তার অবস্থা স্থিতিশীল বলেও জানিয়েছেন তারা। সচিবের দেহে প্রাণঘাতী ভাইরাসের উপস্থিতি শনাক্ত হওয়ার পর থেকে ভারতের প্রতিরক্ষা মন্ত্রী রাজনাথ সিং বাড়ি থেকেই মন্ত্রণালয়ের কাজ সামলাচ্ছেন। রাজনাথের দেহে করোনাভাইরাসের উপস্থিতি শনাক্তে কোনো পরীক্ষা হয়েছে কিনা, তা নিশ্চিত হওয়া যায়নি। অজয়ের আগে ভারতের অর্থ মন্ত্রণালয়ের চার কর্মীর দেহেও প্রাণঘাতী এ ভাইরাসের উপস্থিতি মিলেছিল।
উচ্চরক্তচাপের রোগীদের করোনায় মৃত্যুর ঝুঁঁকি দ্বিগুণ: উচ্চরক্তচাপের রোগীদের করোনায় মৃত্যুর ঝুঁকি বেশি। সাম্প্রতিক সময়ে এক গবেষণা বলছে, উচ্চরক্তচাপ আছে এমন রোগীদের করোনায় মৃত্যুর হার দ্বিগুণ। উচ্চরক্তচাপ গুরুতর লক্ষণগুলোর ঝুঁকি আরো খারাপ দিকে নিয়ে যায়। ইউরোপিয়ান হার্ট জার্নালের সাম্প্রতিক এক গবেষণা দেখিয়েছে এই ঝুঁকি কতটা ভয়াবহ। চীনের জিজিয়াং হাসপাতালের কার্ডিওলজি বিভাগের ফেই লি এবং লিং তাও বলেন, উহানে গত ফেব্রুয়ারিতে যখন কোভিড-১৯ আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসা দেয়া শুরু করলাম আমরা লক্ষ্য করলাম যে, যারা মারা যাচ্ছে তাদের মধ্যে প্রায় অর্ধেকই ছিল উচ্চ রক্তচাপের রোগী। যাদের মধ্যে করোনার কম লক্ষণ থাকে তাদের চেয়ে উচ্চরক্তচাপে আক্রান্তদের মৃত্যুহার বেশি। উচ্চরক্তচাপ আছে এমন ৪ শতাংশ রোগী মারা গেছে। অপর দিকে, উচ্চ রক্তচাপ নেই এমন ১ দশমিক ১ শতাংশ রোগী মারা গেছে।
টাক মাথার লোকজনের করোনার ঝুঁকি বেশি : টাক মাথার লোকজন সম্ভব করোনার উচ্চ ঝুঁকিতে রয়েছেন। সাম্প্রতিক সময়ের এক গবেষণা তাই বলছে। গবেষকরা বলছেন, টাক মাথার সাথে করোনাভাইরাসের সম্পর্ক বেশ তীব্র। পুরুষের শরীরের বেশ কিছু হরমোন যেমন টেস্টোস্টেরোনের মতো হরমোন কেবলমাত্র চুল পড়ার জন্যই দায়ী নয় বরং এটি কোষে করোনার আক্রমণের ক্ষমতা বাড়িয়ে দেয়। সে কারণেই যাদের টাক পড়ছে তাদের শরীরে খুব সহজেই বাসা বাঁধতে সক্ষম করোনা। টাক মাথায় করোনার ঝুঁকির বিষয়টিকে গ্যাব্রিন সাইন হিসেবে উল্লেখ করে থাকেন গবেষকরা। ব্রাউন ইউনিভার্সিটির প্রফেসর কার্লোস ওয়ামবিয়ের বলেন, মাথায় টাক পড়ার বিষয়টি স্বাস্থ্যঝুঁকির তীব্রতা সম্পর্কে উপযুক্ত ভবিষ্যদ্বাণী দিচ্ছে। অর্থাৎ স্বাস্থ্যের বিষয়ে আমাদেরকে আগে থেকেই সচেতন করছে।
করোনা মৃত্যুতে ইতালিকে ছাড়িয়ে গেল ব্রাজিল : ইতালিকে ছাড়িয়ে করোনাভাইরাসে সর্বোচ্চ মৃত্যুর দিক দিয়ে তৃতীয় স্থানে এখন ব্রাজিল। গত ২৪ ঘণ্টায় ব্রাজিলে করোনাভাইরাসে নতুন করে মারা গেছেন ১ হাজার ৪৭৩ জন। ব্রাজিলে এ পর্যন্ত করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ৩৪ হাজার বেশি মানুষ। দেশটির স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে এমনটি বলা হয়েছে। ব্রাজিলে এ পর্যন্ত করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে ৬ লাখ ১৫ হাজার ৮৭০ জন। এমন পরিস্থিতির মধ্যেই ব্রাজিলের প্রেসিডেন্ট জাইর বলসোনারো বলেছেন, ‘মৃত্যুই সবার নিয়তি।’
দক্ষিণ আফ্রিকায় ২৪ ঘণ্টায় আক্রান্ত ৩,২৬৭ : দক্ষিণ আফ্রিকায় গত ২৪ ঘণ্টায় সর্বোচ্চ রেকর্ড পরিমাণ ৩ হাজার ২৬৭ জন করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। দেশটিতে মহামারী ছড়িয়ে পড়ার পর আক্রান্তের এই সংখ্যা সবচেয়ে বেশি। দেশটির স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় জানায়, এ পর্যন্ত করোনায় মোট ৪০ হাজার ৭৯২ জন আক্রান্ত হয়েছেন। গত ২৪ ঘণ্টায় ৫৬ জনের মৃত্যু হয়েছে, মোট মৃতের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৮৪৮ জন।
কোভিড-১৯ টিকা যেকোনো সময়ের চেয়ে গুরুত্বপূর্ণ: হাতেগোনা কয়েকটি ছাড়া অধিকাংশ দেশই নোভেল করোনাভাইরাস মহামারীর বিরুদ্ধে লড়ছে। তবে এ লড়াই বড্ড একপেশে। ভাইরাসটির কাছে মানবজাতি আসলে অসহায়। এ মুহূর্তে টিকার খুব প্রয়োজন। আমেরিকান ধনকুবের বিল গেটসও টিকা নিয়ে আকুতির কথা জানালেন। তিনি বলেছেন, ভবিষ্যতে করোনাভাইরাসের সফল টিকা পাওয়া গেলে তা যেন বিশ্বের সব মানুষ সমানভাবে পায়। টিকার জন্য সাহায্য করা অন্য যেকোনো সময়ের চেয়ে এখন গুরুত্বপূর্ণ এবং প্রতিটি ডোনেশনের অর্থ ‘আমরা আরো বেশি মানুষকে বাঁচাতে পারব’।
করোনাকালে অন্যান্য টিকা কার্যক্রম ব্যাহত : নোভেল করোনাভাইরাসটির কারণে উদ্ভূত পরিস্থিতিতে শিশুদের অন্যান্য রোগের টিকা খাওয়ানোর কার্যক্রমটা বিশ্বজুড়েই থমকে আছে। এতে প্রতিরোধযোগ্য রোগে বিশ্বে লাখ লাখ শিশু মারা যেতে পারে বলে হুঁশিয়ার করে দিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা। অন্তত ৬৮টি দেশে শিশুদের টিকাকার্যক্রম বাধাগ্রস্ত হয়েছে এবং কিছু দেশে তো কার্যক্রম পুরোপুরিই বন্ধ রয়েছে। জাতিসঙ্ঘের শিশু তহবিল (ইউনিসেফ), দ্য সাবিন ভ্যাকসিন ইনস্টিটিউট এবং ভ্যাকসিন অ্যালায়েন্স গাভি উদ্বেগ প্রকাশ করে বলছে, প্রতিদিন অযথাই হাজার হাজার শিশুর মৃত্যু হতে পারে। করোনাভাইরাসের কারণে দক্ষিণ পূর্ব এশিয়ায় ৩ কোটি ৪৮ লাখ ও আফ্রিকায় ২ কোটি ২৯ লাখ শিশুকে টিকা দেয়া যায়নি। এ কারণে নেপাল ও কম্বোডিয়ায় হাম; ইথিওপিয়ায় হাম, কলেরা ও হলুদ জ¦রের প্রাদুর্ভাব ঘটেছে।
ভারতে লকডাউনে বেড়েছে গর্ভধারণ : জাতিসঙ্ঘের পপুলেশন ফান্ডের (ইউএনএফপিএ) হিসাব অনুযায়ী, অল্প ও মধ্য আয়ের দেশগুলোর অন্তত ৪ কোটি ৭০ লক্ষ মহিলা অত্যাধুনিক গর্ভনিরোধক ব্যবহার করতে পারছেন না। যার ফলে আর কয়েক মাসের মধ্যে ওই দেশগুলোতে অনিচ্ছাকৃত মাতৃত্বের শিকার হতে হবে আরো অন্তত ৭০ লক্ষ মহিলাকে।
ভারতেও এই সমস্যা জাঁকিয়ে বসছে বলে মত এ দেশের চিকিৎসকদের। গর্ভধারণের ঘটনা বেড়ে যাওয়ার নেপথ্যে বেশ কিছু কারণ উঠে আসছে বিশেষজ্ঞদের কথায়। যেমন: গর্ভরোধকের অভাব, ক্লান্তি ও টেনশন কম, সঙ্গমই হয়ে উঠছে উদ্বেগ কমানোর মন্ত্র, পরিযায়ীরাও ফ্যাক্টর, সচেতনতার অভাব ইত্যাদি।
অক্সফোর্ডের ভ্যাকসিনের ২০০ কোটি ডোজ আসছে: ব্রিটিশ-সুইডিশ ওষুধ উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান অ্যাস্ট্রাজেনেকা গত মাসেই ঘোষণা দিয়েছিল অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের তৈরি কোভিড-১৯ এর ভ্যাকসিন পরীক্ষামূলক প্রয়োগে সফলতা পেলে এ বছর ১০০ কোটি ডোজ সরবরাহ করতে সক্ষম হবে তারা। তবে বৃহস্পতিবার কোম্পানিটি জানিয়েছে, ২টি নতুন চুক্তি হওয়ার পর তাদের সক্ষমতা দ্বিগুণ হয়ে যাচ্ছে। এখন তারা ২০০ কোটি ডোজ টিকা সরবরাহ করতে পারবে। মার্কিন সংবাদমাধ্যম সিএনবিসির প্রতিবেদন থেকে জানা গেছে, এর মধ্যে যুক্তরাষ্ট্র ও যুক্তরাজ্যের জন্য ৪০ কোটি ডোজ এবং নি¤œ ও মধ্যম আয়ের দেশের জন্য ১০০ কোটি ডোজ বরাদ্দ করা হয়েছে।
মমতার দফতরে করোনার থাবা : ভারতে হু হু করে বাড়ছে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা। পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের দফতর নবান্নেও হানা দিয়েছে এই করোনা। নবান্নে দুই কর্তার গাড়িচালকের করোনা পজিটিভ ধরা পড়েছে। নবান্নে মুখ্যমন্ত্রী দফতরের সেক্রেটারি গৌতম সান্যালের গাড়িচালক করোনা আক্রান্ত। সেই সাথে মুখ্যমন্ত্রী দফতরে সৌম্য হালদার ও তার গাড়িচালকও করোনায় আক্রান্ত।
চোখের জল থেকেও ছড়াতে পারে করোনা: আমেরিকান অ্যাকাডেমি অব অপথ্যালমোলজির গবেষকরা জানিয়েছেন, যদি কোনো করোনা আক্রান্ত রোগীর চোখের জল সুস্থ ব্যক্তির শরীরে লেগে যায়, তবে করোনা সংক্রমণের আশঙ্কা থাকছে। চিকিৎসকরা বলছেন, চোখ করোনা সংক্রমণের অন্যতম পথ হতে পারে। বারবার চোখ রগড়ানো উচিত নয়। বিশেষত হাত না ধুয়ে চোখে হাত দেওয়া সংক্রমণ ঘটাতে পারে। কারণ যে হাত দিয়ে মুখ ঢেকে হাঁচছেন বা কাশছেন, সেই হাত না ধুয়ে চোখে দিলে জীবাণু ছড়িয়ে পড়তেই পারে। এ ছাড়াও বারবার হাত ধোয়া দরকার বলে জানিয়েছেন বিজ্ঞানীরা। চোখ থেকে সংক্রমণ রোখার আরো একটি উপায় হলো চশমা পরা। রোদ চশমা বা সাধারণ চশমা পরে থাকলে চোখে হাত যাওয়ার সম্ভাবনা কম। ফলে সংক্রমণও কম ছড়াবে।
গণপরিবহনে মাস্ক পরা বাধ্যতামূলক : করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে ব্রিটেনে মাস্ক পরা বাধ্যতামূলক করা হচ্ছে। দেশটির বাস, সাবওয়ে এবং ট্রেনে আগামী ১৫ জুন থেকে অবশ্যই সব যাত্রীকে মাস্ক পরে চলাফেরা করতে হবে। মাস্ক না পরলে যাত্রীদের বাস বা ট্রেনে উঠতে দেয়া হবে না। মাস্কবিহীন যাত্রীদের বড় অঙ্কের অর্থ জরিমানাও গুনতে হবে। বাসে বা ট্রেনে যে সব স্টাফ সরাসরি যাত্রীদের মুখামুখি হবেন তাদেরকেও মাস্ক পরতে হবে। এদিকে স্কটল্যান্ডেও বাস, ট্রেনসহ সব ধরনের পাবলিক ট্রান্সপোর্টে মাস্ক পরা বাধ্যতমূলক বলে বৃহস্পতিবার ঘোষণা দিয়েছেন স্কটিশ ফার্স্ট মিনিস্টার নিকোলা স্টোরজান।
মন্দায় পড়েছে অস্ট্রেলিয়ার অর্থনীতি : করোনাভাইরাসের পরিস্থিতির উন্নতি হলেও মন্দায় পড়েছে অস্ট্রেলিয়ার অর্থনীতি। এমনটিই ঘোষণা দিয়েছেন দেশটির অর্থমন্ত্রী জশ ফ্রাইডেনবার্গ। গত ২৯ বছরে এই প্রথম এমন মন্দায় পড়ল অস্ট্রেলিয়ার অর্থনীতি। দেশটির পরিসংখ্যান ব্যুরো অস্ট্রেলিয়ান ব্যুরো অব স্ট্যাটিসটিকস (এবিএস) জানায়, করোনার প্রাদুর্ভাবে থেমে গেছে দেশের অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ড। বেকার হয়ে আছে বিপুলসংখ্যক মানুষ। ফলে ৩১ মার্চে শেষ হয়ে যাওয়া এই বছরের প্রান্তিকে জিডিপি কমে যায় ০ দশমিক ৩ শতাংশ।
আতঙ্কে দিন কাটাচ্ছেন কানাডার অধিবাসীরা : একদিকে অর্থনীতি সচল রাখা আর অন্য দিকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলা সবকিছু মিলে এখনো কানাডার অধিবাসীরা আতঙ্কের মধ্যে দিন কাটাচ্ছেন। কানাডায় গত দুই মাসের তুলনায় লোকজন এখন ঘর থেকে বাইরে বের হচ্ছেন বেশি। প্রচুর সংখ্যক লোক ও গাড়ির সমাগম ঘটেছে রাস্তাঘাটে। বিভিন্ন অফিস-আদালত ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে স্বাস্থ্য সুরক্ষায় মাস্ক ও হ্যান্ড স্যানিটাইজার ব্যবহার করা হচ্ছে। কানাডায় এখন গ্রীষ্মকাল থাকায় অনেকেই সতর্কতার সঙ্গে বের হচ্ছে বিভিন্ন পার্ক ও রাস্তায়। যদিও করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা কানাডায় দিন দিন বেড়েই চলছে। কানাডায় ৩৭ মিলিয়ন সিরিঞ্জ সরবরাহের জন্য আন্তর্জাতিক একটি কোম্পানিকে দিয়েছে।
১৫০ ভেন্টিলেটর নিয়ে রাশিয়ায় মার্কিন সামরিক বিমান: করোনাভাইরাস মহামারী মোকাবেলায় রাশিয়াকে সাহায্যের জন্য আরো ১৫০টি ভেন্টিলেটর অনুদান দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। মার্কিন দূতাবাস জানিয়েছে, অনুদানের ১৫০টি ভেন্টিলেটর নিয়ে একটি মার্কিন সামরিক বিমান বৃহস্পতিবার মস্কোয় অবতরণ করেছে। দুই সপ্তাহ আগে প্রথম যুক্তরাষ্ট্র থেকে ভেন্টিলেটরের প্রথম চালান আসে মস্কোয়। এই নিয়ে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের অনুদানের ২০০ ভেন্টিলেটর এসে পৌঁছালো রাশিয়ায়।


আরো সংবাদ

মানুষের সাইজের বাদুড় ফিলিপাইনে! ভাইরাল ছবিটি ঘিরে জল্পনা-আতঙ্ক... বন্ধের আশঙ্কায় ২৫ হাজার বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান পরীক্ষা দিতে যাওয়ার সময় বাস উল্টে ২১ জনের মৃত্যু ৫৮ বছরের পুরনো খবর যে কারণে ভাইরাল পার্বত্য এলাকায় একের পর এক হত্যাকাণ্ড আর সংঘর্ষ হচ্ছে কেন? অর্থ আত্মসাতের অভিযোগে ক্রেস্টের এমডি রিমান্ডে, স্ত্রী কারাগারে ইসরাইলি দখলের বিরুদ্ধে বিশ্বের কার্যকর অবস্থান চায় আরব ভারত : ধাঁধা দু’টির জবাব মেলেনি মুরাকামি ও প্রাচ্য-পাশ্চাত্যের মেলবন্ধন ইসরাইলের ভূমি দখল পরিকল্পনা তৃতীয় ইন্তিফাদা রোগীর চিকিৎসা করাতে এসে হাসপাতাল থেকে ৪০ হাজার টাকা ছিনিয়ে নেয়ার অভিযোগ

সকল