০৩ এপ্রিল ২০২০

করোনা ঠেকাতে লকডাউনে ৩০০ কোটি মানুষ

-

বিশ্বজুড়ে মহামারী আকারে ছড়ানো করোনাভাইরাসের বিস্তার ঠেকাতে সরকারগুলো তাদের চেষ্টা আরো জোরদার করেছে। কিছু কিছু দেশ পুরোপুরি লকডাউন করে দিয়েছে, কয়েকটি দেশজুড়ে কারফিউ জারি করা হয়েছে। অনেক দেশ গুরুত্বপূর্ণ অনেক শহর ও অঞ্চল অবরুদ্ধ করে রেখেছে। এর ফলে বিশ্বজুড়ে তিন বিলিয়ন বা ৩০০ কোটিরও বেশি মানুষ লকডাউনে থাকতে বাধ্য হয়েছেন। লকডাউন অবস্থায় থাকা মানুষকে নিজ বাড়িতে থাকার নির্দেশ দেয়া হয়েছে অথবা আহ্বান জানানো হয়েছে। বিবিসি, আল জাজিরা, ব্লুমবাগর্, বিজনেস ইনসাইডার ও এনডিটিভি।
ক্রমেই ভয়ঙ্কর হয়ে ওঠা মহামারী করোনাভাইরাসের কারণে গণকোয়ারেন্টিনকে কার্যকর করেছে ভারত, চীন, ফ্রান্স, ইতালি, নিউজিল্যান্ড, পোল্যান্ড ও যুক্তরাজ্য। বিশ্বব্যাপী করোনাভাইরাসে সংক্রমিত হয়ে মারা গেছেন ২২ হাজারেরও বেশি মানুষ এবং প্রায় পাঁচ লাখ মানুষ আক্রান্ত হয়েছেন। আক্রান্তদের মধ্যে এক লাখ ১৮ হাজার মানুষ চিকিৎসা নিয়ে সুস্থ হয়ে উঠেছেন।
ভাইরাসটি প্রথম ধরা পড়ার পর ছয় সপ্তাহেরও বেশি সময় ধরে চীনের উহান বন্ধ ছিল এবং এখনো চীনের অনেক শহর ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা বলবৎ রয়েছে। বিশ্বব্যাপী দেশগুলো জাতীয়ভাবে কোয়ারেন্টিনের জন্য স্কুল বন্ধ করেছে। করোনাভাইরাসের ছড়িয়ে পড়ার গতিকে হ্রাস করার জন্য নানা ব্যবস্থা বাস্তবায়ন করছে। করোনার প্রাদুর্ভাবকে মহামারী হিসেবে ঘোষণা করেছে। সমস্ত দেশকে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা সীমাবদ্ধ করতে এবং ভাইরাসের বিস্তারকে কমিয়ে দেয়ার ক্ষেত্রে কার্যকর প্রচেষ্টা চালিয়ে যাওয়ার আহ্বান জানিয়েছে।
২১ দিনের লকডাউনে দক্ষিণ আফ্রিকা : লকডাউনের সময় কেবল প্রয়োজনীয় ব্যবসাগুলো উন্মুক্ত থাকবে এবং সেনা ও পুলিশরা রাস্তাগুলো পর্যবেক্ষণ করবে। প্রেসিডেন্ট সিরিল রামাফোসা বলেছেন, যদিও এই পদক্ষেপটি মানুষের জীবন-জীবিকার ওপর, আমাদের সমাজের ওপর এবং আমাদের অর্থনীতিতে যথেষ্ট প্রভাব ফেলবে। তবে এই পদক্ষেপ নিতে বিলম্ব করার জন্য মানুষকে আরো অনেক বেশি মূল্য দিতে হবে।
কোয়ারেন্টিন ভাঙলে ইতালিতে পাঁচ বছরের কারাদণ্ড : করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব মোকাবেলা করতে আরোপ করা আইনের বাস্তবায়নে কড়াকড়ি আরোপ করেছে ইতালি। ভাইরাস শনাক্ত হওয়া কোনো ব্যক্তি যদি কোয়ারেন্টিনের নিয়ম ভাঙেন, তাহলে তাকে জরিমানাসহ সর্বোচ্চ পাঁচ বছরের কারাদণ্ড শাস্তির নিয়ম করা হয়েছে।
গত ২৪ ঘণ্টায় সবচেয়ে বেশি মানুষ মারা গেছেন ইতালিতে। এ দিন দেশটিতে করোনাভাইরাস প্রাণ কেড়েছে অন্তত ৬৮৩ জনের, নতুন রোগী শনাক্ত হয়েছেন পাঁচ হাজার ২১০ জন। এ নিয়ে সেখানে মোট আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৭৪ হাজার ৩৮৬ জন, মারা গেছেন সাত হাজার ৫০৩ জন।
রুয়ান্ডায় লকডাউন অমান্য করায় দুই যুবককে গুলি : করোনাভাইরাসের প্রকোপ কমাতে দেশব্যাপী ঘোষিত লকডাউন অমান্য করে বাড়ির বাইরে আসায় রুয়ান্ডায় দুই যুবককে গত বুধবার গুলি করে হত্যা করেছে পুলিশ। রুয়ান্ডা ন্যাশনাল পুলিশের মুখপাত্র জন বস্কো ক্যাবেরা বলেন, নিহত দুই যুবক পুলিশের সাথে ধস্তাধস্তি শুরু করেন। এরপর তাদের গুলি করা হয়।
পূর্ব আফ্রিকার দেশগুলোর মধ্যে রুয়ান্ডার করোনাভাইরাসে আক্রান্ত মানুষের সংখ্যা সবচেয়ে বেশি। আর উপসাহারা অঞ্চলের দেশের মধ্যে এখানেই প্রথম করোনার সংক্রমণ রোধে লকডাউন ঘোষণা করা হয়। সপ্তাহব্যাপী লকডাউন শুরু হয় গত রোববার থেকে। শুধু জরুরি পরিষেবাগুলো এ সময় চালু আছে।
এক মাসের লকডাউনে নিউজিল্যান্ড : নিউজিল্যান্ড দেশে প্রবেশকারী সবার জন্য ১৪ দিনের বাধ্যতামূলক কোয়ারেন্টিন কার্যকর করেছে। বুধবার থেকে পুরো লকডাউনে রয়েছে দেশটি। দেশটিতে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা প্রায় ৫০ শতাংশ বেড়েছে। গত বুধবার মধ্যরাত থেকে কার্যকর হওয়া বিধিনিষেধের আওতায় বন্ধ থাকবে অপ্রয়োজনীয় পরিষেবা, স্কুল ও অফিস। এই লকডাউন কেবল এক মাস পরে কিছুটা সহজ হবে যদি আক্রান্তের প্রবণতা কমে যায়।
মঙ্গলবার পার্লামেন্টে এক জরুরি ঘোষণায় প্রধানমন্ত্রী জেসিন্ডা আর্ডারন বলেন, আজ মধ্য রাত থেকে করোনাভাইরাসকে প্রতিহত করতে আগামী চার সপ্তাহের জন্য আমরা আত্মগোপনে চলে যাবো। পরিস্থিতি ভালো হওয়ার আগে কেউ কোনো ভুল করবেন না। নয়তো পরিস্থিতি আরো খারাপ হতে পারে।
লকডাউনে রিয়াদ, মক্কা ও মদিনা : সৌদি আরবের পবিত্র দুই শহর মক্কা ও মদিনা এবং রাজধানী রিয়াদ লকডাউনে রয়েছে। এসব শহরের বাসিন্দাদের শহরে প্রবেশ বা শহর থেকে বের হওয়ার অনুমতি দেয়া হবে না।
করোনাভাইরাসের বিস্তার ঠেকাতে ২৩ মার্চ থেকে দেশজুড়ে কারফিউ জারির ঘোষণা দেন বাদশা সালমান। ঘোষণায় বলা হয়, সন্ধ্যা ৭টা থেকে সকাল ৬টা পর্যন্ত ২১ দিন কারফিউ বলবৎ থাকবে। তবে বুধবার রাষ্ট্রীয় গণমাধ্যমে জানানো হয়, সৌদির মক্কা, মদিনা ও রিয়াদের কারফিউ ৪ ঘণ্টা বাড়ানো হয়েছে অর্থাৎ বুধবার থেকে ওই তিন অঞ্চলে সন্ধ্যা ৭টার পরিবর্তে বিকেল ৩টা থেকে কারফিউ শুরু হবে।
বাদশা সালমান সতর্ক করেছেন, করোনাভাইরাসের বিরুদ্ধে আরো কঠিন যুদ্ধ সামনে রয়েছে। করোনাভাইরাসের বিস্তার ঠেকাতে ইতোমধ্যে বেশ কিছু কঠোর পদক্ষেপ নিয়েছে দেশটি। সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ও মসজিদ বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। সিনেমা, শপিংমল, রেস্তোরাঁ বন্ধ করা করেছে। দুই সপ্তাহের জন্য আন্তর্জাতিক সব ফ্লাইট বাতিল এবং ওমরাহ ও ট্যুরিস্ট ভিসা স্থগিত করা হয়েছে।
কলম্বিয়ায় দেশব্যাপী কোয়ারেন্টিন : কলম্বিয়া গত মঙ্গলবার থেকে দেশব্যাপী কোয়ারেন্টিন শুরু করেছে। সব বয়সী মানুষকেও বাড়ির ভেতরেই থাকতে বলা হয়েছে। ৭০ বছর বা এর চেয়ে বেশি বয়সীদের মে মাস পর্যন্ত বাইরে বের হতে নিষেধ করেছে। কোয়ারেন্টিন ১৯ দিন স্থায়ী হবে।
কলম্বিয়ার রাজধানী বোগোটার অন্যতম বৃহত্তর কারাগার লা মোদেলোয় গত রোববার করোনাভাইরাস নিয়ে আতঙ্কে সৃষ্ট দাঙ্গায় অন্তত ২৩ জন নিহত হয়েছেন। এ ছাড়া আহত হয়েছেন ৮৩ বন্দী।
ফিলিস্তিনে জরুরি অবস্থা ও প্রথম মৃত্যু : আলআরাবিয়া ও ডেইলি সাবাহ জানায়, করোনাভাইরাস প্রতিরোধে দেশে জরুরি অবস্থা ঘোষণা করেছে ফিলিস্তিন কর্তৃপক্ষ। এক মাসের জন্য বন্ধ ঘোষণা করেছে দেশটির সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। সাথে সাথে রেস্তোরাঁ, ক্যাফে, জিম, বিবাহ এবং পারস্পরিক সাক্ষাৎও বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে।
এ দিকে প্রাণঘাতী এই ভাইরাসের বিস্তার রোধে মুসলমানদের প্রথম কিবলাহ ও তৃতীয় পবিত্র স্থান আল-আকসা মসজিদ সাময়িকভাবে বন্ধ ঘোষণা করেছে জেরুসালেমের ওয়াকফ কমিটি। ফিলিস্তিনের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের সদস্য ইবরাহিম মিলহান বুধবার জানিয়েছেন, দেশটিতে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত প্রথমবারের মতো ৬০ বছর বয়সী একজন নারীর মৃত্যু হয়েছে। এই ভাইরাসে দেশে মোট আক্রান্ত শনাক্ত হয়েছে ৬৪ জন।
লকডাউনের দিকে যাচ্ছে অস্ট্রেলিয়া : অস্ট্রেলিয়ায় ক্রমেই বেড়ে চলেছে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত মানুষের সংখ্যা। শাটডাউন না লকডাউন নিয়ে ফেডারেল ও রাজ্য সরকারগুলোর মধ্যে কিছুটা সমন্বয়হীনতা দেখা দিয়েছে। তারপরও প্রাথমিক অবস্থায় ৫০০ জনের ওপরে গণজমায়েত বন্ধ দিয়ে সরকার এখন দূরত্ব বজায় রেখে বিয়েতে পাঁচজন, দাফন-কাফনে ১০ জনের উপস্থিতি নির্ধারণ করে দিয়েছে।
অপরিহার্য নয় এমন ব্যবসা-বাণিজ্য বন্ধ করে পুরোপুরি লকডাউনের দিকে যাচ্ছে দেশ। আগে ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা এবং অস্ট্রেলিয়ার নাগরিকদের দ্রুত দেশে ফিরে আসার নির্দেশনার পর আন্তর্জাতিক বিমান চলাচল বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। এক পরিসংখ্যান বলছে, সবকিছু বন্ধ হয়ে গেলে আপাতত প্রায় ১০ লাখ লোক চাকরি হারাবেন এবং জুন মাস নাগাদ এ সংখ্যা গিয়ে দাঁড়াবে প্রায় ১৫ লাখে।
দেশে দেশে লকডাউন : ব্রিটেনও প্রায় সাত কোটি মানুষকে লকডাউনের আওতায় নিয়ে এসেছে। এ ছাড়া জর্ডান, আর্জেন্টিনা, বেলজিয়াম, ইউরোপীয় ইউনিয়ন লকডাউন দিয়েছে। জার্মানি, মালয়েশিয়া, ইসরাইল ও অস্ট্রেলিয়া আংশিক লকডাউন কার্যকর করছে। কেনিয়াও স্কুল বন্ধ করেছে এবং বিধিনিষেধ আরোপ করেছে। স্পেন ১৫ দিনের লকডাউনে। পোল্যান্ড ব্যবসা ও ভ্রমণে নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে। কুয়েত দুই সপ্তাহের লকডাউনে। এ ছাড়া আয়ারল্যান্ড ও নরওয়ে জনসমাগমে নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে।
লকডাউন যথেষ্ট নয় : ডব্লিউএইচও
বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রধান টেড্রোস আডনম গ্রেব্রেইয়েসাস এক টুইট বার্তায় বলেছেন, কোভিড-১৯ এর বিস্তার রোধে বিভিন্ন দেশ ‘লকডাউন’ ব্যবস্থার প্রয়োগ করছে। কিন্তু এসব ব্যবস্থার মাধ্যমে মহামারী নির্মূল হবে না। করোনাভাইরাসকে আক্রমণ করতে আমরা সব দেশের প্রতি আহ্বান জানাই।
তিনি বলেন, লকডাউনের পথে হেঁটে বাঁচার বিকল্প পথ খুলতে পেরেছি। এবার এই সময়কে কাজে লাগানো দরকার। করোনাভাইরাসকে শনাক্ত করে আইসোলেশন, পরীক্ষা এবং চিকিৎসার প্রয়োজন। করোনাভাইরাসকে রুখতে এগুলোই এখন আদর্শ পথ।

 


আরো সংবাদ

১০ টাকা কেজিতে মাসে ৩০ কেজি চাল পাবে ৫০ লাখ পরিবার সিরাজগঞ্জের সলঙ্গায় হতদরিদ্রদের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ আখাউড়ায় ব্যতিক্রম উদ্যোগ, টাকা দিয়ে অটোচালককে সরানো হচ্ছে সড়ক থেকে রাণীনগরে সাড়ে ৫ হাজার কেজি চাল উদ্ধার অসহায়দের মাঝে খাবার বিতরণ করলেন ক্রিকেটার সালমা ছেলে-ছেলের বউয়ের নির্যাতনের শিকার বৃদ্ধাকে ঘরে তুলে দিলেন ইউএনও কুষ্টিয়ায় জ্বর ও শ্বাসকষ্ট নিয়ে রিকশাচালক আইসোলেশনে ৭ বছর ধরে নিখোঁজ নেতার সন্ধান চেয়ে ছাত্র শিবিরের বিবৃতি বিশ্বব্যাপী করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ১০ লাখ ছাড়িয়েছে বিদেশে আটকেপড়া বাংলাদেশীদের সমস্যা সমাধানে দৃষ্টি রাখছে মন্ত্রণালয় করোনা রোগীর সংস্পর্শে আসা এক হাসপাতালের চিকিৎসকসহ ৭ জন হোম কোয়ারেন্টিনে

সকল