০৬ এপ্রিল ২০২০

মিন্নির জামিন বাতিলের শুনানি হয়নি : আরো ৩ জনের সাক্ষ্য রিফাত হত্যা

-

বরগুনার বহুল আলোচিত চাঞ্চল্যকর শাহনেওয়াজ রিফাত শরীফ হত্যা মামলায় জেলা ও দায়রা জজ মো: আছাদুজ্জামানের আদালতে মঙ্গলবার তদন্তকারী কর্মকর্তাসহ আরো তিনজনের সাক্ষ্য নেয়া হয়েছে। তাদের মধ্যে দুইজনের জেরা সম্পন্ন হয়েছে। তদন্তকারী কর্মকর্তার জবানবন্দী চলমান রয়েছে।
জেলা ও দায়রা আদালতে সিআইডির পুলিশ পরিদর্শক মো: জাকির হাসান ইমন, উপপরিদর্শক এ কে নাজমুল হোসাইন ও রিফাত শরীফ হত্যার তদন্তকারী কর্মকর্তা মো: হুমায়ূন কবিরের সাক্ষ্য দানকালে জেলা ও দায়রা আদালতে আয়শা সিদ্দিকা মিন্নিসহ ৯ জন আসামি উপস্থিত ছিল। এ পর্যন্ত জেলা ও দায়রা আদালতে ৭৫ জনের সাক্ষ্য ও জেরা সমাপ্ত হলো। তদন্তকারী কর্মকর্তার সাক্ষ্য চলমান রয়েছে। আজ বুধবার তদন্তকারী কর্মকর্তার সাক্ষ্যের মধ্য দিয়ে জেলা ও দায়রা জজ আদালতে সাক্ষ্য শেষ হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। শিশু আদালতে সাক্ষ্য হয়নি। এ ছাড়া মিন্নির জামিন বাতিলের শুনানিও হয়নি।
এদিন ঢাকা সিআইডির আইটি শাখার ফরেনসিক ল্যাবরেটরির টেকনেশিয়ান জাকির হাসান ইমন আদালতে সাক্ষ্য শেষে বলেন, ‘আমি ১৮ জুলাই রিফাত হত্যার তদন্তকারী কর্মকর্তার পাঠানো পেনড্রাইভ ও ডিভিডি প্রাপ্ত হয়ে ভিডিও পরীক্ষা করি। মিন্নি নয়ন বন্ডের কেক খাওয়ানো ভিডিও আমাদের নিজস্ব ল্যাবরেটরিতে পরীক্ষা করি।’
ওই আইটি শাখার পুলিশের উপপরিদর্শক এ কে নাজমুল হোসাইন বলেন, ‘আমি নয়ন বন্ড ও মিন্নির জন্ম দিনের কেক খাওয়ানো ভিডিও এডিট করা নয় মর্মে প্রতিবেদন দেই।’
তদন্তকারী কর্মকর্তা হুমায়ূন কবির বেলা ১১টায় সাক্ষ্য দিতে শুরু করেন। বিকেল ৫টা পর্যন্ত তার সাক্ষ্য চলে। সময়ের স্বল্পতার কারণে তদন্তকারী কর্মকর্তা তার সাক্ষ্য শেষ করতে পারেননি। আসামি পক্ষের আইনজীবীরা তাদের জেরা শুরু করতে পারেননি। তদন্তকারী কর্মকর্তা হুমায়ূন কবির বলেন, আমার সাক্ষ্য চলমান। এ অবস্থায় আমার কোনো বক্তব্য নেই।
রাষ্ট্রপক্ষের পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) ভবনচন্দ্র হাওলাদার বলেন, আদালতে দুইজন সাক্ষীর সাক্ষ্য ও জেরা সমাপ্ত হয়েছে। তদন্তকারী কর্মকর্তার সাক্ষ্য চলমান রয়েছে। ঢাকা সিআইডির ফরেনসিক ল্যাবরেটরির আইটি শাখার পুলিশ তাদের দেয়া প্রতিবেদন আদালতে উপস্থাপন করেছেন।


আরো সংবাদ