২৮ জানুয়ারি ২০২৩, ১৪ মাঘ ১৪২৯, ৫ রজব ১৪৪৪
ads
`

রাশিয়ার বিমানঘাঁটিতে ইউক্রেনের ড্রোন হামলা

রাশিয়ার বিমানঘাঁটিতে ইউক্রেনের ড্রোন হামলা - ছবি : ইন্টারনেট

ইউক্রেনের সীমান্তবর্তী এলাকায় রাশিয়ার একটি বিমানঘাঁটিতে ড্রোন হামলা চালানোর অভিযোগ করেছে রাশিয়া।

মঙ্গলবার দেশটি এ অভিযোগ করে।

অভিযোগে বলা হয়েছে, রাশিয়ার কুর্স্ক অঞ্চলের ওই বিমানঘাঁটিতে হামলার পর তেলের ট্যাঙ্কে আগুন লেগে যায়।

রাশিয়া জানিয়েছে, এ ঘটনায় কেউ হতাহত হয়নি। এই হামলার জন্য রাশিয়া আবারো ইউক্রেনকে দায়ী করেছে।

এ ঘটনার এক দিন আগেই রাশিয়ার ভিতরে দুটি সেনাঘাঁটিতে ড্রোন হামলা হয়েছিল। এতে বেশ কয়েকজন নিহত জয়। আহতরা এখনো হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। ওই আক্রমণের জন্যও রাশিয়া ইউক্রেনকে দায়ী করে। ইউক্রেন রাশিয়ার এ অভিযোগ নাকচ করে দিয়েচে। এদিকে, ওই হামলার পরেই সোমবার ইউক্রেনজুড়ে একের পর এক মিসাইল আক্রমণ করে রাশিয়া।

এ ঘটনার সাথে নিজেদের সম্পৃক্ততার কথা অস্বীকার করেছে ইউক্রেন। রোববার রাশিয়ার দুটি সেনাঘাঁটিতে আক্রমণ নিয়েও একই দাবি করে দেশটি।

নিউ ইয়র্ক টাইমসের দাবি, ইউক্রেনের এক সেনাপ্রধান রাশিয়ার সেনাঘাঁটিতে আক্রমণের খবর নিশ্চিত করেছে। তাদের এ দাবি সত্য হলে এখনো পর্যন্ত এটিই রাশিয়ার ভেতরে ঢুকে ইউক্রেনের প্রথম হামলা। ইউক্রেন সীমান্ত থেকে প্রায় ৬০০ কিলোমিটার ভিতরে ঢুকে ড্রোনের মাধ্যমে ওই হামলা চালানো হয়।

রাশিয়ার এঞ্জেলস এয়ারফিল্ড অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ সেনাঘাঁটি। পরমাণু অস্ত্রসমৃদ্ধ টিইউ-৯৫ এবং টিইউ-১৬০ বম্বার্স রয়েছে সেখানে।

আমেরিকার প্রতিক্রিয়া

মার্কিন স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, ইউক্রেন সীমান্ত পেরিয়ে আক্রমণ করে থাকলে আমেরিকা তা সমর্থন করে না।

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র জানিয়েছেন, ‘সীমান্ত পেরিয়ে আক্রমণের জন্য আমরা ইউক্রেনকে সাহায্য করছি না। আমরা এ ঘটনা সমর্থনও করছি না। আমরা কেবলমাত্র ইউক্রেনের স্বাধীনতার জন্য লড়াইয়ে সাহায্য করছি’।

আমেরিকা জানিয়েছে, ‘ইউক্রেন যাতে তার স্বাধীন দেশের সার্বভৌম জমি রক্ষা করতে পারে, আমেরিকা তার জন্য সবরকম সাহায্য করবে। কিন্তু সীমান্ত পার করে আক্রমণকে সমর্থন করবে না’।

ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট মঙ্গলবার জানিয়েছেন, তারা এই ঘটনার সাথে যুক্ত নয়। কিন্তু রাশিয়া ইউক্রেনের বিরুদ্ধে এ হামলার অভিযোগ করছে।

সূত্র : ডয়েচে ভেলে


আরো সংবাদ


premium cement