১৩ আগস্ট ২০২২
`

ডনবাসে রাশিয়াকে ঠেকাতে ব্যর্থ হলে ইউক্রেনের পরিণতি

ডনবাসে রাশিয়াকে ঠেকাতে ব্যর্থ হলে ইউক্রেনের পরিণতি - ছবি : বিবিসি

১৯২০ সালের পর কমিউনিস্ট রাশিয়ার প্রচার-প্রচারণার অন্যতম একটি স্লোগান ছিল ডনবাস নিয়ে, যার অনুবাদ করলে দাঁড়ায়- ‘ডনবাস রাশিয়ার হৃদপিণ্ড।’

সোভিয়েত ইউনিয়ন ভেঙে যাওয়ার পর নব্বইয়ের দশকে এলাকাটি যখন ইউক্রেনের হয়, তখন এ অঞ্চলের বিভিন্ন শহরে ‘ডনবাস ইউক্রেনের হৃদপিণ্ড’ লেখা বড় বড় হোর্ডিং টাঙানো হয়েছিল, যার অনেকগুলো এখনো চোখে পড়ে।

লুহানস্ক ও দোনেস্ক দু’টি প্রদেশের সমন্বয়ে ইউক্রেনের আগের এই অঞ্চলটি ইউক্রেন বা রাশিয়ার হৃদপিণ্ড হোক বা না হোক, এখন এ অঞ্চল যে দু’দেশের মধ্যে রক্তক্ষয়ী যুদ্ধের হৃদপিণ্ড বা কেন্দ্রবিন্দু, তা নিয়ে কোনো সন্দেহ নেই।

মার্চে যুদ্ধ শুরুর পর কিয়েভ দখল করে সরকার উৎখাতের চেষ্টায় ব্যর্থ হয়ে রাশিয়া ইউক্রেনের পূর্বের ডনবাস অঞ্চলটি মুক্ত করার সংকল্প নেয়। এমনিতেই ২০১৪ সাল থেকে রুশ-সমর্থিত বিদ্রোহীরা ডনবাসের প্রায় অর্ধেকটা নিয়ন্ত্রণ করছে।

লুহানস্ক প্রদেশের সর্বশেষ যে শহরটি ইউক্রেনের নিয়ন্ত্রনে ছিল, রোববার ওই লিসিচানস্কের দখল নিয়ে রাশিয়া ঘোষণা দেয়, প্রদেশটি এখন মুক্ত।

পর্যবেক্ষকদের ভেতর কোনো সন্দেহ নেই যে রাশিয়ার এখন মূল টার্গেট ডনবাসের অন্য প্রদেশ দোনেস্ক থেকে ইউক্রেনীয় সৈন্যদের তাড়ানো। এর নমুনা ইতোমধ্যেই স্পষ্ট। কারণ, দোনেস্কের প্রধান দু’টি শহরের স্লোভিয়ানস্ক ও বাখমুটে রুশ সৈন্যরা রোববার থেকেই তীব্র আক্রমণ শুরু করেছে।

সম্প্রতি যেভাবে রুশ সৈন্যরা পূর্ব ও দক্ষিণে ইউক্রেনের বেশ কতগুলো গুরুত্বপূর্ণ শহরের নিয়ন্ত্রণ নিয়েছে, তা দেখে সামরিক অনেক বিশ্লেষক সন্দেহ করছেন যে দোনেস্কের শহরগুলোতে ইউক্রেনীয় সেনারা আদৌ কতটা শক্ত প্রতিরোধ তৈরি করতে সমর্থ হবে।

যুদ্ধক্ষেত্রে রাশিয়ার বর্তমান কৌশল দেখে এটা পরিষ্কার বোঝা যায় যে যুদ্ধের শুরুর দিকের ব্যর্থতা থেকে তারা শিক্ষা নিয়েছে এবং তারা এখন খুব সাবধানে এগুচ্ছে। টার্গেট করা এলাকাগুলোতে তারা এখন প্রথম কয়েক দিন প্রচণ্ড বোমাবর্ষণ করে ইউক্রেনীয় সৈন্যদের দিশেহারা করে ফেলছে। এরপর ট্যাংক ও সাঁজোয়া যান নিয়ে রুশ সৈন্যরা শহরগুলোতে ঢুকে নিয়ন্ত্রণ নিচ্ছে।

সামরিক বিশ্লেষকদের অনেকে মনে করছেন, ডনবাসে রাশিয়া যেভাবে শক্তি প্রয়োগ করছে এবং তাতে যে প্রাণহানি হচ্ছে, তাতে ইউক্রেন উদ্বিগ্ন।

ইউক্রেনের প্রেসিডেন্টের উপদেষ্টা মিখাইলো পোডলিয়াক বলেন, ডনবাসে প্রতিদিন ১০০ থেকে ২০০ ইউক্রেনীয় সৈন্য প্রাণ হারাচ্ছে। বিশ্লেষকদের ধারণা এই সংখ্যা আরো বেশি হবে।

প্রেসিডেন্ট জেলেনস্কি নিজে সম্প্রতি ডনবাসে মোতায়েন করা সৈন্যদের প্রাণে বাঁচিয়ে রাখার গুরুত্ব নিয়ে কথা বলেছেন। লিসিচানস্ক শহর থেকে সৈন্যদের নিরাপদে সরিয়ে আনার সিদ্ধান্তের পেছনে তিনি প্রাণহানি কমানোর লক্ষ্যের কথা বলেন।

যুদ্ধ শুরুর আগে ডনবাসে ইউক্রেনের ৪৪ হাজার সৈন্য মোতায়েন ছিল। তারা ওই দেশের সেনাবাহিনীর সবচেয়ে প্রশিক্ষিত, পেশাদার ও দক্ষ ইউনিটগুলোর সদস্য। তাদের হারালে এবং যুদ্ধ দীর্ঘস্থায়ী হলে নতুন করে সেনা নিয়োগ ও প্রশিক্ষণ কঠিন হবে, যা নিয়ে উদ্বিগ্ন ইউক্রেন।

দোনেস্ক প্রতিরোধের লড়াইতেও ইউক্রেনের সেনা কমান্ডাররা সৈনিকদের প্রাণরক্ষার কথা কতটা বিবেচনা করবেন, তার ওপরেও ডনবাসের যুদ্ধের পাল্লা কোনদিকে হেলে যাবে তা অনেকটা নির্ভর করবে।

রাশিয়া এখন ইউক্রেনের কৌশলগতভাবে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ বন্দর মারিউপোলসহ আজভ সাগরের পুরো উপকূল নিয়ন্ত্রণ করছে। ক্রিমিয়ার কাছে খেরসন বন্দর ও পুরো খেরসন এলাকা তাদের নিয়ন্ত্রণে এবং অর্থনৈতিকভাবে অত্যন্ত্য গুরুত্বপূর্ণ জাপোরোতযিয়া এলাকার বিশাল অংশও এখন রাশিয়া নিয়ন্ত্রণ করছে।

ইউক্রেন ও তার পশ্চিমা মিত্রদের অনেকের মধ্যে এমন ধারণা শক্ত হচ্ছে যে ডনবাস দখলের লক্ষ্য সহজে অর্জন করতে পারলে প্রেসিডেন্ট পুতিন সেখানেই হয়তো থামবেন না। যদি তিনি দেখেন, ইউক্রেনের সেনাবাহিনী অনেক শক্তি খুইয়েছে তাহলে আরো এলাকা দখলের পথে যাবেন তিনি। যাতে ভবিষ্যতে যেকোনো আলোচনা তার শর্ত মেনেই হয়।

সম্প্রতি একজন রুশ জেনারেল খোলাখুলি বলেন, মিকোলাইভ ও ওডেসা হয়ে রোমানিয়ার সীমান্ত পর্যন্ত এলাকার নিয়ন্ত্রণ নিতে চায় তারা। যাতে মলদোভা থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে যাওয়া জাতিগত রুশ অধ্যুষিত ট্রানসিসট্রিয়ার সাথে রাশিয়ার একটি স্থল করিডোর তৈরি সম্ভব হয়।

তার অর্থ হলো- আজভ সাগরের পর কৃষ্ণসাগর থেকেও ইউক্রেনকে বিচ্ছিন্ন করার পরিকল্পনা আঁটছে রাশিয়া।

ডনবাস ও লাগোয়া এলাকাগুলো সেই সোভিয়েতের সময় থেকেই ইউক্রেনের মূল শিল্পাঞ্চল হিসেবে খ্যাত। সমরাস্ত্র, ইস্পাত, বিমানের যন্ত্রাংশ তৈরির মতো কৌশলগতভাবে গুরুত্বপূর্ণ শিল্প-কারখানা রয়েছে এখানে।

একইসাথে এখানে রয়েছে প্রচুর খনিজ সম্পদ। রুশ সীমান্ত পর্যন্ত বিস্তৃত ডনবাসের কয়লার খনি ইউরোপের চতুর্থ বৃহত্তম। উত্তোলনযোগ্য প্রায় এক হাজার কোটি টন কয়লার মজুদ রয়েছে এসব খনিতে।

শেল গ্যাসের প্রচুর মজুত রয়েছে পূর্ব ইউক্রেনে। সেজন্য রয়্যাল ডাচ শেল কোম্পানি গত বছর এখানকার ইউজিভস্কা গ্যাস ক্ষেত্রে এক হাজার কোটি ডলার বিনিয়োগের সিদ্ধান্ত নিয়েছিল।

ডনবাস অঞ্চলের ভূ-রাজনৈতিক ও অর্থনৈতক গুরুত্ব নিয়ে বিস্তর গবেষণা করেছেন তুরস্কভিত্তিক গবেষণা সংস্থা ফাউন্ডেশন ফর পলিটিক্যাল ইকোনমিক অ্যান্ড সোশ্যাল রিসার্চের মোহাম্মদ গুলে।

তার প্রকাশিত গবেষণা বলছে, ডনবাস অঞ্চলে তৈরি হয় বিশেষ ধরণের ইস্পাত যা দিয়ে রুশ ট্যাঙ্ক তৈরি হয়। যুদ্ধের আগে রুশ সামরিক হেলিকপ্টারের বেশির ভাগ ইঞ্জিন তৈরি হতো জাপোরোতযিয়ায়। এই অঞ্চলেই রয়েছে ইউরোপের সবচেয়ে বড় বিদ্যুৎ কেন্দ্র, যেটি এখন রাশিয়ার দখলে।

অনেক আগে থেকেই ইউক্রেনের শিল্প-কারখানার বেশির ভাগই পূর্বের এই এলাকায়, যদিও বিশ্ব বাজারে এসব শিল্পের অনেকগুলোর প্রতিযোগিতা করার সক্ষমতা নিয়ে প্রশ্ন আছে।

তবে এসব শিল্প রাশিয়া থেকে সস্তায় গ্যাস পায় এবং তাদের প্রধান ক্রেতা যেহেতু রাশিয়া তাই বাইরের বিশ্বে ততটা প্রতিযোগিতার চিন্তা তাদের নেই। সেজন্য ডনবাস এলাকাটি আয়তনে ইউক্রেনের মাত্রা পাঁচ শতাংশ ও এখানকার জনসংখ্যা ইউক্রেনের জনসংখ্যার ১০ শতাংশ হলেও জিডিপির ২০ শতাংশ এবং রফতানির ২৫ শতাংশ আসে এখান থেকে।

সোভিয়েত ইউনিয়ন ভেঙে যাওয়ার পরেও রাশিয়ার দক্ষিণাঞ্চলের অর্থনীতি সবসময়ই ইউক্রেনের দক্ষিণ-পূর্ব ইউক্রেনের সাথে ঘনিষ্ঠভাবে যুক্ত ছিল। তবে ২০১৪ সালে রাশিয়ার ক্রিমিয়া দখল এবং ডনবাসে বিচ্ছিন্নতাবাদী তৎপরতা শুরুর পর দু’দেশের মধ্যে ব্যবসা ৭৫ শতাংশ পড়ে গেছে।

এর ফলে, ইউক্রেনের অর্থনীতিও সঙ্কুচিত হয়েছে। ২০১৩ সালে যেখানে তাদের জিডিপি ছিল ১৮৩ বিলিয়ন মার্কিন ডলার, তা ২০১৫ সালে এসে দাঁড়ায় ৯১ বিলিয়ন ডলারে।

ব্রিটেনের বার্মিংহ্যাম বিশ্ববিদ্যালয়ের সেন্টার ফর রাশিয়ান ও ইস্ট ইউরোপিয়ান স্টাডিজের অধ্যাপক ড. রিচার্ড কনোলি সম্প্রতি তার এক গবেষণাপত্রে একটি তুলনামুলক বিশ্লেষণে দেখিয়েছেন, এই যুদ্ধের পরিণতিতে যদি ইউক্রেন পূর্ব ও পশ্চিম দু’ভাগে বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়, তাহলে দুই অংশের পরিস্থিতি কী দাঁড়াতে পারে।

ড. কনোলির মতে, তেমন পরিস্থিতিতে পূর্ব ইউক্রেনের অর্থনৈতিক অবস্থা পশ্চিমের চেয়ে অনেক শক্ত থাকবে। কারণ, কৃষি ছাড়া ইউক্রেনের অর্থনীতির উৎপাদনশীল খাতগুলো প্রধানত ওই অঞ্চলে।

তিনি আরো মনে করেন, কোনোভাবে পূর্বাঞ্চল হাতছাড়া হলে ইউক্রেন ইউরোপের অন্যতম একটি দরিদ্র দেশে পরিণত হবে। সাহায্যের জন্য পশ্চিমা দেশগুলোর মুখোপেক্ষী হয়ে থাকতে হবে বলেও মনে করেন তিনি।

ইউক্রেনের নেতারা সেটা জানেন এবং এ কারণেই তারা বলেন, ডনবাসের লড়াই হবে এই যুদ্ধের নিয়ামক। তাদের মতে, সাম্প্রতিক দিনগুলোতে পূর্বের বিভিন্ন শহর থেকে পিছু হটা একটি সাময়িক কৌশল মাত্র, যার মূলে রয়েছে সৈনিকদের জীবন রক্ষা।

নেতাদের ভাবনা হলো, অতি শক্তি প্রয়োগে রুশরা এক সময় ক্লান্ত হয়ে পড়বে এবং যখন আরো পশ্চিমা আধুনিক অস্ত্র তাদের হাতে আসবে, তখন হারানো ভূমি ফিরে পাওয়ার লড়াই শুরু করা হবে।

কৃষ্ণসাগরে স্নেক আইল্যান্ড নামে ছোট একটি ভূখণ্ড থেকে রুশ সৈন্যরা চলে গেলে সোমবার সেখানে নতুন করে ইউক্রেনীয় পতাকা ওঠার পর প্রেসিডেন্ট জেলেনস্কি বলেন, ‘ধীর ধীরে আমরা রাশিয়াকে আমাদের সাগর, আমাদের ভূমি এবং আমাদের আকাশ থেকে বিতাড়িত করবো।’

তবে এখন পর্যন্ত রণক্ষেত্রের স্রোত ও সময় তার পক্ষে নেই বলেই মনে হচ্ছে।

সূত্র : বিবিসি


আরো সংবাদ


premium cement