২৪ জুলাই ২০২১
`

যুক্তরাষ্ট্র-রাশিয়া সম্পর্ক তলানিতে এসে পৌঁছেছে : পুতিন

রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন - ছবি : সংগৃহীত

মার্কিন ও রুশ সম্পর্ক অধঃপতনের শেষ বিন্দুতে এসে ঠেকেছে। আগামী ১৬ জুন মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের সাথে সাক্ষাতের প্রাক্কালে এমনটাই বললেন রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন।

‘আমাদের মধ্যকার দ্বিপক্ষীয় সম্পর্কের অবনতি হয়ে সর্বনিম্ন পর্যায়ে পৌঁছেছে,’ এনবিসি নিউজকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে বলেন পুতিন। সাক্ষাৎকারটি ইংরেজি অনুবাদসহ শুক্রবার সম্প্রচারিত হয়।

আগামী সপ্তাহে জেনেভায় পুতিন ও বাইডেনের দেখা হওয়ার কথা রয়েছে।

অন্যদিকে নিজের প্রথম রাষ্ট্রীয় সফরে বের হওয়ার পর গত বুধবার বাইডেন যুক্তরাজ্যে পৌঁছেছেন। সেখানে তিনি তাদের আসন্ন বৈঠকে পুতিনকে পরিষ্কার বার্তা দেয়ার প্রত্যয় ব্যক্ত করেন।

‘আমরা রাশিয়ার সাথে কোনো ধরনের সংঘাতে জড়াতে চাই না,’ বলেন বাইডেন।

‘আমরা স্থিতিশীল ও নিশ্চয়তাপূর্ণ সম্পর্ক চাই... কিন্তু আমি এ কথা পরিষ্কারভাবে জানাতে চাই যে যদি রুশ সরকার কোনো ধরনের ক্ষতিকর কর্মকাণ্ডে যুক্ত হয়, তবে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র তার বলিষ্ঠ ও তাৎপর্যপূর্ণ প্রত্যুত্তর দেবে।’

দুই দেশের দুই নেতার প্রথম মুখোমুখি বৈঠক এমন সময়ে অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে, যখন বেশকিছু বিষয় নিয়ে ওয়াশিংটন ও মস্কোর মধ্যকার সম্পর্ক তিক্ততায় পর্যবসিত হয়ে উঠেছে। এর মধ্যে রয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের বিরুদ্ধে তথাকথিত রুশ সাইবার হামলা এবং ক্রেমলিনের কড়া সমালোচক আলেক্সেই নাভালনির আটক।

এনবিসির সাক্ষাৎকারে পুতিন সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের প্রশংসা করে তাকে ‘একজন অসাধারণ ও প্রতিভাবান ব্যক্তিত্ব’ হিসেবে অভিহিত করেন। আর বাইডেনকে ‘সম্পূর্ণ ভিন্ন ধরনের’ বলে মন্তব্য করেন।

‘আসলে এখনো আমার বিশ্বাস, সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প একজন অসাধারণ ব্যক্তি, প্রতিভাবান ব্যক্তি। তা না হলে তিনি মার্কিন প্রেসিডেন্ট হতে পারতেন না।’

‘তিনি এক বর্ণময় চরিত্র। তাকে পছন্দ করুন বা নাই করুন, তিনি কিন্তু প্রাতিষ্ঠানিক রাজনীতি থেকে আসেননি। তিনি বড় মাত্রায় রাজনীতির সাথে এর আগে কখনো যুক্তও ছিলেন না। কারো কাছে তা পছন্দনীয়, কারো কাছে অপছন্দনী, কিন্তু কথাটা সত্যি।’

এর পাশাপাশি পুতিন আরো যোগ করেন, ‘বাইডেন ট্রাম্প থেকে ভিন্ন। কারণ বাইডেন পেশাগত রাজনীতিবিদ। তিনি তার জীবনের প্রায় পুরোটাই রাজনীতিতে ব্যয় করেছেন।’

‘এরা ভিন্ন ধরনের মানুষ। আমি ভীষণ আশাবাদী যে, কিছু সুবিধা হবে, কিছু অসুবিধা হবে। কিন্তু বর্তমান প্রেসিডেন্টের পক্ষ থেকে কোনো ধরনের আবেগতাড়িত সিদ্ধান্ত গ্রহণের সম্ভাবনা থাকবে না।’

মার্কিন কর্মকর্তাদের কাছে আগামী সপ্তাহে অনুষ্ঠিতব্য পুতিন ও বাইডেনের মধ্যকার মুখোমুখি বৈঠক একটি সুযোগ। তাদের দৃষ্টিতে পুতিনের সাথে সাবেক প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প যে তুষ্টিবাদী নীতি গ্রহণ করেছিলেন, রুশ-মার্কিন সম্পর্ককে তা থেকে সরিয়ে আনার এটি একটি সুযোগ।

রুশ কর্মকর্তারা সংবাদ সংস্থা রয়টার্সকে জানান, তাদের কাছে এই সম্মেলন বাইডেনের সাথে সরাসরি যোগাযোগের সুযোগ মাত্র। রুশ সরকারের ঘনিষ্ঠ এক সূত্রের ভাষ্যমতে, গত ২০ জানুয়ারিতে দায়িত্বগ্রহণকারী প্রশাসনের পক্ষ থেকে এখন পর্যন্ত শুধু মিশ্র বার্তা পাওয়া গেছে।

গত মার্চে এক সাক্ষাৎকারে বাইডেন পুতিনকে খুনী আখ্যা দেন। এনবিসির পক্ষ থেকে এ ব্যাপারে তার প্রতিক্রিয়া জানতে চাইলে প্রত্যুত্তরে পুতিন জানান, এ ধরনের অভিযোগ তিনি আগেও অনেক বার মোকাবিলা করেছেন। ‘এ নিয়ে আমার বিন্দুমাত্র দুশ্চিন্তা নেই,’ বলেন পুতিন।

সূত্র : আলজাজিরা



আরো সংবাদ