৩০ নভেম্বর ২০২০

জার্মানিতে রেকর্ড করোনা, আক্রান্ত স্বাস্থ্যমন্ত্রী


জার্মানিতে লাফিয়ে বাড়ছে করোনা। আক্রান্ত হয়েছেন দেশটির স্বয়ং স্বাস্থ্যমন্ত্রী। করোনার প্রথম পর্বে জার্মানিকে মডেল হিসেবে চিহ্নিত করেছিল পৃথিবীর বহু দেশ। বলা হয়েছিল, যে ভাবে জার্মানি করোনার সংক্রমণ সংক্রমণ রোধ করেছে, তা শিক্ষণীয়। কিন্তু দ্বিতীয় ঢেউ কি একই ভাবে সামলাতে পারবে জার্মানি?

বুধবার জার্মানিতে রেকর্ড পরিমাণ করোনার সংক্রমণ হয়েছে। একদিনে সংক্রমণের সংখ্যা ১১ হাজার ২০০। প্রথম পর্বেও এত পরিমাণ সংক্রমণ এক দিনে ঘটেনি জার্মানিতে। গত শনিবারও রেকর্ড সংক্রমণ ঘটেছিল জার্মানিতে, সাত হাজার ৮০০। মাত্র কয়েক দিনের মধ্যে সেই রেকর্ডও ভাঙল। এ দিনই জার্মান স্বাস্থ্যমন্ত্রী স্পান করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন।

কী ভাবে সংক্রমণ বাড়ছে

করোনার দ্বিতীয় ঢেউ আরো ভয়াবহ হবে বলে আগেই সতর্ক করেছিল বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। শীতের শুরুতেই তা টের পেতে শুরু করেছে ইউরোপ। বিভিন্ন দেশে নতুন করে লকডাউন এবং কড়াকড়ি শুরু করা হয়েছে। জার্মানিতেও বেশ কিছু নতুন নিয়ম জারি করা হয়েছে।

রবার্ট কখ ইনস্টিটিউটের প্রধান লোথার উইয়েলার জানিয়েছেন, এই মুহূর্তে জার্মানিতে প্রতি ১০ লাখ মানুষের মধ্যে ৫১ জন আক্রান্ত। সংখ্যাটি যখন ৫০ ছিল, তখন থেকেই দেশের সর্বত্র নতুন করে কড়াকড়ি শুরু হয়েছে। তবে লোথারের বক্তব্য, অফিস কিংবা গণপরিবহন থেকে সে ভাবে সংক্রমণ ছড়াচ্ছে না। সংক্রমণ বাড়ছে মূলত প্রাইভেট পার্টি, বিয়ের অনুষ্ঠান এবং চার্চ সার্ভিসে। ফলে কী ভাবে এই বিষয়গুলোর উপর কড়াকড়ি জারি করা যায়, তা নিয়ে সরকারকে সিদ্ধান্ত নিতে হবে।

জার্মান স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, দেশের জনসংখ্যার তুলনায় পর্যাপ্ত আইসিইউ বেড রয়েছে। কেউ অসুস্থ হলেই তার চিকিৎসার সমস্ত ব্যবস্থা করা হচ্ছে। ফলে আতঙ্কিত হওয়ার কারণ নেই।

আক্রান্ত স্বাস্থ্যমন্ত্রী

বুধবারই করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন জার্মান স্বাস্থ্যমন্ত্রী। তার জ্বর এসেছে। ঠান্ডাও লেগেছে। রিপোর্ট পজিটিভ আসার পরেই তিনি আইসোলেশনে চলে গিয়েছেন। ম্যার্কেলের মন্ত্রিসভার অনেকের সঙ্গেই মঙ্গল এবং বুধবার তার মিটিং হয়েছিল বলে জানা গিয়েছে। কিন্তু তারা এখনো আইসোলেশনে যাননি বলেই সূত্র জানাচ্ছে। সূত্র : ডয়চে ভেলে


আরো সংবাদ