১০ এপ্রিল ২০২০

পুতিনের কৌশলে রাশিয়াতে নিয়ন্ত্রণে করোনা

ভ্লাদিমির পুতিন - ছবি : সংগৃহীত

রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন ঘোষণা করেছেন তার দেশে করোনাভাইরাসের প্রকোপ ঠেকাতে সমর্থ হয়েছেন। রাশিয়ার পরিস্থিতি এখন নিয়ন্ত্রণে বলেও জানান এই নেতা।

সত্যিই কি রাশিয়া করোনার মহামারি ঠেকাতে সমর্থ হয়েছে? রাশিয়ার সরকারি সূত্রে পাওয়া তথ্যমতে পুতিনের কৌশল কাজে লেগেছে। দেশটিতে করোনা খুব কম মানুষের মধ্যে ছড়িয়েছে। চীনের সাথে রাশিয়ার দীর্ঘ সীমান্ত থাকলেও আশ্চার্যজনকভাবে দেশটিতে করোনার প্রকোপ খুবই কম।

সাড়ে ১৪ কোটি জনসংখ্যার দেশ রাশিয়ায় ২৫৩ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন আর মারা গেছে মাত্র একজন। অন্যদিকে পৃথিবীর অন্যতম ধনী দেশ লুক্সেমবার্গের ৬ লাখ ২৮ জনসংখ্যার বসবাস। কিন্তু দেশটিতে ৬৭০ জন করোনায় আক্রান্ত ও মারা গেছে আটজন।

করোনাভাইরাস নিয়ে রাশিয়া অনেক বেশি সতর্কতা অবলম্বন করছে। চীনের সাথে দুই হাজার ৬০০ মাইলের মতো দীর্ঘ সীমান্ত জানুয়ারির ৩০ তারিখে বন্ধ করে দেয় ও কোয়ারেন্টাইনের ব্যবস্থা করে। এর ফলে রাশিয়াতে করোনা দ্রুত ছড়াতে পারেনি বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা।

রাশিয়ার বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রতিনিধি ডা. মেলিটা ভোজনিক বলেন, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মহাসচিব পরীক্ষা করতে বলেছেন, আর রাশিয়া সেটা জানুয়ারির শেষের দিকে শুরু করেছে।

তিনি বলেন, রাশিয়া পরীক্ষা ছাড়াও আরো ব্যাপক ব্যবস্থা নিয়েছে যার ফলে করোনা দেশটিতে মহামারি পর্যায়ে ছড়াতে পারেনি।

ডা. ভোজনভিক জানান, রাশিয়া শুরু থেকেই রোগী চিহ্নিতকরণ, তাদের সাথে যোগাযোগ রাখা, আইসোলেশনসহ বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার নির্দেশনা অনুযায়ী কাজ করেছে। এছাড়া সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার ব্যাপারে শুরু থেকেই গুরুত্ব দিয়েছে।

রাশিয়ার ভোক্তা নজরদারী সংস্থা রোসপট্রেবনাডজর জানায়, রাশিয়াতে শনিবার পর্যন্ত এক লাখ ৫৬ হাজারের অধিক মানুষকে করোনা সন্দেহে টেস্ট করা হয়েছে। যেখানে যুক্তরাষ্ট্রের মতো দেশে মার্চে করোনার টেস্ট শুরু করে সেখানে রাশিয়া ফেব্রুয়ারির শুরুতেই তা শুরু করেছিল। এছাড়াও বিদেশি যাত্রীদের বিশেষ করে যারা চীন, ইরান ও দক্ষিণ কোরিয়া থেকে এসেছে তাদের বিশেষভাবে পরীক্ষা করা হয়।

তবে রাশিয়া কি সঠিক সংখ্যা প্রকাশ করছে নাকি তথ্য গোপন করেছে তা নিয়েও প্রশ্ন উঠেছে। সিএনএন।


আরো সংবাদ