০৬ জুলাই ২০২২, ২২ আষাঢ় ১৪২৯, ৬ জিলহজ ১৪৪৩
`

সহশিল্পীদের ভালোবাসায় আবেগাপ্লুত রুনা খান

সহশিল্পীদের ভালোবাসায় আবেগাপ্লুত রুনা খান -

রুনা খান, বাংলাদেশের টিভি নাটকের নন্দিত অভিনেত্রী। সিনেমাতেও তিনি অনবদ্য একজন। সিনেমাতে অভিনয় করেও পেয়েছেন অভিনয়ে দেশের সর্বোচ্চ রাষ্ট্রীয় স্বীকৃতি জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার। তৌকীর আহমেদ পরিচালিত ‘হালদা’ সিনেমাতে অভিনয়ের জন্য তিনি এ পুরস্কারে ভূষিত হন। তার অভিনয়ের প্রতি দর্শকের রয়েছে এক অন্যরকম ভালোবাসা। বলা যায় বিগত বেশ কয়েক বছর যাবত রুনা খান তার জন্মদিনে সহকর্মীদের নিয়ে বিশেষভাবে দিনটি উদযাপন করেন। গেল বছর করোনার কারণে সেভাবে আর উদযাপন করার সুযোগ হয়ে ওঠেনি। তাই এই বছর রুনা খান তার খুব কাছের কিছু বন্ধু এবং তার খুব কাছের কিছু সহশিল্পীকে নিয়ে দিনটি বিশেষভাবে উদযাপন করার চেষ্টা করেন। রুনা খানের আহ্বানে সাড়া দিয়ে তার বাসায় ১১ জানুয়ারি রাতে যারা উপস্থিত হয়েছিলেন তাদের মধ্যে অন্যতম হচ্ছেন তানিয়া আহমেদ, মুনিরা মিঠু, ঈশিতা, নাদিয়া, রিচি সোলায়মান, বুলবুল টুম্পা, কনা, তানিয়া হোসেইন, অহনা, ফারজানা বুবলী, মুনা চৌধুরী, নোভা, নাবিলা, তাহসিন, সিনথিয়া, সারিকা সাবাহ, পরিচালক চয়নিকা চৌধুরীসহ আরো বেশ কয়েকজন। সবার উপস্থিতি রুনা খানকে ভীষণ আবেগাপ্লুত করে তোলে। রাত ১০টা ১৫ মিনিটে কেক কাটার মধ্য দিয়ে সবাই রুনা খানকে ঘিরে উচ্ছ্বাস প্রকাশ করেন। তানিয়া আহমেদ বলেন, ‘রুনা ভীষণ লক্ষ্মী একটা মেয়ে। মানুষ হিসেবে যেমন রুনা খুব ভালো মনের একজন মানুষ, ঠিক তেমনি অভিনেত্রী হিসেবেও রুনা ভীষণ ভালো করছে। আমি তার আরো সাফল্য কামনা করি।’ ঈশিতা বলেন, ‘খুব চমৎকার সময় কাটল রুনার বাসায়। ধন্যবাদ রুনা।’ নাদিয়া আহমেদ বলেন, ‘এককথায় রুনা একজন ভালো মনের মানুষ। অভিনয়েও অনবদ্য। আমি সবসময়ই তার সর্বাঙ্গীণ মঙ্গল কামনা করি।’ রিচি সোলায়মান বলেন, ‘রুনার সঙ্গে সম্পর্কটা পারিবারিক। তার পাশে আছি সবসময়। তার আহ্বানে সাড়া না দিয়ে উপায় নেই। কারণ তাকে আমি ভীষণ পছন্দ করি, ভালোবাসি।’ কনা বলেন, ‘কিছু কিছু সময় আছে যে সময়গুলো নিজেদের একান্ত ব্যক্তিগত এবং ভীষণ উপভোগ্য হয়ে ওঠার মতো সময়। রুনার বাসায় গেলে বিশেষত তার জন্মদিনে সবার সঙ্গে একসাথে সময় কাটাতে ভীষণ ভালোলাগে। এবারও যথারীতি তাই হলো।’ তানিয়া হোসেইন বলেন, ‘অনেক দিন পর রুনার জন্মদিন উপলক্ষে কোয়ালিটি সময় কাটালাম। ধন্যবাদ রুনাকে।’ রাত ৮টা ৩০ থেকে রাত ১১টা ৩০ মিনিট পর্যন্ত রুনা খান আমন্ত্রিত অতিথিদের বরণ করে নেয়া থেকে শুরু করে তাদের সঙ্গে গল্প করা, খাবারদাবারের ব্যবস্থা করা, সর্বোপরি তাদের সময় দেয়া- সবি মিলিয়েই যেন রুনা খান তার জন্মদিনটিতে ছিলেন ভীষণ ব্যস্ত। তবে রুনা অনায়াসে স্বীকার করেন, সবার আগমনের কারণেই দিনটি হয়ে উঠেছিল একটু বেশিই বিশেষ। সবার প্রতিই রুনা আন্তরিকভাবে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন। তবে বিশেষ এই দিনটি সফল করে তোলার ক্ষেত্রে রুনার মা ও স্বামীর ভূমিকা ছিল বিশেষ।


আরো সংবাদ


premium cement
পদ্মা পাড়ি দিতে এখনো ভোগান্তি, মোটরসাইকেল পার করতে বিড়ম্বনা গরিবের আমানত কোরবানির পশুর চামড়া নষ্ট করা যাবে না : হেফাজত পদ্মা সেতুর সুফল : যানবাহনের চাপ নেই ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কে আড়াইহাজারে হাত-পা বাঁধা নারীর লাশ উদ্ধার সীতাকুণ্ডে অগ্নিকাণ্ডের জন্য মালিকপক্ষ দায়ী ভারত সরকারের আদেশকে ‘স্বেচ্ছাচারিতা’ বলে আদালতে গেল টুইটার সিংড়ায় ট্রাক্টরের চাকায় প্রাণ গেল শিশুর শিক্ষা শিক্ষাঙ্গন শিক্ষকতা ও ছাত্ররাজনীতি লোডশেডিংয়ের জন্য গাজীপুর পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির দুঃখ প্রকাশ সিলেট নগরে লোডশেডিংয়ের রুটিন প্রকাশ বিশ্ববিদ্যালয়গুলো ধারণক্ষমতা অনুযায়ী শিক্ষার্থী বাছাই করছে : শিক্ষামন্ত্রী

সকল