২৩ অক্টোবর ২০২০

শাকিবের বিদেশ যাত্রা

-

বলা যায় প্রায় একযুগ ধরে ঢাকাই সিনেমাকে একাই টেনে নিয়ে যাচ্ছেন শাকিব খান। তাই বছড়জুড়ে শাকিবের শিডিউল পাওয়াটাই বেশ কষ্ট সাধ্য। তবে করোনা এসে সব কিছু যেন উলট পালট করে দিয়েছে। টানা সাত মাস ঘরের চার দেয়ালে বেকার বসে কাটিয়েছেন তিনি। এতে শাকিবের চেয়ে চলচ্চিত্র সংশ্লিষ্টরাই বেশি হতাশ হয়ে পড়ে ছিলেন। তবে সবার হতাশা কাটিয়ে ১০ সেপ্টেম্বর ‘নববা এলএলবি’ ছবির শুটিংয়ের মাধ্যমে কাজে ফিরেছেন তিনি। আর তাতেই চাঙ্গা হয়ে উঠেছে ছবিপাড়া।
এবার সেই ছবির কাজেই বিদেশ যাচ্ছেন তিনি সাথে যাচ্ছে অভিনেত্রী মাহিয়া মাহি। ছবির পরিচালক অনন্য মামুন জানিয়েছেন, ছবির নবাব শাকিব খান মাহিয়া মাহিকে নিয়ে উড়াল দেবেন মালদ্বীপ। সেখানে দুই গান ও একটি অ্যাকশন দৃশ্যের শুটিং হবে।
সাধারণত গানের দৃশ্যগুলো দেখা যায় দেশের বাইরে। তবে এবার এতে রাখা হচ্ছে অ্যাকশনও। বিষয়টি নিয়ে এ নির্মাতা বলেন, ‘করোনার কারণে আমরা বাইরের কলাকুশলীদের আনতে পারিনি। অ্যাকশন দৃশ্যের জন্য সেটা আমাদের দরকার ছিল। তাই ভারত থেকে একটি টিম মালদ্বীপে যাচ্ছে। এখান থেকে আমরা যাচ্ছি সেখানে। তাছাড়া ছবির চিত্রনাট্যেও দেশের বাইরে অ্যাকশনের বিষয়টি আছে।’
তিনি জানান, সেখানে শাকিব ও মাহি দু’টি গানের দৃশ্যে অংশ নেবেন। মোট পাঁচ দিনের শুটিং হবে। আগামী অক্টোবরের প্রথম সপ্তাহেই মালদ্বীপে উড়ে যাবেন তারা। গত মার্চে ঘোষণা হয়েছিল অনন্য মামুন পরিচালিত ‘নবাব এলএলবি’ ছবির। ২৮ মার্চ থেকে শুটিং শুরুর কথা ছিল। কিন্তু করোনার কারণে স্থগিত হয়ে যায় কাজ। আগস্টের ৩০ তারিখ থেকে চালু হয় এর ক্যামেরা। প্রথম সপ্তাহে কাজে যোগ দেন মাহি ও স্পর্শিয়া। ১০ তারিখে ক্যামেরার সামনে দাঁড়ান শাকিব খান। ‘নবাব এলএলবি’তে শাকিব খান একজন আইনজীবীর চরিত্রে অভিনয় করছেন। মাহি আইনজীবীর সহকারী। ছবিটি প্রযোজনা করছে সেলেব্রিটি প্রোডাকশন।
করোনার পর প্রথম বিদেশ যাত্রা প্রসঙ্গে শাকিব খান বলেন, সিনেমাপাড়ায় চাঙ্গা ভাব ফেরাতে এখন সবার সর্বোচ্চ পরিশ্রম করা দরকার। আমাদের ছবির পুরো টিম সেই চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। ছবির গল্পের প্রয়োজনে দেশের বাইরে কিছু কাজ আছে। সেই কাজ করতেই আগামী মাসের শুরুতে মালদ্বীপ যাবো। লম্বা সময় পর বিদেশ যাত্রা তাই কাজের ফাঁকে রিফ্রেশমেন্টেরও সুযোগ পাবো। মাহিয়া মাহির সাথে কাজ করা প্রসঙ্গে তিনি বলেন, মাহি পরিশ্রমী মেয়ে। ও সব সময় ভালোবেসে কাজটা করে; তাই ওর সাথে রিলাক্স নিয়ে কাজ করা যায়।
এর আগে করোনা-পরবর্তীতে কাজ শুরুর দিনে শাকিব বলেছিলেন, আমি সব সময়ই কাজ করি দেশের সাধারণ মানুষদের মুখে হাসি ফোটানোর জন্য। চেষ্টা করি বাংলাদেশের চলচ্চিত্রকে বিশ্ব দরবারে পৌঁছে দেয়ার জন্য। শত প্রতিকূলতার পরেও আমার এই প্রচেষ্টা থেমে নেই। এর মধ্যে বৈশ্বিক করোনার কারণে আজ আমার ইন্ডাস্ট্রি ও দেশের সাধারণ মানুষ ভালো নেই। খাদ্য, বস্ত্র, বাসস্থান, চিকিৎসা, শিক্ষার পাশাপাশি দৈনন্দিন জীবনে বিনোদন সংস্কৃতিও ওতোপ্রতভাবে জড়িত। এ ছাড়া এ মাধ্যম অনেকের জীবিকা নির্বাহের একমাত্র উৎস। মানুষগুলো এমন দুঃসময়েও ভালোবাসার টানে পড়ে আছেন এই ইন্ডাস্ট্রিতে। আমি তাদের জন্যও কাজ করে যাচ্ছি। আমার এই প্রচেষ্টা সবসময় অব্যাহত থাকবে।
আমার কাজ বিনোদন দেয়া। যেহেতু আমি এ মাধ্যমের প্রতিনিধি তাই আমার কাজের মাধ্যমে করোনা জর্জরিত সাধারণ মানুষের মনে একটু হলেও যদি আনন্দ দিতে পারি, আমার ইন্ডাস্ট্রির মানুষের উপার্জনের পথ সচল করতে পারি; এটাই হবে আমার বড় স্বার্থকতা।
আমি সবসময় ভালো কাজের প্রতিনিধি হতে চেয়েছি। শুরু থেকে সেই চেষ্টা করে আসছি, আগামীতেও করব ইনশা আল্লাহ। এই সঙ্কটকালে আজ থেকে ‘নবাব এলএলবি’ নামে নতুন সিনেমার শুটিং শুরু করেছি। আমাকে যারা শাকিব খান বানিয়েছেন দেশ-বিদেশের সেই কোটি মানুষের দোয়া ও ভালোবাসা সাথে নিয়ে সামনে এগোনোর চেষ্টায় থাকলাম। সবার জন্য ভালোবাসা।

 


আরো সংবাদ