১৮ জুলাই ২০২৪, ৪ শ্রাবণ ১৪৩১, ১১ মহররম ১৪৪৬
`

আসন্ন সুপ্রিম কোর্ট নির্বাচন নিয়ে বিএনপি-আ’লীগ সমর্থক আইনজীবীদের পাল্টাপাল্টি স্লোগান

আসন্ন সুপ্রিম কোর্ট নির্বাচন নিয়ে বিএনপি-আ’লীগ সমর্থক আইনজীবীদের পাল্টাপাল্টি স্লোগান - ছবি : নয়া দিগন্ত

আগামী ১৫ ও ১৬ মার্চ অনুষ্ঠেয় সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির নির্বাচন নিয়ে বিএনপি ও আওয়ামী লীগ সমর্থক আইনজীবীদের পাল্টাপাল্টি নির্বাচন উপ-কমিটি ঘোষণা এবং দুই পক্ষের পাল্টাপাল্টি স্লোগানে উত্তপ্ত হয়ে উঠেছে আদালত অঙ্গন। কার্যরকরী কমিটির সম্পাদক (আওয়ামী লীগ সমর্থিত) আবদুন নূর দুলাল ঘোষিত নির্বাচন উপ-কমিটির আহ্বায়ক শাহ খসরুজ্জামানের কক্ষের সামনে গত রোববার সোমবার এবং গতকাল মঙ্গলবার কয়েক শ’ আইনজীবী নিয়ে বিক্ষোভ করেছেন বিএনপি সমর্থকরা।

মঙ্গলবার বিএনপি সমর্থক আইনজীবী ‘ভোট চোর’ ‘ভোট চোর’ বলে স্লোগান দেন। তারা সুপ্রিম কোর্ট বারের গঠনতন্ত্র অনুযায়ী নির্বাচন উপ-কমিটি গঠন করার দাবি জানান।

এ সময় নির্বাচন উপ-কমিটির আহ্বায়ক শাহ খসরুজ্জামান আইনজীবীদের উদ্দেশে বলেন, আমি জানতে পেরেছি সুপ্রিম কোর্ট বারের কার্যকরী কমিটির ১৪ জনের সম্মতিতে নির্বাচন উপ-কমিটি হয়নি। আমি পরিষ্কারভাবে বলে দিয়েছি ১৪ জন মিলে যে কার্যকরী কমিটি হবে সেটা হবে গ্রহণযোগ্য। আমি সভাপতি সম্পাদককে বলেছি আপনারা ১৪ জন বসে কমিটি গঠন করেন। আমার সোজা কথা হলো সুপ্রীম কোর্ট আইনজীবী সমিতির ১৪ জন নির্বাচিত সদস্য নিয়ে সুপ্রীম কোর্ট নির্বাচন ২০২৩-২০২৪ এ দায়িত্ব পালন করবেন। তিনি বলেন, এই সুপ্রিম কোর্ট বারের একটি ঐতিহ্য রয়েছে। এই ঐতিহ্য কোনোভাবে নষ্ট করা যাবে না। আমরা ভাই ভাই, নির্বাচন প্রতি বছর হয়। সুষ্ঠু নির্বাচনের জন্য আমি সকল আইনজীবীর সাথে মিটিং করব। মিডিয়ার সাথে মিটিং করব। সুপ্রিম কোর্ট বারের সাবেক সভাপতি সাবেক অ্যাটর্নি জেনারেলের সাথে বসব। তারা কি চায়, সাধারণ আইনজীবীরা কি চায়। গহণযোগ্য নির্বাচন করার আমার সর্বোচ্চ চেষ্টা থাকবে।

অন্যদিকে দুপুরে সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সভাপতি ও সম্পাদকের কক্ষের সামনে অবস্থান নিয়ে আওয়ামী লীগ সমর্থক শতাধিক আইনজীবীরাও পাল্টা স্লোগান দেন।

এই অবস্থায় মঙ্গলবার সুপ্রিম কোর্ট বারের সুষ্ঠু পরিবেশ বজায় রাখতে এবং সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ পরিবেশে সুপ্রিম কোর্ট বারের নির্বাচনের জন্য পদক্ষেপ নিতে প্রধান বিচারপতির সাথে দেখা করেন সুপ্রিম কোর্ট বারের সাবেক সভাপতি ও সাবেক অ্যাটর্নি জেনারেল এ জে মেহাম্মদ আলী, সাবেক সম্পাদক মাহবুবউদ্দিন খোকন, রুহুল কুদ্দুস কাজল এবং কার্যকরী কমিটির (বিএনপি সমর্থিত) কোষাধ্যক্ষ মোহাম্মদ কামাল হোসেন, সিনিয়র সহ-সম্পাদক মাহফুজ বিন ইউসুফ ও সহ-সম্পাদক মোহাম্মদ মাহবুবুর রহমান খানসহ কায সাতজন।

সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির গঠনতন্ত্রের ২২ অনুচ্ছেদ অনুযায়ী সংখ্যাগরিষ্ঠের ভিত্তিতে কার্যকরী কমিটির সভায় সিদ্ধান্ত গ্রহণের বাধ্যবাধকতা রয়েছে। কিন্তু দূর্ভাগ্যজনক ভাবে কমিটির একজন সহ-সভাপতি সংখ্যাগরিষ্ঠ সদস্যদের মতামতের ভিত্তিতে নির্বাচন সাব-কমিটি গঠন না করে মনগড়া ভাবে কয়েকজনের নাম প্রস্তাব করেন বলে বিএনপি সমর্থকরা অভিযোগ করেন।

প্রতিবাদে মঙ্গলবার দুপুরে জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরাম সুপ্রিম কোর্ট ইউনিটের সভাপতি আবদুল জব্বার ভূইয়া ও সাধারণ সম্পাদক গাজী কামরুল ইসলাম সজলের নেতেৃত্বে কয়েকশ’ আইনজীবী সুপ্রিম কোর্ট বারে সুষ্ঠু নির্বাচনের দাবিতে বিক্ষোভ করেন। আইনজীবী মো: মনির হোসেন, মোহাম্মদ আলী, মো: আক্তারুজ্জামান, মো: মোর্শেদ আল মামুন লিটন, মোহাম্মদ মাহবুবুর রহমান খান, মাহফুজ বিন ইউসুফ, মাহফুজুর রহমান মিলন, এ কে এম এহসানুর রহমান, মো: মাকসুদ উল্লাহ, মু: কাইয়ুমসহ কয়েকশ আইনজীবী। তারা আওয়ামী পন্থী আইনজীবী কর্তৃক অবৈধভাবে নির্বাচন কমিশন গঠন বাতিল করে নির্দলীয় কমিশন গঠনের দাবিতে বিক্ষোভ মিছিল নিয়ে সুপ্রীম কোর্ট বারের সম্পাদকের কক্ষের সামনে ভোট চোর ভোট চোর বলে শ্লোগান দেন।

গত রোববার সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সভাপতির কক্ষের সামনে বিএনপি ও আওয়ামী লীগ সমর্থক কয়েকশ’ আইনজীবীরা মুখোমুখি স্লোগানে উত্তপ্ত হয়ে উঠেছে আদালত অঙ্গন। সোমবারও দুই দলের সমর্থক আইনজীবীরা সুপ্রিম কোর্ট বারে বিক্ষোভ করেন। এই নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার পর দুই পক্ষ পাল্টাপাল্টি অবস্থান নিয়ে যেভাবে বিক্ষোভ করছে তাতে দুই পক্ষের মধ্যে যেকোনো সময় সংঘর্ষ বেধে যেতে পারে বলে আইনজীবীরা মনে করেন। এর আগে গত বছর সম্পাদক পদের ফলাফল নিয়ে জটিলতা সৃষ্টি হওয়ায় দুই পক্ষের আইনজীবীরা হাতাহাতিতে জড়ায়। একজন আইনজীবীর শরীর থেকে রক্ত ঝরে। এবারও পরিস্থিতি অবনতি হতে পারে বলে শ্লিষ্ট আইনজীবীরা মনে করেন। এ বিষয়ে জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরাম সুপ্রিম কোর্ট ইউনিটের সভাপতি আবদুল জব্বার ভূইয়া, যে কোনো মূল্যে সুপ্রিম কোর্ট বারে নিল নকশার নির্বাচন প্রতিহত করা হবে। সুপ্রিম কোর্ট বারের ভোটারদের ভোটাধিকার সংরক্ষণে আমরা বদ্ধপরিকর।

আইনজীবী ফোরাম সুপ্রীম কোর্ট ইউনিটের সাধারণ সম্পাদক গাজী কামরুল ইসলাম সজল বলেন, অবৈধভাবে নির্বাচন কমিশন গঠন বাতিল করে নির্দলীয় কমিশন গঠন করতে হবে। সুপ্রীম কোর্ট বারের গঠনতন্ত্র অনুযায়ী নির্বাচন উপ কমিটি না হলে সেই কমিটি আমরা মেনে নেব না। ওই কমিটির অধীনে নির্বাচন হতে দেব না। প্রয়োজনে জীবন দিব কিন্তু আওয়ামী আইনজীবীদের নীল নকশা বাস্তবায়ন করতে দেয়া হবে না। তবে এ বিষয়ে মন্তব্য জানতে চাইলে সুপ্রিম কোর্ট বারের সম্পাদক আবদুন নূর দুলাল কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি।

পাল্টাপাল্টি নির্বাচন উপ কমিটি ঘোষণা: সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির ২০২৩-২০২৪ সেশনের ১৫ ও ১৬ মার্চ অনুষ্ঠিতব্য কার্যকরী কমিটির নির্বাচনের জন্য পাল্টাপাল্টি নির্বাচন উপ কমিটি ঘোষণা করেছে বিএনপি ও আওয়ামী লীগ সমর্থক আইনজীবীরা। কার্যরকরী কমিটির সম্পাদক (আওয়ামী লীগ সমর্থিত) আবদুন নূর দুলাল আইনজীবী শাহ খসরুজ্জামানের নেতৃত্বে সাদ সদস্যের উপ কমিটি ঘোষণা দেন। সম্পাদক আবদুন নূর দুলালের ঘোষিত নির্বাচন উপ কমিটির আহবায়ক হচ্ছেন শাহ খসরুজ্জামান। সদস্যরা হলেন, বীর মুক্তিযোদ্ধা মো.মনিরুজ্জামান, অপূর্ব কুমার ভট্টাচারর্যা, আব্দুল মালেক, এস এম গোলাম মোস্তফা তারা, মো.আলতাফ হোসেন আমানি ও আবু নাসের স্বপন।

অন্যদিকে রোববার সমিতির কার্যৃকরী কমিটির সিনিয়র সহ সম্পাদক (বিএনপি সমর্থিত) মাহফুজ বিন ইউসুফ আইনজীবী ড. এজেডএম ফরিদুজ্জামান ফরহাদের নেতৃত্বে সাত সদস্যের উপ কমিটি ঘোষণা করেন। এ দিন সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতিতে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি নির্বাচন সাব-কমিটি ঘোষণা করেন। সাব-কমিটির অন্য সদস্যরা হলেন- সমিতির সাবেক সহ-সভাপতি এ.এস.এম. মোক্তার কবির খান, ডঃ মোঃ গোলাম রহমান ভূইয়া, মোহাম্মদ আশরাফ-উজ-জামান খান, সাবেক সিনিয়র সহ-সম্পাদকমাহমুদ হাসান, বর্তমান কার্যকরী কমিটির কোষাধ্যক্ষ মোহাম্মদ কামাল হোসেন ও বর্তমান কমিটির সহ-সম্পাদক মোহাম্মদ মাহবুবুর রহমান খান।

এর আগে গত ২৩ ফেব্রুয়ারি বৃহস্পতিবার নির্বাচনের তারিখ ঘোষণা করে একটি নোটিশ জারি করা হয়েছে । সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির ২০২২-২০২৩ কার্যপকরী কমিটির নির্বাচনে ১৪টি পদের মধ্যে সভাপতি-সম্পাদকসহ সাতটি পদে বিজয়ী হয়েছিলো আওয়ামী লীগ সমর্থকরা। বাকী সাতটি পদে জিতেছিলো বিএনপি সমর্থকরা।

নির্বাচনী তফসিল অনুযায়ী ২৩ ফেব্রুয়ারি থেকে ০৫ মার্চ পর্যন্ত সকাল ১০ টা থেকে বিকাল ৫ টার মধ্যে মনোনয়ন পত্র জমা দেওয়া যাবে। ৫ মার্চ বিকাল সাড়ে ৫ টায় মনোনয়ন পত্র বাছাই এবং ৮ মার্চ বিকাল ৫ টার মধ্যে মনোনয়ন পত্র প্রত্যাহারের শেষ সময় ঘোষণা করা হয়।
কাযর্করী কমিটির সভাপতি পদে ১টি, সহ-সভাপতি পদে ২টি, সম্পাদক পদে ১টি, কোষাধ্যক্ষ পদে ১টি, সহ-সম্পাদক পদে ২টি এবং কার্যকরী কমিটির সদস্য পদে ৭টি পদ সহ সর্বমোট ১৪টি পদে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।


আরো সংবাদ



premium cement
‘যুদ্ধ শুরু হলে নিশ্চিতভাবে লেবানন হবে ইসরাইলের জন্য দোযখ’ ট্রাম্পকে হত্যাচেষ্টার ছবি যেভাবে নির্বাচনকে প্রভাবিত করতে পারে? ট্রাম্পের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রের অভিযোগ প্রত্যাখ্যান ইরানের কোটাবিরোধী আন্দোলনে রক্তাক্ত সহিংসতায় চট্টগ্রামে ৪ মামলা শান্তিপূর্ণ পরিবেশ বজায় রাখার আহবান পুলিশ সদর দফতরের কোটা আন্দোলনকারী ৬ শিক্ষার্থী হত্যার তীব্র নিন্দা জানিয়েছে হেফাজতে ইসলাম খাগড়াছড়িতে গাড়ির চাকায় পিষ্ট হয়ে শিশু নিহত, আহত মা ক্যাম্পাসে রাজনীতি নিষিদ্ধসহ শিক্ষার্থীদের ৬ দফা দাবি মেনে নেয়ার আশ্বাস জবি প্রশাসনের ছাত্রলীগ ও প্রশাসনের সাঁড়াশি অভিযান, ছাত্রশিবিরের তীব্র নিন্দা জাফর ইকবালের বই পুড়িয়ে শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ কোটা আন্দোলনে নিহতদের নাম বুকে লিখে তাজিয়ার আদলে প্রতিবাদী মিছিল

সকল