১০ ডিসেম্বর ২০২২, ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৯, ১৫ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪ হিজরি
`

ঢাবিতে আগের পরীক্ষায় পরবর্তী পরীক্ষার প্রশ্ন, বুঝতে পেরে বাতিল

-

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগের চতুর্থ বর্ষের অষ্টম সেমিস্টারের ফাইনাল পরীক্ষায় এক পরীক্ষার দিনে পরবর্তী পরীক্ষার প্রশ্নের প্যাকেট খোলার অভিযোগ উঠেছে।

সূত্র জানায়, বুধবার (২৮ সেপ্টেম্বর) ওই সেমিস্টারের ৪০৭ নম্বর কোর্সের (ডেভেলপিং অব মুসলিম আর্টস অ্যান্ড আর্কিটেকচার) পরীক্ষা হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু পরীক্ষা কমিটির অবহেলায় পরবর্তী তারিখে অনুষ্ঠিতব্য পরীক্ষা তথা ৪০৮ নম্বর কোর্সের (মুসলিম হিস্ট্রিওগ্রাফি : খিলাফত, সালতানাত অ্যান্ড মুঘল ইন্ডিয়া) প্রশ্নপত্র খোলা হয়। যেটি আগামী পহেলা অক্টোবরে হওয়ার কথা ছিল।

নিয়মানুযায়ী, একটি পরীক্ষার প্রশ্নপত্র ওই পরীক্ষার কমিটি ছাড়া আর কারো কাছে থাকতে পারবে না এবং পরীক্ষার পাঁচ মিনিট আগে পর্যন্ত এই প্রশ্নপত্রের প্যাকেট খোলা যাবে না। কিন্তু এই নিয়মের ব্যত্যয় ঘটেছে ওই পরীক্ষায়। পরীক্ষা কমিটির সভাপতি ও সদস্যরা ভুল করে পরবর্তী পরীক্ষার প্রশ্নের প্যাকেট এই পরীক্ষার প্যাকেটে দেয়। যা তাদের দায়িত্বের অবহেলা বলে মনে করছেন অনেকে।

তবে ভুল প্রশ্নের প্যাকেট খোলা হলেও শিক্ষার্থীদের তা দেয়া হয়নি।

পরীক্ষাকেন্দ্রের দায়িত্বে থাকা অধ্যাপক ড. আতাউর রহমান বিশ্বাস ভুল প্রশ্নের বিষয়টি পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক অফিসে জানান এবং পরে ওই প্রশ্ন সিলগালা করে ৪০৭ নম্বর কোর্সের পরীক্ষা নেন।

যদিও পরীক্ষার দায়িত্বে থাকা অধ্যাপক ড. আতাউর রহমান বিশ্বাস ফোনে এই বিষয়ে কথা বলতে রাজি হননি। তবে পরীক্ষা কমিটির এমন দায়িত্বে অবহেলায় ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন অনেকে।

জানা যায়, ওই পরীক্ষা কমিটির সভাপতি ছিলেন অধ্যাপক ড. নুসরাত ফাতেমা এবং সদস্য ছিলেন অধ্যাপক ড. এ কে এম গোলাম রব্বানী ও অধ্যাপক ড. আবুল কালাম আজাদ। এ বিষয়ে জানতে অধ্যাপক ড. নুসরাত ফাতেমাকে ফোন করা হলে তিনি রিপোর্টারের পরিচয় জানতে পেরে বলেন, ‘রিপোর্টারের আমার সাথে কি কাজ? রিপোর্টারের সাথে কোনো কথা নেই।’

এ বিষয়ে প্রো-ভিসি (শিক্ষা) অধ্যাপক ড. এ এস এম মাকসুদ কামাল বলেন, ‘আমি একটা মিটিংয়ে আছি। পরীক্ষা নিয়ন্ত্রকের সাথে আগে এ বিষয়ে কথা বলে তারপর বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রচলিত নিয়মানুযায়ী ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

এ বিষয়ে জানতে পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক মো: বাহলুল হক চৌধুরীকে কয়েকবার মোবাইল ফোনে কল এবং হোয়াটসঅ্যাপে মেসেজ দেয়া হলেও তিনি কোনো সাড়া দেননি।

তবে পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক অফিসের একাধিক সূত্র বিষয়টি নিশ্চিত করেছে।


আরো সংবাদ


premium cement