২১ মে ২০২২
`

যে কারণে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ, জানালেন শিক্ষামন্ত্রী


মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের এক নির্দেশনায় জানানো হয়েছে, স্কুল ও কলেজ এবং সমমানের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান আগামী ৬ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত বন্ধ থাকবে। আগামী দুই সপ্তাহ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকবে। নির্দেশনায় বলা হয়েছে, বিশ্ববিদ্যালয়গুলো নিজ নিজ ক্ষেত্রে অনুরূপ সিদ্ধান্ত নেবে।

শুক্রবার সকালে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধের কারণ জানিয়ে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, করোনাভাইরাসের সংক্রমণ এখন শিশুদের মধ্যে ঘটছে। এটি আগে ছিল না। এটা আমলে নিতে হয়েছে। মাঠের চিত্রের ওপর ভিত্তি করেই শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

শিক্ষামন্ত্রী জানান, বৃহস্পতিবার স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহাপরিচালকের সাথে হাসপাতালের পরিস্থিতি নিয়ে তার কথা হয়। এখন শিশুদের মধ্যে সংক্রমণ ঘটছে। এ নিয়ে তিনি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেকের সাথে কথা বলেছেন। এরপরই শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধের সিদ্ধান্ত হয়।

তিনি বলেন, পরিস্থিতি সার্বক্ষণিক নজরে রাখা হবে, যখনই মনে হবে ক্লাসরুমে ফিরে যাওয়া সম্ভব, তখনই ফিরে যাওয়া হবে।

এর আগে শুক্রবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে রাজধানীর মহাখালীতে স্বাস্থ্য অধিদফতরে করোনার সার্বিক পরিস্থিতি নিয়ে ব্রিফিংকালে স্বাস্থ্যমন্ত্রী জানান, শুক্রবার ২১ জানুয়ারি থেকে ৬ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকবে।

তিনি বলেন, সামাজিক, রাজনৈতিক ও ধর্মীয় অনুষ্ঠানে ১০০ জনের বেশি লোক অংশ নিতে পারবে না। সরকারি ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠান অর্ধেক জনবল নিয়ে চলবে। এ ব্যাপারে সিদ্ধান্ত হয়েছে।

মন্ত্রী বলেন, করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিক হওয়ায় আমরা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলেছিলাম। সব অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ড বজায় রেখেছিলাম। কিন্তু ইদানীং শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে করোনা সংক্রমণের হার বেড়ে যাচ্ছে। তাই প্রধানমন্ত্রীর সাথে আলোচনা করে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।


আরো সংবাদ


premium cement