২০ এপ্রিল ২০২১
`

ইবির করোনাকালীন প্রণোদনা প্যাকেজে অসমতা

ইবির করোনাকালীন প্রণোদনা প্যাকেজে অসমতা - ছবি : নয়া দিগন্ত

ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের (ইবি) কর্মকর্তাদের করোনাকালীন বিশেষ প্রণোদনা প্যাকেজে অসমতার অভিযোগ উঠেছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের অন্যান্য অফিসের কর্মকর্তারা বিশেষ প্রণোদনা পেলেও উপেক্ষিত রয়েছেন পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক অফিসের কর্মকর্তারা। পরে উপেক্ষিত কর্মকর্তারা ভিসি অধ্যাপক ড: শেখ আবদুস সালামের কাছে আবেদন করলে তাদের অর্ধেক প্রণোদনা প্রদানের আশ্বাস দেন তিনি।

জানা যায়, করোনার প্রকোপ বৃদ্ধি পাওয়ায় গত বছরের ১৭ মার্চ বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ ঘোষণা করে প্রশাসন। পরে ৬ জুন থেকে সীমিত আকারে বিশ্ববিদ্যালয়ের দাফতরিক কার্যক্রম চালু রাখার সিদ্ধান্ত নেয় কর্তৃপক্ষ। এ সময় ঝুঁকি নিয়ে দাফতরিক কাজে অংশ নেয়ায় এ দু’মাসের (জুন ও জুলাই) মোট ২০ দিনের প্রণোদনা প্যাকেজ ঘোষণা করে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।

পরে বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার, অর্থ ও হিসাব শাখা হতে কর্মকর্তাদের তালিকা করা হলেও বাদ পড়ে পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক অফিসের কর্মকর্তারা। এ ব্যাপারে প্রশাসন থেকে পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক অফিসে কোনো চিঠিপত্রও দেয়া হয়নি বলে অভিযোগ করেন তারা। পরে অর্থ কমিটির সভা ও ২৫০তম সিন্ডিকেটে পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক অফিসকে উপেক্ষিত রেখেই প্রণোদনা প্যাকেজ পাশ হয়।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক দফতরের একাধিক কর্মকর্তা বলেন, ‘আমাদের কাছে আগে কোনো তালিকা চাওয়া হয়নি। পরে এ বিষয়ে অবগত হয়ে বর্তমান প্রশাসনকে তালিকা প্রদান করা হলে প্রণোদনা প্রদানে অসম্মতি জানায় প্রশাসন। পরে আলোচনার একপর্যায়ে অর্ধেক প্রণোদনা দেয়ার সিদ্ধান্ত হয়।’

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার (ভারপ্রাপ্ত) আতাউর রহমান বলেন, ‘উক্ত অফিসের তালিকা কেন করা হয়নি এটা তাদের ব্যর্থতা। প্রণোদনার জন্য কোনো অফিসেই তালিকা চাওয়া হয়নি। তারা নিজ থেকেই তালিকা দিয়েছে। তবুও ভিসি স্যারের সাথে কথা বলে তাদের জন্য মোট প্রণোদনার পঞ্চাশ শতাংশ ব্যবস্থা করা হয়েছে।’



আরো সংবাদ